স্মরণ: তারেক মাসুদ

লেখাটি ১৩ আগস্ট, ২০১১ এ লিখেছিলাম অন্য একটি ব্লগে। তারেক মাসুদ এর অকাল প্রয়াণ আমাকে খুব বেশি মাত্রায় আবেগ তাড়িত করে ফেলেছিল। আজ এই দিনে লেখাটা ইশ্টিশন এর পাঠকদের সাথে শেয়ার করলাম।

=============

ঈশ্বর বলে আসলেই কি কেউ/কিছু আছে? যদি থাকতো, তবে আমার প্রতি তার কেন এতো বিতৃষ্ণা! বেছে বেছে আমার ক্ষতি করার জন্যই কি তিনি মুখিয়ে থাকেন? যদি তাই হয়, তবে তার সাথে আর তারই সৃষ্ট মনুষ্য জাতির পার্থক্য কি!


লেখাটি ১৩ আগস্ট, ২০১১ এ লিখেছিলাম অন্য একটি ব্লগে। তারেক মাসুদ এর অকাল প্রয়াণ আমাকে খুব বেশি মাত্রায় আবেগ তাড়িত করে ফেলেছিল। আজ এই দিনে লেখাটা ইশ্টিশন এর পাঠকদের সাথে শেয়ার করলাম।

=============

ঈশ্বর বলে আসলেই কি কেউ/কিছু আছে? যদি থাকতো, তবে আমার প্রতি তার কেন এতো বিতৃষ্ণা! বেছে বেছে আমার ক্ষতি করার জন্যই কি তিনি মুখিয়ে থাকেন? যদি তাই হয়, তবে তার সাথে আর তারই সৃষ্ট মনুষ্য জাতির পার্থক্য কি!

দুপুর ১টায় অফিসে বসে কাজ করছি এমন সময় একটা ফোন এলো। ইমন [বৈশাখী টিভি] বলল,- ভাই, আপনি কৈ? আমি জবাব দিলাম, অফিসে। তোমার খবর টবর কি? .. সে তার কম্পিত কন্ঠে শুধু জানালো, একটা খুব খারাপ নিউজ আছে। আমার গলা শুকিয়ে গেলো। বলল, তারেক ভাই নেই…।
আমার মনে হলো, আমি ভুল শুনেছি। পায়ের নিচ থেকে মাটি সরে গেলো। মনে হচ্ছে, আমি ব্ল্যাক হোলে তলিয়ে যাচ্ছি। বহুদূর থেকে ইমনের গলা ভেসে আসছে। …. ভাই, আপনি শুনতে পাচ্ছেন????

আমি কেন আজ সারাদিন সকাল থেকে মোবাইল অফ রাখলাম না, তাহলে এমন একটা সংবাদ আমাকে হয়তো শোনার জন্য সন্ধ্যায় বাসায় আসা পর্যন্ত শুনতে হতো না। আমার সারাটা দিন হয়তো অন্যদিনের মতো কাটতে পারতো।

সকালে অফিসে ডিক্লেয়ার করে দিয়েছিলাম, ২টার পর চলে যাবো। একটা আর্জেন্ট কাজ আছে। কাজ আর কিছুই না। আমার আর রিদোয়ানুল আজিম সুজন এর প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মাণে হাত দিয়েছি। প্রি-প্রোডাকশনের কাজ চলছে। আগামী ২২ তারিখ শ্যুটিং হওয়ার কথা। মোটামোটি সবই প্রস্তুত। এর মধ্যে এতো বড় একটা আঘাত। দুপুরে একটা স্পট দেখতে যাওয়ার কথা। আরো কিছু টেকনিক্যাল সাইড নিয়ে বসব বলে কালই ঠিক করে রেখেছিলাম। রিদোয়ান এসে ফোন করল, আমিও অফিস থেকে বেরোলাম। দু’জনের মুখেই কোনো কথা নেই। তীব্র যন্ত্রণা হচ্ছিলো। ইচ্ছা হচ্ছিলো, কোথাও গিয়ে চুপ করে বসে থাকি। সব কিছুই অসহ্য বোধ হচ্ছিলো।

একটা মানুষ, মাত্র দু’দিন আগেই যার সাথে কথা হলো, কীভাবে হঠাৎ নেই হয়ে যেতে পারে, আমাকে কেউ বোঝাতে পারবে? আমি তাঁকে অনুরোধ করেছিলাম, সময় করে চট্টগ্রামে এসে একটু দেখে যেতে। হায়, আমি কেন নিজে সময় করে ঢাকায় গেলাম না! এই স্নেহবৎসল আমার বড় ভাইটা আমাকে কি যে এক তীব্র যন্ত্রণা আর শূণ্যতার মধ্যে ফেলে দিয়ে গেলো। মাথার ওপর থেকে ছাদ আর পায়ের নীচ থেকে মাটি সরে গিয়ে ছিন্নমূল হয়ে গেলাম আমি।

এই প্রিয় মানুষটা আমার মতো একটা নগণ্য মানুষকে যে কি পরিমান ইন্সপায়ার করে গেছেন, এই ঋণ আমি কি করে শোধ দেব? চট্টগ্রামে থেকে চলচ্চিত্র নির্মাণের মতো একটা কাজে বলদের মতো খেটে যাওয়ার পেছনে সবই তো তাঁর অবদান। তাঁর মতো করে কেউ তো কখনো ডেকেও জিজ্ঞেস করেনি। নতুন বলে অন্যদের মতো কেউ নাক সিঁটকায়নি। হাতে কলমে শেখার মতো হয়তো সুযোগ হয়নি তাঁর কাছ থেকে আমার, কিন্তু রাস্তাটা দেখিয়ে দিয়ে গেছেন, সাথে জ্বালিয়ে দিয়ে গেছেন আলো। যেন পথের কাঁটা দেখে চলতে পারি।

হায়, সবই তো করলেন, শুধু পথ চলার শুরুতেই কেন আমার হাতের আঙুলটা ছাড়িয়ে নিয়ে নিজেই হারিয়ে গেলেন।

১৩ thoughts on “স্মরণ: তারেক মাসুদ

  1. ছেলেবেলায় যে প্রতিষ্ঠানে
    ছেলেবেলায় যে প্রতিষ্ঠানে লেখাপড়া করেছেন তা থেকে বেরিয়ে একজন তারেক মাসুদের জন্ম বিস্ময়কর।আমাদের দুর্ভাগ্য যে তাঁর অক্ষত দেহকে সমাহিত করতে পারিনি…

    1. আসলে কিছুই বলার নেই। আফসোসটাই
      আসলে কিছুই বলার নেই। আফসোসটাই কেবল থেকে যাবে…
      পড়ার জন্যে ধন্যবাদ।
      :ফুল: :ফুল: :ফুল: :ফুল: :ফুল:

    1. নাসির ভাই, ঈশ্বর যদি থাকতেন,
      নাসির ভাই, ঈশ্বর যদি থাকতেন, এতটা অবিবেচক হতে পারত না। অবশ্যই তারও কিছু দায়বদ্ধতা থাকতো।

  2. ভাল্লাগতেছে না শওকত ভাই।
    ভাল্লাগতেছে না শওকত ভাই। সেইদিনের কথা মনে পড়লে কেমনে বিশ্বাস করি এইসব? এই দেশে হাজারে হাজারে হায়েনা বেঁচে থাকে, আর তারেক মাসুদের মতো মানুষ এক্সিডেন্টে মারা যান।

      1. ধার্মিকরা কিন্তু আপনার মতো
        ধার্মিকরা কিন্তু আপনার মতো বলবে না।তারা বলবে যে,ঈশ্বর যা করেন ভালোর জন্যই করেন।আর ঈশ্বর তার কর্মকাণ্ডের জন্য মানুষের কাছে জবাব্দিহি করতে বাধ্য নন।

  3. ঈশ্বর মারা গেছেন … আসুন
    ঈশ্বর মারা গেছেন … আসুন ঈশ্বরের রূহের মাগফেরাত কামনা করি ।
    তারেক মাসুদ সম্পর্কিত যে কোন লেখা আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ । আপনার পোস্টের জন্য ধন্যবাদ !

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *