পুরুষতন্ত্রের সূক্ষ্মরূপ

এক ভাইয়ার দেয়া পোষ্ট থেকে জানতে পারলাম।
“এ বছর লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে গিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আই বি এর ছাত্রত্ব হারিয়েছেন সোমা নামের এক মেয়ে।”

আমি ভাবছি, শুধু কি এই মেয়েটা ? আমাদের সমাজের অসংখ্য মেয়ে আজ সৌন্দর্যচর্চায় নিজেকে ব্যস্ত রেখেছে। এরা জ্ঞানচর্চার ধার ধারে না, এরা স্বনির্ভরতার ধার ধারে না, এরা চায় না আত্মমর্যাদা বজায় রাখতে, এরা চায়না মনের সৌন্দর্যকে ফুটিয়ে তুলতে, এরা চায় না মানুষ হতে।

এক ভাইয়ার দেয়া পোষ্ট থেকে জানতে পারলাম।
“এ বছর লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে গিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আই বি এর ছাত্রত্ব হারিয়েছেন সোমা নামের এক মেয়ে।”

আমি ভাবছি, শুধু কি এই মেয়েটা ? আমাদের সমাজের অসংখ্য মেয়ে আজ সৌন্দর্যচর্চায় নিজেকে ব্যস্ত রেখেছে। এরা জ্ঞানচর্চার ধার ধারে না, এরা স্বনির্ভরতার ধার ধারে না, এরা চায় না আত্মমর্যাদা বজায় রাখতে, এরা চায়না মনের সৌন্দর্যকে ফুটিয়ে তুলতে, এরা চায় না মানুষ হতে।
এরা হতে চায় সুন্দরী, হতে চায় আকর্ষণীয় ফিগারের অধিকারী, এরা চায় স্টার হতে, এরা চায় দৈহিক সৌন্দর্য বিক্রি করে জনপ্রিয়তার সিড়ি দিয়ে উপরে উঠতে, এরা চায় বড় বড় শিল্পপতিদের পত্নি-উপপত্নি হয়ে ভোগ-বিলাসের জীবন । হতে চায় পরগাছা, পরনির্ভরশীল।

এইযে এইসব মেয়েরা বইয়ের পিছনে না ছুটে গায়ের রঙ সাদা করার পেছনে যে ছুটছে তার মূল কারণ টা কি জানেন ?

‘এর মূল কারণ আমাদের পুরুষতন্ত্র।’
হ্যাঁ পুরুষতন্ত্র সবসময় নারীকে ব্যাবহার করে এসেছে পণ্য হিসেবে। পুরুষতন্ত্রের কাছে বিদূষী নারীর চেয়ে দেহ সৌন্দর্যে পূর্ণ অথচ অন্তঃসারশূণ্য মূর্খ নারীর মূল্য অনেক অনেক বেশি। পুরুষেরা দীর্ঘদিন ধরে নারীকে অবদমন করে আসছে। দীর্ঘদিনের প্রয়াসে আজ নারীরাও মেনে নিতে শিখে গেছে দাসত্ব। তাই আজ নারীরা মানুষ না হয়ে হতে চাইছে দৈহিক সুন্দর।
এখানে যতোই লিখুন আর বলুন ততোক্ষণ পর্যন্ত এই সমাজ ঠিক হবে না যতোক্ষণ না পর্যন্ত সমস্যার মূলে না পৌছান, গোটা সমাজ ব্যাবস্থা কে পরিবর্তন করবেন। নারীকে পণ্য হিসেবে না দেখে মানুষ হিসেবে দেখবেন।

আমাদের এক হুমায়ুন আজাদ স্যার বারবার একাই বলে গেছেন, অথচ তার কণ্ঠকে রুদ্ধ করে দেয়া হয়েছে। এক তসলিমা ম্যাম মাথা তুলে দাঁড়িয়েছিল এই নষ্ট সমাজের বিরুদ্ধে তাকেও দেয়া হইয়েছে নির্বাসন। আর কত তসলিমা-আজাদকে হারাতে হবে প্রাণ, হতে হবে নির্বাসিত এই নষ্ট সমাজের চাপে?

সমস্যার মূলে আঘাত হানতে হবে আমাদের, শিকড় থেকে কেটে দিতে হবে এই নষ্ট সমাজের বিষবৃক্ষটাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *