বাঙ্গালির আবেগের নেতা মুশফিক-আজ তার শুভ জন্মদিন

দেশ বিদেশের মাটিতে ক্রিকেট ছাড়া আর কে লাল সবুজের পতাকাটাকে এত সম্মানীত করতে পেরেছে? এত মহিমান্বিত করতে পেরেছে?

হাসি কিংবা কান্নায় বাঙ্গালির অহংকারের আশ্রয়-ক্রিকেট। স্বাধীনতার পর বাংলাদেশের যত অর্জন বিশ্বের মানচিত্রে-তারমধ্যে ক্রিকেট সবার উপরে। এই একটা আবেগ, এই একটা ভালবাসা, যেখানে সব কিছু ভুলে বাঙ্গালি একমত।

ব্যাট বলে যখন আমাদের সোনার ছেলেরা মাঠে লড়াই করে তখন মসজিদ-মন্দির-গীর্জা-প্যাগোডায় তাদের জন্য শুভকামনা করা ছাড়া আর কোন বড় প্রার্থনা থাকে না।

দেশ বিদেশের মাটিতে ক্রিকেট ছাড়া আর কে লাল সবুজের পতাকাটাকে এত সম্মানীত করতে পেরেছে? এত মহিমান্বিত করতে পেরেছে?

হাসি কিংবা কান্নায় বাঙ্গালির অহংকারের আশ্রয়-ক্রিকেট। স্বাধীনতার পর বাংলাদেশের যত অর্জন বিশ্বের মানচিত্রে-তারমধ্যে ক্রিকেট সবার উপরে। এই একটা আবেগ, এই একটা ভালবাসা, যেখানে সব কিছু ভুলে বাঙ্গালি একমত।

ব্যাট বলে যখন আমাদের সোনার ছেলেরা মাঠে লড়াই করে তখন মসজিদ-মন্দির-গীর্জা-প্যাগোডায় তাদের জন্য শুভকামনা করা ছাড়া আর কোন বড় প্রার্থনা থাকে না।

সময়ের হাত ধরে এই ক্রিকেট ক্রমশই আমাদের স্বপ্ন বাড়িয়ে চলেছে। আমাদের আত্মবিশ্বাসী করে তুলেছে। আমাদের সাফল্য, বীরত্ব আর দেশপ্রেমের আবেগ বাংলাদেশের ক্রিকেট।

বিশেষ করে তরুন প্রজন্মের খেলোয়াড়দের হাত ধরে এ দেশের ক্রিকেট আজ বিশ্ব ক্রিকেটের সামনে বিশাল চ্যালেঞ্জ।

সেই তরুন প্রজন্মের কান্ডারি, যোগ্য দলনেতা বাংলাদেশের জাতীয় দলের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের জন্মদিন আজ। তার এই শুভদিনে জানাই হৃদয় নিংড়ানো ভালবাসা আর শুভেচ্ছা।

আজকের এই দিনে ২৫ বছরে পা দিলেন উইকেট কিপার এই ব্যাটসম্যান। বগুড়া শহরে ১৯৮৮ সালের ১ সেপ্টেম্বর জন্মগ্রহণ করেন মুশফিকুর রহিম।

খালেদ মাসুদ পাইলটের পরে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সফল উইকেট কিপার ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম। আর হাবিবুল বাশারের পর দলের সেরা দলনায়কও তিনি।

২০১১ সালের ২০ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) মুশফিকের হাতে জাতীয় দলের অধিনায়কত্ব তুলে দেয়। তারপর থেকেই জাতিকে আনন্দে ভাসানোর মত অনেক আবেগীয় মুহুর্তের জনক তিনি, নেতা তিনি।

নিজের যোগ্যতা ও প্রতিভার প্রমাণস্বরূপ সফল অধিনায়ক হিসেবে যেমন খ্যাতি পেয়েছেন ঠিক তেমনি একজন নির্ভরযোগ্য মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান হিসেবেও দলে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। আর বিশ্ব ক্রিকেটে একজন স্বনামধন্য উইকেট কীপার হিসেবেও সমীহ কুড়িয়েছেন মুশফিক।

লর্ডস ক্রিকেট গ্রাউন্ডে সর্বোকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে যুক্ত হয়েছে মুশফিকের নাম। মাত্র ১৬ বছর ২৬৭ দিনে লর্ডস গ্রাউন্ডে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম টেস্ট ম্যাচ খেলতে নামেন তিনি।

মিডল অর্ডারে শেষ বছরে বাংলাদেশকে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ জিতিয়েছেন। ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে ২০১১ সালে একমাত্র টি-২০ ম্যাচে শেষ বলে ৬ মেরে জয় ছিনিয়ে আনেন এই মুশফিক। আবার এশিয়া কাপে ভারতের বিপক্ষে ২৫ বলে ৪৬ রানের দানবীয় ইনিংস মুশফিককে বাঙ্গালি সহজে ভুলতে চাইবে না।

২০১২ সালে আবার ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে সাহসী ব্যাটিং দিয়ে ৩-২ এ সিরিজ জয় ও সিরিজ সেরা নির্বাচন হন তিনি।

বাংলাদেশের হয়ে প্রথম ডাবল সেঞ্চুরিও হাঁকিয়েছেন এই ব্যাটসম্যান। চলতি বছরের শুরুতে শ্রীলংকার মাটিতে মুশফিক এই দ্বিশতকটি করেন।

জাতীয় দলের হয়ে এখন পর্যন্ত ৩৪টি টেস্ট ম্যাচ খেলে রান করেছেন ১৯৯৩। ১টি দ্বিশতক, ১টি শতকের সাথে সাথে রয়েছে ১১টি অর্ধশত রানের ইনিংস।

জাতীয় দলের হয়ে রঙ্গিন জার্সি জড়িয়েছেন ১১৯টি ম্যাচে। মোট রান করেছেন ২৩২৬। একদিনের ম্যাচে ১১টি অর্ধশত রানের সাথে মুশফিকের রয়েছে ১টি শতকও।

দলের প্রয়োজনে যখন যেরকম ব্যাটিং করা প্রয়োজন সেরকম ব্যাটিং করে যাচ্ছেন। সামনেও তার ভূয়সী ব্যাটিং ও নেতৃত্বে বাংলাদেশ দল সমান তালে এগিয়ে যাক সেটাই সবার প্রত্যাশা।

নায়কদের নায়ক মুশফিক। একটা জাতির মধুর স্বপ্ন আর গভীর আবেগের নেতা মুশফিক। বাঙ্গালির কান্না-হাসির ক্রিকেটের কান্ডারি মুশফিক। তার হাত ধরেই আসুক বিশ্বকাপ বিজয়ের সৌভাগ্য।

জয়তু বাংলাদেশের ক্রিকেট…জয়তু মুশফিকুর রহিম…

১ thought on “বাঙ্গালির আবেগের নেতা মুশফিক-আজ তার শুভ জন্মদিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *