আমার চোখে নজরুল

আজ নজরুলের মৃত্যুদিবস উপলক্ষে চারদিকে স্ট্যাটাস ও ব্লগের ছড়াছড়ি।

কিন্তু,
মজার বিষয় আমি নজরুলকে তেমন কোন মূল্যায়ন করিনা। হতে পারে নজরুলকে নিয়ে আমার তেমন পড়াশোনা নেই।

তবে,
যতটূকু পড়েছি তাতে মনে হয়েছে নজরুল এক বিস্ময়কর প্রতিভার অর্বাচীন বালক।

একটি বালককে যদি বলা হয় ডানে যেয়ো না, বালক ডানে যাবার জন্যই চেষ্টা করবে। আমিও নজরুলের মধ্যে তেমন বালখিল্যতাই দেখতে পাই। বালককে যখন বাধা দেয়া হয় তখন সে কান্না শুরু করে, দুরন্ত হলে হয়ত প্রতিবাদ করে, কিংবা দুঃসাহসী হলে বাধা দেয়া কাজটিই করে ফেলে।

নজরুল,
যেখানে প্রেমে প্রীত হয়েছে সেখানে প্রেমের বন্ধনা করেছে অকৃপনভাবে গদগদ হয়ে। বিরহের যাতনায় পিষ্ঠ হয়ে প্রেমকে করেছে অস্বীকার।

সোজা কথায়,
যেখানে বাধা পেয়েছে সেখানে সে বিদ্রোহী, যেখানে আশ্রয় পেয়েচে সেখানে গেয়েছে স্তব-স্তুতি। একই ব্যক্তি ধর্মের পৃষ্ঠ-পোষকতায় গেয়েছে শ্যামা সঙ্গীত, হামদ-নাত। আবার ধর্মের কদর্যতায় তিক্ত নজরুল দিয়েছে সাম্যের দোহাই। চরম বিরুপতায় ধর্মকে সম্পূর্ন অস্বীকার করতেও ছাড়েনি।

সাম্যের দোহাই দিয়ে,
নজরুলের যে প্রশংসা করা হয় তাই বা কতটূকু যুক্তিযুক্ত? নজরুল সাম্যের কথা বলতে গিয়ে বলেছে, “একই বৃন্তে দুটি কুসুম হিন্দু-মুসলমান”। লালনের মত করে জাত-পাতের উর্ধ্বে উঠে সাম্যের গান গাইতে পারেনি।

এমন,
অদ্ভুত দ্বিচারীতা সম্পন্ন কোন কবি কিংবা সাহিত্যিক আর যাই হোক প্রশংসার দাবী রাখে কি? তবে এটা অস্বীকার করার উপায় নেই যে নজরুল এক বিস্ময়কর প্রতিভার নাম। তার সাহিত্য প্রতিভার কারনে তাকে স্মরন করা যায়, কিন্তু দর্শনের ব্যপারে তাকে কোন একটি নির্দিষ্ট দর্শনের প্রতিনিধিত্বকারী বলা যায় না।

৪ thoughts on “আমার চোখে নজরুল

  1. আপনি কত বড় কবি যে, কবি
    আপনি কত বড় কবি যে, কবি নজরুলের বই পড়ে শিক্ষা লাভ করেও নজরুল কে তুই তোকারি করে সমালোচনার যোগ্যতা রাখেন?

  2. ১০০% অমত। আপনার এই পোস্টের
    ১০০% অমত। আপনার এই পোস্টের মাধ্যমে নিজেই নিজের বালখিল্যতার পরিচয় দিলেন। কোথায় আগরতলা আর কোথায় খাটের তলা!!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *