@ ঐশির আত্মহত্যা @

মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোডের ডি-৫, ২৮৫/ই নম্বর বাড়ি থেকে পুলিশ ঐশির লাশ উদ্ধার করেছে॥ রাজধানীর ভিকারুননিসা কলেজের ছাত্রী ইশরাত জাহান ঐশী (১৫)॥ ঐশীর পিতা
কে.এম.ইকবাল বলেন, কিছুদিন ধরে ‘ঐশী’ নাম নিয়ে তার মেয়ে মানসিক সমস্যায় ভুগছিল॥ অনেকেই তার নাম নিয়ে তিরস্কার করছিল॥ এরই এক পর্যায়ে সোমবার দিবাগত রাতের যে কোন সময়ে ঐশী ফ্যানের সঙ্গে শাড়ি পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে॥ পরে মঙ্গলবার সকালে মেয়ের রুমের দরজা ভেঙে পুলিশ ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে॥ এ ঘটনায় নিউ মার্কেট থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে॥

মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোডের ডি-৫, ২৮৫/ই নম্বর বাড়ি থেকে পুলিশ ঐশির লাশ উদ্ধার করেছে॥ রাজধানীর ভিকারুননিসা কলেজের ছাত্রী ইশরাত জাহান ঐশী (১৫)॥ ঐশীর পিতা
কে.এম.ইকবাল বলেন, কিছুদিন ধরে ‘ঐশী’ নাম নিয়ে তার মেয়ে মানসিক সমস্যায় ভুগছিল॥ অনেকেই তার নাম নিয়ে তিরস্কার করছিল॥ এরই এক পর্যায়ে সোমবার দিবাগত রাতের যে কোন সময়ে ঐশী ফ্যানের সঙ্গে শাড়ি পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে॥ পরে মঙ্গলবার সকালে মেয়ের রুমের দরজা ভেঙে পুলিশ ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে॥ এ ঘটনায় নিউ মার্কেট থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে॥
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ওনিউ মার্কেট থানার এস.আই কামাল হোসেন বলেন, ‘ঐশী’ নামটি সমাজে নেতিবাচক ধারণার জন্ম দিয়েছে॥ ঐশী নামে মেয়ের হাতে পুলিশ দম্পতি হত্যাকাণ্ডের পর এ নামটি ‘অপয়া’ হিসেবে দেখা দিয়েছে॥ এর জের ধরেই বন্ধু-বান্ধবীদের তিরস্কার সইতে না পেরে ইসরাত জাহান ঐশী ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে॥ ঐশী ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ ধানমণ্ডি শাখার একাদশ শ্রেণীর ছাত্রী॥ পারিবারিক সূত্রমতে, পুলিশ দম্পতি হত্যাকাণ্ডের পর পাড়া-প্রতিবেশী থেকে শুরু করে কলেজের বান্ধবীরাও ঐশী নাম ধরে কটূক্তি করতো॥ নানাভাবে উক্ত্যক্ত করতো॥ এ বিষয়টি তার বাবা-মাকে জানিয়েও কোনও ফল না পাওয়ায় অভিমান করে সে আত্মহত্যা করেছে॥

কথায় আছে কারো পৌষ মাস তো কারো সর্বনাশ॥ আমাদের সমাজটা এমন একটা সমাজ যা কোন নিয়ম ঠিক নাই॥ অনেক নিয়ম আছে যার কারণে মানুষকে প্রতিনিয়ত সম্যার সম্মুখিন হচ্ছে, এবং কিছু মানুষ এসমস্যা গুলা সৃষ্টি করে বা দেখে মজা বা সুবিধা নিচ্ছে॥ এইসব নাশুধু একটা ইস্যু পাওয়ার দেরি ঘটনা কি সেটা না জেনেই এমন সব আজগবি কথা সৃষ্টি করবে যার কুন অস্থিত্বও খুঁজে পাওয়া যাবে না॥ এবং ঘটনা নিয়ে যে আজগবি কথা বলবে সেগুলো বাতাসের আগে ভাইরাসের মুখে ছড়াবে॥ এবং মুখ থেকে মুখে যেতে যেতে একটু একটু বিকৃত হবে এবং বিকৃত থেকে বিকৃত হতে হতে এমদম উলঙ্গ করে ফেলবে॥ তখন এর মধ্যে সত্যতা বলতে কিছুই আর অবশিষ্ট রাখবে না॥
আপনারা হয়ত সবাই ইদানিং এর রবি সীমের এ্যড দেখেছেন॥
“তোমার সাহেবরে কও বড় কাকু এসেছে॥ কেয়ারটেকার কয় ‘ ডাকু॥ স্যার ডাকু এসেছে ইয়া লম্বা মানুষ, ইয়া বড় মোচ ও বড় মুখ॥ আশেপাশের লোকজন ড়াকাডাকি শুরু হয়ে গেছে॥”
মানুষও লাঠি, মর্শাল নিয়ে দৌড়ায়ে আসতেছে॥
এখানে দেখেন কেয়ারটেকার চিন্তা করে নাই ড়াকু কি তারে বলে কয়ে আসবে নাকি? তার সাথে যোগ করে দিল ইয়া লম্বা মানুষ বড বড মুখ ও মোচ॥ এবার বুজেন কাহিনী॥

এবার বলেন এই ইশরাত জাহান ঐশী এই মেয়েটা কি দোষ করেছিল? এভাবে কেন তাকে চলে যেতে হল॥ এটা কি আত্মহত্তা না হত্তা॥ 15 বছরের একটা মেয়ে দুনিয়ার কাঠিন্য সর্ম্পকে কতটুকু জানে? আত্মহত্তার কতটুকুই বা বোঝে? দুনিয়ার কতটুকু জানে এই মেয়েটা?
কেন তাকে অন্যের করা অন্যায়ের পাপের সাজা ভোগ করতে হয়েছে? কেন তাকে প্রতিনিয়ত কূটক্তি শুনতে শুনতে সহ্য করে না পেরে আত্মহত্তার পথ বেঁছে নিতে হয়েছে?

জানি জানি অন্যসব বড় বড় ঘটনার চাপে এই সকল ঘটনাগুলা চাপা পড়তে দেরি হবে না॥ যতই ছোট মনে করেন না কেন একটু গভীরভাবে চিন্তা করলে দেখবেন এটা ছোট ঘটনা না॥ এটার ভয়াবহতা ছোট না॥ এটা ভয়াবহতা কিন্তু প্রকট হ্মতি॥ এটা বিরাট আকার ধারণ করবে॥ এখনই সবাই এক হয়ে সকলেই মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি করতে না পারি তবে মনে রাখবেন একদিন এর ভুক্তভুগী কিন্তু আপনি আমি সবার হতে হবে॥
তাই উঁচু স্তরের মানুষ বা পরিচিত ব্যক্তিবর্গদের আগে এগিয়ে আসতে হবে॥

১২ thoughts on “@ ঐশির আত্মহত্যা @

  1. লিখার মত কিছু খুঁজে পাচ্ছিনা।
    লিখার মত কিছু খুঁজে পাচ্ছিনা। আপাতত চিন্তা করি কি লিখবো। মন্তব্য পরে করতেছি।

  2. ঘটনাটার বেপারে আমি গ্যারান্টি
    ঘটনাটার বেপারে আমি গ্যারান্টি দিতে পারব না॥ তবে ঘটনার আদলে পুরাটাই যে সত্য সেটার গ্যারান্টি দিতে পারব॥

  3. আমারো মেয়ে বন্ধু আছে ঐশী
    আমারো মেয়ে বন্ধু আছে ঐশী নামে। আসলে আমি নিশ্চিত এই ঘটনা অনাকাঙ্খিত ভাবে ঘটছে। হয়তো বান্ধবীরা ওকে ক্ষেপাতো, ছোট্ট মেয়ে অভিমানে আত্মহত্যা করছে। সো স্যাড। 🙁

      1. আত্মহত্যা করবে!!! করা দূরে
        আত্মহত্যা করবে!!! করা দূরে থাক, বলার সাহস আছে? আত্মহত্যার নাম মুখে নিলে আমিঈ তারে থাবড়াইয়া মাইরা ফেলমু!

  4. মীর জাফর নামটার মতো ঐশীরও একই
    মীর জাফর নামটার মতো ঐশীরও একই অবস্থা হবে? না। এটা সাময়িক।কিন্তু যারা যারা সাফার করবে তাদের শান্তি কে দেবে?
    ঘটনার সত্যতা নিয়ে লেখকের কমেন্ট চোখে পড়ল।

  5. উঁচু স্তরের বাসিন্দারা মানুষ
    উঁচু স্তরের বাসিন্দারা মানুষ না, তার কারণ ওরা দুখ পেলে ফ্রান্স আর আনন্দ পেলে আমেরিকা যায়। নিজেদের অন্তরে যেতে পারে না। পুঁজিবাদ সমাজে তারা উপরে আছে। তাদের ডেকে নিন্মদৃষ্টিপাত করাতে পারবেন না।

  6. প্রথমত মেয়েটা চরম বোকামী
    প্রথমত মেয়েটা চরম বোকামী করেছে… পৃথিবীর কোন কিছুই আসলে নিজের জীবনের চেয়ে মূল্যবান নয়! হয়তো এটা বোঝার বয়সও তার হয়নি। তবে এটুকু স্পষ্ট- সমাজ তাকে ততটুকুই তিরষ্কার করেছিল…
    এই ইস্টিশনেই আত্মহত্যা বিষয়ক একটা গল্প পড়েছিলাম গত কাল… সেখানে খুব চমৎকার একটা ম্যাসেজ ছিল। দুখঃজনক হলেও সত্য সেই ম্যাসেজটুকু অনেকেই জানে না!

    আমাদের সত্যি সচেতন হওয়া দরকার যখন আমরা আমাদের জাফর নামের বন্ধুটিকে মির জাফর বলি। তেমনি ঐশী-প্রভা-ইউনুস-আবুল নামের ছেলেমেয়েগুলোকে শুধু মাত্র নামের কারণে তিরষ্কার করার সময়ও সত্যি একবার বিবেকবোধকে সামনে আনা দরকার…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *