জীবন চক্র !!!!

অনেকদিন পর এক বন্ধুর সাথে দেখা। বললো কি খাওয়াবি ? বললাম কি খাবি ?

ও বললো ওর এলাকায় একটা চটপটির ভালো দোকান আছে ওর প্রিয়। ওটাই খাবে। বললাম চল্‌ তাহলে। আর মনে মনে ভাবলাম ”এই তোর খাওয়া। যাক ভালোই অল্প বাজেটের আবদারই করলি।”

বসে চটপটি খাচ্ছি আর অনেক্ষন যাবৎ খেয়াল করছি বিপরীত দিকে বসা একজন বয়স্ক লোক আমাদের ফাইজলামি মার্কা কথামনোযোগ দিয়ে শুনছে। মাঝে মাঝে মনমরা হয়ে যাচ্ছে আবার ঠোঁটের কোনে মৃদু হাঁসির রেখা ফুটে উঠছে।
বুঝলাম আমরা মজা করতেছি তাই লোকটা হাসতেছে কিন্তু কষ্টের কিছু তো করিনি যাতে তার মন খারাপ হবে।


অনেকদিন পর এক বন্ধুর সাথে দেখা। বললো কি খাওয়াবি ? বললাম কি খাবি ?

ও বললো ওর এলাকায় একটা চটপটির ভালো দোকান আছে ওর প্রিয়। ওটাই খাবে। বললাম চল্‌ তাহলে। আর মনে মনে ভাবলাম ”এই তোর খাওয়া। যাক ভালোই অল্প বাজেটের আবদারই করলি।”

বসে চটপটি খাচ্ছি আর অনেক্ষন যাবৎ খেয়াল করছি বিপরীত দিকে বসা একজন বয়স্ক লোক আমাদের ফাইজলামি মার্কা কথামনোযোগ দিয়ে শুনছে। মাঝে মাঝে মনমরা হয়ে যাচ্ছে আবার ঠোঁটের কোনে মৃদু হাঁসির রেখা ফুটে উঠছে।
বুঝলাম আমরা মজা করতেছি তাই লোকটা হাসতেছে কিন্তু কষ্টের কিছু তো করিনি যাতে তার মন খারাপ হবে।

যখন খেয়াল করলাম সে খাওয়ার জন্যও বসে নি। তখন আর কৌতূহল সাম্‌লাতে না পেরে বন্ধুকে বিষয়টা দেখালাম। ও বললো লোকটি নাকি ওদের পরিচিত। এলাকার সম্মানী ব্যাক্তি।

ততক্ষণে আমাদের কথা আন্দাজ করতে পেরে লোকটিও সামনে এসে হাজির।
কিছু বুঝার আগেই আমাদের দুইজনকে জড়িয়ে ধরে বললো……………
”তোমাদের দেখে আমার আগের জীবনের কথা মনে পরে গেলো তাই তাকিয়ে ছিলাম। এমন কত একসাথে বন্ধুদের নিয়ে ঘুরছি আড্ডা দিছি, এর এখন কোথায় গেল দিনগুলো।”
লক্ষ করলাম তার চোঁখের কোন দিয়ে গড়িয়ে পড়ছে আবেগাশ্রু।

মনে মনে ভাবলাম…..
আসলেই তো। আজকের এই বৃদ্ধ মানুষটিও একদিন ছিল কোন বাবা মার আদরের সন্তান। যারা তাকে সব উজাড় করে আগলে রাখতো ! তারমুখের হাসির জন্য সব করতে পারত। কিন্তুসে নিজেই আজ কারো পিতা কারো দাদু ,নানু।
সে ও ছিল বন্ধুদের আসরের মধ্যমণি যাকে কারনে অকারণে বন্ধুরা ক্ষেপাত। আর আজ সে কারও বন্ধুত্ব দেখলে তাকিয়ে নিজের স্মৃতি রোমন্থন ছাড়া আর কিছু করতে পারে না।

আবার আজকের আমরাই হয়ত অদূর ভবিষ্যতে তার মত বসে কোন এক বন্ধু যুগলের সুখের মুহূর্ত দেখেই আনন্দে অশ্রু ফেলব। কিন্তু তখন আর কেও আমাদের ক্ষেপাবে না। জোড়্‌ করে খেতেও চাইবে না।

এটাই আমাদের জীবন চক্র। এই চক্রে আমরা শুধু চলক মাত্র। সব ক্ষমতা চালকের হাতে। তিনি তার খেয়াল খুশি মতো চালান।
কখনো হয়ত পিতার কাছ থেকে প্রাণপ্রিয় পুত্র কে নিয়ে যান, আবার হয়ত অতি বৃদ্ধ,অবহেলিত, জীবনের প্রতি তিক্ত-বিরক্ত মানুষকেও পৃথিবীর বুকে বাঁচিয়ে রাখেন অনেকদিন।

আমরা সবাই রহস্যের শেষ দেখতে ভালবাসি কিন্তূ আমাদের জীবনটাই একটা রহস্য। আমরা একেকজন মানুষ একেকটা রহস্যের আঁধার।
মনের কোনো বারবার বেজে উঠে………
কোথায় ছিলাম…………????
কোথায় আছি………….????
কোথায় যাব…………..????

৯ thoughts on “জীবন চক্র !!!!

  1. বেচারার কথা চিন্তা করে আমার
    বেচারার কথা চিন্তা করে আমার এখনি কষ্ট লাগছে :কানতেছি: ………কিন্তু আমিও একদিন বুড়া হইয়া যামু তখন কেডা আমার কথা চিন্তা করে দুঃখ করবো …… :মাথাঠুকি:

      1. সেইটা তো আরও বর দুঃখ হবে
        সেইটা তো আরও বর দুঃখ হবে …… বর্তমান যুগের পোলাপাইন যে মশকরাবাজ আমার কথা মনে করে কানামাছ খেলতেও দ্বিধাবোধ করবে বলে মনে হয়না ………… :মাথাঠুকি:

  2. এরই নাম জীবন।
    তাই শাঁই জি’র

    এরই নাম জীবন। :দীর্ঘশ্বাস:
    তাই শাঁই জি’র সেই গানটাই জীবনের মন্ত্র- এমন মানব জনম আর কি হবে? মন যা চায় তড়ায় করো এই ভবে…

  3. [ও বললো ওর এলাকায় একটা চটপটির
    [ও বললো ওর এলাকায় একটা চটপটির ভালো দোকান আছে ওর প্রিয়। ওটাই খাবে।]
    — টাশকিত! আপনার বন্ধুটি চটপটি খাবে নাকি চটপটির দোকান খাবে?

  4. শৈশব-বৃদ্ধ স্মৃতিচারণ ! বেশ
    শৈশব-বৃদ্ধ স্মৃতিচারণ ! বেশ ভালই লাগলো। আমাদেরও ঐ দিনটির জন্য প্রম্তুত হতে হবে… উপায় নাই …… বেঁচে থাকলে ঐ দিনটি আসবেই….

  5. ঐসব দিনের কথা ভেবে আমার মন
    ঐসব দিনের কথা ভেবে আমার মন খারাপ হয়না। শুধু এইদিনগুলোর উপর করুণা হয়। এভাবে লাফঝাঁপ করে আর কয়দিন? একদিন মমতায় ভরা প্রকৃতি আমাদেরকে তার নিজের বুকে টেনে নেবে নির্মম মমতায়।

Leave a Reply to ডাঃ আতিক Cancel reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *