অন্তর্বাসশূণ্য

চারপাশের এই বিশ্রী বাস্তবতা
অন্ধকার অপরাধে বোধহীন
ভালো মানুষসুলভ অভিনয়।
দিনেদুপুরে যে পৌরানিক দেবতা
রাতের আঁধারে সে ই পিশাচ।
দেখেছি অনেক ঐ অফিসের পিয়ন,
ছাঁপোষা কেরানি,বড় সাহেব,
কখনো জাতির রক্ষক পুলিশ,
কখনো বা প্রাণদায়ী চিকিত্‍সক।
কিন্তু যখন সমাজের সব স্তর ছাড়িয়ে
কালো হাতের দূর্গন্ধ লাগে
জাতির পথ প্রদর্শক শিক্ষকের হাতে
তখন আর কী ই বা বাকী থাকে?
সমাজব্যবস্থা হয়ে যায় অন্তর্বাসশূণ্য
পুরোপুরি নগ্ন –
ঠিক যেন খরিদ্দারের আশায়
নিয়ন আলোর নিচে দাড়ানো বারবণিতা।

-ব্যর্থ কবি-

৬ thoughts on “অন্তর্বাসশূণ্য

  1. প্রিয় যাত্রী,
    আপনি প্রথম

    প্রিয় যাত্রী,
    আপনি প্রথম পাতায় এই পর্যন্ত পরপর পাঁচটি পোস্ট দিয়েছেন যা স্পষ্টতই ইস্টিশনবিধি-৫ এর লঙ্ঘন। আপনাকে বিধি মেনে ব্লগিং করার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে।

  2. এসব আবাল পাবলিককে সুশীল ভাষায়
    এসব আবাল পাবলিককে সুশীল ভাষায় বলে কোন লাভ নাই। বেকুব আর গাছে ধরে না টাইপের পাবলিকের পাছায় কষে লাত্থি মারলে তারপর হুশ হয় মাস্টার সাব।

  3. মাস্টার সাব, উনাকে লিখতে
    মাস্টার সাব, উনাকে লিখতে দিন।জীবনে যা লিখেছেন তা একদিনে শেষ করতে পারলে আমাদের জন্যই মঙ্গল!

    কোন পোস্টেই কবি সাবের কোন প্রতিমন্তব্য দেখা যায় না! বিষয় কি?

  4. পোস্টটি পড়ে সেই প্রথম দিনের
    পোস্টটি পড়ে সেই প্রথম দিনের কথা পড়ে গেল।একেতো কবিতা দিয়েছিলাম একবারে চার পাঁচটা আবার তার উপর মোবাইল ব্রাউজিংএর জন্য কবিতার আঙ্গিকে দিতে পারি নাই।তাই আজ আঙ্গিক গঠন ঠিক করে দিলাম।সেদিনে বোকামির কথা ভেবে দুঃখে হাসি পাইতেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *