একটি স্বপ্ন; অতঃপর……

স্যারের বাসার সামনে যে বড় আমগাছটি আছে তার নিচে দাঁড়িয়ে আছে রনি।। সাথে আশিক।। এই স্যারের কাছেই টিউশন পড়তে আসে তন্নী।। কিছুক্ষণের মাঝেই বের হবে।। রনি’র টেনশন হচ্ছে।। বের হতে আর বেশি দেরী নেই তন্নীর।। অল্প অল্প ঘামছে সে।। আশিকের দিকে তাকিয়ে কিছুটা হিংসা হল তার।। কি সুন্দর নির্ভার হয়ে দাঁড়িয়ে আছে সে।। টেনশনের কোন নাম-গন্ধই নেই তার।।

স্যারের বাসা থেকে বের হল তন্নী।। এদিকেই আসছে।। আস্তে আস্তে হার্টবিট বেড়ে যেতে শুরু করলো রনি’র।। আশিক উঁকি ঝুকি দিয়ে দেখছে; আশেপাশে কেও আছে কিনা।। না; নেই।। রনি’র কাছ থেকে একটু দূরে চলে গেলো সে।। এখন একা দাঁড়িয়ে আছে রনি।। সামনে এসে দাঁড়ালো তন্নী।।


স্যারের বাসার সামনে যে বড় আমগাছটি আছে তার নিচে দাঁড়িয়ে আছে রনি।। সাথে আশিক।। এই স্যারের কাছেই টিউশন পড়তে আসে তন্নী।। কিছুক্ষণের মাঝেই বের হবে।। রনি’র টেনশন হচ্ছে।। বের হতে আর বেশি দেরী নেই তন্নীর।। অল্প অল্প ঘামছে সে।। আশিকের দিকে তাকিয়ে কিছুটা হিংসা হল তার।। কি সুন্দর নির্ভার হয়ে দাঁড়িয়ে আছে সে।। টেনশনের কোন নাম-গন্ধই নেই তার।।

স্যারের বাসা থেকে বের হল তন্নী।। এদিকেই আসছে।। আস্তে আস্তে হার্টবিট বেড়ে যেতে শুরু করলো রনি’র।। আশিক উঁকি ঝুকি দিয়ে দেখছে; আশেপাশে কেও আছে কিনা।। না; নেই।। রনি’র কাছ থেকে একটু দূরে চলে গেলো সে।। এখন একা দাঁড়িয়ে আছে রনি।। সামনে এসে দাঁড়ালো তন্নী।।

“কেমন আছেন???” জিজ্ঞেস করলো তন্নী।।
রনি’র বুকের ভেতরটা বিকট শব্দে ঢিপ ঢিপ করছে।। হার্টটা যেন লাফিয়ে এখনই বাইরে বেরিয়ে আসবে।।
“ভালো।। তুমি কেমন আছ???” মৃদু স্বরে জিজ্ঞেস করলো রনি।।
“ভালো।। ঐদিনের ব্যবহারের জন্য আমি দুঃক্ষিত।। আসলে প্রতিদিন আপনাকে আমার জন্য দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে মেজাজটা একটু গরম হয়ে গিয়েছিল।। তাই আজকে আপনাকে এখানে ডেকেছি।। স্যরি।।” বলল তন্নী।।

ঐদিন কি একটা কাজে হঠাৎ করেই কলেজে গিয়েছিল রনি।। সেখানেই দেখা হয় তন্নীর সাথে।। প্রথম দেখার পরে আর চোখ ফেরাতে পারেনি সে।। অপলক চেয়েছিল ওর দিকে।। ওর তাকান দেখে লজ্জা পেয়ে চলে গিয়েছিল তন্নী।। তারপর থেকেই নিয়ম করে তন্নীকে দেখার জন্য এখানে সেখানে দাঁড়িয়ে থাকতো রনি।। কয়েকদিন ডেকে কথাও বলেছে তন্নীর সাথে।। তন্নী “হা, হু” টুকটাক উত্তর দিয়ে চলে গিয়েছে।। ঐদিন এখানে দাঁড়িয়েছিল রনি।। ওকে দেখতে পেয়ে কাছে আসে তন্নী।। দাঁড়িয়ে থাকার কারণ জানতে চেয়ে কঠিন কঠিন কিছু কথা বলেছিল সে।। তার জন্যই আজকে ডেকে এনে ক্ষমা চাচ্ছে।।

“না, আমি কিছু মনে করিনি।। তোমার বলা কথাগুলো স্বাভাবিকই ছিল।। দোষটা আমারই।। আমাকে এভাবে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে ডিস্টার্ব ফিল হও তুমি।। বিষয়টা আমার বুঝা উচিত ছিল।।” বলল রনি।।
“আসলে একটা মেয়ে যখন দেখে আরেকটা ছেলে তার জন্য সকাল-বিকাল অপেক্ষা করে রয়েছে তখন সে অনেকটা ভয় পায়।।” বলল তন্নী।।
“আমি স্যরি।। আসলে তোমাকে প্রথম দেখার পর থেকেই ভালো লেগে গিয়েছিল।। সব সময় তোমার কথাই ভাবি।। তোমাকে দেখতে খুব ইচ্ছা করে তাই তোমার অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে থাকি।। তোমার সাথে কথা বলতে ইচ্ছা হত বলে তোমাকে ডেকে কথা বলতাম।। বিষয়টা এর আগে কখনো আমার সাথে ঘটেনি।। কারো প্রতি এতটা টান কখনো ফিল করিনি।। আমি বুঝতে পারছি না কি করবো।। আমার পড়াশুনারও অনেক ক্ষতি হচ্ছে।। সব সময় প্রচন্ড টেনশন হয়।। তারপর ভাবি, আমি কেন তোমার জন্য দাঁড়িয়ে থাকি।। কিন্তু কোন উত্তর পাই না।।” একদমে এতগুলো কথা বলে ফেলল রনি।।
“আমি কি বলবো বুঝতে পারছি না।। অনেক কিছু বলতে চেয়েছিলাম।। কিন্তু আপনার কথা শুনে আর বলতে পারছি না।।” তন্নী বলল।।
“ঠিক আছে।। আমি বুঝতে পেরেছি।।” কথাটা বলে ঘুরে চলে যাওয়ার চেষ্টা করল রনি।। হঠাৎ করে ওর একটা হাত ধরে ফেলল তন্নী।। কিছু একটা বলতে চাচ্ছে- এমন সময় ঘুমটা ভেঙ্গে গেলো রনি’র।।

“ধুসসালা; এটা কি হল???” প্রচন্ড রাগে নিজেকেই বলতে লাগলো রনি।। উঠে দেখে দশটা বেজে গিয়েছে।।
“এটা তাহলে স্বপ্ন ছিল!!” চোখ ডলতে ডলতে আপনমনে বলল সে।। বিছানা ছেড়ে ফ্রেশ হয়ে মা’কে বলল খাবার দিতে।। একটু তাড়াতাড়ি করেই খেতে লাগলো সে।। এগারোটার দিকে দেখা করতে বলেছে তন্নী।। না জানি আজকে কি বলে।। প্রতিদিন দাঁড়িয়ে থাকার জন্য তো আর কম অপমান করেনি।। কোনভাবে পেটে কিছু চালান করে শার্টের বোতাম লাগাতে লাগাতেই বেরিয়ে গেলো বাসা থেকে।। আশিককে আগেই খবর দেয়া আছে।। ও নির্দিষ্ট সময় পৌছে যাবে।।

এগারোটা বাজার পাঁচ মিনিট আগে পৌছালো রনি।। পৌছে দেখে আশিক আগেই আমগাছটার নিচে দাঁড়িয়ে আছে।। এরাস্তাটা দিয়ে মানুষজনের চলাচল একদমই নেই।। আর মফস্বল শহর হওয়ায় মানুষজন এমনিতেই কম।।

এগারোটার দিকে স্যারের বাসা থেকে বের হল তন্নী।। আসতে লাগলো আমগাছটার দিকে।। ওকে দেখে একটু দূরে সরে গেলো আশিক।। রনি’র হার্টবিট বেড়ে যেতে লাগলো।।
ওর সামনে এসে দাঁড়ালো তন্নী।।

“কেমন আছেন???” জিজ্ঞেস করলো তন্নী।।
“ভালো।। তুমি কেমন আছ???” মৃদু স্বরে জিজ্ঞেস করলো রনি।।
“ভালো।। ঐদিনের ব্যবহারের জন্য আমি দুঃক্ষিত।। আসলে প্রতিদিন আপনাকে আমার জন্য দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে মেজাজটা একটু গরম হয়ে গিয়েছিল।। তাই আজকে আপনাকে এখানে ডেকেছি।। স্যরি।।” বলল তন্নী।।
“না, আমি কিছু মনে করিনি।। তোমার বলা কথাগুলো স্বাভাবিকই ছিল।। দোষটা আমারই।। আমাকে এভাবে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে ডিস্টার্ব ফিল হও তুমি।। বিষয়টা আমার বুঝা উচিত ছিল।।” বলল রনি।।
“আসলে একটা মেয়ে যখন দেখে আরেকটা ছেলে তার জন্য সকাল-বিকাল অপেক্ষা করে রয়েছে তখন সে অনেকটা ভয় পায়।।” বলল তন্নী।।
“আজব তো।। সেইম কথাগুলোই তো স্বপ্নে হয়েছিল।।” আপনমনে বলল রনি।।
“কিছু কি বললেন???” জিজ্ঞেস করলো তন্নী।।
“না; কিছু না।।” বলল রনি।।
যে কথাগুলো বলবে বলে মনে ঠিক করে রেখেছিল সবগুলো যেন কেমন উলট-পালট হয়ে গেল রনি’র।। কিছুই বলতে পারছে না সে।। একটু অস্বস্তিতে ভুগছে।। বিষয়টা ধরতে পারলো তন্নী।।
“কিছু বলবেন আমাকে??? প্লিজ একটু তাড়াতাড়ি বলুন।। বাসায় যেতে হবে।।” বলল সে।।
আশিকের দিকে তাকালো রনি।। আশিক বার বার ইশারা করে বুঝিয়ে যাচ্ছে “বল, বল।।” কিন্তু কিছুই বলতে পারছে না রনি।।
“ঠিক আছে।। আমি চলে যাচ্ছি।।” বলল তন্নী।।
হঠাৎ করে কি যেন হয়ে গেলো রনি’র।। আচমকা তন্নী’র ডান হাতটা ধরে বসলো সে।। অবাক হয়ে দেখলো হাতটা ছাড়িয়ে নেয়ার কোন চেষ্টাই করছে না তন্নী।।
“তন্নী, কলেজে যেদিন তোমাকে দেখেছি সেদিন থেকেই তোমাকে প্রচন্ড ভালো লাগা শুরু।। তোমাকে দেখতে খুব ইচ্ছা করে তাই তোমার অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে থাকি।। তোমার সাথে কথা বলতে ইচ্ছা হত বলে তোমাকে ডেকে কথা বলতাম।। বিষয়টা এর আগে কখনো আমার সাথে ঘটেনি।। কারো প্রতি এতটা টান কখনো ফিল করিনি।। আমি বুঝতে পারছি না কি করবো।। এটাকে কি বলে আমি জানি না।। কখনো এরকম কিছুর সম্মুখীন আমি হই নি।। যদি এটাকেই ভালোবাসা বলা হয়ে থাকে তবে তাই।। হ্যা, আমি তোমাকে ভালোবাসি।।” প্রচন্ড নার্ভাস হয়ে একদমে সবগুলো কথা বলে গেলো রনি।।
একটা হাঁসি দিয়ে নিজের হাতটা ছাড়িয়ে নিল তন্নী।।
তারপর কিছুটা লজ্জিত হয়ে বলল, “আমি যাই।।”

রনি হতভম্ব হয়ে দেখলো তন্নী চলে যাচ্ছে।। পেছনে ফিরে আবার একটা হাঁসি দিল।। রনি কিছুই বুঝলনা।। মাথায় হাত দিয়ে চুলগুলো আলতো করে টানা শুরু করলো।।
ঐদিকে আশিকের খুশি দেখে কে।। নাচতে নাচতে রনি’র কাছে এসে বলল, “মামা, পার্টি দে।।”

১৩ thoughts on “একটি স্বপ্ন; অতঃপর……

  1. এত সস্তা ভালবাসার গল্প বোধয়
    এত সস্তা ভালবাসার গল্প বোধয় আগে আর পড়িনি । ঘুরেফিরেই এই কয়েকটি লাইন… “কেমন আছেন???” জিজ্ঞেস করলো তন্নী।।
    “ভালো।। তুমি কেমন আছ???” মৃদু স্বরে জিজ্ঞেস করলো রনি।।
    “ভালো।। ঐদিনের ব্যবহারের জন্য আমি দুঃক্ষিত।। আসলে প্রতিদিন আপনাকে আমার জন্য দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে মেজাজটা একটু গরম হয়ে গিয়েছিল।। তাই আজকে আপনাকে এখানে ডেকেছি।। স্যরি।।” বলল তন্নী।।
    “না, আমি কিছু মনে করিনি।।

    বাহ!ছমিতখার!
    লিখতে লিখতে বলগ ডুবিয়ে দিন…

    1. ভাই, সস্তা বলেই তো লেখা।। গত
      ভাই, সস্তা বলেই তো লেখা।। গত কয়েকদিন ধরে ব্লগে মজা করার মতো কোন পোস্ট পাচ্ছি না।। তাই লিখলাম।।
      আর ভাই, বলগ আমি একা ডুবাতে পারবো না।। আমার এত শক্তি নেই।।

  2. সহজ কথার গল্প তো ভালই হয়
    সহজ কথার গল্প তো ভালই হয় ।পাঠকের বুঝতে সুবিধা হয় ।কিন্তু আপনি এই গল্পে কি করেছেন একটু খেয়াল করে দেখুন ।মাত্র কয়েকটি বাক্যই ঘুরে ফিরে লিখেছেন ।একই বাক্য দু তিন বার ব্যবহার না করে ভিন্ন শব্দের বাক্য ব্যবহার করলে এই গল্পটাই ভাল একটি গল্প হতে পারতো ।

    যাইহোক, কড়া সমালোচনা সহজভাবে নেয়ার জন্য ধন্যবাদ ।আশা করি আগামীতে ভাল ভাল গল্প উপহার দিবেন ।

    1. ভাই, লেখার পর আমিও জানতাম
      ভাই, লেখার পর আমিও জানতাম লেখাটা খারাপ হয়েছে।। কিন্তু কিছুটা মজা করেই পোস্ট দিয়েছি।। সমালোচনার জন্য ধন্যবাদ।।

      আর আমি আপনার কথায় কিছুই মনে করিনি।। :খুশি:

  3. আমিও আসলে এই গল্পের কড়া
    আমিও আসলে এই গল্পের কড়া সমালোচনা করতে চেয়েছিলাম। শাহীন ভাই করে দিলেন।
    সমালোচনাকে হাতিয়ার হিসেবে ধরে নিয়ে পরের পোস্টে নিজের যোগ্যতার প্রমান দেয়ার চেষ্টা করুন।
    তারাই সফল হয় যারা সমালোচনাকে পরামর্শ হিসেবে ধরে নেয়।

  4. সমালোচনাকে হাতিয়ার হিসেবে
    সমালোচনাকে হাতিয়ার হিসেবে ধরেনিয়ে পরের পোস্টে নিজের যোগ্যতার প্রমান দেয়ার চেষ্টা করুন।
    তারাই সফল হয় যারা সমালোচনাকে পরামর্শ হিসেবে ধরেনেয়।
    — সহমত ।

    1. থাক ভাই।। কিছু বলা লাগবো না।।
      থাক ভাই।। কিছু বলা লাগবো না।। তবে একটু সমালোচনা করলে খুশি হইতাম।। আমারে নিয়া ফেইসবুকের এক কনফেশন পেইজে কোন পাব্লিকে কনফেস দিসে আমি ভালো লিখি।। আমার এই আইডির সাথে যে ফেইসবুক পেইজের লিঙ্ক দেওয়া এটা তার ভালো লাগে নাই।। আমারে কইসে রিয়েল আইডি দিতে।। আমি দিলাম।। কিন্তু নো রেসপন্স।। যে ব্যাক্তিটি আমার সাথে ফাইজলামিটা করসিল তারে একটু দেখানোর জন্য এরকম ফালতু একটা পোস্ট দিসিলাম।। আর কিছু না।। :মনখারাপ: :মনখারাপ: :মনখারাপ:

        1. ক্যামনে বলি ভাই??? উনি নারী
          ক্যামনে বলি ভাই??? উনি নারী না পুরুষ কিছুই জানি না।। :চিন্তায়আছি: :চিন্তায়আছি: :চিন্তায়আছি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *