‘প্রেম যৌনতা ও আমরা’

‘প্রেম যৌনতা ও আমরা’

বর্তমানে হাল ফ্যাশনে প্রেম করা বা প্রেমে পড়া একটি সাধারণ ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রেম না করাটাই যেন বিস্ময়কর একটা ঘটনা। আর এই প্রেমের সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখছে মোবাইল ফোন। কি যুবক কি যুবতি, বা স্কুল, কলেজ পড়ুয়া ছেলে মেয়ে সকলে নিমজ্জিত এই সুধা পানে।

‘প্রেম যৌনতা ও আমরা’

বর্তমানে হাল ফ্যাশনে প্রেম করা বা প্রেমে পড়া একটি সাধারণ ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রেম না করাটাই যেন বিস্ময়কর একটা ঘটনা। আর এই প্রেমের সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখছে মোবাইল ফোন। কি যুবক কি যুবতি, বা স্কুল, কলেজ পড়ুয়া ছেলে মেয়ে সকলে নিমজ্জিত এই সুধা পানে।
রাত দিন ভর মোবাইলে গুজুর-গুজুর,ফুসুর-ফুসুর । আল্লাহ ভাল জানেন এরা এত কি বিষয় নিয়ে কথা বলে। সারা দিন ডেট মেরে আর কি কথা থাকতে পারে, সারা রাত জেগে আবার কথা। আর এই মোবাইল বিল এর দায় পড়ে ছেলের বাবার ঘাড়ে। কারণ বেশির ভাগ ( প্রায় ৯০%-৯৫%) কল গুলি করে ছেলেরা। ভাই গুলি একবারও কি মনে হয়না , পিতৃদেব কত কষ্ট করে টাকা উপার্জন করে। বিবেকের কাছে কি একবারও প্রশ্ন জাগে না, কাজটা কি ঠিক করছি ?
আর যারা বাড়ি ছেড়ে শহরে থাকো তাদের বলব , তোমরা যেমন সেকেন্ডে সেকেন্ডে প্রেমিকা কে কল কর, বল জানু খাইছ, ঠিকমত ঘুমাইছ। এত খোঁজ নাও। প্রিয় মা বাবা কে কি ঐ রকম কল কর, বা একটিবারও বাবা মা কে ফোন করে বল – বাবা বা মা-মাগো তুমি দুপুরে খাইছ। তা হলে কি, তোমার ঐ প্রেমিকা তোমার মা বাবার চেয়ে তোমার কাছে প্রিয় ?
এই তো গেল কল করা নিয়ে বাদানুবাদ। এবার আসি ডেটে যাবার ঘটনায়………।।
ডেটিং এ যেতে হলে যেতে হবে নির্জন কোন এলাকায়। যেন পরিচিত কেও দেখে না ফেলে। আর এই নির্জনতার চাওয়ার কিছু গোপন অভিসন্ধি রয়েছে আমাদের ছেলেদের( মেয়েরা নির্জনতা চায় কি না আমি জানিনা, চায়লে কেন চায়, একজন মেয়েই ভাল বলতে পারবে)। নির্জনে খুব সহজে হাতের ব্যায়াম করা যায়। হায়রে বনটি একটু ভাল খাবার আর মিষ্টি কথায় তুমি তোমার সবচেয়ে সেরা বস্তুটি তুলে দিচ্ছ একটা লম্পট এর হাতে। তুমি কি যান সে তোমাকে বিয়ে করবে । ১০০% শিয়র থাক করবেনা। প্রবাদে আছে……………

>>>> যে মেয়ে বিয়ের আগে তার রান্নাঘর কোন ছেলের হাতে তুলে দেয়, সে ছেলে জীবনে আর ঐ মেয়েকে বিয়ে করবেনা<<<<< এবার আসি রুম ডেটিং এর কথায়। ছেলেরা খুব সহজে মেয়েদের ফাঁদে ফেলে রুম ডেটিং এ বাধ্য করে। বেশির ভাগ ছেলে সম্পর্ক কাট বা ভেঙ্গে ফেলার হুমকি দিয়ে মেয়েটিকে বাধ্য করে শারীরিক সম্পর্কে জড়িয়ে ফেলতে। শুধু তা হলে না মানা যেত, অনেকে আবার গোপনে সেই দৃশ্য রেকর্ড করে। পরে তা দেখিয়ে মেয়েটিকে তার সেক্স দাসীতে পরিণত করে। অনেক ছেলে আবার তা নেটে ছড়িয়ে দিচ্ছে। কত বড় কুত্তার বাচ্চা এরা। অনেক সময় মেয়ে গুলিও এই ভেবে এর কিছু বলেনা ভিডিও করতে দিতে যে, ওকে তো সব দিয়েছি ভিডিও করলে এমন কি হবে। বোন গুলি এমন কাজ করবেন না, যখনই আপনার প্রিয় প্রেমিক টি , আকার ইঙ্গিতে বা সরাসরি এমন রুম ডেটিং এর প্রস্তাব দেই, তখনি ঐ হারামির সঙ্গে সম্পর্ক শেষ করুন। কারণ জীবনেও তারা তোমাকে ভাল বসেনি, তারা শুধু তোমাকে বিছানায় নেবার জন্য এত দিন এত ইনভেষ্ট করেছে। আর যদি চরম কাজটি করেই ফেলেন তবে রুমটি একটু ভাল করে দেখে নিন হারামিটি গোপন কোন ভিডিও যন্ত্র লুকিয়ে রেখেছে কি না। আর খুব অন্তরঙ্গ ছবি বা ভিডিও কখনও করতে দিবেন না। কারণ সম্পর্ক পরে নষ্ট হলে ঐটি তারা নেটে ছড়িয়ে দিতে পারে বা তোমাকে ব্লাক মেইল করতে কাজে লাগাতে পারে। এবার আসি বিবেকের প্রশ্নে। এই যুবক বা যুবতী বয়সে রক্তের গরমে এমন চরম একটি অনৈতিক কাজ কি পরবর্তী জীবনে আমাদের মনে ছায়া ফেলবে না। ১০০% ফেলবে। তখন বা একটু বয়স হলে বা পড়ন্ত বয়সে কি ঐ সব ঘটনা মনে আসবে না ? তখন কি ভাবে নিজের বিবেক কে বুজ দেবেন। তখন কি একটুকু খারাপ লাগা তৈরি হবে না ? আর আমরা মুসলিম হলে ইসলাম ধর্মে এই সব ব্যাভিচার হিসেবে গণ্য। আর এর জন্য রয়েছে কঠিন ও কঠোর শাস্তির বিধান। >> এখন আপনারাই ভাবুন কি করবেন। অবৈধ কাজ না বৈধ কাজ।

‘প্রেম যৌনতা ও আমরা’ বর্তমানে হাল ফ্যাশনে প্রেম করা বা প্রেমে পড়া একটি সাধারণ ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রেম না করাটাই…

Posted by Golam Maula on Tuesday, July 30, 2013

১৯ thoughts on “‘প্রেম যৌনতা ও আমরা’

  1. পোস্ট টা গোছানো না। সুন্দর
    পোস্ট টা গোছানো না। সুন্দর করে লেখা যেতো। অপ্রাসঙ্গিক এবং অযৌক্তিক কথায় ভরপুর

  2. আগা মাথা কিছুই হয়নি।
    আব্বু

    আগা মাথা কিছুই হয়নি।
    আব্বু আম্মুকে ফোন না করা মানে কি তাদের প্রতি ভালোবাসা না দেখানো?
    আরো অনেক অযৌক্তিক কথা আছে।
    ভাইরে, আর কয়দিন হুদাই লিখবেন? এইবার একটু সিরিয়াস হন।

    1. ভাইরে, আর কয়দিন হুদাই লিখবেন?
      ভাইরে, আর কয়দিন হুদাই লিখবেন? এইবার একটু সিরিয়াস হন।……… আমার দ্বারা সিরিয়াস কিছু হবে না ভাই আমি হুদাই লিখি— @ অঘূর্নায়মান ইলেকট্রন ভাই

  3. একটু সময় নিয়ে গুছিয়ে একটা
    একটু সময় নিয়ে গুছিয়ে একটা চমৎকার পোস্ট হিসেবে দাঁড় করানো যেত এই লেখাটাকে… :ভাবতেছি: :দেখুমনা: :মাথাঠুকি: :কথাইবলমুনা: আপনার টপিকগুলো ভালো হয়, বক্তব্যও চমৎকার, তবে কেন শুধু শুধু অবহেলায় অযত্নে লেখাগুলোকে বেহুদা বলার সুযোগ করে দেন আকাশ ভাই… :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :ক্ষেপছি: :ক্ষেপছি:

    গোছানো ও যত্নে তৈরি লেখার অপেক্ষায়… :জলদিকর: :জলদিকর: :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি:

    1. রহমান ভাই , এই যে
      রহমান ভাই , এই যে পড়ছেন……… এতেই হবে ।একটু যদি বিবেক এ, মলম দেই এতেই আমার সাফল্য। কে কি বলল তাতে আমার বয়েই গেল ।

  4. সম্ভবতঃ এবং স্বভাবতঃই আমরা
    সম্ভবতঃ এবং স্বভাবতঃই আমরা সবাই একটা ভালো বক্তব্যের চেয়ে একজন ভালো বক্তার অপেক্ষায় থাকি…!

    আপনি কী বলছেন তার চেয়ে অনেক বেশী গুরুত্বপূর্ণ- আপনি কিভাবে বলছেন! আজকাল মানুষ বক্তাকে দিয়েই বক্তব্যের গুরুত্ব বিচার করে ফেলে। যদিও এটা ঠিক না তবুও এটা বাস্তব!

    আপনার পোস্টের বিষয়বস্তু নিঃসন্দেহে ভালো। একটা ফেসবুক স্ট্যাটাস হিসেবে ঠিক আছে… তবে কি- এটা ব্লগ তো! এখানে প্রত্যাশাটা একটু বেশী থাকে আরকি!

    চালিয়ে যান। হুমায়ূন আহমেদ-রবীঠাকুর কেউ একদিনে জন্মায়নি! জাস্ট নেভার কুইট… ক্যারি অন!
    শুভেচ্ছা রইলো।
    :ফুল: :ফুল: :ফুল:

    1. সফিক ভাই, আপনি লিখাটা ভালো
      সফিক ভাই, আপনি লিখাটা ভালো করে পড়লেই বুঝতে পারবেন এখানে তথ্যগুলো যথেষ্ট অগোছালো। থিমটা খুবই ভালো ছিলো। আরেকটু গুছিয়ে লিখলেই হত। আর সমালোচনাকে পরামর্শ হিসেবে ধরে নিতে হয়।
      আর, ছোট কথা মানে সবসময় তাৎপর্যহীন নয়। অনেক সময় ছোট একটা কথার ওজন এত বেশি হয়ে যায় যে সেটা পুরো একটা জাতিকে কাঁপিয়ে দিতে পারে। রক্তে আগুন ধরিয়ে দিতে পারে। সেই আগুনে অত্যাচারীর ভিত কেঁপে উঠতে পারে। সেই কথার তেজ এতই বেশি হয় যে, যার যা আছে তা নিয়ে শত্রুর মোকাবিলা করার কাজে নেমে পড়ে। সে কথার তেজ এতই বেশি যে সেই কথা বাবা মায়ের ভালোবাসা উপেক্ষা করে চলতে পারে। সেই কথার তেজ ৭ই মার্চ হতে আজ এইদিনে এসেও বারতা ছড়াতে পারে। সেই কথার তেজ এতই বেশি যে ৭ই মার্চের ৭ এর পাশে ১টি তর্জনী মিলে তৈরী করে ফেলতে পারে ৭১। সেই কথার তেজ এতই বেশি যে বক্তাকে অমর করে দিতে পারে, বক্তার সৌধের উপর সেই বক্তার ছায়া তৈরী করে ছেড়ে দিতে পারে মানুষের অন্তরে। হ্যাঁ,সেই জ্বালাময়ী কথা, সর্বকালের সেরা উক্তি,

      “এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম,
      এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।”

      1. আমার কমেন্টের প্রত্তুত্যরে
        :খাইছে: :খাইছে: :খাইছে:

        আমার কমেন্টের প্রত্তুত্যরে এতো বড় কমেন্ট এবং কমেন্টের বক্তব্য- এর কিছুই তো বুঝলাম না!
        :মানেকি: এইসবের মানে কী???

        1. সফিক ভাই, আসলে ছোট কথার মর্ম
          সফিক ভাই, আসলে ছোট কথার মর্ম বুঝাইতে গিয়া বহুত কথা বলে ফেলছি! আমার ইমোশান চরম অবস্থায় চলে গেলে আর হুঁশ থাকেনা। তখন খাটেরতলা হইতে আগরতলা চলে যাই!
          কিন্তু ঐ কমেন্টে না বুঝার কিছু আছে?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *