অসময়ের প্রলাপ : তোমায় মনে পড়ে




সময় থমকে থাকে না। দেখ তারেক মাসুদ সাহেব নেই সেও দুই বছর হয়ে গেল। যে হাতে একদিন মাসুদ সাহেবের কফিন ধরেছিলাম, সেই হাতেই আজ তার স্মরণে শ্রদ্ধাঞ্জলি লিখলাম। এমনি করেই তো সময়টা বয়ে যাবে। দুই বছরে তুমিও থামনি। একলা মানুষটা চোখের সামনে তিনজন হয়ে গেছ। মেয়ের নাম রেখেছ বর্ষা। হাসি পায়। যাকে হাত দিয়ে মালা দিতে পারনি তার ই-মেইল এড্রেসের নামের সাথে মিলিয়ে মেয়ের নাম রাখায় কি আনন্দ। হৈমন্তী পড়নি? অধিকার ছেড়ে দিয়ে অধিকার অধিকার খাটানোটা বিব্রতকর। স্পষ্ট করে বলতে চাই, আমার কোন কিছুতে তোমার অধিকার আছে সে আমি ভাবতে চাই না। আমার যা তা আমার। একদিন কবে তোমার ছিল, তাই বলে আজীবনের নয়। আমি খুব আবেগী। তোমার বরাবরের অভিযোগ। দেখ, এই আবেগ ছাড়া আমার মূলধন তেমন আর দামি কিছু নেই। আমি আবেগ থেকেই বলছি তোমার মেয়ের নাম বর্ষা হওয়াতে আমি অসন্তুষ্ট। আবেগ থেকেই বলছি, তোমার নগ্ন শরীর আমি এখন দেখিনা, তুমি আর আমাকে আলিঙ্গনে রাখ না। অতএব তুমি আমার কেউ না। ভালবাসার কথা বলবে তো? লাভ নেই। শরীর ভরা তৃষ্ণা নিয়ে একলা রাত কাটাব, আর তোমাকে অন্যের বিছানায় রেখে তোমার জন্য দেবদাস হবার মত ভন্ড আমি নই। আমার চাই হাতের মুঠোতে। বাকীতে আমি বিশ্বাসী নই…পিছু ডেক না। ভাল্লাগেনা। তোমার মত থাক। আমাকে আমার মত রাখ…প্লীজ…
একটা কথা তোমাকে জানাই নি। জান, একটা হিন্দু মেয়েকে আমার খুব মনে ধরেছে। সে আবার আমার আরেক ভুজম ফ্রেন্ডের পিসাত্ত বোন। কিন্তু ঘটনা হল জঘন্য। মেয়েটা এত্ত পাকনী আর শক্ত মনের, বুঝলই না…আমি তাকে ভালবাসতে পারি। বড় ভাই বানিয়ে দাদা-টাদা ডেকে একাকার। ওকে আমি বুঝাতে পারিনি, সুখী হতে নয়, একটু সুস্থ স্বাভাবিক বেঁচে থাকার জন্য ওর আঙ্গিনায় পা রেখেছিলাম। মেয়েটা দেখতে তোমার মত। আচ্ছা! আমি কি তোমার উপর অধিকার দেখাচ্ছি???? কে জানে! হবে হয়ত!
তবে ওর নামটা খুব সুন্দর। তোমার চাইতেও। উহু…জানতে চাইলেও বলব না। তোমাকে বিশ্বাস নেই। দেখা যাবে তোমার আবার মেয়ে হলে এই নামটাও চুরি করবে তুমি…

৩ thoughts on “অসময়ের প্রলাপ : তোমায় মনে পড়ে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *