বিজ্ঞানময় অন্ধকার-১

এক গ্যস্ত্রিকের রোগী গেল তার ডাঃ এর কাছে, তার ছেলে শরীফকে নিয়ে। ডাঃ আশিক তার খুব কাছের একজন বন্ধু। তাই আগ্রহ নিয়েই ডাঃ আশিক তার বন্ধুর মার সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করল।
ডা. আশিক বন্ধুর মায়ের সমস্যাগুলির কারন সুন্দরভাবে ব্যাখ্যা করলেন।

এক গ্যস্ত্রিকের রোগী গেল তার ডাঃ এর কাছে, তার ছেলে শরীফকে নিয়ে। ডাঃ আশিক তার খুব কাছের একজন বন্ধু। তাই আগ্রহ নিয়েই ডাঃ আশিক তার বন্ধুর মার সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করল।
ডা. আশিক বন্ধুর মায়ের সমস্যাগুলির কারন সুন্দরভাবে ব্যাখ্যা করলেন।
”পেটে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন রকমের রোগ হতে দেখা দেয়। পেটব্যথা, পেটফাঁপা, বদহজম, ডায়রিয়া এদের মধ্যে অন্যতম। পেটব্যথা খুব সাধারণ একটি রোগ। এ ব্যথা বিভিন্ন কারণে হয়ে থাকে। আলসার বা আন্ত্রিক ক্ষত এর প্রধান কারণ। আমরা যেসব খাদ্য গ্রহণ করি তা প্রধানত পাকস্থলিতে গিয়ে হজম হয়। এ পাকস্থলির প্রাচীরে ব্যথা বা ক্ষয় বা ক্ষত হলে যে অবস্থার সৃষ্টি হয় তাকে আলসার বলে। অনেক সময় ধরে খাবার না খেলে বা লম্বা সময় ধরে পাকস্থলি খালি থাকলে, পাকস্থলিতে এসিডের ক্ষরণ বেড়ে গেলে অতিরিক্ত পেপসিন এনজাইম ও এসিড একত্রে মিলে পাকস্থলির গায়ে ঘা বা ক্ষত তৈরি করে।
গায়ের ঝিল্লির স্তর ক্ষত-বিক্ষত হতে শুরু করে।পেপটিক বা ডিওডেনাল আলসার নানা কারণে হয়ে থাকে। খাবার জোর করে অতিরিক্ত পরিমাণে খেলে, অতিরিক্ত উত্তেজনা বা মানসিক চাপের কারণে হাইড্রোক্লোরিক এসিড ও পেপসিন এনজাইম বেশি নিঃসৃত হতে থাকে। ফলে সেইসময় পাকস্থলি খালি থাকলে বা খাদ্যের অনুপস্থিতিতে পাকস্থলিতে ক্ষতের সৃষ্টি হয়।”

তারপর রমজানের সময় ১০-১২ রোজা না যেতেই শরীফের মায়ের সমস্যা আবার প্রকট হল। সে একদিন সময় করে নিয়ে গেল ডাঃ আশিকের কাছে মা’কে।। এইবারতো ডাঃ আশিক সাইদির ভূমিকা নিল।
”ইসলাম এমন এক ধর্ম এমন সব নিয়ম আছে যা স্বাস্থ্যের জন্যে খুব খুব উপকারি…
যেমন রোজা রাখা ইত্যাদী ইত্যাদী। ১মাস রোজা রাখলে পাকস্থলি এবং শরীরের অন্যান্য অনেক রোগ ভাল হয়ে যায়। ইসলাম ও বিজ্ঞান এমনই চমৎকার আর বিস্ময়করভাবে সম্পর্কযুক্ত। তাই ইসলামের মহান গ্রন্থকে বলা হয় বিজ্ঞানময় কুরআন….

পাঠক এইবার সংযমের মাসের শুরুতে তাই আপনাদের স্বয়ং যম হওয়ার প্রস্তুতি নিতে আগাম আহ্বান ও সংগ্রামী অভিবাদন।আর যারা বুঝতে পারছেন তাদের মধ্যে কেউ আলসার বা গ্যস্ট্রিকের রোগি থাকলে তার জন্যে খাদ্য তালিকাঃসকালের নাশতা: পাতলা সুজি ১ কাপ, নরম সিদ্ধ ডিম ১টি, পাকা কলা ১টি।সকাল ১০টা-১১টা ১ গ্লাস ইসবগুলের শরবত।দুপুরের খাবার: পোলাও চালের নরম ভাত ২ কাপ, নরম মাছ ২ পিস, পেঁপে তরকারি ১ কাপ, পাতলা ডাল ১ কাপ।বিকালের নাশতা: টক-মিষ্টি দই দেড় কাপ, পাউরুটি জেলি ৩ স্লাইস।রাতের খাবার: নরম পোলাও চালের ভাত ২ কাপ, নরম মাছ-মুরগির মাংস ১ পিস, পাতলা করে কাটা শসা আধা কাপ।শোবার আগে: ২ চা চামচ দুধ+ইসবগুলের ভুসি ১ গ্লাস। খাদ্যতালিকা এভাবে মেনে চললে আলসার ভালো হয়ে যাবে। সঠিক খাদ্যতালিকা তৈরি করে রোগীকে দ্রুত আরাম দিতে ও রোগের উপশমে আপনার পুষ্টিবিদ সাহায্য করতে পারেন।সুস্থ থাকুন ভাল থাকুন….
রমজান ভাল কাটুক…।

১২ thoughts on “বিজ্ঞানময় অন্ধকার-১

  1. স্টুপিড টাইপের এইরকম
    স্টুপিড টাইপের এইরকম ডাক্তারের কানের পাশে থাব্রা দিলেই ল্যাঠা চুকে যায়। :টাইমশ্যাষ:

  2. অনেক কিছু শিখতে পারলাম!
    অনেক কিছু শিখতে পারলাম! ধইন্যাবাদ.. বাংলাদেশের ডাক্তারদের একটা বড় অংশ ধর্মান্ধ, মুখস্থ করে কোনভাবে পাশ করে অবশেষে বিসমিল্লাহ ক্লিনিক খুলে আল্লার নামে ব্যাবসা শুরু করে!

    1. ধর্মান্ধরা স্ববিরোধীটায় কানায়
      ধর্মান্ধরা স্ববিরোধীটায় কানায় কানায় ভর্তি। মাথা ভর্তি স্ববিরোধীতা :ক্ষেপছি: :ক্ষেপছি: :ক্ষেপছি: :ক্ষেপছি:

  3. আসলেই, এইসব উল্টাপাল্টা
    আসলেই, এইসব উল্টাপাল্টা ডাক্তারদের জন্য মানুষ আরো বেশি অসুস্থ হ​য়। ব​য়স্ক মানুষ যার সক্ষমতা নাই তাকে জোর করার দরকার কি এদের? এই জ্ঞান তো তাদেরকে মেডিকেলে দেওয়া হ​য় না। হ​য় কি?

    1. কোণ বিশ্বাসীঈ দেখি উত্তর
      কোণ বিশ্বাসীঈ দেখি উত্তর দেয়ার কাজে লাগে নাই… বরং উল্টা আমার পিছনে লাগছে!!
      কেউ কি চেষ্টাও করবে না আমার চিন্তা দূর করতে? :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি:

  4. আরেকটু সময় নিয়ে সুন্দর করে
    আরেকটু সময় নিয়ে সুন্দর করে বিষয়বস্তু উপস্থাপন করলে পাঠকের বুঝতে সুবিধা হয়… লিখেতে থাকুন… :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি:

    1. আপনি কিসের অপেক্ষায় আছেন
      আপনি কিসের অপেক্ষায় আছেন জানিনা তবে আমিও অপেক্ষায় আছি…
      সবাই আমার পোস্টের সমালোচনা করল বা কেউ হাল্কা সহমত দিল কিন্তু কেউই উত্তর দিল না!!
      :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি: :টাইমশ্যাষ: :টাইমশ্যাষ: :টাইমশ্যাষ: :টাইমশ্যাষ: :টাইমশ্যাষ:

  5. ছোটবেল থেকে অনিয়মিত বল্গাহীন
    ছোটবেল থেকে অনিয়মিত বল্গাহীন জীবনযাপন করে, অসুস্থ হয়ে, রোজার সময় আসলে বুক জ্বালাপোড়া নিয়ে কোঁ-কোঁ করে রোজাকে দোষ দেওয়াটা হাস্যকর হয়ে গেল না?? রোজা রাখা সুস্থ-সবল মুসলমানের উপর ফরয। সারাবছর যারা অসুস্থ, যারা দেহের শক্তি উৎপাদনের প্রক্রিয়ার একটা গুরুত্বপূর্ন অঙ্গকে নষ্ট করে এখন পঙ্গু, তাদের উপর রোযা ফরয না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *