ইতিহাস ভীতিহাস

নিজেদের স্বাধীনতার ঘোষক দাবি করা কোন একটা রাজনৈতিক দল যখন – সর্বজন ঘৃনিত  কোন যুদ্ধাপরাধীর ফাসির রায়ের পর আনুষ্ঠানিক বা  অনানুষ্ঠানিকভাবে যে কোন ধরনের প্রতিক্রিয়া জানাতেই ভয় পায়, ভবিষ্যতে ক্ষমতায় এলে তারা অন্যায়, অবিচার, দুর্নীতি ইত্যাদি প্রতিহত করার বা আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার সাহস পাবে কোত্থেকে !?

তারা নাকি আরেক বার ক্ষমতায় এলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার আবার প্রথম থেকে শুরু কর্বে , যা হবে সুষ্ঠু নিরপেক্ষ এবং আন্তর্জাতিকমানের !!!
হাহ , রুপকথার জনক হ্যানস ক্রিশ্চিয়ান এন্ডার্সনের কল্পনার রাজ্য ও যে  এতটা বিস্তৃত ছিল  না, সে ব্যাপারে নিশ্চিত থাকতে পারেন  !!!!

নিজেদের স্বাধীনতার ঘোষক দাবি করা কোন একটা রাজনৈতিক দল যখন – সর্বজন ঘৃনিত  কোন যুদ্ধাপরাধীর ফাসির রায়ের পর আনুষ্ঠানিক বা  অনানুষ্ঠানিকভাবে যে কোন ধরনের প্রতিক্রিয়া জানাতেই ভয় পায়, ভবিষ্যতে ক্ষমতায় এলে তারা অন্যায়, অবিচার, দুর্নীতি ইত্যাদি প্রতিহত করার বা আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার সাহস পাবে কোত্থেকে !?

তারা নাকি আরেক বার ক্ষমতায় এলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার আবার প্রথম থেকে শুরু কর্বে , যা হবে সুষ্ঠু নিরপেক্ষ এবং আন্তর্জাতিকমানের !!!
হাহ , রুপকথার জনক হ্যানস ক্রিশ্চিয়ান এন্ডার্সনের কল্পনার রাজ্য ও যে  এতটা বিস্তৃত ছিল  না, সে ব্যাপারে নিশ্চিত থাকতে পারেন  !!!!
অবশ্য ক্ষমতায় এলে তারা যে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নতুন করে শুরু করবে,  সে বিষয়ে কোন সন্দেহ থাকা উচিত না …. কারণ যারা “পেয়ারা পাপি’স্থান ” কে দ্বীখন্ডিত করছিল, স্বাধীনতার নামে গৃহযুদ্ধ বাধিয়েছিল, “পাপিস্থানি সেনাবাহিনী কে নিজেদের মা বোন সাপ্লাই না দিয়ে উল্টা এই “অবলা” সেনাদের বিচি ভাইঙ্গা কান্দাই ছাড়ছিল !!  সেই সব চিহ্নিত রাস্ট্রদ্রোহিদের যে সুষ্ঠু নিরপেক্ষ এবং আন্তর্জাতিক মানের বিচারের মাধ্যমে ধ্রুততার সঙ্গে ফাসিতে লটকানো হবে !!!
অর্থাত বিচার-আচার সবই হবে , তবে”যুদ্ধাপরাধী” এবং “রাজাকার” এই ২ টা শব্দের ডেফিনেশন পুরোপুরি বদলে যাবে !!!
তারপর স্কুল কলেজের ইতিহাস বইয়ে নব্য ইতিহাস জায়গা দখল করবে , যেখানে বঙ্গবন্ধু পরিচিত হবেন রাষ্ট্রদ্রোহী এবং প্রধান যুদ্ধাপরাধী হিসাবে !! জাতীয় ৪ নেতা পরিচিত হবেন ইন্ডিয়ার দালাল হিসাবে, যারা দেশটা কে ইন্ডিয়ার কাছে বেইচা দেয়ার ঘৃন্য ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল …….
আর “পুর্ব পাপীস্থান” পুনরুদ্ধার কমিটি” গঠন করে আন্তর্জাতিক বাজারে বক্তৃতা দিয়ে বেড়ানো গোয়াজম কে পরিচয় করিয়ে দেয়া হবে পরাধীন বাংলার স্বপ্নদ্রষ্টা ,মহান  দেশপ্রেমিক জাতীয় বীর হিসাবে !!!
সেই সাথে বাতিল ঘোষিত হবে শ্রেষ্ঠ” খেতাব প্রাপ্তদের পুরনো তালিকা !!
তার্পর সেই লিস্টে জায়গা দখল করবে –
১. জিয়াউর রহামান
২. গোয়াজম
৩. নাবালক সাঈদী ওরফে মেশিন ম্যান
৪. যৌথ ভাবে নিজামী & কাদের মোল্লা
৫. যৌথ ভাবে সাকা & গিকা উইথ ফ্রেন্ডজ এন্ড ফ্যামিলি
৬. বাচ্চু মুক্তিযোদ্ধা !
৭. বীর শ্রেষ্ঠ খেতাবধারী সর্বকনিষ্ঠ এবং একমাত্র মহিলা মুক্তিযোদ্ধা খালেদা জিয়া !!
তিনি নিজের এবং দেশের মিউচ্যুয়াল স্বার্থে স্বেচ্ছায় ক্যান্টনমেন্টে অবস্থান করছিলেন, চিন্তা করতে গেলে অবাক হতে হয় – কত বড় দুঃসাহস , কত বড় আত্নত্যাগ !! বহুত বহুত শুকরিয়া !!

সিনেমায় শেষ দৃশ্যে যেমন নায়িকা আর তার সখীরা নাচ আর গানের শরাব সার্ভ করে গুন্ডাদের মনরঞ্জন করে , আর চানসে নায়কের উদ্দেশ্যে কবুতর মারফত নিজের অবস্থানের মহা গুরুত্বপুর্ন তথ্য পাচার করে দেয় কিংবা সময় ক্ষেপনের মাধ্যমে ছলে-বলে-প্রকৌশলে নায়ক মুক্ত করে দেয়, ঠিক তেমনি তিনি ও হয়ত অনেক ভাবেই সাহায্য করে গেছেন, যদিও রাস্ট্রীয় একান্ত গোপনীয় তথ্য হিসাবে সেগুলোর খবর এখন কোথাও প্রকাশিত হয় নাই !!
তবে , স্বাধীনতার ঘোষক যে জিয়াউর রহামান, সেটা যেমন আমরা জানতে পারলাম ১ যুগ পর, তেমনি খালেদা জিয়ার মহান ভুমিকার খবর ও পাবলিক এক দিন না একদিন যে অবশ্যই শুনবে, সে ব্যাপারে জাতি প্রবল আশাবাদী…….

মাননীয় আপোসহীন নেত্রী, নির্বাচিত হলে বরাবরের মতই গায়ের জোরে খুব সহজেই হয়ত সঠিক ইতিহাস পাটহ্য বৈ থেকে মুছে দিয়ে, সেখানে নিজের মন গড়া ইতিহাস ঢুকিয়ে দিতে পারবেন ….. কিন্তু মানুষের মন থেকে সঠিক ইতিহাস কিভাবে মুছবেন !!!? সেখানে ত আপ্নাদের প্রবাশাধিকার নাই !!!!!

৩০ লাখ মানুষের রক্তের ওপর দাড়িয়ে, যখন স্বচ্ছতা – নিরোপেক্ষতার কথা তুলে যুদ্ধাপিরাধীদের নির্লজ্জ ভাবে সমর্থন দিয়ে যান, তখন আপ্নাদের লজ্জা হয় না !!!? আর কত ফর্মালিনের আবরণে লজ্জা ঢাইকা রাখবেন !!!?
যারা রাতের আধারে জোর পুর্বক রক্তের বন্যা বইয়ে দিয়ে সামরিক অভহ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করে স্বেচ্ছাচারীতার রাজত্ব কায়েম করে, তাদের মুখে আর যাই হোক স্বচ্ছতা আর নিরপেক্ষিতার গাল ভরা ফাকা বুলি কোন ভাবেই মানায় না ……

কথায় আছে “পাপ বাপ কেয় ছাড়ে না”, কাদের মোল্লা কে ও ছাড়ে নাই ! বিশ্বাস করেন- এভাবে চলতে থাকলে, পাপ আপ্নার মত “বড় গলা সমৃদ্ধ চোরের মাকে” ও কখনো ছাড়বে না !!

৬ thoughts on “ইতিহাস ভীতিহাস

  1. ভালো বলছেন।তবে কিছু ইমো
    ভালো বলছেন।তবে কিছু ইমো ব্যবহার করলে আরো ভালো লাগতো।মজা নিয়ে পড়া যেত।ইমোর কাজ বিরামচিহ্নে চালাতে চেয়েছেন।কিন্তু তেমন সফলভাবে তা হয়নি।তবে আপনার মূল বক্তব্যটা ভালো লাগছে।

  2. যুবায়ের তনিম
    দারুণ

    যুবায়ের তনিম

    দারুণ বলেছেন,জবাব নেই।
    :বুখেআয়বাবুল: :থাম্বসআপ: :বুখেআয়বাবুল: :থাম্বসআপ: :বুখেআয়বাবুল: :থাম্বসআপ:

    স্কুল কলেজের ইতিহাস বইয়ে নব্য ইতিহাস জায়গা দখল করবে , যেখানে বঙ্গবন্ধু পরিচিত হবেন রাষ্ট্রদ্রোহী এবং প্রধান যুদ্ধাপরাধী হিসাবে !! জাতীয় ৪ নেতা পরিচিত হবেন ইন্ডিয়ার দালাল হিসাবে, যারা দেশটা কে ইন্ডিয়ার কাছে বেইচা দেয়ার ঘৃন্য ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল …….
    আর “পুর্ব পাপীস্থান” পুনরুদ্ধার কমিটি” গঠন করে আন্তর্জাতিক বাজারে বক্তৃতা দিয়ে বেড়ানো গোয়াজম কে পরিচয় করিয়ে দেয়া হবে পরাধীন বাংলার স্বপ্নদ্রষ্টা ,মহান দেশপ্রেমিক জাতীয় বীর হিসাবে !!!
    সেই সাথে বাতিল ঘোষিত হবে শ্রেষ্ঠ” খেতাব প্রাপ্তদের পুরনো তালিকা !!
    তার্পর সেই লিস্টে জায়গা দখল করবে –
    ১. জিয়াউর রহামান
    ২. গোয়াজম
    ৩. নাবালক সাঈদী ওরফে মেশিন ম্যান
    ৪. যৌথ ভাবে নিজামী & কাদের মোল্লা
    ৫. যৌথ ভাবে সাকা & গিকা উইথ ফ্রেন্ডজ এন্ড ফ্যামিলি
    ৬. বাচ্চু মুক্তিযোদ্ধা !
    ৭. বীর শ্রেষ্ঠ খেতাবধারী সর্বকনিষ্ঠ এবং একমাত্র মহিলা মুক্তিযোদ্ধা খালেদা জিয়া !!

    :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি:

    রাজাকার মহিলা… :তুইরাজাকার: :তুইরাজাকার: :তুইরাজাকার:

Leave a Reply to কবিতা তোমায় দিলাম ছুটি Cancel reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *