¤অনেক অনেক দিন আগে….¤

তুমি তো জানলে না কেউ একজন ছিল,
রাতজাগা পাখি হয়ে তোমার কবিতা লিখত
হৃদয়ের মলিন ফটোগ্রাফে তোমাকে দেখত।
তুমি ছিলে তোমাকে নিয়ে,
স্বপ্নের ঘরে স্বপ্ন মিলিয়ে,
আর সেই বিনিদ্র রজনীর কবি
ছোট্ট খাতায় আবদ্ধ করত তার পৃথিবী।
সে ছিল খুবই আনাড়ি;



¤আনাড়ি¤

তুমি তো জানলে না কেউ একজন ছিল,
রাতজাগা পাখি হয়ে তোমার কবিতা লিখত
হৃদয়ের মলিন ফটোগ্রাফে তোমাকে দেখত।
তুমি ছিলে তোমাকে নিয়ে,
স্বপ্নের ঘরে স্বপ্ন মিলিয়ে,
আর সেই বিনিদ্র রজনীর কবি
ছোট্ট খাতায় আবদ্ধ করত তার পৃথিবী।
সে ছিল খুবই আনাড়ি;
গোলাপের পাপড়িতে স্বপ্ন এঁকে,
শিশিরের বিন্দুতে স্নান করে,
কাগজের বুকে কলম নিয়ে,
ঘুমের সাথে আড়ি দিয়ে,
রাতজাগা তাঁরাদের সাথে গল্প করে,
কোকিলের গানের সাথে গলা মিলিয়ে
প্রাণ ভরে বলত ভালোবাসি।
তুমি ছিলে তোমাকে নিয়ে
স্বপ্নের ঘরে স্বপ্ন মিলিয়ে,
তুমি তো জানলে না।

¤মাংসের দোকানে হৃত্‍ পিন্ড¤

পৃথিবীর বাতাসে সিগারেটের নিকোটিনপূর্ণ
ধোয়ার মতন ছড়িয়ে পড়েছে ঘৃণার বিকট গন্ধ।
মানবের হৃদয় আজও স্পন্দিত
হয় দেয়ালঘড়ির মতন,
কিন্তু ভালোবাসাশূণ্য এইসব অলিন্দ-নিলয়
অনেকটা মাংসের দোকানে স্তুপকৃত
রক্তে মাখামাখি মাংসপিন্ড।
যার নেই কোনো অনুভূতি,আছে শুধু গন্ধ।

আজ পৃথিবীর মানুষ ঘৃণা করে হৃত্‍ পিন্ড
আর হৃত্‍ পিন্ড ঘৃণা করে মানুষকে।

¤ব্যর্থ কবি¤

# পুরানো কবিতার খাতাগুলো ঘাঁটছিলাম।হঠাত্‍ এই দুটি কবিতা চোখে পড়ল।প্রায় একবছর আগে লেখা।কবিতা দুটি একদম পরস্পর বিপরীতধর্মী। পোস্ট করতে মন চাইলো করে দিলাম #

৫ thoughts on “¤অনেক অনেক দিন আগে….¤

  1. সে ছিল খুবই আনাড়ি;
    গোলাপের

    সে ছিল খুবই আনাড়ি;
    গোলাপের পাপড়িতে স্বপ্ন এঁকে
    শিশিরের বিন্দুতে স্নান করে
    কাগজের বুকে কলম নিয়ে
    ঘুমের সাথে আড়ি দিয়ে
    রাতজাগা তাঁরাদের সাথে গল্প করে
    কোকিলের গানের সাথে গলা মিলিয়ে
    প্রাণ ভরে বলত ভালোবাসি।………,চমৎকার।

  2. দুইটা কবিতাই ভাল লেগেছে।
    দুইটা কবিতাই ভাল লেগেছে। কিন্তু যতি চিহ্নের অপব্যবহার এবং কিছু কিছু যায়গায় না ব্যবহার করার কারনে লেখাটা দেখতে অনেক হালকা লাগছে।

    সে ছিল খুবই আনাড়ি;
    গোলাপের পাপড়িতে স্বপ্ন এঁকে
    শিশিরের বিন্দুতে স্নান করে
    কাগজের বুকে কলম নিয়ে
    ঘুমের সাথে আড়ি দিয়ে
    রাতজাগা তাঁরাদের সাথে গল্প করে

Leave a Reply to কবিতা তোমায় দিলাম ছুটি Cancel reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *