অবশেষে

বোধহয়,আজকের দুপুর দেখতেই আমায় জন্ম দিয়েছিলে
আকাশে সূর্য নেই,অবহেলায় বৃষ্টি ঝরে
তেতিয়ে উঠা শরীর, অশান্ত মানবী মন
রোদের লুকোচুরিতে দেখে বৃষ্টির প্রহসন

কতোটা সময় বইয়ে দিনগুলো কেটেছে
মস্তিষ্কের ঘূর্নিপাকে,অবেলায় বই হাতে
চুকিয়ে চুকিয়ে জীবনের সব ছাই-পণ
আনন্দের অস্তিত্বেও ক্লান্তি খোঁজেন শুভাকাঙ্খী জন

অবশেষে হায়,তারে বুঝি পাই!
দিনগুলো সব ঘৃণার খাতায় ছেড়ে
পালিয়ে যাচ্ছি উগ্রতাকে উপসর্গ করে
নিষিদ্ধ আগ্রহের গ্রহে।

বিহাইন্ড দ্যা সীনঃ ছোটোর অনুরোধে তার কলেজ বার্ষিকীতে ছাপানোর জন্য লিখাটা লিখি। যদিও উচিত হয়নি৷ তবে কলেজ জীবনের প্রতি কিছুটা দুর্বলতার কারনেই এ কর্ম করা।

৫ thoughts on “অবশেষে

  1. সুন্দর লেখা ভাই
    আপনি যদি কলেজ

    সুন্দর লেখা ভাই
    আপনি যদি কলেজ জীবনের কিছু স্মৃতি দিতেন তার পর এই টা দিতেন অনবদ্য এক পোস্ট হতে পারত

  2. সমালোচনা: করার মত কিছুই নেই।
    সমালোচনা: করার মত কিছুই নেই। তবে অক্ষর বিন্যাস আরেকটু প্রাঞ্জল করার অনুরোধ থাকলো।

    ক্রেডিট: কবিতার ভাবার্থ পুরোপুরি পরিষ্কার। তাই এদিক থেকে পুরো ক্রেডিট আপনি পাচ্ছেন। দুরন্ত জয় এর সাথে একমত। কবিতাটা আরেকটু বড় না করেই ভালো করেছেন। ছোট্ট পরিসরেই সৃষ্টিশীলতা দেখানো বাহাদুরী।

    কানে কানে কথা: মাঝে মাঝে এই ধরনের কবিতা পড়তে আমার ভালোই লাগে।

Leave a Reply to অঘূর্নায়মান ইলেকট্রন Cancel reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *