অদেখা কাছের কেউ

-কি করিস রে ?
-বৃষ্টি দেখি ।
-বৃষ্টির আবার দেখার কি ?খালি তো পানিই পরে ।এর চেয়ে একটা বদনা নিয়ে পানি ঢেলে দেখলে সুন্দর লাগবে ।চমত্‍কার আর্ট ।
-ফাজলামি করিস না পুলি পিঠা ।

লিপুকে উল্টিয়ে পুলি ডাকে মিষ্টি ।লিপু মিষ্টির অনেক কাছের বন্ধু ।কিন্তু থাকে অনেক দূর ।ফেসবুকে কথা ।মিষ্টিকেও একটা নামে ডাকে লিপু ।তিতা বলে ।যদিও মেয়েটা অনেক মিষ্টি তবুও তিতা ডাকে ।

-কি হইছে রে তিতা ?
-কিছু না ।
-বল না ।লজ্জা করলে চোখ বুজে আছি আমি ।দেখছি না ।বলে ফেল ।ফিসফিসিয়ে বল ।বেশি লজ্জার কিছু হলে ।
-শয়তান ।তুই বেশী বুঝিছ ।

-কি করিস রে ?
-বৃষ্টি দেখি ।
-বৃষ্টির আবার দেখার কি ?খালি তো পানিই পরে ।এর চেয়ে একটা বদনা নিয়ে পানি ঢেলে দেখলে সুন্দর লাগবে ।চমত্‍কার আর্ট ।
-ফাজলামি করিস না পুলি পিঠা ।

লিপুকে উল্টিয়ে পুলি ডাকে মিষ্টি ।লিপু মিষ্টির অনেক কাছের বন্ধু ।কিন্তু থাকে অনেক দূর ।ফেসবুকে কথা ।মিষ্টিকেও একটা নামে ডাকে লিপু ।তিতা বলে ।যদিও মেয়েটা অনেক মিষ্টি তবুও তিতা ডাকে ।

-কি হইছে রে তিতা ?
-কিছু না ।
-বল না ।লজ্জা করলে চোখ বুজে আছি আমি ।দেখছি না ।বলে ফেল ।ফিসফিসিয়ে বল ।বেশি লজ্জার কিছু হলে ।
-শয়তান ।তুই বেশী বুঝিছ ।
-ছেলেদের মাথায় বুদ্ধি একটু বেশী থাকে ।তুই তো পেত্নী ।স্ত্রী জাতি ।মাথায় গোবর ।আচ্ছা তোর গরুটা কেমন আছে ?যার গোবর তুই প্রতিদিন মাথায় ঠুকাস ?
-মাইর খাবি ।
-টাকা লাগবে না তো ।দে দে ।এই সময়ে মাগনা কেউ খেতে দেয় না ।
-ওহ রাগ উঠছে কিন্তু ।
-তুই রাগতেও পারিস ?
-পারি ।
-কতটুকু ?
-অনেক টুকু ।
-রাগলে কি করবি ?
-আমার চশমাটা ভেঙে ফেলব ।
-রাগলেই কি এটা করিস ?
-হ্যাঁ ।
-তোরে একটা চশমার দোকানওয়ালার সাথে বিয়ে দিয়ে দিব ।
-তোকে একটা ফকিন্নীর সাথে বিয়ে দিব ।
-ভাল তো ।বসে বসে খাব ।বউয়ের ইনকাম ।মাঝে মাঝে আমিও বের হব বউয়ের সাথে ।আমি না ছোটবেলা কুতকুত খেলতাম ।খোড়ার অভিনয় ভাল করতে পারব ।
-তুই এত ফাজিল কেন ?
-তুই যে অনেক ভাল তাই ।এই পাগলী ,মন ভাল হইছে তোর ?-হুম ।তোর মত পুলিপিঠা থাকলে কারও মন খারাপ থাকে ?
-আমি কিন্তু তিতায় শেষ ।এত তিতা তুই ।
-শয়তান ।
-পেত্নী ।

মিষ্টির মনটা আসলেই অনেক ভাল লাগছে ।একটা অদেখা মানুষ কত সহজে মন ভাল করে দিল ।দেখা মানুষগুলো কারণে অকারণ কষ্ট দেয় ।অদেখা মানুষগুলো দেয় না ।কাছের মানুষ ব্যথা দেয় ।দূরের মানুষ কিছুই করে না ।তবে লিপুর মত কিছু অদেখা দূরের মানুষ …কাছের দেখা মানুষগুলোর কষ্ট ভুলিয়ে দেয় ।এরা অদেখা কাছের মানুষ ।সবার একজন করে অদেখা কাছের মানুষ থাকা দরকার ।দেখা কাছের মানুষ গুলোর দুঃখ ভুলিয়ে দিতে ।হয়ত অদেখা কাছের মানুষ গুলোকে খুব সহজেই ভুলে যায় ।কষ্টের সময়টাতে শুধু তাদের কথা মনে পরে ।তবুও বুকের কোণে তাদের জন্য একটু মায়া থাকে ।কেউ মায়া বাঁচিয়ে রাখে ।কেউ পেন্সিল দিয়ে .সাদা কাগজে আঁকা ছোট দাগের মত. ইরেসার দিয়ে মুছে ফেলে ।

১৫ thoughts on “অদেখা কাছের কেউ

  1. আপনার গল্পগুলো ভালো লাগে।
    আপনার গল্পগুলো ভালো লাগে। আলাদা একটা স্টাইল আছে। এভাবেই চালিয়ে যাবেন আশা করি।

    1. ধন্যবাদ। দোয়া করবেন যেন আমার
      ধন্যবাদ। দোয়া করবেন যেন আমার মত করে লিখে যেতে পারি। আমার লেখা আমার আনন্দের জন্য লেখা।

  2. গল্পের মধ্যে কোন অর্থ নেই।
    গল্পের মধ্যে কোন অর্থ নেই। দুই পক্ষের খালি বকবক!!
    তবে সত্য কথা হচ্ছে, বন্ধুর সাথে যখন কথা বলি, তখন এই নিরর্থক কথাই আমাদের অনেক কাছে টেনে নেয়। বক বকানি গুলাই একলা মুহূর্তের সাথী হয়।
    ভাল লিখেছেন। :তালিয়া: :তালিয়া:

    1. ধন্যবাদ। আমার কোন লেখাই কোন
      ধন্যবাদ। আমার কোন লেখাই কোন অর্থ নেই। যা ভাবি লিখি। 🙂 🙂
      আর এমন নিরর্থক কথা বলি কারও কারও সাথে।

    1. ধন্যবাদ। হুম কখনও কখনও চেষ্টা
      ধন্যবাদ। হুম কখনও কখনও চেষ্টা করি। কখনও কেউ আমার অদেখা কাছের মানুষ হয়। কখনও আমি কারও।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *