জাতীয়তাবাদরে হ্যাঁ বলেন, ছাগীয়তাবাদরে লাত্থি মারেন

কারা জাতীয়তাবাদি?যারা ধর্মবর্ণ নির্বিশেষে জাতির উন্নতিতে বিশ্বাস করে।কারা ছাগীয়তাবাদি?যারা মনে করে তাদের ধর্মই শ্রেষ্ঠ এবং দেশের চাইতে ধর্ম বা গোত্র পরিচয় যাদের কাছে বড়।সুনাব্লগে একটা খবর এসেছিল, কোন এক মহিলা তার শিশুকণ্যাকে নিয়ে হলিক্রসে ভর্তি করিয়ে আবদার তুলেছেন,১১ বছরের কণ্যারে হিজাব পরায় ক্লাসে রাখতে হবে। হলিক্রসের খ্রীস্টান প্রিন্সিপাল এই আবদার মেনে নিতে চাননি, ছাত্রীর ভর্তি বাতিল করে দিয়েছেন। পোস্টের কমেন্টগুলোতে ছাগুরা খ্রীস্টান প্রিন্সিপালকে যা তা বলে গালাগালি করছে, কবে কোন যুগে ক্রুসেড হয়েছে, তার রেশ টেনে এনে খ্রীস্টানদের পুরো গোত্রকে এভাবে গালাগালি করতে ছাগুরাই পারে। খ্রীস্টানরা কি বাংলাদেশের নাগরিক নয়? তাদেরকে এসব ধর্মীয় আগ্রাসন দিয়ে রক্ষা করা কি জাতীয়তাবাদের কর্তব্য নয়??

এই ছাগুরাই আবার ভারতের বিরোধিতা করার সময়ে হিন্দুদের ধর্মকে তুলোধুনো করে। ইসলামকে সমুন্নত রাখতে গিয়ে ধর্মনিরপেক্ষতাটা গুলে খেয়ে যাকে তাকে হিন্দু নাস্তিক, রাম ভাদা, কালীর ভক্ত ইত্যাদি ট্যাগে বিশেষায়িত করার নাম জাতীয়তাবাদ নয়।

বাংলাদেশী জাতির মধ্যে অনেক নাগরিকের বিভিন্ন ধর্ম আছে, ইসলাম হিন্দু, খ্রীস্টান বৌদ্ধ এমনকি প্রকৃতি পুজারক ও নাস্তিকও আছে। ছাগীয়তাবাদ ভাব দেখায় যেন ইসলামই এদেশের একমাত্র ধর্ম, সেটা তো সঠিক না। সেটা থাকলে দেশে মন্দির গীর্জা প্যাগোডা আছে কেন? এগুলো ভেঙে দিয়ে মওদুদীবাদী মসজিদ বানালেই হয়। জাতীয়তা বাংলাদেশী বা বাংগালী যাই হোক না কেন, এরা সবাই বাংলাদেশের নাগরিক, এক সম্প্রদায়কে নিয়ে হাসি ঠাট্টা করে আর যাই হোক জাতীয়তাবাদ সমুন্নত হয় না, সাম্প্রদায়িক ছাগীয়তাবাদ কায়েম হয়।

আওয়ামী লীগ না কি দাদাদের দল, তাহলে বিএনপির যেসব হিন্দু কেন্ডিডেট পৌরসভা চেয়ারম্যান হলেন, তারা কাদের দল করেন? গয়েশ্বর চন্দ্র রায় কি রাম ভাদা? উনি ভারতে কত টাকা পাঠান?? যে দলের ভুরু চাছা নেত্রী বলেন, “অমুক দল ক্ষমতায় গেলে মসজিদে মসজিদে আযান হবে না, হবে উলুধ্বনি” সেই দলকে কি করে জাতীয়তাবাদী বলি আমি?? হাজার হলেও বীর মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী তিনি, তার স্বামী কি একই সাথে আযান ও উলুধ্বনীর জন্য যুদ্ধ করেননি?

জাতীয়তাবাদী যারা, তাদের বলছি, এসব ছাগীয়তাবাদ ঝেড়ে ফেলুন। ছাগুদের লেজ ধরে ফেলানীর জন্য মানববন্ধনে জামাত-শিবিরের সঙ্গে হাত মিলিয়ে লম্ফঝম্পকারীদের জানাতে চাই। জাতীয়তাবাদ আর ছাগীয়তাবাদ এক নয়, দুটোকে মিলিয়ে ফেললে আপনারা নিজেদের আদর্শেরই ক্ষতি করছেন। বাংলাদেশ সৃষ্টিকর্তার এক পরম দান, এ দেশটাতে সব নাগরিকের সমান অধিকার আছে, জামাত-শিবিরের রাজনীতি সব নাগরিকদের নিয়ে নয়।

জামাত ক্ষমতায় গেলে অনেক পাচওয়াক্ত নামায পরা দেশপ্রেমিকও কারাগারে নিক্ষিপ্ত হবেন, এদের হিংস্র সাম্প্রদায়িক রাজনীতির ধামাধরা থেকে সরে দাড়ান। ৭১ এ যে শক্তিকে আমার আপনার বাপ-দাদা যুদ্ধ করে পরাজিত করেছে, শুধু মাত্র ধর্মের লেবাস পরার কারণে সেই শক্তির ধুরন্ধরতাকে ভূলে যাবেন না। এদের জাতীয়তাবোধ আর খেলাফতীর জাতীয়তাবোধ এর মাঝে কোন পার্থক্য নেই। কালকে যদি পাকিস্তান, সৌদি ও বাংলাদেশের ক্ষমতা জামাত দখল করে, আপনারা কি মনে করেন জামাত তখন বাংলাদেশকে অক্ষত রাখবে? না কি তারা দেশকে মিলিয়ে দেবে পাকিস্তান বা সৌদির কাছে? অখন্ড ইসলামী খেলাফত তৈরী করা যাদের স্বপ্ন, তাদের দায়িত্বে দেশের বাকি সংখ্যালঘুদের ভবিষ্যতকে জিম্মি করলে জিয়াউর রহমানের বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদের আদর্শেরই পরাজয় হবে।

দেখেন মুক্তিযোদ্ধার ফ্যামিলী আমরাও।আপনের বাপের মতো আমার বাপ আর আমিও নামাজ পড়ি, তয় আমার ফ্যামিলীর কেউ বোরখা পড়ে না, দাদী নানী পড়ছিলেন, মা ফুপু খালারা ছাইড়া দিছে, যুগের সাথে এইসবের চেন্জ হইছে। হিজাব পরা নিয়া কাইজা ফেসাদও করে না আমার ফ্যামিলি, হিজাব পড়া ঈমানের অন্তর্গত কিছু না, কোটি কোটি মহিলা শাড়ী কামিজ পইড়াও নামায পরে, বাংলাদেশের কেউ বাধা দিতেছে না। এইরকম আইসোলেটেড কেস দেখা গেলে যখন যারা গাজী গাজী কইরা খ্রীস্টান শিক্ষিকাকে গালি দিতে আসে, হিন্দুদের ভারতের দালাল বলে তাদেরকে আপনি কি বলবেন? এইটা নিয়া বাংলাদেশের একজন খ্রীস্টান শিক্ষিকাকে যারা গালিগালাজ করে, তাদের জাতীয়তাবাদের আদর্শ নিয়া আমার সন্দেহ আছে।

সব শেষে একটা উদ্ধৃতি দিয়ে শেষ করি, শিবিরের কাপ সদস্য আবু তাহেরে জওয়াবে এইটা লিখছিলো আমারব্লগের জামাতহেটার, বান্ধায়া রাখনের মতো কমেন্ট একটা! তারে সাব্বাস, যারা জাতীয়তাবাদি, তারা এটা পরে বুঝুন দেশের জন্য মায়া কাকে বলে।আধমরাদের ঘা মাইরা বাচানোর চেষ্টায় থাকি ভাই, সব ব্লগেই আধামরা ভর্তি থাকে, এদের একজন দুইজনরেও যদি বাংলাদেশের সাচ্চা সাপোর্টার বানানো যায়, দেশের একটা উপকার হবে।

১ thought on “জাতীয়তাবাদরে হ্যাঁ বলেন, ছাগীয়তাবাদরে লাত্থি মারেন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *