একলা চাঁদ ।

আজকে অপূর্ব একলা ছাদে বসে চাঁদ দেখছে । আজকের চাঁদটা খুবই সুন্দর । ঢাকা শহরের বিল্ডিংগুলোর ফাঁক দিয়ে চাঁদটা উকিঁ মেরে আছে ।

যেন চাঁদটার ওপর শহরের সবার দেখাশুনার ভার দেয়া ! রাতের সবাই যেন চাঁদের প্রহরায় নিশ্চিন্ত . . . .!

চাঁদ মামার সাথে কথা বলতে ইচ্ছা করছে অপূর্বর । হঠাৎ যেন চাঁদটার রং হলুদ থেকে কমলায় পাল্টে গেল । ব্যাপারটা তপন ঠিক বুঝল না । বেশ চিন্তার বিষয় . . . !

কোন বিষয়ে চিন্তা করেও যখন সিদ্ধান্ত নেয়া যায় না তখন অপূর্ব তপনকে ফোন দেয় । অপূর্ব আর তপন স্কুল জীবন থেকে একসাথে পড়ছে । তপনই একমাত্র অপূর্বর সূত্রহীন ভাবনাগুলো বুঝতে পারে ।

” হ্যালো তপন , ব্যাস্ত নাকি ? ”


আজকে অপূর্ব একলা ছাদে বসে চাঁদ দেখছে । আজকের চাঁদটা খুবই সুন্দর । ঢাকা শহরের বিল্ডিংগুলোর ফাঁক দিয়ে চাঁদটা উকিঁ মেরে আছে ।

যেন চাঁদটার ওপর শহরের সবার দেখাশুনার ভার দেয়া ! রাতের সবাই যেন চাঁদের প্রহরায় নিশ্চিন্ত . . . .!

চাঁদ মামার সাথে কথা বলতে ইচ্ছা করছে অপূর্বর । হঠাৎ যেন চাঁদটার রং হলুদ থেকে কমলায় পাল্টে গেল । ব্যাপারটা তপন ঠিক বুঝল না । বেশ চিন্তার বিষয় . . . !

কোন বিষয়ে চিন্তা করেও যখন সিদ্ধান্ত নেয়া যায় না তখন অপূর্ব তপনকে ফোন দেয় । অপূর্ব আর তপন স্কুল জীবন থেকে একসাথে পড়ছে । তপনই একমাত্র অপূর্বর সূত্রহীন ভাবনাগুলো বুঝতে পারে ।

” হ্যালো তপন , ব্যাস্ত নাকি ? ”

” একদমই না , বল ”

” বাইরে এসে একবার আকাশটা দেখতো । ”

” দেখলাম , কি হয়েছে ? ”

” বলতো চাঁদটার রং কি ? ”
” হলুদ , কেন ? ”

” ভালো করে দেখে বল ”

” ভালো করে দেখেই বলছি । ”

” তাহলে সবাই হলুদ দেখছে , আমি কমলা দেখছি কেন ! ”

” বলতো আজকে কোন দিন অপূর্ব ? ”

” আজকে জুলাইয়ের ১১ , কেন ? ”

” এই দিন কিছু হয়েছিল ? ”
” জানি না । মনে পড়ছে না । রাখি ”

” আচ্ছা । ”

অপূর্ব মিথ্যা কথা বলেছে ।
তার ঠিকই মনে আছে , আজকের দিনটা কত সৌন্দর্যের । আজকের দিনেই তো রাফার সাথে তার দেখা হয়েছিল ।

সেদিন কলেজ ছুটির পর ধুমসে বৃষ্টি হয়েছিল ।
রাফার অভ্যাস সবসময় সাথে একটা ছাতা রাখবেই । কলেজ ছুটির পর যখন অপূর্ব বাস স্ট্যান্ডে দাঁড়িয়ে ভিজছিল দেছে রাফা তার মাথায় ছাতা ধরেছিল । সেটাই তাদের প্রথম দেখা । তারপর আস্তে আস্তে পরিচয় , কলেজের ক্যান্টিনে আড্ডা , পার্কে ঘুরতে যাওয়া , সবই ঠিক ছিল ।

একদিন হঠাৎ কলেজের সামনের রাস্তায় রাফা রোড অ্যাকসিডেন্ট করল । তারপর তাকে হাসপাতালে নেয়া , রক্ত দেয়া সবই হচ্ছিল । হঠাৎ একসময় ডাক্তার বের হয়ে বলল , রাফা আর নেই ।

সেই থেকে রাফার সাথে অপূর্বর আর গল্প করা হয় না ।
আজকের নীলাকাশে কমলা চাঁদ রাফাকে দেখাতে পারলে সেটা নিয়ে সে কি বলত অপূর্ব ভাবতে লাগল ,

” এই রাফা দেখনা আকাশে কমলা চাঁদ ! ”

” তাই তো ! নিশ্চই চাঁদের মনে আজকে অনেক আনন্দ ! ”

” চাঁদের আনন্দ ! সেটা কিরকম ? ”

” এই যে মনে কর , আমার ভালো বন্ধু তুমি আছ । চাঁদেরও নিশ্চয় সেরকম বন্ধু হয়েছে ! ”

” ধুর , চাঁদের একমাত্র বন্ধু পৃথিবী । sorry , পৃথিবী চাঁদের বড় ভাই ”

” আরে তুমি সবসময় এতো দাদাগিরি দেখাও কেন ? ”

তপন এটার উত্তর খুঁজে পায় না । সে কখনো দাদাগিরি করতে পারে নি । এজন্যই প্রকৃতি তার কাছ থেকে তার প্রিয় মানুষটিকে ছিনিয়ে নিয়েছে . . . .।

অপূর্বর ঘুম আসছে । কিন্তু সে ঘুমাবে না , যতক্ষণ না চাঁদটা আবার হলুদ , একলা হয়ে যায় । অপূর্বর ভালো বন্ধু প্রকৃতি কেড়ে নিয়েছে , সেও চাঁদকে ছাড়বে না ।

নিস্তব্ধ রাত বাড়ছে ।
মাঝরাতের দুই নির্ঘুম প্রহরী অপূর্ব আর চাঁদ একে অপরের দিকে অচলভাবে চেয়ে আছে ॥

[#৫ সা ]

৩ thoughts on “একলা চাঁদ ।

  1. অনুগল্প হিসেবে ভাল ই।চালায়
    অনুগল্প হিসেবে ভাল ই।চালায় যান :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *