তৃতীয় বিশ্বের একটি দেশ, অথচ বিশ্বের ১১তম সুখী দেশ!!

যে দেশ দূর্নীতিতে ১৩ তম, এই বৈশ্বিক মন্দার মাঝেও তার জিডিপি ৬!!

যে দেশের ৩৩ ভাগ মানুষ দারিদ্র সীমার নিচে বসবাস করে, গার্ডিয়ান বলছে সে দেশ আর ২০ বছরের
মধ্যে ইউরোপের সবগুলো দেশকে ছাড়িয়ে যাবে!!

যে দেশের ৩ কোটি ৭৩ লক্ষ মানুষ নিরক্ষর, সেদেশে বছরের প্রথম দিনে পাঠ্যপুস্তক উৎসব হয়!!

তৃতীয় বিশ্বের একটি দেশ, অথচ বিশ্বের ১১তম সুখী দেশ!!

সারা পৃথিবী অর্থনীতি নিয়ে মাথায় ঘাম পায়ে ঝড়াচ্ছে, আর গেল বছরে এদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির হার সারা দুনিয়ায় ৫ম!!

আমেরিকার মত দেশ এখন বিদেশী সাহায্যের জন্যে হন্যে হয়ে ঘুড়ে বেড়াচ্ছে। আর আমার বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির হার বাড়ছে।


যে দেশ দূর্নীতিতে ১৩ তম, এই বৈশ্বিক মন্দার মাঝেও তার জিডিপি ৬!!

যে দেশের ৩৩ ভাগ মানুষ দারিদ্র সীমার নিচে বসবাস করে, গার্ডিয়ান বলছে সে দেশ আর ২০ বছরের
মধ্যে ইউরোপের সবগুলো দেশকে ছাড়িয়ে যাবে!!

যে দেশের ৩ কোটি ৭৩ লক্ষ মানুষ নিরক্ষর, সেদেশে বছরের প্রথম দিনে পাঠ্যপুস্তক উৎসব হয়!!

তৃতীয় বিশ্বের একটি দেশ, অথচ বিশ্বের ১১তম সুখী দেশ!!

সারা পৃথিবী অর্থনীতি নিয়ে মাথায় ঘাম পায়ে ঝড়াচ্ছে, আর গেল বছরে এদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির হার সারা দুনিয়ায় ৫ম!!

আমেরিকার মত দেশ এখন বিদেশী সাহায্যের জন্যে হন্যে হয়ে ঘুড়ে বেড়াচ্ছে। আর আমার বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির হার বাড়ছে।

কানাডার মত দেশ খাদ্যের জন্যে অন্যের দুয়ারে দুয়ারে হাত পাতছে, আর আমার দেশ এখন খাদ্যে ৯৩% স্বয়ংসম্পূর্ণ। আমরা দৃঢ় কন্ঠে বলি, এই বছর অক্টোবরের মাঝে আমরা খাদ্যে শতভাগ স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়ে যাব। নেদারল্যান্ডের মানুষ এখন আমার দেশের আলু খায়। কানাডা আমার দেশের মাঠের ভুট্টা দিয়ে খাবার তৈরি করে। ইংল্যান্ডের মানুষ আমার দেশের জলে জন্মানো মাছ খায়।

আমাদের সম্বল খুব কম। পান থেকে চুন খসলেই আমাদের অবস্থা খারাপ হয়ে যায়। বন্যা, ঘূর্ণিঝড়,
জলোচ্ছ্বাস লেগেই আছে। কিন্তু তবু কিন্তু আমরা দাঁড়িয়ে আছি। আর ওদিকে দেখ, বড় বড়
দেশগুলো একটা মাঝারি শক্তির ঝড় হলেই হাপিয়ে যায়।

আমাদের দেশের রাজনীতিতে অস্থিরতা লেগেই আছে। তবু বিদেশীরা আমাদের দিকে ড্যাবড্যাব করে তাঁকিয়ে থাকতে বাধ্য হয়, যখন দেখে সারা দুনিয়া মন্দন কমাতে ব্যস্ত আর এই দেশ ত্বরণ বাড়াচ্ছে।

এখন আর আমার দেশের মানুষ না খেয়ে মরে না। আমার দেশের মানুষ রাতে রাস্তায় ঘুমায়, কিন্তু তবু
পেটে একমুঠো হলেও ভাত পড়ে।

৯ thoughts on “তৃতীয় বিশ্বের একটি দেশ, অথচ বিশ্বের ১১তম সুখী দেশ!!

  1. অবশ্যই ।আমরা বেস্ট ।চরম পোস্ট
    অবশ্যই ।আমরা বেস্ট ।চরম পোস্ট ।প্রিয়তে নিলাম।আমরা বেস্ট ।বেস্ট ।বেস্ট ।কোন কথা হবে না । :স্যালুট: :স্যালুট: :স্যালুট: :স্যালুট: :স্যালুট: :স্যালুট: :স্যালুট:

  2. যে দেশ দূর্নীতিতে ১৩ তম, এই
    যে দেশ দূর্নীতিতে ১৩ তম, এই বৈশ্বিক মন্দার মাঝেও তার জিডিপি ৬…
    জিডিপি তো বোধহয় গড়ে ৬.৩ এর মত আছে!!
    চমৎকার পোস্ট… অফুরন্ত ধইন্যা!! :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :bow: :bow:
    আমরা সমালোচনা করতে করতে নিজেদের গর্ব করার বিষয়গুলোকেই হারিয়ে ফেলি!!
    এইজন্যেই নৈতিক জ্ঞানের জন্য ছোট বেলায় পড়াত “উপমার থেকে দৃষ্টান্ত ভাল”

  3. ক্যাচাল পড়তে পড়তে মনটা বিষিয়ে
    ক্যাচাল পড়তে পড়তে মনটা বিষিয়ে উঠেছিলো । আপনার পোস্ট যেন সঞ্জীবনী সুধা ! দেশের ভালো শুনতে কার না ভালো লাগে । আওয়ামীলীগের জন্য প্রাপ্য ধন্যবাদ রইলো । ঘুষ, দুর্নীতি, চুরি, বাটপারি করার পরও যে এতোটুকু অর্জন করতে পেরেছে , ইস !!! ঘুষ – দুর্নীতির মূলোচ্ছেদ করা যেতো !

    1. রাহাত ভাই এই ব্যধি এতই কঠিন
      রাহাত ভাই এই ব্যধি এতই কঠিন অবস্থানে পৌঁছেছে যে আজ আমাদের মায়েরা ভাবে না বাবারা কীভাবে অর্থ উপার্জন করে, সন্তানেরা টাকা-গাড়ি আর স্মার্ট ফোন পেলেই খুশী অথচ যে স্মার্টফোন দিয়ে সে দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলে হয়তো সেই যন্ত্রখানাও তার বাবা/মায়ের অসৎ উপার্জনে কিনা!! ঐদিকে মা-বাবাকে হজের টাকা দেয় সন্তান বুড়ো মা-বাবা ভাবে না ছেলে টাকাটা কীভাবে উপার্জন করল…
      তাহলে রাষ্ট্রীয় দুর্নীতি কীভাবে মূলোৎপাটিত হবে বলেন?
      এইজন্যেই আমার প্রস্তাব ছিল আমাদেরকে আলোকিত মানুষ চাই, গনিত অলিম্পিয়াড বা মাদকতা বিরোধী আন্দোলনের মত ঘরে ঘরে দুর্নীতির বিরুদ্ধে দুদক গড়ে তুলতে হবে…
      এমন কোন শ্লোগানেঃ
      দুদক হোক ঘরে ঘরে,
      দুর্নীতির নির্মূল চিরতরে…

      1. আমাদের সোর্স অব ইনকামের সাথে
        আমাদের সোর্স অব ইনকামের সাথে মূলত রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান কোন না কোনভাবে জড়িত । আর রাষ্ট্র ও তার প্রতিষ্ঠান কিছু কাঠামোর সমষ্টি । সুতরাং কাঠামোগত দুর্নীতি রোধ করতে হলে কাঠামোতে পরিবর্তন আনতে হবে । আর এই পরিবর্তন আনতে হলে নীতির বিষয়টা সামনে চলে আসে । নীতি প্রনেতারা স্বয়ং যখন মুষ্টিমেয়র গোষ্ঠীর পারপার্স সার্বভ করে তখন আসলে দুর্নীতি অটোমেটিক ডালপালা বিস্তার করে ।
        আর তাই দুর্নীতির গোঁড়ায় হাত দিতে হবে । আপনি সহ এমন অসংখ্য মানুষ আছে যারা দুর্নীতিকে ঘৃণা করে কিন্তু কাঠামোর ( সিস্টেম ) কাছে বন্দী থাকার কারণে মাঝে মাঝে আপোষ করে । করতে হয় । তাই বলছি, আমাদের বাবা, মা, ভাই, বোন তথা পরিবার সৎ থাকলেও এই সিস্টেমের কাছে অসহায় বিপন্ন হয়ে পড়ে ।
        আপনার ভালো চিন্তার প্রশংসা করছি … ।
        ” এই সমাজ জীর্ণ সমাজ
        এই সমাজ ভাংতে হবে ”

        1. চমৎকার বলেছেন…
          চমৎকার বলেছেন… :গোলাপ: :গোলাপ: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ফুল: :ফুল:
          …… সমাজের বুকে যত দুষ্ট ক্ষত,
          গাঁইতি শাবল চালিয়ে উড়াব সেথায় বিজয়ের রথ…

  4. ভাইয়া, যে তথ্যগুলো দিয়েছেন,
    ভাইয়া, যে তথ্যগুলো দিয়েছেন, সেগুলো সমসাময়িক হিসেবে বেশ পুরোনো।
    আর কপি-পেস্ট করেছেন, ভালো কথা। যে উৎস থেকে কপি করেছেন, সেটা উল্লেখ করে দিলে ভালো হতো না?
    http://shorob.com/?p=12045

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *