পদ্মা সেতু হবে

বাংলাদেশ ভারতের চেয়ে আয়তন, জনসংখ্যা, তথ্য প্রযুক্তিতে উন্নত ও শক্তিশালী অর্থনীতির দেশ চীনের জন্য বঙ্গোপসাগরে প্রবেশের একমাত্র লাভজনক মাধ্যম হতে পারে। অল্প সময়ে কম দূরত্বের আর বিকল্প সহজ কোন পথ নেই। ভৌগলিক অবস্থানের কারণে উন্নয়নে পিছিয়ে থাকা চীনের অন্যতম বৃহৎ রাজ্য তিব্বতের রাজধানী লাসা থেকে নিকটবর্তী গুরুত্বপূর্ণ সমুদ্র বন্দর হংকং এর দূরত্ব ৪০০০ কিলোমিটারের চেয়েও বেশি। পাহাড় পর্বতে ভরা এই অঞ্চলে চাহিদা মাফিক রেল ও সড়ক যোগাযোগ ব্যাবস্থা গড়ে তোলা যথেষ্ট ব্যয় বহুল যদিও চীন সেটা করছে। অন্যদিকে লাসা থেকে চট্টগ্রামের দূরত্ব ৮২৫ কিলোমিটার !! যদি ১০০০ কিলোমিটারও ধরি তাও লাসা থেকে হংকং এর দুরত্তের তুলনায় এক চতুর্থাংশের চেয়েও কম !! সাম্প্রতিক সময়ে চীন রাজনৈতিক ভাবে স্পর্শকাতর তিব্বতের উন্নয়নে অনেক পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করছে। চীনে লাসা থেকে বাংলাদেশের নিকটবর্তী চীনের সীমান্ত ভারতের সিকিম রাজ্যের কাছাকাছি পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণ কাজ চলছে। আমাদের দেশে পঞ্চগড় থেকে চট্টগ্রাম পর্যন্ত আগে থেকেই মিটারগেজ রেলপথ আছে। সব যুক্তিতেই চীন নিজেদের স্বার্থে বাংলাদেশকে ব্যাবহার করবে। ইউরোপ, আফ্রিকা ও গোটা মধ্যপ্রাচ্যে চীন জাহাজের মাধ্যমে বাণিজ্য করে সেই দুরবর্তী মালয়েশিয়ার মেলাকা প্রণালি দিয়ে অনেক দূর ঘুরে। তারা যদি বঙ্গোপসাগরের মাধ্যমে বাংলাদেশের সহযোগিতায় অল্প সময়ে অল্প খরচে অল্প দুরত্তে ইউরোপ, আফ্রিকা, মধ্যপ্রাচ্যে বাণিজ্য করার সুযোগ পায় তাহলে কি তারা মেলাকা প্রণালি দিয়ে এত ঘুরবে ?? এখন ভারতকে সুস্পষ্ট প্রস্তাব দেয়া দরকার। আসামের ৭ রাজ্যের সাথে হাজার কিলোমিটার ট্রানজিট চাও তো বাংলাদেশকে মাত্র ১০০ কিলোমিটার চীনের সাথে ট্রানজিট দাও। এটা বাস্তবায়ন হলে চীনের অনেক ব্যাবসায়ি সস্তা শ্রমের বাংলাদেশে হুমড়ি খেয়ে রপ্তানিমুখী বিনিয়োগ করবে ওই অল্প দুরত্তের খরচটুকুও বাঁচার জন্য !! ছোট্ট দেশ হয়ে ভারতের অর্ধেক বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ আমাদের। তখন বাংলাদেশ ব্যাংকে বৈদেশিক মুদ্রা উপচে পড়বে। এখন এক পদ্মা সেতু বানানোর জন্য নাওয়া খাওয়া বাদ দিয়ে ১০০ বার চিন্তা করতে হচ্ছে তখন প্রয়োজনে ১০ টা পদ্মা সেতু বানানোর জন্য ১০ কাপ চয়ের সাথে ১ টা মিটিংই যথেষ্ট হবে !!!

২ thoughts on “পদ্মা সেতু হবে

  1. আসামের ৭ রাজ্যের সাথে হাজার

    আসামের ৭ রাজ্যের সাথে হাজার কিলোমিটার ট্রানজিট চাও তো বাংলাদেশকে মাত্র ১০০ কিলোমিটার চীনের সাথে ট্রানজিট দাও।

    এটাই সবচেয়ে জটিল কাজ হবে। আমাদের দুর্বল পররাষ্ট্রনীতি এই দাবী ভারতের কাছ থেকে আদায় করতে পারবে কিনা আমি সন্দিহান।

  2. একটা প্রবাদ আছে, “যার সাতে(৭)
    একটা প্রবাদ আছে, “যার সাতে(৭) হয়না তার সাঁতাশিতেও(৮৭) হবে না”।
    মাত্র বিগত সরকারের আমলেও রিজার্ভ ছিল ৩৫০ থেকে ৪০০ কোটি ডলার ।অথচ এই রিজার্ভ আজ ১৬০০ কোটিতে গিয়ে পৌছেছে ।কিন্তু কোন ফায়দা কি হয়েছে?এই ১৬০০ কোটি থেকে পদ্মা সেতুতে ৩০০কোটি খরচ করলে কি এমন মহাভারত অশুদ্ধ হয়ে যায়?
    আসলে সরকারের সদিচ্ছা না থাকলে রিজার্ভ লাখ কোটি ডলারে পৌছলেও পদ্মাসেতু হবে না ।

    আপনি বলছেন ভারতের মত চিনকেও ট্রানজিট দিতে! বিশ্বায়নের যুগে প্রস্তাবটি মন্দ নয় কিন্তু যেখানে একটা কুমিরের যন্ত্রনাও সামাল দেয়া মুশকিল সেখানে খাল কেটে আরেকটা কুমির আনা আমাদের জন্য কতটা যুক্তিসঙ্গত সেটাও ভাবা উচিৎ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *