শেষ চিঠি

প্রিয় অরণী,
আমার কথা মনে পড়ে? মনে পড়ে সেই দিন গুলোর কথা?
ভালোবাসার রঙে রঙিন ছিলো সেই দিন গুলো। দু’জন দু’জনের জন্য কতটা ব্যাকুল ছিলাম আমরা!!!
একজন আরেক জনের হৃদ-স্পন্দন পর্যন্ত টের পেতাম বহু দুর থেকে।
কত দিন ঘন্টার পর ঘন্টা দুজন দুজনের চোখে চোখ রেখে কাটিয়ে দিয়েছি!!!
মনে পড়ে সেই বৃষ্টিতে ভেজার স্মৃতি গুলো? আমার হাত ধরে শ্রাবনের অবিরাম ধারায় ভিজতে ভিজতে কতটা পথ পাড়ি দিয়েছিলে তুমি!


প্রিয় অরণী,
আমার কথা মনে পড়ে? মনে পড়ে সেই দিন গুলোর কথা?
ভালোবাসার রঙে রঙিন ছিলো সেই দিন গুলো। দু’জন দু’জনের জন্য কতটা ব্যাকুল ছিলাম আমরা!!!
একজন আরেক জনের হৃদ-স্পন্দন পর্যন্ত টের পেতাম বহু দুর থেকে।
কত দিন ঘন্টার পর ঘন্টা দুজন দুজনের চোখে চোখ রেখে কাটিয়ে দিয়েছি!!!
মনে পড়ে সেই বৃষ্টিতে ভেজার স্মৃতি গুলো? আমার হাত ধরে শ্রাবনের অবিরাম ধারায় ভিজতে ভিজতে কতটা পথ পাড়ি দিয়েছিলে তুমি!

আমাকে এক পলক দেখার জন্য কতটা পাগল ছিলে তুমি! আমার হাতের সামান্য স্পর্শের জন্য কতটা উদগ্রীব থাকতে তুমি! আমার একটু অনুপস্থিতিতে মুহুর্তে অশ্রুসিক্ত হয়ে উঠতো তোমার চোখ। আমার দুই মিনিটের সান্নিধ্যও তোমার কাছে স্বর্গ বাস মনে হতো।

সেই হাড়-কাপানো শীতের দিনে, ঝাপসা কুয়াশার মাঝে হেটে বেড়ানোর কথা মনে আছে তোমার?
মনে নেই তুমি সেই কুয়াশার মাঝে আমাকে নিয়ে অদৃশ্য হয়ে যেতে চেয়েছিলে?

সেই উদ্দাম, মাতাল রাত গুলোর কথা মনে আছে তোমার?
কত রাত তুমি আমার বুকে মাথা গুজে ঘুমিয়েছো সে কথা মনে পড়ে?
পূর্ণিমার চাঁদের নিচে বসে কত রাত নির্ঘুম কাটিয়ে দিয়েছি তোমার সাথে!
চাঁদেরও হিংসা হতো আমাদের রাক্ষুসে প্রেম দেখে।
মনে পড়ে একই ছাদের নিচে, একই খাটের উপর, একই চাদরের নিচে আমরা দু’জন?
আমার স্পর্শে মুহুর্তে মাতাল হয়ে উঠতে তুমি!!!
আর তোমার স্পর্শ আমাকে উন্মাদ করে দিতো।

সে সব কথা আমি আজও ভুলি নি। আমার রুক্ষ হাতের উপর তোমার কোমল হাতটাকে আমি আজও মিস করি। আমার মুখে তোমার ভেজা চুলের ঝাপটা আমি আজও হৃদয় দিয়ে অনুভব করি। আমার সিগারেটের গন্ধ মাখা ঠোটে তোমার গোলাপের পাপড়ির মতো ঠোটের আলতো স্পর্শ আজও আমাকে শিহরিত করে। তোমার গলার সেই ছোট্ট তিলটা আজও আমার চোখে ভাসে।

তুমি ভালো আছো তো? অরণী??

ইতি
কেউ না।

৪ thoughts on “শেষ চিঠি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *