স্বপ্নের ফ্লাইওভার ……




বাসা থেকে অফিসের উদ্দেশ্যে খুব সকাল সকাল বের হয়ে শনির আখড়া বাস স্ট্যান্ড। এর পর হুড়হুড়ি করে বাসে উঠা। খুব সৌভাগ্যবানরাই সিট পেতো তখন। অন্যথায় বাসের হ্যান্ডেল ধরে ঝুলে থাকা ছাড়া কোনো গতি নাই।বাসে যাত্রাবাড়ী পর্যন্ত আসতেই পাড়ি দিতে হত দীর্ঘ দুই—আড়াই ঘন্টার জ্যাম।এর পর যাত্রাবাড়ী থেকে গুলিস্তান পর্যন্ত আরো এক ঘন্টা।কপাল বেশি খারাপ হলে এখান থেকেও দেড়—দুই ঘন্টার ফের।কথায় বলে বুদ্ধি থাকলে ঘর জামাই থাকা লাগেনা।শনির আখড়া থেকে যাত্রাবাড়ী আসতে সেই দুই ঘন্টা বাঁচাতাম তখন পায়ে হেটে।হেটে যাত্রাবাড়ী পর্যন্ত আসতে সময় লাগতো মাত্র ২০ থেকে ২৫ মিনিট। এভাবেই কাটিয়ে দিলাম তিন বছরের কিছু অধিক সময় । কেটে গেলো কত শীত,কত বসন্ত।কত বৃস্টি, কত খরা।আর তীর্থের কাকের মত চেয়ে থাকতাম স্বপ্নের যাত্রাবাড়ী – গুলিস্থান (মেয়র হানিফ ফ্লাইওভার) উড়াল সেতুটির দিকে।কবে এর কাজ শেষ হবে? কবে এই অঞ্চলের মানুষদের দুর্ভোগের যবনিকাপাত ঘটবে?
অবশেষে অপেক্ষার প্রহর শেষ হল গতকাল।

শুক্রবার বিকাল প্রায় পৌনে ৪টার দিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রথমেই গুলিস্তান পয়েন্ট থেকে গাড়িতে চড়ে উড়াল সড়ক ব্যবহার করে কুতুবখালী প্রান্ত উদ্বোধন করেন। সেখানে মোনাজাত শেষে প্রধানমন্ত্রী নিজে ৫০ টাকা টোল দেন। টোল দেয়া শেষে তিনি সেখানে উপস্থিত হাজার হাজার উল্লসিত মানুষের মাঝে হাত নেড়ে শুভেচ্ছা জানিয়ে আবার ফ্লাইওভার দিয়ে ওসমানী মিলনায়তনের উদ্দেশে রওনা দেন।

গুলিস্তান-যাত্রাবাড়ী ফ্লাইওভার

ফ্লাইওভারটির নির্মাণকাজ এখনও পুরোপুরি শেষ হয়নি। আপাতত গুলিস্তান পর্যন্ত উড়াল সড়কটি খোলা হয়েছে। প্রায় সাড়ে ১১ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে এ উড়াল সড়কটি রাজধানীর শনিরআখড়া থেকে যাত্রাবাড়ী, সায়েদাবাদ, টিকাটুলি এবং গুলিস্তান হয়ে নিমতলী পর্যন্ত। এটি চালু হওয়ায় রাজধানী ছাড়াও ঢাকা-চট্টগ্রাম ও সিলেটসহ পূর্বাঞ্চলীয় এবং উত্তর-পূর্বাঞ্চলের ৩০টি জেলায় যাতায়াতে বাড়তি সুবিধা পাওয়া যাবে। চার লেনবিশিষ্ট এ উড়াল সড়কে ৬টি প্রবেশ ও ৭টি বের হওয়ার পথ (র‌্যাম্প) রয়েছে। এর মধ্যে ৩টি র‌্যাম্পের কাজ বাকি রেখেই উড়াল সড়কটি উদ্বোধন করা হয়েছে। তবে আগামী ১৬ ডিসেম্বরের মধ্যে সব কাজ শেষ করা যাবে বলে আশা প্রকাশ করেছে কর্তৃপক্ষ। প্রথমবারের মতো সরকারী-বেসরকারী উদ্যোগে এটি নির্মাণে বিনিয়োগ করেছে ওরিয়ন ইনফ্রাস্ট্রাকচার লিমিটেড।

এতে মোট ব্যয় হয়েছে ২ হাজার ১০৮ কোটি টাকা। ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের তত্ত্বাবধানে এ উড়াল সড়ক নির্মিত হয়েছে।
২০০৩ সালে ৬ দশমিক ৭ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য ফ্লাইওভারটির নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছিল ৬৭০ কোটি টাকা। বিল্ট-অন-অপারেট এ্যান্ড ট্রান্সফার (বিওওটি) পদ্ধতিতে ফ্লাইওভারটি নির্মাণের জন্য ডিসিসি ২০০৫ সালের ২১ জুন ওরিয়ন গ্রুপের সঙ্গে একটি চুক্তি করে। কাজ শুরুর আগেই তত্ত্বাবধায়ক সরকার চুক্তিটি বাতিল করে দেয়। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর ফ্লাইওভারটির নির্মাণকাজ আবার ওরিয়ন গ্রুপকেই দেয়া হয়। তবে শর্ত জুড়ে দেয়, নতুন করে নক্সা তৈরি এবং এটি আরও সম্প্রসারণ করতে হবে। তাই সরকারের নির্দেশে ওরিয়ন গ্রুপ আবারও নক্সা সংশোধন করে।

নতুন নক্সায় ফ্লাইওভারটির দৈর্ঘ্য দাঁড়ায় ১১ কিলোমিটার। দৈর্ঘ্য বেড়ে যাওয়া এবং আনুষঙ্গিক খরচ বেড়ে যাওয়ায় এর নির্মাণ ব্যয় বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ১০৮ কোটি টাকা। সম্পূর্ণ বেসরকারী অর্থায়নে বিওওটি পদ্ধতিতে নির্মিত এ ফ্লাইওভারটি নির্মাণের মাধ্যমে দেশের অবকাঠামো খাতে উন্নয়নের এক নতুন দুয়ার উন্মোচিত হলো। ফ্লাইওভারটির ধারণক্ষমতা ২০০ টন এবং স্থায়িত্বকাল ১০০ বছর। এই ফ্লাইওভারে ব্যবহৃত টোল সরঞ্জামাদি সরবরাহ ও সংযোজনের কাজ করছে ইউরোপের বিখ্যাত টোল ইক্যুইপমেন্ট কোম্পানি জিইএ ফ্রান্স। অত্যাধুনিক পদ্ধতিতে নির্মিত এ ফ্লাইওভারের কাজ করেছে ভারতের বিখ্যাত নির্মাণ প্রতিষ্ঠান সিমপ্লেক্স ইনফ্রাস্ট্রাকচার লিমিটেড। নির্মাণকাজের ব্যবস্থাপনা করছে লাসা নামে ভারতের আরেকটি কোম্পানি। এ ছাড়াও এই ফ্লাইওভারের ডিজাইন কনসালটেন্ট হিসেবে কাজ করে কানাডাভিত্তিক কোম্পানি লিমিটেড এ্যাসোসিয়েটস এবং তাদের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান লাসা ইন্ডিয়া। নির্মাণকাজে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত এএএসএইচটিও নীতিমালা অনুসরণ করা হয়। ফ্লাইওভারটির ডিজাইন করেছে কানাডিয়ান কোম্পানি লিমিটেড কানাডা।

ফ্লাইওভারের টোলের হার

বড় বাস – ১৫০ টাকা
মিনিবাস – ১০০ টাকা
ট্রাক – ১৫০ টাকা
মিনি ট্রাক (তিন টন পর্যন্ত) – ১০০ টাকা
কার (১৩ সিসি পর্যন্ত) – ৩০ টাকা
জিপ – ৪০ টাকা
মাইক্রোবাস – ৫০ টাকা
পিকআপ – ৭৫ টাকা
থ্রি হুইলার – ১০ টাকা
মোটরসাইকেল – ৫ টাকা
ট্রেইলার – ২০০ টাকা।
আজ এই আনন্দের দিনে উল্লাসে উদ্বেলিত উজবুক কবি শঙ্খনীল কারাগার হেরে গলা ছেড়ে গান গেয়ে উঠলেন—

স্বপ্ন দেখেছি – স্বপ্ন পুষেছি
স্বপ্নকে বাস্তব রূপ দিয়েছি,
হার না মানা বাঙ্গালীর জাত
সম্মুখ পানে এগিয়ে যাক।

৪৪ thoughts on “স্বপ্নের ফ্লাইওভার ……

  1. স্বপ্ন দেখেছি – স্বপ্ন
    স্বপ্ন দেখেছি – স্বপ্ন পুষেছি
    স্বপ্নকে বাস্তব রুপ দিয়েছি,
    হার না মানা বাঙ্গালীর জাত
    সম্মুখ পানে এগিয়ে যাক।

    :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া:

  2. স্বপ্ন দেখেছি – স্বপ্ন

    স্বপ্ন দেখেছি – স্বপ্ন পুষেছি
    স্বপ্নকে বাস্তব রুপ দিয়েছি,
    হার না মানা বাঙ্গালীর জাত
    সম্মুখ পানে এগিয়ে যাক

    আবেগের সার্থক রুপায়ন :তালিয়া: :তালিয়া: 😀 … ফ্লাইওভারটার জন্য শুভকামনা রইল… :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :ধইন্যাপাতা: :গোলাপ: :বুখেআয়বাবুল: :বুখেআয়বাবুল:

    1. চলে আসবেন একদি এপথেই,
      চলে আসবেন একদি এপথেই, চট্রগ্রাম—সিলেট—অথবা পূর্বাঞ্চলের যে কোনো জেলায়,যখন এই ফ্লাইওভারের উপর দিয়ে যাবেন তখন মনে করবেন আমার কথা-আমাদের কথা যারা তিন বছর টনের পর টন ধুলো ফুস ফুসে ধারন করেছি অতপর স্বপ্নের বাস্তবায়ন দেখেছি।আমাদের ত্যাগটা তখন যেন ভুলে যাবেন না। :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ:

  3. প্রতিবারই চট্টগ্রাম থেকে
    প্রতিবারই চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় আসার সময় সারা পথে জ্যাম না থাকলেও যাত্রাবাড়ীতে কমপক্ষে ২ ঘণ্টা জ্যামে পড়ে থাকি। ইহা থেকে কি মুক্তি পাইব????

    1. অবশ্যই, জ্যাম নিরসনকে মাথায়
      অবশ্যই, জ্যাম নিরসনকে মাথায় রেখেই এর প্লান করা হয়েছে।এমন সঙ্কার কোনো কারন নেই।ভালো জাতের বীজ বুনলে ফলন ভাল হয়,নিশ্চিন্তে থাকুন।ডিসেম্বর পর্যন্ত ১০০ভাগ কাজ শেষ হবার অপেক্ষা করুন।বাঙ্গালী হিসেবে আপনিও গর্ববোধ করবেন।

      1. ভাই কিী শুনাইলেন?! আমি
        :কানতেছি: :কানতেছি: :কানতেছি: :কানতেছি: :কানতেছি: :কানতেছি: :কানতেছি:
        ভাই কিী শুনাইলেন?! আমি ডিসেম্বর পর্যন্তই ঢাকা যাবো। এরপর তিন বছর আর যাবো না। :ভাঙামন:

        1. আমিতো বলিনাই ডিসেম্বর পর্যন্ত
          আমিতো বলিনাই ডিসেম্বর পর্যন্ত জ্যাম থাকবে।বলেছি ডিসেম্বরে পূর্ণ কাজ শেষ হবে।আর জ্যামতো আজকেই নেই।বিশ্বাস না হলে চলে আসুন এখনই। :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ:

          1. তাই নাকি? আজই আমি ঢাকা থেকে
            তাই নাকি? আজই আমি ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম যাব, রাতের বাসে!!
            আশাকরি উদ্বোধনের প্রথম দিনের একজন যাত্রী হব… কালই জানাচ্ছি আপনাদের।। তবে আসল কথা ওইটাই- “ভালো জাতের বীজ বুনলে ফলন ভাল হয়”
            চমৎকার তথ্যবহুল পোস্টটির জন্য অফুরন্ত ধইন্যা… :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :ফুল: :ফুল: :ফুল: :ফুল: (সাথে কিছু গোলাপ ফ্রি…)

          2. ফ্লাইওভারে উঠলাম চারদিক দেখতে
            ফ্লাইওভারে উঠলাম চারদিক দেখতে দেখতেই ৬/৭ মিনিটে শেষ! চারপাশের মানুষের উৎসাহী ভীর ছিল!
            তারপরও যাত্রাবাড়ী-গুলিস্তান পার হয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম রোডে উঠতে মনে হয় এই ৬/৭ মিনিটের ফ্লাই-ওভারটি বিরক্তিকর জ্যামের ১.৫ থেকে ২ ঘণ্টা সময় বাঁচিয়ে দিয়েছে… ধন্যবাদ ওরিয়ন গ্রুপ-ধন্যবাদ সরকারকে :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ:

          3. (No subject)
            :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :ভালুবাশি: :ভালুবাশি: :ভালুবাশি:

          4. গতকাল মানুষের আনন্দ আর উৎসাহে
            গতকাল মানুষের আনন্দ আর উৎসাহে মনে হচ্ছিল এইটা বোধহয় ২য় হাতিরঝিল :নৃত্য: :নৃত্য: :নৃত্য: … একজনের কথা শুনে বিশাল মজা পাইছি… উনি ফ্লাইওভারের উপ্রে উইঠা মনে হয় তার বউরে কল দিছিল। মোবাইলে চিল্লায়ে চিল্লায়ে বলতেছে””

            বউ, আমি এখন ফেলাইঅভারের উপ্রে, তুমারে আনতে পারলে দেখতা, কি বানাইছে!!!””

            :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :চশমুদ্দিন: :চশমুদ্দিন: :ভেংচি: আহারে, তার আনন্দটা ছিল দেখার মত… :ভালুবাশি: :ভালুবাশি: 😀 😀

  4. উড়াল সড়কের জন্য সরকার কে
    উড়াল সড়কের জন্য সরকার কে ধন্যবাদ। আশাকরি জ্যাম কমবে। ভাল বিষয় পিপিপি’র একটি সফল উদ্যোগ সম্পন্ন হল।সুন্দর লেখার জন্য আপনাকেও ধন্যবাদ। :ফুল: :ফুল: :ফুল:

    1. ধন্যবাদ কিরন ভাই।আসলে
      ধন্যবাদ কিরন ভাই।আসলে দীর্ঘদিন আমাদের এই অঞ্চলের মানুষের যে দুর্ভোগ ছিল,তার অবসান বুঝি এবার হল।তাই আমাদের উচ্ছাসটাও একটু বেশী। :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ:

  5. ভাই ফ্লাইওভারটি সরকারি এবং
    ভাই ফ্লাইওভারটি সরকারি এবং বেসরকারির যৌথ উদ্যোগে নির্মান হচ্ছে।এখন বেসরকারি প্রতিষ্ঠান (পিপিপি) তো আর এটি বিনামূল্যে করে দেবে না।পৃথিবীর সব দেশে এরকমটাই করা হয়ে থাকে।আমাদের দেশেও টোল ব্যাবস্থা নতুন কিছুতো নয়।কোনো উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য সরকারও তার সহযোগী প্রতিষ্ঠান থেকে দেনা করে থাকেন।সেই দেনাও টোল নিয়েই পরিশোধ করতে হয়।আমাদের মত দেশে এভাবেই উন্নয়ন কার্যক্রম অতীতেও চলেছে এখনও চলছে।

  6. ফ্লাইওভারটি বহু বছর আগে মেজর
    ফ্লাইওভারটি বহু বছর আগে মেজর জিয়াই উদ্ভোধন করে গিয়েছিলেন ।পরে কালের বিবর্তনে ধুলাবালি পড়ে ফ্লাইওভারটি ঢেকে যাওয়ায় এতদিন কারো চোখে পড়েনি ।বর্তমান সরকার গত তিন বছর আগ থেকে ধুলাবালি পরিস্কার করে আসছিল ।বিপুল পরিমান অর্থ ব্যায় করে অল্প পরিমান ধুলাবালি পরিস্কার করে বাকশালী সরকার ক্ষমতার শেষ মুহুর্তে এসে ফ্লাইওভারটি মানুষের নজরে আনতে সম্ভবপর হয় যদিও ৩০ ভাগ এখনো ধুলার নিচে পড়ে রয়েছে।আমরা ক্ষমতায় গেলে জিয়ার স্বপ্ন অনুযায়ী একটি দুটি নয়, সমস্থ ঢাকা শহরকে ফ্লাইওভার বানিয়ে ছাড়বো এনশাল্লাহ।
    – জৈনিক বিএনপি নেতা ।

    বিভিন্ন স্ট্যাটাস বা ব্লগ পোষ্টে এই ধরনের কোটেশন ও চোখে পড়তে পারে ।
    হায়রে রাজনীতি!

    1. (No subject)
      :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে:

    2. যা মূল লেখায় উল্লেখ
      যা মূল লেখায় উল্লেখ করিনাই,২০০৫ সালে বিএনপি সরকার ওরিয়ন গ্রুপের সাথে চুক্তি করে।কিন্তু ওরিয়ন গ্রুপ কাজটি শুরু করতে পারে নাই।প্রবলেম ঐ একটাই।মিঃ টেন পর্সেন্ট।পরবর্তীকালে তত্বাবধায়ক সরকার প্রকল্পটি বাদ দেন।

      1. মিস্টার ১০% আবার আসছে বলে…
        মিস্টার ১০% আবার আসছে বলে… এইবার মেট্রোরেলের কাজটিও স্থবির হবে যাত্রাবাড়ী-গুলিস্থান ফাইওভারের মত!! তবুও আমরা উগ্র ধর্মীয় মৌলবাদ বান্ধব জঙ্গি সরকার চাই… দুনিয়াতে কিছু না দিলেও তাড়াতাড়ি আখিরাতে পাঠানোর ব্যবস্থা অন্তত তারা করতে পারবে… প্রস্তুতি নিন সবাই!!

        1. দুনিয়ায় কোনো মজা নাইরে তারিক
          দুনিয়ায় কোনো মজা নাইরে তারিক ভাই। সবাই চায় ঐ দুনিয়ায় কিছু পাইতে, চাইতে, খাইতে। এজন্যই শেষ কালে দেখবেন ১০% মিয়া হজ্ব করে আসবে। হাজী ১০% এর দ্বীনি দাওয়াত কবুল করেন, নয়তো আমরা নাস্তিক মুরতাদ বলগার। তাও, অনেক পাবলিককে দেখলাম ফেসবুকে এই ফ্লাইওভারের অপকারিতা নিয়ে লাফাচ্ছে! এদের কাছে কোনো একটা উন্নয়ন কার্যকে মনে হয় দেশের জন্য হুমকি। কেমন যেন বিকৃত চিন্তা গ্রাস করে নিচ্ছে।

          1. তাও, অনেক পাবলিককে দেখলাম

            তাও, অনেক পাবলিককে দেখলাম ফেসবুকে এই ফ্লাইওভারের অপকারিতা নিয়ে লাফাচ্ছে!

            এগুলারে গাড়ির পিছে বাইন্ধা ফ্লাইওভারের উপ্রে দিয়া ঘোরানো উচিৎ… :এখানেআয়: :এখানেআয়: :এখানেআয়:

          2. এইটা দুর্দান্ত ডনীয় টর্চার
            এইটা দুর্দান্ত ডনীয় টর্চার আইডিয়া…
            😀 😀 😀 :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :নৃত্য: :নৃত্য: :নৃত্য: :নৃত্য: :পার্টি: :পার্টি: :পার্টি: :পার্টি: :পার্টি: :পার্টি: :পার্টি:
            এমন শাস্তির বিধান আসলেই চমৎকার হত…

  7. ট্রান্সপোর্ট সেক্টরের
    ট্রান্সপোর্ট সেক্টরের সমীক্ষার সুপারিশ অনুসারে ১৯৯৯ সালে গত আওয়ামীলীগ সরকারের আমলে যাত্রাবাড়ী ফ্লাইওভারের নির্মাণ উদ্যোগ নেয়া হয়! ২০০০ সালের মধ্যেই সম্পন্ন করা হয় রাজধানীর অন্যতম প্রধান গেটওয়েতে যাত্রাবাড়ী-গুলিস্তান ফ্লাইওভারের “Feasibility Study including Design Options…”!২০০৪ সালে বিএনপি’র আমলে গেজেট প্রকাশ আর নির্দেশিকা বের কাজ হয় এবং নির্মাণের জন্য ডিসিসি ২০০৫ সালের ২১ জুন ওরিয়ন গ্রুপের সঙ্গে একটি চুক্তি করে; তাছাড়া নির্মাণ কাজের সকল কাজ স্থবির হয়ে পরে।
    এই সরকারের আমলে পরিকল্পনার বাকি অংশ শেষে ২২ জুন ২০১০ সালে কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়! অবশেষে সরকারের এক আমলেই নির্মাণ কাজের মূল অংশটি শেষ করে সরকার…

    এত কিছুর পরও যখন খোকা নামের এক বৃদ্ধ বাচাল আবোলতাবোল বকতে থাকে তখন আসলে আর কিছুই করার বা বলার থাকে না..
    শঙ্খনীল-ভাই আপনাকে অফুরন্ত ধন্যবাদ আবারও… :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :bow: :bow: :bow:

    1. চমৎকার একটি তথ্য দিলেন তারেক
      চমৎকার একটি তথ্য দিলেন তারেক ভাই। সেই জন্য আবারও আপনাকে ধন্যবাদ। :bow: :bow: :bow: :bow: :bow: :bow: :bow:

  8. আহা,কি আনন্দ আকাশে
    আহা,কি আনন্দ আকাশে বাতাশে।২ঘন্টার পথ পাড়ি দিলাম ৫ মিনিটে। দেশটা কেমন যেন সিঙ্গাপুর টাইপ হয়ে যাচ্ছে।অথবা দুবাই,অথবা মালয়েশিয়া। বাকশালী সরকার আসলেই খারাপ।খুব খারাপ।

    1. আসলেই তাই… টোল দেয়া সহ
      আসলেই তাই… টোল দেয়া সহ গতরাতে আমার সময় লেগেছে ৬/৭ মিনিট!!
      রাতের অন্ধকার বলে ভাল করে দেখতে পারি নি!! তবে নান্দনিক দিক থেকে রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান ফ্লাই-ওভার কে বা, কুরিল ফ্লাই-ওভারের মত দৃষ্টিনন্দন না হলেও কাজের দিক থেকে অধিক সফল হবে এই প্রকল্পটি! সরকারকে আবারও অভিনন্দন…

      1. কাজ সম্পূর্ণ শেষ হলে এটাও
        কাজ সম্পূর্ণ শেষ হলে এটাও অনেক সুন্দর হবে।তবে দীর্ঘতার কারনে এর মজবুত ভিত্তির উপরই বেশী জোর দেয়া হয়েছে।

  9. আমি রাজনীতি অতশত বুঝি না। এই
    আমি রাজনীতি অতশত বুঝি না। এই ফ্লাইওভার কে শুরু করেছিলো, কে শেষ করলো, যে শেষ করলো তাকে কেন শুধু ক্রেডিট দেওয়া হবে? যে শুরু করতে চেয়েছিলো, তাকে কেনো ভুলে যাচ্ছি? উফফ! আবার কয়েকটা পোস্ট দেখলাম ফ্লাইওভারকে কটাক্ষ করে লেখা হয়েছে।

    আমি খালি একটা ব্যাপারই বুঝি, তা হলো – ফ্লাইওভার হয়েছে। জ্যাম সংক্রান্ত বিপত্তি দূরীকরণের একটা সুযোগ এসেছে। কিছুদিন আগে উদ্বোধন হওয়া ফ্লাইওভারটা দেখে যেরকম খুশি হয়েছিলাম, এখনো সেরকম খুশি লাগছে।

    লেখককে ধন্যবাদ বর্ণনামূলক পোস্টটির জন্য। সাথে তারিক ভাইকেও ধন্যবাদ সংযোজিত তথ্যের জন্য :গোলাপ:

  10. মেডাম শুরুও বাকশালী সরকার
    মেডাম শুরুও বাকশালী সরকার করেছিলো, শেষও ওই বাকশালী সরকারই করেছে।আপনি মনে হয় তারেক ভাইয়ের কমেন্টস টা পড়েন নাই,তাই আপনার জ্ঞ্যাতার্থে হুবহু তুলে ধরলাম-ট্রান্সপোর্ট সেক্টরের সমীক্ষার সুপারিশ অনুসারে ১৯৯৯ সালে গত আওয়ামীলীগ সরকারের আমলে যাত্রাবাড়ী ফ্লাইওভারের নির্মাণ উদ্যোগ নেয়া হয়! ২০০০ সালের মধ্যেই সম্পন্ন করা হয় রাজধানীর অন্যতম প্রধান গেটওয়েতে যাত্রাবাড়ী-গুলিস্তান ফ্লাইওভারের “Feasibility Study including Design Options…”!২০০৪ সালে বিএনপি’র আমলে গেজেট প্রকাশ আর নির্দেশিকা বের কাজ হয় এবং নির্মাণের জন্য ডিসিসি ২০০৫ সালের ২১ জুন ওরিয়ন গ্রুপের সঙ্গে একটি চুক্তি করে; তাছাড়া নির্মাণ কাজের সকল কাজ স্থবির হয়ে পরে।
    এই সরকারের আমলে পরিকল্পনার বাকি অংশ শেষে ২২ জুন ২০১০ সালে কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়! অবশেষে সরকারের এক আমলেই নির্মাণ কাজের মূল অংশটি শেষ করে সরকার…

    1. আমি আসলে আমার চারপাশে ঘটে
      আমি আসলে আমার চারপাশে ঘটে যাওয়া আলাপ-আলোচনা প্রসঙ্গে মন্তব্যটা করেছিলাম।

      আর আপনি ভেবেছেন এটা আমার মন্তব্য।

  11. আমি খেলবো না। সে যে ক্লাশ
    আমি খেলবো না। সে যে ক্লাশ ফাইভে শেষ বারের মত ঢাকা গেছিলাম আর যাওয়া হয়নাই। কেমন আছে ঢাকা সেটাও জানি না। কখন যাওয়া হবে আশায় আশায় আছি। :আমারকুনোদোষনাই:

  12. আজ খবর পড়লাম টোল বেশি হওয়ায়
    আজ খবর পড়লাম টোল বেশি হওয়ায় ফ্লাইওভার প্রায় ফাকা থাকে এবং নিচে জ্যাম…ব্যাপারটা নিয়ে সরকারের ভাবা উচিৎ… :কনফিউজড: :-B :-B :-B :-B

    1. কথা কিঞ্চিৎ সত্য।তবে পুরাটা
      কথা কিঞ্চিৎ সত্য।তবে পুরাটা সত্য জানতে হবে।টোলের নির্ধারণ করে দেয়া টাকার পরিমান খুব একটা বেশি ধরা হয়নাই। সে হিসেবে গাড়ীর ভাড়াও খুব একটা বাড়েনাই।দৈনিক আমার এ পথেই আসা যাওয়া।এক্ষেত্রে কেউ যদি সময়ের মুল্য না বুঝে দুই ঘন্টা জ্যামে বসে থাকতে চায় এতে সরকারেরইবা কি করার আছে।আপনি যদি বাজারের সেরা মাছটা দুই টাকা বেশী দিয়ে কিনতে পারেন তবে যাতায়াত এর ক্ষেত্রে দুইটাকা বাঁচাতে দুই ঘন্টা জ্যামে বসে থাকতে হবে কেন? এটা কার দোষ?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *