মন্ত্রী মহোদয়ের শব্দ ভান্ডার

একটা ব্যাপার বেশ অদ্ভুত ,দেশ বিদেশে ঈদ বা অন্য কোন উতসব উপলক্ষে বিগ বাজেটের সিনামা রিলিজ হয় , আর এদেশে ঈদ বা সার্বজনীন যে কোন উৎসব উপলক্ষে মন্ত্রীদের গালা-গালি বা পিত্তি জ্বালানো ডায়ালগ রিলিজ হয়, কপাল আর কি ….!! মাননীয় অর্থ মন্ত্রীর সৌজন্যে এবারো তার ব্যতয় ঘটে নাই…


একটা ব্যাপার বেশ অদ্ভুত ,দেশ বিদেশে ঈদ বা অন্য কোন উতসব উপলক্ষে বিগ বাজেটের সিনামা রিলিজ হয় , আর এদেশে ঈদ বা সার্বজনীন যে কোন উৎসব উপলক্ষে মন্ত্রীদের গালা-গালি বা পিত্তি জ্বালানো ডায়ালগ রিলিজ হয়, কপাল আর কি ….!! মাননীয় অর্থ মন্ত্রীর সৌজন্যে এবারো তার ব্যতয় ঘটে নাই…

রাবিশ,  স্টুপিড,  বোগাস ইত্যাদি নানাবিধ ইংরেজী শব্দ চর্চার ধারাবাহিকতায়  গতকাল আরো একটা শব্দ এদেশের ফর্মাল পলিটিক্যাল শব্দের ডিকশনারিতে অন্তর্ভুক্ত করলেন আমাদের মাননীয় অর্থমন্ত্রী – আটার্লি ননসেনস, ড. ইউনুস প্রসঙ্গে …..!! ননসেনস” শব্দটা তিনি আগে ও বেশ কয়েকবার ব্যাবহার করছিলেন , তাই এবার শব্দটাকে একটু মডিফাই  করার দিকে নজর দিলেন, এই  ডিজিটাল সরকার সব কিছুকেই যুগের সাথে তাল মিলিয়ে  হালনাগাদ   করার প্রকল্প হাতে নিছে, তারই অংশ হিসাবে ” নন সেনস শব্দ টাকে আরেকটু শ্রুতি মধুর শোনানোর জন্য বর্ধিত কলেবরে “আটার্লি ননসেনস” রুপে হাল নাগাদ করলেন ….

সাধারনত অর্থ মন্ত্রী রা দায়িত্ব পালন করার সময় অফিসিয়ালী এ জাতীয় ইনফর্মাল শব্দ ব্যানহার করেন না …. এখানেই তার স্বকীয়তা, তিনি রাজনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভুত এই সব শব্দ কোথাও বক্তব্য দেয়ার সময় প্রায়ৈ ব্যাবহার করে থাকেন…

এ কথা অনস্বীকার্য যে, মাননীয়  অর্থমন্ত্রীর ইতিবাচক শব্দ ভান্ডারের অবস্থা যাই থাকুক, ইংরেজী-বাংলা উভয় ক্ষেত্রেই নেতিবাচক শব্দ ভান্ডার অসম্ভব সমৃদ্ধ …. ভালৈ, জাতির ‘বিলাতি’ গালির  ভান্ডার ও যথেস্ঠ  সমৃদ্ধ হচ্ছে !
দেশের মানুষের ইংরেজি ভাষাগত দক্ষতা বাড়ানোর নিমিত্তে তিনি অর্থ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীত্ব  সামলানোর পাশাপাশি ইংরেজি শিক্ষক হিসাবে পার্ট টাইম ডিউটি  দিয়ে যাচ্ছেন, সম্পুর্ন বিনা পয়সায় !!!! জাতির তরে কত বড় আত্নত্যাগ… !!!!! আসলেই তিনি এক সুমহান শিক্ষক – আশা করি অনতি বিলম্বে প্রযোযক -পরিচালক- নায়ক সহ অসংখ্য পরিচয়ে পরিচিত  আরেক সুমহান চলচ্চিত্র ব্যাক্তিত্ব  জ্বলন্ত জলিল তার আপকামিং সিনামার নাম রাখবেন, “অনবদ্য বেকুব – দ্য আটার্লি ননসেনস”…. আর সেই সাথে “বাংলার গানের পাখি” মহামতি ইভা রহমান যদি সংগীত পরিবেশন করেন, তাইলে মৌজ মাস্তির ষোল কলা পুর্ণ হবে ….

আমরা জানি যে, অর্থমন্ত্রী বেশ কিছু শ্লেষাত্নক বাংলা শব্দ ও জানেন, যেমন দেশের শেয়ার মার্কেট সম্পর্কে কথা প্রসঙ্গে তিনি শেয়ার মার্কেট কে “দুস্টু” বলেছিলেন ……. আহহ কি মিস্টি শব্দ ! মন্ত্রীর উচিত , ইংরেজী শব্দের প্রতি নির্ভর্শীলতা কমিয়ে এ রকম সফট কোর বাংলা শব্দের সাহায্য নেয়া, ইংরেজি ত শিক্ষা ত যথেস্টৈ হৈছে, এইবার না হয় বাংলা চর্চা ও হোক খানিক টা…… উন্নত বিশ্ব হয়ত ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করণ কর্মিসুচী হাতে নেয়, আর আমরা অন্তত নেতিবাচক শব্দ বা গালি সমৃদ্ধ করণ কর্মসুচী ও হাতে নেব না, এটা হতেই পারে না …..

যাই হোক, কেবল অর্থ শাস্ত্র’ই নয় , ভাষা শাস্ত্রে ও তার অগাধ পান্ডিত্য, সর্ব বিদ্যায় পারদর্শি আমাদের মাননীয় অর্থমন্ত্রী জনাব আবুল মাল বিরল প্রজ প্রতিভা, একেবারেই ইউনিক আইটেম ,দ্য ওয়ান দ্য অনলী –

এমন “মাল”টি কোথাও খুজে পাবে না কো তুমি –
সকল জ্ঞানের আধার সে যে-
আমার অর্থমন্ত্রী, সে যে আমার অর্থমন্ত্রী …

তিনি ভবিষয়তে নিত্য নতুন চমতকার সব শব্দের মোড়ক উন্মোচন করে বিনোদন বঞ্চিত জাতির জন্য নির্মল বিনোদনের ব্যাবস্থা কর্বেন প্রতিনিয়ত, এটাই জাতির একমাত্র প্রত্যাশা ……

২২ thoughts on “মন্ত্রী মহোদয়ের শব্দ ভান্ডার

    1. বলেন কি, প্রায় ৫ বছর ব্যাপী
      বলেন কি, প্রায় ৫ বছর ব্যাপী ফ্রি ইংরেজি লেসন নিয়েও ইংরেজিতে পাকতে পারলেন না? আফসুস, বহুত আফসুস!!! আমারতো পেকে-ঝুনে একশেষ অবস্থা| TOEFL আর IELTS ওয়ালারা আমাকে ফ্রি সার্টিফিকেট দেয়ার জন্য ঝোলাঝুলি করছে| বিরক্তির সীমা-পরিসীমা নাই!!! :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি:

  1. উনি একটু সহজ টাইপের লোক তাই
    উনি একটু সহজ টাইপের লোক তাই অন্তরে যা আসে তাই মুখে প্রকাশ করে ফেলেন।সত্যবাদিতার প্রয়োজন আছে ।

    1. মনে যা আসে সেটা ফট করে বলে
      মনে যা আসে সেটা ফট করে বলে ফেলাটা আমার আপনার মত রাম, সাম, যদু, মধুদের মানায়| অর্থমন্ত্রীর মত একজন গুরুত্বপূর্ণ মানুষকে মানায় না| এতই যদি সত্যবাদী হন তাহলে শেয়ার বাজার কেলেঙ্কারির রিপোর্ট প্রকাশে বা এর তদন্ত করে দোষীদের শাস্তির ব্যবস্থা করতে উনার কলিজা কাঁপে কেন? শুনেন ভাই, সাদাকে সাদা আর কলোকে কালো বলতে পারাটা সচেতন শিক্ষিত মানুষের লক্ষণ| আমি কি খুব ভুল বললাম? আরেকটা কথা, “যদ্দ্যাপী আমার গুরু শুরীবাড়ি যায়, তদ্দ্যাপী আমার গুরু নিত্যানন্দ রায়” ধরনের মানসিকতা দেশ, জাতি, রাজনীতি সবকিছুর জন্য সমান ক্ষতিকর| এর নাম অন্ধ ভক্তি, আর আমরা সবাই জানি যে অন্ধত্ব একটি অভিশাপ| আমি যদি কোনো ভুল কথা বলে থাকি তাহলে আমি আপনার কাছে অগ্রীম ক্ষমাপ্রার্থী|

      1. ঊনি খুবই শিক্ষিত ও প্রাজ্ঞ
        ঊনি খুবই শিক্ষিত ও প্রাজ্ঞ একজন মানুষ ।অর্থনীতি নিয়ে অনেক বই ও লিখেছেন।উনি কিন্তু রাজনীতিবিদ নন, অর্থনীতিবিদ।বর্তমানে উনার বয়স ও হয়েছে অনেক ।তাছাড়া রাজনীতির কুটচাল ও তিনি একটু কম বুঝেন । তাই হয়তো কথাবার্তায় কিছুটা অসংলগ্নতা প্রকাশ পাচ্ছে ।কিন্তু গভীরভাবে চিন্তা করেন দেখুন উনি যাদের বিরুদ্ধে বা উপলক্ষে এসব শব্দ ব্যবহার করছেন তা যৌক্তিক কি না?উনার যায়গায় আপনি বা আমি হলে হয়তো আরো খারাপ কোন শব্দ থাকলে সেটাই ব্যবহার করতাম ।

        যাইহোক, সরকারের চোর ও দুর্নীতিবাজ মন্ত্রীদের মাঝে আমি মনে করি উনি একটা হিরের টুকরো ।তবে আপনি খারাপ পেতে পারেন বা পান এতে আমার আপত্তি নাই ।
        Anyway, আমি সমালোচনা পছন্দ করি । সমালোচনার জন্য ধন্যবাদ ।

        1. এই টা আপ্নে কি বললেন শহীদ ভাই
          এই টা আপ্নে কি বললেন শহীদ ভাই ! একজন মন্ত্রী কি রাজনীতিবিদ নন! !!!! একজন  মানুষ যখন একটা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নেন , তখন অবধারিত ভাবেই তার আগের পরিচয় মুছে যায় ….. এর আগে তিনি কি অর্থনীতিবিদ ছিলেন , সেনা কর্মকর্তা ছিলেন নাকি ক্রিকেটার ছিলেন,  সেটা নিয়ে তর্কের অবকাশ থাকে না এবং তার আগের পরিচয় গুলো গৌন হয়ে যায় , তখন তার মুল পরিচয় হয় –  একজন রাজনীতিবিদ হিসাবেই ……

          তাছাড়া তিনি জাতীয় সংসদ নির্বিচনে সাবেক অর্থমন্ত্রী সাইফুর রহামান কে হারিয়েই সংসদ সদস্য হিসাবে নির্বাচিত হয়েছিলেন ….. তিনি দলীয় ব্যানারে নির্বাচিত একজন জনপ্রতিনিধি, এর্পর ও কি আপ্নার কাছে তার মুল পরিচয় গন্ডায় গন্ডায় পয়দা হওয়া শুধু মাত্র “একজন অর্থনীতিবিদ ” !!!

          তবু ও যদি আপ্নি বলেন,  সে একজন অর্থনীতিবিদ,  রাজনীতিবিদ না ; তাতে কিছু যায় আসে না ……

    2. অর্থমন্ত্রী আগে ও মন্ত্রী
      অর্থমন্ত্রী আগে ও মন্ত্রী ছিলেন, অনেক বড় বড় পদে বহু বছর ধরে সুনামের সাথে কাজ করে আসছেন, কিন্তু তার বিরুদ্ধে কখনোই কোন দুর্ণীতি অভিযোগ উঠে নাই, ভদ্রলোক হিসাবে তার একটা ক্লিন ইমেজ আছে….

      কিন্তু এ প্রসঙ্গে আমি ও ইকরাম ভাইর সাথে একমত….. আসলেই আমার মত সাধারণ মানুষদের কথা বার্তা ঠিক ঠাক মত না হলে ও ক্ষতি নাই, কিন্তু যিনি দেশের সবচেয়ে গুরুত্বপুর্ণ মন্ত্রনালয় চালান তার কথার গুরুত্ব অনেক বেশি, তিনি যদি আমাদের মত বাইক্কা কথা বার্তা চালিয়ে যান, তাইলে ক্যামনে কি! !!

      রাজনীতীবিদ দের সবচেয়ে গুরুত্বপুর্ণ সম্পদ তাদের “চাপা” ,সেই চাপাটা ঠিকমত ব্যাবহার কর্তে না পার্লে, তার রাজনীতি করা’ই উচিত না @ সৈয়দ গোলাম শহিদ ভাই

      1. উনিতো রাজনীতিবিদ নন,
        উনিতো রাজনীতিবিদ নন, অর্থনীতিবিদ।নোংরা রাজনীতির ছাপ যদি উনার মাঝে থাকতো তবে হয়তো পা চাটা কথাবার্তা শুনতে পেতেন ।

  2. বুড়া মানুষ, বয়স হইসে| মাঝে
    বুড়া মানুষ, বয়স হইসে| মাঝে মধ্যে উল্টা-পাল্টা বলে ফেলেন আর কি| আর আমাদের মত অশিক্ষিত নেতায় ভরা দেশে একজন মন্ত্রী ফুটুশ-ফাটুশ ইংরেজি বলতেসেন, সেটাইতো আমাদের পরম সৌভাগ্য, তাই না? তবে দুইটা কথা বলার সময় যেভাবে কাঁপাকাঁপি করেন, জানি না আর কয়দিন টিকবেন!!! মুরুব্বি জ্ঞান কইরা ক্ষমা-ঘেন্না কইরা দিয়েন| By the by, লেখা দারুন মজার হয়েছে| :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে:

  3. কথায় বলে দুধেল গাভীর লাথি
    কথায় বলে দুধেল গাভীর লাথি খাওয়াও ভাল । অভারওল উনি একজন সৎ মানুষ কোন সন্দেহ নাই। দুর্নীতিবাজ, চাঁপাবাজ লোকদের মিষ্টি কথার চেয়ে তার অসংলগ্ন কথাও ভাল, অন্ততঃ আমার কাছে। কে কি ভাবলো আমার কিছু আসে যায় না। সৎ মানুষ হিসেবে আমি উনাকে স্যালুট জানাই…..

    1. আপনার সাথে সহমত মুকুল ভাই…
      আপনার সাথে সহমত মুকুল ভাই… দারুণ বলেছেন :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ:
      আমাদের জনগন কাজ থেকে শোঅফ আর লোক দেখানো বা মন ভুলানো মেকী কথায় পছন্দ করে।। তাইতো বার বার এরশাদ-জিয়া মেকী আদর্শে ভর করেও সাইকেল চালিয়ে বা খাল কেটে মেকী জনপ্রিয়তা অর্জন করে রাষ্ট্র ক্ষমতাকে কুক্ষিগত করার সুযোগ পাই…

    2. “কথায় বলে দুধেল গাভীর লাথি
      “কথায় বলে দুধেল গাভীর লাথি খাওয়াও ভাল” আপ্নার এই কথার সাথে আমি পুরাপুরি একমত …. কিন্তু কথায় এটা বলে ও যে “দুস্টু গরুর চেয়ে শুন্য গোয়াল ভাল “…. যদি ও তার দুধ দিয়ে তৈরী তেমন কোন ভাল জিনিস এর নজির দেখি নাই , তবু তর্কের খাতিরে ধরেই নিলাম তিনি একজন দুধেল গাই ,কিন্তু সমস্যা হচ্ছে, এই কথা টা কেবল আমি আপ্নি বুঝলেই চলবে না, দেশের সব মানুষ কে ও বুঝতে হবে ….. দুর্ভাগ্যজনক ভাবে , এদেশের ৮০ ভাগ মানুষ’ই, এই জিনিস টা বুঝতে রাজি নাই ……. কিংবা বোঝার মত যথেষ্ঠ পরিমান ঘিলু তাদের মাথায় নাই….. থাকলে নিজের পায়ে নিজেই কুড়াল মারত না প্রতিনিয়ত …… বুঝতে হবে, এদেশের লোকজন আধ্যাত্নিক চেতনায় উজ্জিবিত, তারা চান্দের উপ্রে জ্বলজ্বল করে ঝিলল্ক মারা সাঈদীর ছবি হয়ে যাবে , শব্দের ভারে ! দেখতে অভ্যসিয় , সুতরাং এইখানে কথা বার্তা খুব খিয়াল কৈরা বলতে হবে, মন্ত্রীরা বাইক্কা কথা বার্তা যত বেশি বলবেন ততৈ তারা ধরা খাইতে থাকবেন হর রোজ …..
      আর এই কথা অনস্বীকার্য যে, কেবল আমার ভোটের উপর ভিত্তি করেই সরকার গঠিত হয় না , এই গণ মানুষের ভোটের ওপর ভিত্তি করেই সরকার গঠিত হয় , এবং এদের সংখ্যা প্রায় ৮০ ভাগ !
      আর আপ্নে গণ মানুষের জন্য রাজনীতি করবেন , কিন্তু জনগনের অনুভুতিতেও আঘাত হানবেন – এইটা হৈল কিছু ?
      আমার এই লিখাটা কেবল মাত্র এ সপ্তাহে রিলিজড হওয়া বাণীর ওপর ভর করে লেখা, আমি যদি তার আগের ডায়ালগ গুলোর কথা তুলি তাইলে ব্লগের ওজন ৩ গুন বেড়ে যাবে, শব্দের ভারে !
      সাম্প্রতিক দুয়েকটা নমুনা দেই – হল মার্কের ৪০০০ কোটি টাকার ব্যাপারে উনার বক্তব্য ছিল – এই টা ত্ত বড় এমাউন্ট না, এরকম হতেই পারে !! একজন দায়িত্ব্বশীল মন্ত্রীর এইটা কেমন বক্তব্য ?
      কিংবা দ্রব্য মুল্য বৃদ্ধি সম্পর্কে বলেছিলেন “একদিন বাজারে না গেলেই সব ঠিক হয়ে যাবে” !! আহ কি মধুর পরামর্শ , যেন এই সব ওয়াজ মসিহত শোনার জন্যই আমরা তারে ভোট দিছিলাম !!
      আর শেয়ার মার্কেট প্রসঙ্গে তার উক্তি তো রিতীমত “ক্ল্যাসিক বানী”র মর্যাদা পাইছে, “ শেয়ার মার্কেটে কোন ইনভেস্টর নাই, সব ফটকাবাজ” !!
      তুমি ৩/৪ বছরেও শেয়ার মার্কেট ঠিক করতে পারবা না , পাবলিক অতিষ্ঠ হয়ে আন্দোলনে নামলে পুলিশ কে লেলিয়ে ডান্ডার বাড়ি মারবা , এইটা কি জায়েজ ! তো সব ফাটকা বাজ হৈলে এই শেয়ার মার্কেট রাখলা ক্যান , বন্ধ কৈরা দিতা । সেটা না কৈরা এসব ডায়ালগ বাজী মাইরা অপমান করারা জন্যই কি তাদের ভোট দিছে পাবলিক !
      আমি জানি আপনারা অনেক বড় বড় মানুষ, বড় বড় ভাবনা চিন্তা , আপ্নারা অর্থমন্ত্রীর কোন দোষ পাবেন না ! তবে আমার বাপ মাত্র ১৮লাখ খোয়াইছে , আমিও ও বেশ কিছু খুইয়েছি , তাই আমার কাছে এই বানী গুলা আমার বিষের মত লাগে । আপনি হারাইলে আপ্নে ও হয়ত এত এত বড় বড় ডায়ালগ দিতেন না, ঠান্ডা থাকতেন ।
      যাই হোক ভুক্তভোগি ই বোঝে যন্ত্রনা কি জিনিস , অন্যরা নয় ! শেয়ার বাজারের খপ্পরে পড়ে আত্নহত্যা করার নজির ও আছে বেশ কয়েকটা , তাদের পরিবার যখন এসব ডায়ালগ শোনে , তাদের কেমন লাগে সেটা আপনার বুঝতে কষ্ট হবে , কারণ আপ্নে ভুক্তভোগী না ।
      আর আওয়ামীলীগ সাপোর্ট করতেই পারেন কিন্তু এভাবে অন্ধ সমর্থন দেয়া হলে তা আওয়ামীলীগের জন্যই খারাপ ফল বয়ে আনবে ।

      স্যরি মুকুল ভাই, জবাব দিতে দেরি হলো ,আগে খেয়াল করি নাই । আপনার মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *