শতাব্দী সেরা আষাঢ়ে প্রতিশ্রুতি – ১

আমরা ক্ষমতায় এলে বাংলাদেশকে মাদক মুক্ত করব এনশাল্লাহ …..
–> আপোসহীন নেত্রী, আজ খুলনার নির্বাচনী জনসভায় !!

আগে নিজগৃহ মাদক মুক্ত করেন,  তার্পরে বাংলাদেশ রে মাদক মুক্ত করার চিন্তা কৈরেন ….. আর গোটা জাতি মাদকে আকন্ঠ ডুইবা থাকলেও প্রব্লেম নাই, – কিন্তু  রাজা রানী আর রাজপুত্র রা অর্থাৎ দেশ যারা চালায়, তারা মাদকাসক্ত হৈলেই প্রবলেম…….   বিশেষত রাজপুত্র মাদকাসক্ত হৈলে  পাবলিকের দশা যে কি হয়,  তা  ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত কোন ধরনের বিরতি ছাড়াই জাতি অব্যাহত ভাবে হাড়ে হাড়ে টের পাইছে এবং বেশ ভাল রকমের শিক্ষা ও হৈছে !! তাই পাবলিক পুনরায় আর এই “টাল” সামলাইতে রাজি নাই…


আমরা ক্ষমতায় এলে বাংলাদেশকে মাদক মুক্ত করব এনশাল্লাহ …..
–> আপোসহীন নেত্রী, আজ খুলনার নির্বাচনী জনসভায় !!

আগে নিজগৃহ মাদক মুক্ত করেন,  তার্পরে বাংলাদেশ রে মাদক মুক্ত করার চিন্তা কৈরেন ….. আর গোটা জাতি মাদকে আকন্ঠ ডুইবা থাকলেও প্রব্লেম নাই, – কিন্তু  রাজা রানী আর রাজপুত্র রা অর্থাৎ দেশ যারা চালায়, তারা মাদকাসক্ত হৈলেই প্রবলেম…….   বিশেষত রাজপুত্র মাদকাসক্ত হৈলে  পাবলিকের দশা যে কি হয়,  তা  ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত কোন ধরনের বিরতি ছাড়াই জাতি অব্যাহত ভাবে হাড়ে হাড়ে টের পাইছে এবং বেশ ভাল রকমের শিক্ষা ও হৈছে !! তাই পাবলিক পুনরায় আর এই “টাল” সামলাইতে রাজি নাই…

আসলে তারেক খুবই ইনভেটিভ আইটেম, রাস্ট্র পরিচালনায় নিত্য নতুন নজির বিহীন স্ট্রাটেজি এপ্লাই করার ক্ষেত্রে  তিনি একটার পর একটা নজির বিহীন অনন্য “নজির” সৃষ্টি করে গেছেন…
এর মধ্যে কিছু কনসেপ্ট পৃথিবীর ইতিহাসেই প্রথমবারের মত ঘটছে !!
যেমন- বাংলাদেশই পৃথিবির একমাত্র দেশ , যেখানে রাষ্ট্রিয় কর্মকান্ড প্রেসিডেন্ট বা প্রধানমন্ত্রী’র কার্যালয় থেকে পরিচালিত না হয়ে রাজপুত্রের দপ্তর “হাওয়া ভবন “ থেকে পরিচিলত হত — আহ ” হাওয়া হাওয়া, ও হাওয়া ধান্ধা লুটাদে’ !!!

এছাড়া তারেক জিয়াই দুনিয়ার একমাত্র জিনিস যে কাগজে কলমে রাস্ট্রীয় কোন দায়িত্বে না থাকলেও , রাস্ট্রের প্রতিটা গুরুত্বপুর্ণ সিদ্ধান্ত তিনিই নিতেন এবং ১০% হাদিয়া গ্রহন পুর্বক ধান্ধাবাজির আসর বসিয়ে স্বীয় হস্তেই ‘সকল প্রকার ধান্ধা’ বিলি বন্টন করতেন……

বিম্পির এই যুগ্ন মহাসচিবের ক্ষমতা আসলে দলের প্রেসিডেন্ট, চেয়ার পার্সন কিংবা মহাসচিবের চেয়েও অনেক অনেক বেশি !!! বিম্পি মহাসচিব ‘হাওয়া ভবনে’ গেলে তাকেও কাগজে কলমে নিজের অধস্থন যুগ্ন মহাসচিব তারেকের কক্ষে ঢুকে খাড়াই থাকতে হয় !!! বসার অনুমুতি ছিল না !!
রাজপুত্রের এখানে একটাই চেয়ার , সুতরাং রাস্ট্রপ্রতি বা অর্থমন্ত্রী সাইফুর রহমানের মত বর্ষিয়ান এবং অতিগুরুত্বপুর্ণ মানুষকে ও খাড়াই থাকতে হৈত !!! কিচ্ছু করার নাই !!

আর তারেকের এসবের গাঞ্জা খুরি কাজ কারবারের পেছনে মুল চালিকা শক্তি ছিল ফেনসিডিল তথা ডাইল !!

ডাইল ইজ দ্য সিক্রেট অভ তারেক’স ইনক্রেডিবল আইডিওলজি এন্ড প্র্যাকটিস !!!!!

যাক শেষ পর্যন্ত নেত্রী যে এই ব্যাপারটা ধরতে পার্ছেন, তাতেই পাবলিক বিগলিত !!!
ম্যাডাম আগে নিজের ঘৃহ থেকে এই জিনিস নির্মুল করেন, তবে এই সুপুত্রের রিহ্যাবের জন্য বেশ টাকা পয়সার দর্কার আছে, যেহেতু আপ্নাদের ভাঙ্গা সুটকেস ছাড়া কিচ্ছু নাই, তাই মামবিক দিক বিবেচনা করে প্রয়োজনে পাবলিক চান্দা তুইলা সেই খরচ যোগাবে, তা যত কোটি টাকাই লাগুক …… !!!
তার রিহ্যাবের পরই না হয় “এদেশ থেকে মাদক মুক্ত” করার আষাঢে প্রতিশ্রুতির ডালা খুইলা বৈসেন …… তারপর নির্বাচনে খাড়াই ভোট প্রার্থনা কৈরেন,তখন পাবলিক ও হয়ত আপ্নার ভোট প্রার্থনা মঞ্জুরের ব্যাপার টা বিবেচনা করবে এনশাল্লাহ ….

ততদিন পর্যন্ত তারেকের প্রতি খূব খিয়াল….

১২ thoughts on “শতাব্দী সেরা আষাঢ়ে প্রতিশ্রুতি – ১

  1. ডাইল ইজ দ্য সিক্রেট অভ

    ডাইল ইজ দ্য সিক্রেট অভ তারেক’স ইনক্রেডিবল আইডিওলজি এন্ড আন্ড প্র্যাকটিস !!!!!

    :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :নৃত্য: :নৃত্য: 😀

  2. ডাইল(আসল) টার দাম কি এমনে
    ডাইল(আসল) টার দাম কি এমনে এমনে বাড়ছে? :মাথানষ্ট: এইসব রাজপুত্র ডাইল খাইয়া এর দাম বাড়াইয়া দিছে! :হাহাপগে: :নৃত্য:

  3. ঠিক বলছেন….ভাই, আগে
    ঠিক বলছেন….ভাই, আগে মোগলাই,বিরিয়ানী রাজভোগ হিসেবে খাইতো এখন মানুষ ডাইল খায়। যুগ পাল্টাইছে যে বোঝা যাচ্ছে…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *