সেদিন তুমি ভালবেসেছিলে

দৃশ্য পট ১

– হ্যাল্লো , ভাইয়া
– হুম্ , বলো
– আমাকে চিনেছেন?
– হ্যাঁ
– তাহলে বলেন আমি কে?
– তুমি অদৃতা
– হুম্
– কিছু বলবে?



দৃশ্য পট ১

– হ্যাল্লো , ভাইয়া
– হুম্ , বলো
– আমাকে চিনেছেন?
– হ্যাঁ
– তাহলে বলেন আমি কে?
– তুমি অদৃতা
– হুম্
– কিছু বলবে?
– না
– তাহলে কল দিলে কেনো?
– এমনি
– এমনি কেউ কাউকে কল দেয় না
– একটা কথা ছিলো
– বলো
– আপনি ফুসকা খান?
– না
– কেনো?
– এমনি
– আমার খেতে ইচ্ছে হচ্ছে
– খাও
– ফুসকা একা খেতে মজা নেই ,
– তাহলে?
– দুজন হলে মজা , গল্প করে খাওয়া যায়
– অউ
– ভাইয়া , আপনার কালকে সময় হবে ?
– কেনো?
– দুজন মিলে ফুসকা খাবো
– অনেক রাত হয়েছে ঘুমাও

অরুপ লাইন কেটে দিয়েছে। অদৃতাকে নিয়ে তার যতো চিন্তা।অদৃতা তার ছাত্রী।এইবার কলেজ উঠেছে।অনেক কষ্টে তার
বন্ধু টিউশন জোগার করে দিয়েছে কিন্তু অদৃতা যা শুরু করেছে তার মনে হচ্ছে সে অদৃতাকে আর বেশী দিন পড়াতে পারবে না। অরূপের ধারনা অদৃতা তাকে ভালোবাসে।তা না হলে এমন করতো না। অরুপ বুঝেও না বুঝার ভান করে থাকতে হয়। অদৃতা ছোট।মোটে কলেজে উঠেছে,জীবন সম্পর্কে কিছুই বুঝে উঠতে পারেনি। কিন্তু অরুপ জীবন থেকে অনেক কিছু শিখেছে। অরুপ ঢাকা ভার্সিটিতে পড়ছে।গ্রাজুয়েশন শেষ হতে আরো দেরি। তাছাড়া তার পরিবার
অদৃতাদের মতো না। অরুপ ঠিক করেছে একটি টিউশন খুজে যতো দ্রুত সম্ভব এটি ছেড়ে দিবে

দৃশ্য পট ২

অদৃতা আয়নার সামনে বসে সাজছে।সব সময় সাজে না।যখন অরুপ ভাই আসার সময় হয় তখন খুব পরিপাটি করে সাজে। আজ খুব যত্ন করে সাজছে। অরুপ ভাইয়াকে তার ভালো লাগে।কেনো লাগে জানে না। ভালোবাসে তা বলা যায়।কি দেখে ভালোবেসেছে তার জানা নেই।
তার ইচ্ছে হচ্ছে অরুপ ভাইকে বলতে কিন্তু লজ্জা জন্য বলতে পারে না। অরুপ ভাইটা আসলে গাধা এতো ভাবে বুঝাতে চেয়েছে কিন্তু কিছুতেই বুঝছে না

অরুপ বসে আছে। কিছুটা অসস্তি বধ করছে আদৃতের আচরন দেখে।

– ভাইয়া
– হুম্
– একটা কথা বলবো
– বলো
– আপনি সব সময় এমন থাকেন?
– কেমন?
– মুখ গুমড়া করে
– জানি না
– আপনাকে কেমন লাগে জানেন?
– না
– ছোট বাবুদের মতো মনে হয় একটু পর কেদে দিবেন
– অদৃতা একতা কথা বলবো?
– জ্বি ভাইয়া বলেন
– আমি তোমার কি হয়?
– টিচার
– তাহলে ভাইয়া ডাকো কেনো?
– এমনি
– আজ থেকে স্যার ডাকবে
– আচ্ছা
– হুম্ , তুমি কাদছো কেনো?
– এমনি
– কান্না থামিয়ে মেথ করো

অরূপের খারাপ লাগছে অদ্রিতাকে দেখে। মেয়েটি কাঁদছে।অবাক হলো অরুপ।অদৃতা যথেষ্ট সুন্দরী মেয়ে। আগে খেয়াল করেনি। সুন্দরী মেয়েরা কাঁদলে চেহারায় মায়া ভাবটি ফুটে উঠে।অদৃতার চেহারায় ফুটে উঠেছে। অদৃতার উপর থেকে দৃষ্টি সরালো অরুপ। মায়া বরো খারাপ অনুভুতি এর
জালে একবার আটকালে আর বের হওয়া যায় না

দৃশ্যপট ৩

অদৃতা ছাদে দাড়িয়ে আছে। গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। অদৃতা সে বৃষ্টিতে ভিজছে। তার খুব ইচ্ছে অরুপ ভাইয়ার হাত ধরে বৃষ্টিতে ভিজবে সারারাত। খুন সুটির গল্প করবে।

অদৃতা মোবাইলটি হাতে নিলো। অরুপ ভাইয়ার সাথে কথা বলতে ইচ্ছে হচ্ছে।

অরুপ শুয়ে আছে। তার মোবাইলে বাজছে। অদৃতার ফোন।

অরুপ ঠিক করেছে অদৃতাকে আর পড়াবে না।

– হ্যাল্লো !
– হুম্ , বলো
– ভাইয়া আমি অদৃতা
– বুঝেছি
– ভাইয়া কি বাসায় ?
– হ্যাঁ
– একটু ছাদে উঠুন
– কেনো?
– বাহিরে বৃষ্টি হচ্ছে। বৃষ্টিতে ভিজলে মন ভালো হয়
– আমার বৃষ্টি তে ভিজার ইচ্ছে নেই
– অউ
– তোমাকে একটা কথা বলবো
– জ্বি
– আমি তোমাকে কাল থেকে পড়াবো না , তোমার আম্মুকে বলে দিয়ো
– হুম্
– আমি রাখছি , ভালো থেকো

অদৃতা লাইন কেটে দিলো।ঝুম বৃষ্টি হচ্ছে। অদৃতা কাঁদছে আর বৃষ্টিতে ভিজছে। বৃষ্টির পানির সাথে তার কান্না মিশে যাচ্ছে

দৃশ্যপট ৪

অরুপ দাড়িয়ে আছে বারান্দায় আজ গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি হচ্ছে।

অনেকদিন পর আদৃতের কথা আজ খুব মনে পড়ছে তার।সেই দিনের পর থেকে আর কোনো খবর পায়নি।

অরূপের মোবাইলে রিং হচ্ছে।

– হ্যাল্লো , স্যার আমি অদৃতা চিনেছেন?

অরুপ অনেকটাই অবাক হলোও।

– হুম্ চিনেছি , অদৃতা তুমি ভালো আছো?
– জ্বি স্যার আপনি ভালো আছেন?
– হুম্
– স্যার আমার বিয়ে
– হুম্ , ভালো তো কবে?
– আগামীকাল
– স্যার , যার সাথে আমার বিয়ে হবে সেও আপনার মতো বোকা। সারাক্ষণ মুখ গুমড়া করে থাকে
– অউ
– স্যার , আপনি বিয়েতে আসবেন তো ?
– হুম

অরুপ লাইন কেটে দিয়ে বৃষ্টিতে ভিজছে। ঝুপ বৃস্টি নেমেছে আজো। অদৃতা আজ অরুপকে ভাইয়া ডাকেনি ,স্যার বলে ডেকেছে।

২ thoughts on “সেদিন তুমি ভালবেসেছিলে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *