কমা অথবা দাড়ির গল্প

– না সম্পর্কে আর কোন কমা, সেমিকোলন না। একেবারে দাড়ি।
– আর একবার কমা দাও। এইবার তুমি যতদিন চাও কমা থাকবে। আমি এর মাঝে তোমাকে জ্বালাবো না।
– জ্বালানো নিভানো জানি না। তোমার সাথে আমার আর সম্পর্ক রাখা চলে না।
-আরে।,আর একবারই তো।
– না বলছি। না।

এভাবে আরও কয়েকবার দাড়ি দিতে গিয়ে কমা হয়ে গেছে ইমামার। এবার আর না। আর কোনভাবেই ইমামা সম্পর্ক রাখবে না সাব্বিরের সাথে।অনেক হেয়ালিপানা সহ্য করেছে। আর না। কাল রাতেও সাব্বির ফেসবুকে গিয়েছে, নিশ্চয়ই মেয়েদের সাথে লুকিয়ে লুকিয়ে চ্যাট করেছে। এতবার করে মানা করার পরও।

– তুমি কাল রাতেও ফেসবুকে গিয়েছিলে?
– মানে? কে বলল তোমাকে?

– না সম্পর্কে আর কোন কমা, সেমিকোলন না। একেবারে দাড়ি।
– আর একবার কমা দাও। এইবার তুমি যতদিন চাও কমা থাকবে। আমি এর মাঝে তোমাকে জ্বালাবো না।
– জ্বালানো নিভানো জানি না। তোমার সাথে আমার আর সম্পর্ক রাখা চলে না।
-আরে।,আর একবারই তো।
– না বলছি। না।

এভাবে আরও কয়েকবার দাড়ি দিতে গিয়ে কমা হয়ে গেছে ইমামার। এবার আর না। আর কোনভাবেই ইমামা সম্পর্ক রাখবে না সাব্বিরের সাথে।অনেক হেয়ালিপানা সহ্য করেছে। আর না। কাল রাতেও সাব্বির ফেসবুকে গিয়েছে, নিশ্চয়ই মেয়েদের সাথে লুকিয়ে লুকিয়ে চ্যাট করেছে। এতবার করে মানা করার পরও।

– তুমি কাল রাতেও ফেসবুকে গিয়েছিলে?
– মানে? কে বলল তোমাকে?
– আমাকে কে বলল ওটা তোমার জানতে হবে না। গিয়েছিলে কিনা বল?
– না তো।
– আবার মিথ্যা বল। কেন গেছিলা বল?
– যাই নায় তো।
– রাগ উঠাবা না। তুমি না গেলে তোমার ভুতে স্ট্যাটাস দিছে? “আজ আমার মন খারাপ।”
এক থাপ্পড় দিব বেয়াদব।মেয়েলি স্ট্যাটাস। এইসব দিয়ে তুমি কি বুঝাতে চাও? তোমার গার্লফ্রেন্ড তোমারে ছ্যাকা দিছে, সেই দুঃখে তোমার মন খারাপ। এখন দল বেধে মেয়েরা আসবে সান্ত্বনা দিতে, প্রেম করতে, তাই তো? দেখলাম এক মেয়েও কমেন্ট করছে,” গার্লফ্রেন্ড সমস্যা?” ঐ মেয়ে জানে কি করে? ঐ মেয়েকে কি বলছ তুমি আমার ব্যাপারে?
– না ঐ মেয়েকে তো আমি তোমার ব্যাপারে কিছু বলি নায়।
– তাহলে কি বলছ? তুমি সিঙ্গেল? জীবনে কোন মেয়ের দিকে তাকাও নি। প্রেম করনি, তাই তো?
– না না। ঐ মেয়ের সাথে আমার কোনদিন কথাই হয় নি।
– তাই না? কোন কোন মেয়ের সাথে চ্যাট করছ বল?
– কারও সাথে না। সত্যি।
– তাহলে গেছিলা কেন?
– সরি।
– সরি মানে? এইটা কি অভ্যাস? আমার সাথে যেদিন ঝগড়া হয়,ঝগড়া হওয়ার সাথে সাথে তুমি ফেসবুকে দৌড় দাও। কে আছে ওখানে? আমার প্রক্সি আছে?
– ছিঃ ছিঃ।এগুলো কি বল তুমি? আর যাব না। বিশ্বাস কর। এইবারের মত কমা দাও।
– তোমাকে আমি কতদিন বলছি তুমি আর ফেসবুক চালাবে না। তারপরও তুমি!! আমি তো চালাই না। তোমার কেন এত শখ?
– আচ্ছা তোমার সামনে এই accout deactivate করছি। আর কখনও যাব না।

ইমামা আর সম্পর্কে কমা দিবে না।এর আগেও কয়েকবার ব্যাপারটা ঘটেছে। রাগারাগি করে চলে গেছে । প্রতিবারই ফিরে এসেছে। রাগ করে চলে যাবার পরই, কলের পর কল করে যাবে সাব্বির। ধরবে না জেনেও। এরপরই ফাজিলটা একটা ফাজিল মার্কা কথাসহ এস এম এস দিবে।যার নমুনা থাকবে এমন,
“আর কখনও জ্বালাবো না তোমাকে, আর তোমাকে কল দিব না। থাকো সুখে থাকো, আর জ্বালাতে আসব না। আমি কার কে?আমার কিছু হলে কার কি?”
সবসময় এই ধরনের একটা মেসেজ দিয়ে আর কোন খোঁজ খবর থাকবে না। ইমোশনাল ব্লাকমেইল। ফাজিল একটা। অস্থিরতা বাড়িয়ে দিয়ে হাওয়া। ইমামাই পরে কল করে খোঁজ নিবে। শেষ বার খুব খারাপ একটা কাজ করেছে সাব্বির।বড়সড় মাপের ঝগড়া।গতানুগতিক ইমোশনাল ব্লাকমেইল মেসেজে কাজ হচ্ছিল না। ইমামার অভিমান শক্তিশালী। ভাঙ্গা সম্ভব না এবার। হঠাৎ সেদিন ইমামার নাম্বারে একটা অপরিচিত নাম্বার থেকে মেসেজ আসল,” আপনার বয়ফ্রেন্ড তো accident করছে।অবস্থা খুব খারাপ।”
মেসেজ দেখে ইমামার বুকের ভিতর ঘ্যাচ করে কি যেন বিঁধল। তারাতারি সাব্বিরকে কল করল। নাম্বার বন্ধ। অনেকক্ষণ ধরে কল করল । তাও বন্ধ। মনে হচ্ছিল, পৃথিবীর সবচেয়ে অসহায় মানুষ ইমামা সে মুহূর্তে। বুকের ভিতরের কষ্ট সারা শরীর বেয়ে চোখের দিকে যাচ্ছিল। চোখে অসহ্য কষ্টে পানি গাল বেয়ে পরা শুরু করে দিয়েছিল। সেই মুহূর্তে কল ঢুকল। সাব্বির মোবাইল ধরার পর ইমামা কাঁদো কাঁদো গলায় বলল- কই তুমি?
– এইতো রাস্তায় দাঁড়িয়ে আলুর চপ খাই।তোমার কি হইছে কাঁদো কেন?
– কিছু না। তুমি এখন আসো আমাদের এখানে। আমি তোমার সাথে দেখা করব।
– আচ্ছা।

এরপর দেখা, সব ঠিক। ইমামা ভাল করে জানে,অপরিচিত নাম্বার থেকে মেসেজটাও সাব্বির দিয়েছিল।নাম্বার পরে বন্ধ করে রেখেছে।টেনশনে রাখার জন্য।কিন্তু এই কথা ও কখনই স্বীকার করবে না। মুখ চোখ এমন অসহায় করে কথা বলবে, যেন মনে হবে একটা বাচ্চা কথা বলছে। সে কোন অপরাধই করতে পারে না।

ইমামা এবার অমন আলতু ফালতু মেসেজেও ভুলবে না।
তাই কড়া করে বলে দিল- তুমি যাও, ফেসবুকই চালাও। থাকো তোমার ফেসবুক বান্ধবী নিয়ে।আমার সাথে থাকার কোন দরকার নেই। অত মেয়ে ওখানে। আমি অনুমুতি দিয়ে দিচ্ছি। আর ঝগড়া হলে লুকিয়ে ফেসবুক চালাতে হবে না। দেখিয়ে দেখিয়ে চালাবা। এখনি একটা স্ট্যাটাস দাও, “আমার গার্লফ্রেন্ড আমাকে ছ্যাকা দিয়ে পুড়ে ফেলছে। “তোমার সাথে আর আমার চলে না।

ইমামা পাশ থেকে উঠে গেল। সাব্বিরের দেয়া দুটি গোলাপ হাতে নিয়ে। সম্পর্কে দাড়ি টেনে যাচ্ছে, তাও ফুলগুলো ফেলে দিচ্ছে না। ভালবেসে প্রতিবারই সাব্বির দুটি করে গোলাপ দেয়। বেশিও না ,কমও না। সব পছন্দ জঘন্য হলেও গোলাপ দুটি সবসময় অনেক সুন্দর হয়। প্রতিটা মানুষের ভিতর সুন্দর কিছু থাকে। তার টানেই কারও না কারও তার প্রতি আজন্ম মায়া জন্মে যায়। মায়া কাটানো খুব কঠিন। ভালবাসার মায়া। বাহির থেকে দেখে যাকে মনে হয়, একে ভালবাসার কি আছে? তার প্রতিই কেউ না কেউ এমন কিছু সুন্দরের মায়ায় বেধে আছে।যে মায়া কাটানো যায় না।
ইমামা চলে যাচ্ছে। সাব্বির ছোট্ট একটা মেসেজ করল,” খুব কান্না পাচ্ছে। যেও না। আমি তোমাকে ভালবাসি। আর ভুল হবে না।”
ইমামা মুখ ফিরে তাকাল। সাব্বির মুখ নিচু করে বসে আছে । ইমামা হয়ত সম্পর্কে দাড়ি টেনে মুখ ঘুরিয়ে নিয়ে যাবে। নয়ত কান্নার মায়ায় অথবা ২ টা সুন্দর গোলাপ ফুলের ভালবাসায় সম্পর্কে কমা দিয়ে ফিরে আসবে।

১১ thoughts on “কমা অথবা দাড়ির গল্প

  1. প্রতি বারের মতই ভাল লেগেছে
    প্রতি বারের মতই ভাল লেগেছে গল্প

    “আর কখনও জ্বালাবো না তোমাকে, আর
    তোমাকে কল দিব না। থাকো সুখে থাকো,
    আর জ্বালাতে আসব না। আমি কার কে?

    এই টুকু আমি সন্ধ্যায় পাঠিয়েছি । পরে আর তার রিপ্লে দেই নি এখন সে আবার উপরের টুকু সহ নিচের টাউ

    আমার কিছু হলে কার কি?”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *