অভিমানী রাতের চাঁদ …

আধখানা এলাট্রলে রাতের ঘুম দৈর্ঘ্য প্রস্থে বেড়ে দুপুরে গড়ালো । পুরোটা খেলে না জানি কী ঘটে যেতো !!! কিন্তু তা কি করে হয় … ! তুমি যে একবার অবলীলায় ২৩টা ঘুমের ওষুধ খেয়ে নিলে গভীর ঘুম ঘুমোবে বলে !!!



আধখানা এলাট্রলে রাতের ঘুম দৈর্ঘ্য প্রস্থে বেড়ে দুপুরে গড়ালো । পুরোটা খেলে না জানি কী ঘটে যেতো !!! কিন্তু তা কি করে হয় … ! তুমি যে একবার অবলীলায় ২৩টা ঘুমের ওষুধ খেয়ে নিলে গভীর ঘুম ঘুমোবে বলে !!!
তোমার কি তখন গভীরতম ঘুমের তলদেশে ডুবে যেতে যেতে আশরাফ শিশিরের কবিতার মতো মনে হচ্ছিলো –

”… ভালবেসে তোমাকে বোঝাতে পারিনি
হসপিটালের ১৩ তলায়
ক্লোরোফরমের আরোপিত ঘুমের ভেতরে
দাড়ি ও কমা ছাড়া
আর কোন লড়াই থাকে না… ”

তখনো ঘুমের ওষুধে ভেজাল দেওয়া শুরু হয়নি । যদিও সুকান্ত অনেক আগেই ভেজাল সম্পর্কিত একটা কবিতা লিখে গেছেন ,

” ভেজাল ভেজাল ভেজাল রে ভাই ভেজাল সারা দেশটায়
ভেজাল ছাড়া খাঁটি জিনিস মিলবে নাকো চেষ্টায় । ”

তোমার ছিল না ঘুমানোর অসুখ । সারারাত জীবনানন্দ দাশের সাথে নির্ঘুম কাটিয়ে দিব্যি সকালে ভার্সিটি যেতে । আমি অবাক হতাম এই ভেবে যে, একজন মানুষ রাতের পর রাত না ঘুমিয়ে কীভাবে এতো সজীব, সতেজ থাকতে পারে ! তোমাকে দেখে কখনো মনে হয়নি ” ক্লান্তি ” নামক কোন শব্দ অভিধানে আছে । অথচ প্রায়শ আমাকে রবীন্দ্রনাথের ওই গানটি গুণ গুনিয়ে গাইতে হতো,

” ক্লান্তি আমার ক্ষমা করো প্রভু … ”।

একরাত ঠিক মতো ঘুম না হলে পরদিন আমার মুখের ভূগোলে তুমি আবিষ্কার করতে কালো মেঘের ঘনঘটা। মুখে কিছুই বলতে না । বুঝিয়ে দিতে জীবনানন্দীয় অভিমানে, সেদিন অবিরাম বর্ষণে ভিজবে সবুজ মাঠ, পাহাড় আর ইস্টিশন।

পাহাড় ঘুমায় জোছনার আলো মেখে । কথা কয় নিঃশব্দে শুক্লা দ্বাদশীর চাঁদ নক্ষত্রের সাথে । আর তুমি চেয়ে থাকো চন্দ্রাহত নাবিকের মতো রবীন্দ্রনাথের বাংলায় রাতের রূপোলী আকাশে । একদিন বলে ছিলে যদি ব্যবধানে ব্যবধানে রচিত হয় অসীম দূরত্ব আমি যেন ভরা পূর্ণিমায় চাঁদের দিকে তাকিয়ে কথা বলি , মহাপৃথিবীর যে কোন প্রান্ত হতে তুমিও খুঁজে নেবে সেই চাঁদ … কথা হবে… কেবল কথা হবে… ।

রুদ্র মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ’র কবিতার নির্যাস ছুঁয়ে বলছি শোন,

” দূরত্ব জানে শুধু একদিন খুব বেশি নিকটে ছিলাম,
একদিন শরীরের ঘ্রাণ শুঁকে তুমি ব’লে দিতে ঃ অমিতাভ
………………… আজ সমুদ্রে যেও না, আজ খুব ঝড় হবে —– ”

যাপিত জীবনের ক্লেদ ভুলে গিয়ে আজও আমি এই নগরের বিশাল বিশাল অট্টালিকার ফাঁকে ফাঁকে খুঁজি সেই প্রতিশ্রুত চাঁদ । পেয়ে গেলে একফোঁটা অবসর তুমি হও চাঁদের কনা এই বিমূর্ত জীবনে । অপলক তাকিয়ে থাকি নীরব নিশির শিশির মেখে … তোমাকে শুনাতে চাই একটি ই কবিতা …


” হায় চিল, সোনালী ডানার চিল, এই ভিজে মেঘের দুপুরে
তুমি আর কেঁদোনাকো উড়ে উড়ে ধানসিড়ি নদীটির পাশে!
তোমার কান্নার সুরে বেতের ফলের মতো তার ম্লান চোখ মনে আসে।
পৃথিবীর রাঙ্গা রাজকন্যাদের মতো সে যে চলে গেছে রূপ নিয়ে দূরে;
আবার তাহারে কেন ডেকে আনো?
কে হায় হৃদয় খুঁড়ে বেদনা জাগাতে ভালোবাসে!

হায় চিল, সোনালী ডানার চিল, এই ভিজে মেঘের দুপুরে
তুমি আর কেঁদোনাকো উড়ে উড়ে ধানসিড়ি নদীটির পাশে! ”

৪৫ thoughts on “অভিমানী রাতের চাঁদ …

  1. অনেকটাই ডুবে গিয়েছিলাম। খুব
    অনেকটাই ডুবে গিয়েছিলাম। খুব ভালো হয়েছে রাহাত ভাই। আমার পক্ষ থেকে এক টন ইলেকট্রনের শুভেচ্ছা নেন।

    1. ইলেকট্রন,
      তোমাকে বেশি ডুবাতে

      ইলেকট্রন,
      তোমাকে বেশি ডুবাতে পারলাম না বলে আমার কোন আফসোস নেই ।
      কারণ তুমি ডুবলে ইস্টিশন ভেসে যাবে বেনো জলে … তা কি করে হয় … ???
      আমার পক্ষ থেকে ফ্রীতে ধইন্যা পাতা সাথে বোনাস হিসেবে দুটি গোলাপ …
      :গোলাপ: :ধইন্যাপাতা: :গোলাপ:

  2. চমৎকার ।
    ” হায় চিল, সোনালী

    চমৎকার ।

    ” হায় চিল, সোনালী ডানার চিল, এই ভিজে মেঘের দুপুরে
    তুমি আর কেঁদোনাকো উড়ে উড়ে ধানসিড়ি নদীটির পাশে!
    তোমার কান্নার সুরে বেতের ফলের মতো তার ম্লান চোখ মনে আসে।
    পৃথিবীর রাঙ্গা রাজকন্যাদের মতো সে যে চলে গেছে রূপ নিয়ে দূরে;
    আবার তাহারে কেন ডেকে আনো?
    কে হায় হৃদয় খুঁড়ে বেদনা জাগাতে ভালোবাসে!

    আমার খুব খুব খুব প্রিয় একটা কবিতা

    1. কে হায় হৃদয় খুঁড়ে বেদনা

      কে হায় হৃদয় খুঁড়ে বেদনা জাগাতে ভালোবাসে!

      কেন মনে করায়া দিলেন লাইনটা অমিত ভাই … :কানতেছি: :দেখুমনা: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :ভাঙামন: :ভাঙামন: :ভাঙামন:

    1. লিখতে পেরে সত্যি আমি আনন্দিত
      লিখতে পেরে সত্যি আমি আনন্দিত ! জানিনা কতোটুকু ভালো লিখতে পেরেছি ।
      তবে আমার আন্তরিক চেষ্টা থাকে ভালো লেখার প্রতি । আপনাকে ধন্যবাদ !!!
      :গোলাপ: :ধইন্যাপাতা: :গোলাপ:

  3. চমৎকার ভাই । আজ দুই দিন পর
    চমৎকার ভাই । আজ দুই দিন পর আসলাম ইস্টিশনে হয়তো আপনার লিখাই টানছিল আমাকে,

    তবে একটা কথা এলাট্রল তো ঘুমের ঔষধ না ………

    1. ওরে জয়’রে
      ছোট্ট পণ্ডিত ভাই

      ওরে জয়’রে
      ছোট্ট পণ্ডিত ভাই আমার ।
      ভালো থাকিস সবসময় … !
      :গোলাপ: :গোলাপ: :ধইন্যাপাতা: :গোলাপ: :গোলাপ:

    1. সেতো আমিও জানি তবে ওতে ঘুম
      সেতো আমিও জানি তবে ওতে ঘুম হওয়ার উপাদান ভালো পরিমানেই আছে । এ ব্যাপারে আতিক ভাই আরও ভালো বলতে পারবেন । তবে আমার ব্যাপক ঘুম হয়েছে । আজ অফিসেও যেতে পারিনি । ইহাই সত্য ডিয়ার !

      1. আতিক ভাই আতিক ভাই আপনি
        আতিক ভাই আতিক ভাই আপনি কোথায়
        বুকের জমানো কমেন্ট প্রতিক্ষার সময় স্রোতে ভেসে যায় দুরে

        ও আতিক ভাই আতিক ভাই আপনি কোথায় ।

        😀

  4. বলার মত কোন ভাষা না পাওয়াতে
    বলার মত কোন ভাষা না পাওয়াতে আপাতত নির্বাক ভাষায় ধইন্না দিয়া গেলাম… :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :তালিয়া: :তালিয়া: :ফুল: 😀

    1. ওরে কে আছিস দেখে যা… আমার
      ওরে কে আছিস দেখে যা… আমার মুভি পাগলা ভাইডি কমেন্ট করেছে !!!
      আপনার না বলা কথা আমি বুঝে নিয়ে ধন্য হলাম !
      :গোলাপ: :ধইন্যাপাতা: :গোলাপ:

  5. চমত্‍কার।অসাধারণ কিছু কবিতার
    চমত্‍কার।অসাধারণ কিছু কবিতার প্রয়োগ।পুরো হারিয়ে গেছিলাম।আর ‘কে হায় হৃদয় খুড়ে বেদনা জাগাতে ভালোবাসে’ এই লাইনটা আমার সবচেয়ে প্রিয় কবিতার লাইনগুলোর একটা।জীবনানন্দের এই একটা লাইনই যে কত গভীরতা সৃষ্টি করতে পারে তা বলা অসম্ভব।

    1. জীবনানন্দের কবিতার গভীরতা
      জীবনানন্দের কবিতার গভীরতা মাপা সহজ কথা নয় । ওই লাইন টি আমারও খুব প্রিয় । সম্ভবত এই কথাটা প্রতিটি বাঙালির হৃদয়ের কথা । ধন্যবাদ কমেন্টের জন্য ।
      :গোলাপ: :ধইন্যাপাতা: :গোলাপ:

  6. মনে হইল ভর দুপ্পুর বেলা এক
    মনে হইল ভর দুপ্পুর বেলা এক গ্লাস ঠাণ্ডা পানি খাইলাম। অস্থির হয়া গেছিলাম সন কঠিন কঠিন সব পোস্ট পড়তে পড়তে। :পার্টি: :পার্টি: :পার্টি:

  7. সাধারণত ব্যক্তিগত কথাকাব্য হয়
    সাধারণত ব্যক্তিগত কথাকাব্য হয় নিজের ব্যক্তিগত কথা কাহিনী বা ঘটনা দিয়ে। সাধারণ ভাবেই উপস্থাপন করা হয়।
    আপনি উপস্থাপন করেছেন ভিন্ন আঙ্গিকে। আঙ্গিকটা ভালো লেগেছে…।

    1. অবাস্তব স্বপ্নচারী ,
      ধন্যবাদ

      অবাস্তব স্বপ্নচারী ,
      ধন্যবাদ কমেন্টের জন্য !
      ঘটনা যতটুকু আছে তা আমার জীবনে ঘটে যাওয়া । যেহেতু ব্যক্তিগত কথার সাথে ‘ কাব্য ‘ শব্দটার উল্লেখ আছে আর যেহেতু আমিও টুক টাক কবিতা লেখার চেষ্টা করি তো সব মিলিয়ে আমার মনে হয়েছে ব্যক্তিগত কথাকাব্য বিভাগের জন্য এই আঙ্গিকটা অপেক্ষাকৃত প্রাসঙ্গিক ।

  8. ইতিহাস সাক্ষী যে দিন যে দিন
    ইতিহাস সাক্ষী যে দিন যে দিন আমি আতিক ভাই এর জন্য গান গেয়েছি আতিক ভাই এসে গিয়েছে
    হাহাহা।
    বুঝলাম না ভাই কাহিনীটা কি??

    1. (No subject)
      :চিন্তায়আছি: :লইজ্জালাগে: :মুগ্ধৈছি: :তালিয়া: :নৃত্য: :থাম্বসআপ: :খাইছে: :পার্টি: :ভাবতেছি: :কেউরেকইসনা: :খুশি: :দেখুমনা: :আমারকুনোদোষনাই:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *