অসাম্প্রদায়িক বাংগালী বনাম সাম্প্রদায়িক জামাত-শিবির

সাঈদী আর কাদের মোল্লার রায়কে সামনে রেখে শিবির গতকালকের চাইতেও বড় সহিংসতার ঘটনা ঘটিয়ে ফেলতে পারে। রায়ে মৃত্যুদণ্ড হওয়াটাই আমাদের পরম আরাধ্য। প্রশ্ন হচ্ছে রায় সামনে রেখেই যদি এইধরনের ঘটনা তারা ঘটিয়ে ফেলতে পারে, সেক্ষত্রে রায় হয়ে যাবার পরে তাদের সর্বোচ্চ সহিংসতা কি পরিমানে আমরা দেখতে পাব এবং অবশ্যই তা হবে অকল্পনীয়। এরা যেহেতু ধর্মকেন্দ্রিক ব্যাবসায়ী দল, তাই এক্ষেত্রে ধর্মকে বাঁচাতে হলেও ধার্মিকদের এগিয়ে আসতে হবে সবচাইতে বেশী। সবচাইতে ভালো হত, যদি সবাই যার যার এলাকার মসজিদের ইমামদের সাথে আলাপ-আলোচনা করে প্রতি ওয়াক্তের নামাজের পরে এদের স্বরুপ মুসল্লীদের বুঝিয়ে দিতে রাজী করাতে পারতেন। ধর্মপ্রান মানুষ উনাদের কথাই বেশী শুনবেন- এটাই সত্য কথা। যেই মসজিদের ইমাম রাজী হবে না, নিশ্চিতভাবে ধরে নিতে হবে এরা আমাদের শত্রু। প্রতিটা এলাকায় এই ধরনের একটা উদ্যোগ নেয়া গেলে জামাতিদের সহিংস আচরন জনগনের জোয়ারেই ভেসে যাবে। নইলে আমাদের কপালে কি আছে তা অনুমান করাও দুঃসাধ্য। কারন এদের অস্রধারী এবং ট্রেনিং প্রাপ্ত ক্যাডারের সংখ্যা অন্ততঃ লাখ খানেক। সরকারের একার পক্ষে এদের সামাল দেয়া আসলেই কিছুটা দুঃসাধ্য এবং এতে জানমালের সমূহ ক্ষতি হওয়ার প্রবল সম্ভাবনা আছে।
এদেশের অসাম্প্রদায়িক ঐতিহ্য সুপ্রাচীন। শ্রী চৈতন্যদেব, গৌতম বুদ্ধ, সুফিবাদ, এদেশের মানুষ গ্রহন করেছে সাগ্রহে অথবা গ্রহন না করলেও তারা সেই নতুন বিশ্বাসের প্রতি অসম্মান দেখান নাই। তারা কখনই গোঁড়ামি প্রশ্রয় দেয় নাই। আজকে যেই ধর্মান্ধতার চেহারা আমরা দেখতে পাচ্ছি তা আসলে আমাদের প্রতিনিধিত্ব করে না। এইটা আমাদের উপর একটা আরোপিত চরিত্র, যা কলোনিজম আমাদের উপর সুকৌশলে চাপিয়ে দিয়েছে। কিন্তু আমরা অসাম্প্রদায়িক চেতনা বহন করছি জিনে, সুপ্ত মনে। জনগনের মাঝে জামাত-শিবিরের স্বরুপ, আসন্ন ভয়াবহতা বোঝানো গেলে র‍্যাব-পুলিশ-সেনাবাহিনী কিছু লাগবে না, বাংলার জনগনই এদের এই দেশ থেকে এক ধাক্কায় সমূলে বিনাশ করে দিবে।

৯ thoughts on “অসাম্প্রদায়িক বাংগালী বনাম সাম্প্রদায়িক জামাত-শিবির

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *