সফল হবার পথে ৫ফেব্রুয়ারী?

মনে পড়ছে ৫ ফেব্রুয়ারী রাতে কথা।

কাদের মোল্লা রাজাকারের যাবজ্জীবন রায় থেকে ক্ষোভের কারণে কোন কিছুতেই স্থির হতে পারছিলাম না। কোন কাজেই মন বসছিল না। কয়েকজন বড়ভাইয়ের কাছে ঘুরে ঘুরে একটা প্রবোধ পাওয়ার চেষ্টা করছিলাম। কোন কিছুতেই মেনে নিতে পাড়ছিলাম না। পলাতক আজাদের ফাসি আর কাদের মোল্লার যাবজ্জীবন!! নিভৃতে মিষ্টি খাওয়ার খায়েশটাও নিবারণ করতে পারিনি।

বাসায় ফিরে চ্যটে ডাকলাম বন্ধু শফিউল আলম-কে। বললাম সারা দেশের মত চল আমরাও আমাদের শহরে একটা কিছু করি। তার সাথে কথা বলতে বলতে বেজে গেছে আড়াইটা। আমার ইন্টারনেট তখন মোবাইলে। পিসি নাই। মোবাইল দিয়ে ইভেন্ট খোলা খুব কঠিন আর ফ্যামিলির কারনে প্রকাশ্যে জামাত বিরুধীতার প্রশ্নে বিব্রত বোধ করছিলাম। তাই শিপ্লুকেই বললাম ইভেন্ট খোলার জন্য। কিন্তু সে খোলতে দেরী করছিলো, ফলে ধৈর্য্যের বাধ ভেঙ্গে নিজেই নিজের মোবাইল দিয়ে খুলে ফেললাম ইভেন্ট। ততক্ষণে রাত তিনটা, খেয়াল হলো দুপুর থেকে কিছু পেটে পড়েনি।

সকালে,
অর্থাৎ ৬ফেব্রুয়ারী বন্ধুদের সাথে যোগাযোগ করলাম। অনেকেই বিকেলে শহীদ মিনারে আসবে বলছে। এক পর্যায়ে ফোন দিলাম প্রানের বন্ধু বর্তমান বঙ্গবন্ধু লীগের জেলা সভাপতি রিংকু চৌধুরীকে । জানলাম সে ঢাকায়। তাকে বললাম যেভাবেই হোক শাহবাগ যেতে । তার সাথে আরও কি কথা হলো সেটা এখানেআর বলতে চাচ্ছি না। শুধু এটুকুই বলি, তাকে বারবার অনুরোধ করছিলাম অন্তত একবার হলেও শাহবাগ যাবার জন্য। সেই রিংকু চৌধুরীকে দেখি দুপুর বেলায় মুন্নি শাহার কাছে সাক্ষাতকার দিচ্ছে।

এদিকে,
ফোন দিলাম প্রথমা আলো সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি খলিল ভাইকে। ভাই জানালেন তারাও কিছু করার চিন্তা করছেন। তিনি যোগাযোগ করতে বললেন শিমন চৌধুরীর সাথে। তার সাথে এবং আরও কয়েকজনের সাথে কথা বলে সিদ্ধান্ত হলো বিকেল থেকে শহীদ মিনারে অবস্থান করবো আমরা।

ব্যনার তৈরী ও মাইকিং-এর দ্বায়িত্ব নিলাম আমি আর শিমন। ব্যানার ওর্ডার করে গেলাম মাইকিং করার জন্য। লিখলাম কি বলতে হবে মাইকে। প্রথম কণ্ঠ দিলাম শহরে মাইকিং করার জন্য।
“লাখো শহীদ ডাক দিয়েছে সব সাথীদের খবর দে, সারা বাংলা ঘেরাও করে রাজাকারদের কবর দে”

তারপর,
ইতিহাসের সাথে আমদের সুনামগঞ্জ শহরও সমান্তরাল বইলো।

যে দাবীর জন্য জ্বলে উঠেছিলাম সেদিন সেই দাবী, সেই দাবী আজ পূরণ হতে চলেছে। জানি না, মহামান্য আদালত কি রায় দেন। আশা করছি প্রজন্মের চিৎকার, লাগাতার আন্দোলন কোনভাবেই বৃথা যাবে না। খুব আশাবাদী যে শাহবাগ নামার মহাকাব্যের বিজয় গাথা অধ্যায়ের শুরু হবে আজ। শুরু হবে বাংলা মায়ের কান্না বন্ধের পরিচ্ছেদ।

ফাসি ফাসি ফাসি চাই- ফসি ছাড়া উপায় নাই।
জয় বাংলা – জয়বঙ্গবন্ধু।

৮ thoughts on “সফল হবার পথে ৫ফেব্রুয়ারী?

  1. আমার ধারনা॥ কারণ আর্ন্তজাতিক
    আমার ধারনা॥ কারণ আর্ন্তজাতিক চাপ এবং আগামী নির্বাচন। এছাড়া কেন হরতাল ডাকে নাই, সেটাই বড় রহস্য॥

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *