বর্ষা এবং তুমি

সে রাত…ছিল আমার জীবনের শ্রেষ্ঠ রাত ৷ দেখা পেয়েছিলাম তোমার ৷ তুমি কে…জানি না…এখনো জানি না ৷ শুধু জানি এখন আমার হৃদয়ের একটা অংশ তুমি, না না…পুরোটা জুড়েই তুমি ৷ একে যাচ্ছ স্বপ্নের আল্পনা ৷


সে রাত…ছিল আমার জীবনের শ্রেষ্ঠ রাত ৷ দেখা পেয়েছিলাম তোমার ৷ তুমি কে…জানি না…এখনো জানি না ৷ শুধু জানি এখন আমার হৃদয়ের একটা অংশ তুমি, না না…পুরোটা জুড়েই তুমি ৷ একে যাচ্ছ স্বপ্নের আল্পনা ৷

সেইরাত…বর্ষার মায়াবী জলস্নাত রাত ৷ রাস্তার এপাশে দাড়িয়ে থাকা মোহিত একটা ছেলে ওপাশের এক মায়াবিনী কে দেখছিল ৷ অপলক দৃষ্টিতে ৷ জানিনা কোন মায়া জানে সে ৷ চোখের মায়া যে খুব কঠিন …এড়ানো দায়, আমিই বা পারতাম কি করে? সেদিন কোন চাদ ওঠেনি আকাশে…বয় নি দক্ষিণা বাতাস ৷ তাতে কি…বয়েছে ঝড়ো হাওয়া…জলেছে বিদ্যুৎ এর চমকানো আলো ৷ তাতে তুমি আরো মায়াবী লাগছিলে ৷ বুঝতে পারলাম,তুমি নীল কিছু একটা পড়ে আছ ৷ আমার প্রিয় রং ৷

ঝড়ো হাওয়াকে কিছুক্ষণ পরেই শত্রু বলে মনে হচ্ছিল, জান? তোমাকে দেখতে দিচ্ছিল না,হারাতে দিচ্ছিল না তোমার মাঝে ৷ চুলগুলো উড়িয়ে বিরক্ত করছিল তোমায় ৷ বারবার মুখের সামনে এসে দুলছে…মনে হচ্ছিল আমাকে ভেংাচ্ছে ৷ তবে যাই হোক না কেন? রাগলে যে তোমায় আরো সুন্দর লাগে…সেটা তখনই বুঝতে পারলাম ৷ রেগে গিয়ে আমার শত্রুগুলোমে শায়েস্তা করছিলে ৷

তোমার গালে কপালে বেশ আলতো পরশ বুলিয়ে যাচ্ছিল বৃষ্টি কণা গুলো ৷ মনে হচ্ছিলো বৃষ্টি হয়ে ঝরে পড়ি তোমার ওপর ৷ অধরাকে পেয়ে যেতাম খুব কাছে ৷ ছুয়ে যেতাম পরম সুখে ৷ কাছ থেকে ছুয়ে দেখতাম …তুমি মানুষ নাকি পরী!

পরী কেউ কখনো দেখেনি ৷ তবু সবাই তার প্রিয়তমাকে পরীর সৌন্দর্যের সাথে তুলনা করে ৷ আমি বলব তুমি তুমিই ৷ তুমি তোমার মত সুন্দর, তুমিই তোমার তুলনা ৷ আর কোন তুলনা খুজতে চাই না ৷ চাইনা অন্য কিছু খুজতে ৷ কেন খুঁজব …আমার সামনে যে দাড়িয়ে আছে…সেই আমার সব ৷ যার অন্য কোন তুলনা নেই ৷ প্রয়োজন নেই কোন উপমার, যেই উপমা দেব মনে হবে অসম্পূর্ণ ৷ তুমি সম্পূর্ণা আমার, আমার পরিপূর্ণতা ৷

হঠাত বাইরের ঝড় আমার হৃদয়ে অনুভব করলাম ৷ নীল নয়না চেয়ে আছে এই নয়নের দিকে ৷ জানি কি ঝড় তুলল তার মায়াবী চাহনি ৷ বুকে যদি কান পেতে একবার শুনতে , বুঝতে কি চলছে তার ভেতরে ৷ আমি পারছিলাম না সামলাতে নিজেকে…মনে হচ্ছিল ভেতরটা ভয়ংকর কোন এক সুখে তছনছ করে দেবে সব ৷ পারছিলাম না সরাতে চোখের নজর,পারছিলাম না ছাড়তে তার মায়া ৷ কি মায়ার জাদুতে বেধেছিলে আমায় ৷
আমার আমিকে হারিয়ে ফেলেছিলাম তখন,যখন তুমি হাসলে আমারদিকে চেয়ে ৷ মনে হল ভাসছি সুখের সাগরে, নৌকার মাঝি তুমি নিচ্ছ আমায়ে বেয়ে কোন এক অজানায় ৷ যেতে যাই…যেখানে নিয়ে যাবে আমায় ৷ কথা দিয়েছিলাম…বেধে রাখব অসীম ভালোবাসায় ৷

চোখ দুটো হঠাত ভয়ংকর সুখ থেকে বঞ্চিত করল আমাকে ৷ বঞ্চিত করল মায়ার জাদু থেকে ৷ তুমি একপা দুপা করে চলতে লাগলে ৷ আমি দাড়িয়ে আছি নির্বাক নয়নে ৷ মনে হচ্ছে অবশ হয়ে আছি আমি ৷ শুরু হল আরেক ঝড়…কই এ তো আমাকে ভাসাচ্ছে না কোন সুখে, অনুভব করলাম কোন এক ভয় সাগরে ডুবছি আমি….পাচ্ছি তোমায় হারানোর ভয় ৷ পেছন ফিরে একবার তাকালে আমার দিকে…মুখে ফুটল এক ভয় মাখানো হাসি ৷ তোমাকে হারানোর ভয় ৷

চলে গেলে অজানা কোন অন্ধকারে ৷ বলে গেলে না ঠিকানা ৷

তবে ভেবো না ৷ ঠিক খুজে নেব আমি তোমায় ৷ স্মৃতির দ্বীপ জ্বালিয়ে খুজব তোমায় সবখানে ৷ দেবনা পালাতে কোথাও…কোথাও না ৷
শুনতে পাচ্ছ তুমি? আমি আসছি …তোমাতে হারাতে…কোন এক অজানা সুখের সাগরে ভাসতে তোমায় নিয়ে ৷ হৃদয় ভিটার বাড়িতে তুমি ছাড়া আর কারো জায়গা হবে না ৷
তৈরি থেকো তা বুঝে নিতে ৷

১ thought on “বর্ষা এবং তুমি

  1. আরো ভালো পোস্টের আশায়
    আরো ভালো পোস্টের আশায় রইলাম।আসলে গল্পে একটু ঘটনাপ্রবাহ,কাহিনী না থাকলে জমে না।আপনারটা ব্যাক্তিগত কথাকাব্যের মত হয়ে গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *