ধার্মিকতার চাইতে নাস্তিকতা অধিকতর উত্তম

আমাকে যদি কেউ প্রশ্ন করে আপনার কাছে সবচাইতে ভালো, আধুনিক, মানবিক মনে হয় তাহলে আমি সরাসরি সেই প্রশ্নের জবাবে উত্তর দিবো কোনো ধর্মই না। পৃথিবীর কোনো ধর্মই শান্তির মাধ্যমে পৃথিবীতে প্রতিষ্ঠা লাভ করে নি। প্রতিটা ধর্ম প্রতিষ্ঠার পিছনে রয়েছে করুণ ইতিহাস, রয়েছে হাজার হাজার নিরীহ মানুষ হত্যার করুণ ইতিহাস। লক্ষ লক্ষ কোটি কোটি  মানুষের প্রাণের বিনিময়ে, রক্তের বিনিময়ে তৈরী হয়েছে ধর্ম।

প্রতিটা ধর্মের ধর্মগ্রন্থগুলো খুললেই দেখা যায় নির্মম রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের ইতিহাস যেখানে হাজার হাজার মানুষ তাদের জীবন উৎসর্গ করে দিচ্ছে তাদের সেই ধর্ম প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে। আর বর্তমান যুগের আধুনিক মানুষগুলো সেই প্রাচীন ধর্মগ্রন্থগুলো পড়তে গিয়ে এবং তখনকার যুগের ধর্মীয় আচারণ করতে গিয়ে হয়ে উঠতে চাইছে আরো হিংস্র।

প্রতিটা ধর্মের ধর্মগ্রন্থ মানুষে মানুষে বিভেদ সৃষ্টি করে দিয়েছে। আর ধার্মিকরা সেগুলো অনুসরণ করতে কেউ বলে আমি মুসলমান, কেউ বলে আমি হিন্দু, কেউ বলে আমি খ্রিস্টান, কেউ বলে আমি বৌদ্ধ ইত্যাদি ইত্যাদি।  অথচ এসব ধার্মিকরা কেউ প্রথমে স্বীকার করবে না যে তারা মানুষ। ধার্মিকরা তাদের নিজ নিজ ধর্মের পরিচয় দিতেই বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। তারা তাদের ধর্মীয় পরিচয়টা অনেক বড় করে দেখে।

পৃথিবীর সব ধর্মই ভিন্ন মতাবলম্বীদের প্রতি কখনও সহমর্মিতা কিংবা সমদর্শিতা দেখাই নি। বরংচ সর্বদা ভিন্নমতাবলম্বীদের প্রতি ঘৃণাই প্রদর্শন করে গেছে৷ আর ধার্মিকরা সেটা অনুসরণ করে করে ভিন্নমতাবলম্বী ধর্মালম্বীদের প্রতি ঘৃণা, হিংসা, বিদ্বেষ ছড়িয়ে বেড়াচ্ছে, কেউবা মনে মনে কেউ হয়তবা প্রকাশ্যে।

নাস্তিকরা এক্ষেত্রে ধার্মিকদের পুরোটাই বিপরীত। নাস্তিকদের কোনো ধর্ম হয় না। তাদের কাছে সকল ধর্মই সমান। নাস্তিকদের নেই কোনো জাতপাত, নেই কোনো বর্ণবাদ তাই নাস্তিকদের কাছে সকল মানুষই সমান।

নাস্তিকরা ধার্মিকদের তুলনায় তূলনামূলক কম হিংসা বিদ্বেষ ছড়ায়৷ নাস্তিকরা ধার্মিকদের মত এতটা হিংস্র না। যেমন নাস্তিকরা কখনই ধার্মিকদের মত গলা কাটতে যাবে না, কিংবা কারো বাড়িঘরে আগুন লাগাতে যাবে না ধর্ম প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে৷

নাস্তিকরা কখনও কোনো অলৌকিক জিনিস প্রাপ্তি বা লাভের আশায় মানুষের সেবা কিংবা উপকার করতে যাবে না যেটা ধার্মিকরা করে থাকে, নাস্তিকরা মানুষের বিপদে আপদে পাশে দাঁড়িয়ে তাদের সহযোগিতা করে তাদের মনুষ্যত্ববোধ থেকে,কোনো অদৃশ্য কিছু পাওয়ার আশায় না। নাস্তিকরা সর্বদা যুক্তি নির্ভর হয় আর ধার্মিকরা বেশিরভাগই হয় অলৌকিকতা নির্ভর।

নাস্তিকরা কখনই কারো উপর তাদের নিজস্ব মতবাদ চাপিয়ে দেয়ার চেষ্টা করবে না, যেটা ধার্মিকরা স্বর্গ কিংবা জান্নাতের আশায় করে থাকে। নাস্তিকরা কখনই কাউকে নাস্তিকতা পরিহার করলে হুমকি দিবে না হত্যা করার জন্য।

এই পৃথিবীর উন্নয়নের অগ্রযাত্রার পিছনে নাস্তিকদের অবদানই সবচাইতে বেশি, ধার্মিকদের থেকে। পৃথিবীর উন্নয়নের পিছনে ধার্মিকদের বিশ্বাসের নূন্যতম কোনো অবদান নেই।

বরংচ এই পৃথিবীতে ধার্মিকরা যুগে যুগে মানুষের মাঝে শুধুমাত্র হিংসা, বিদ্বেষ, ঘৃণা এইগুলোই ছড়িয়ে গেছে। তারা তাদের ধর্ম প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে হাজার হাজার রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ ও সংঘর্ষ বাধিয়েছে, কোটি কোটি মানুষ হত্যা করেছে।

এছাড়াও খুঁজতে গেলে এরকম অনেক কারণ বের হবে যেখানে দেখা যাবে ধার্মিকদের থেকে নাস্তিকরা অধিকতর শ্রেয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *