জয় প্রভু !!! #১

প্রভু শুধাইলেন,”হে বৎস,চেহারা মানুষের কি কাজে লাগে?”

– “হায়,হায়,একি কহিলেন ! আরে,দুনিয়ার সকল ক্ষেত্রেই তো চেহারার ভূমিকা অপরিহার্য। অর্থ সকল অনর্থের মূল,আর চেহারা উহার ত্রিশূল…”

প্রভু বিস্মিত হইয়া কহিলেন,”কেমনে কি ??? ব্যাখ্যা করিয়া বাতাও…”

– “এই যেমন ধরেন কারও চেহারা ভালো,দেখিতে সুন্দর,তাহাকে দুনিয়াব্যপী মানুষ ভিন্ন চোখে দেখিতে অভ্যস্ত। ভালো চেহারা দেখিলে মানুষে তাহার সাথে নম্র হইয়া কথা বলে,তাহাকে অগ্রাধিকার দেয়। তাহার সহিত বন্ধুত্ব পাতাইবার চেষ্টা করে। তবে সবচেয়ে বড় গুণ হইল এইসব লোকদিগের কপালে সুন্দরী সুন্দরী ললনা জোটে…”


প্রভু শুধাইলেন,”হে বৎস,চেহারা মানুষের কি কাজে লাগে?”

– “হায়,হায়,একি কহিলেন ! আরে,দুনিয়ার সকল ক্ষেত্রেই তো চেহারার ভূমিকা অপরিহার্য। অর্থ সকল অনর্থের মূল,আর চেহারা উহার ত্রিশূল…”

প্রভু বিস্মিত হইয়া কহিলেন,”কেমনে কি ??? ব্যাখ্যা করিয়া বাতাও…”

– “এই যেমন ধরেন কারও চেহারা ভালো,দেখিতে সুন্দর,তাহাকে দুনিয়াব্যপী মানুষ ভিন্ন চোখে দেখিতে অভ্যস্ত। ভালো চেহারা দেখিলে মানুষে তাহার সাথে নম্র হইয়া কথা বলে,তাহাকে অগ্রাধিকার দেয়। তাহার সহিত বন্ধুত্ব পাতাইবার চেষ্টা করে। তবে সবচেয়ে বড় গুণ হইল এইসব লোকদিগের কপালে সুন্দরী সুন্দরী ললনা জোটে…”

প্রভু লজ্জিত হইয়া কহেন,”ছি ছি,একি বলিতেছ ! ইহার মাঝে ললনার লূলায়ীপনা কোথা হইতে আসিলো???”

– “আপনি দেখি দিন দুনিয়ার কোনো খবরই রাখেন না। ছেলেরা যেমন রাস্তায় সুন্দরী ললনা দেখিলে শিষ বাজায় তেমনি সুন্দর বালক দেখিলে ললনাদেরও তেঁতুল খাইবার মুঞ্চায়…”

প্রভু লোভাতুর নয়নে বলিলেন,”তেঁতুলের কথা শুনিয়া আমারো জিভে জল আসিতেছে…সে যাক গে,তুমি আগে বাড়ো…”

– “আবার ধরুন,একখানা সুশ্রী চেহারার বালক যদি বিশাল কোন লাইনে দাঁড়াইয়া থাকে,তবে অনেকেরই নজর তাহার দিকে পড়িবে। তারা ভাবিবে,আহা,কত মিষ্টি একখানা ছেলে ! এখন যদি ঐ ছেলে পকেটমারও হইয়া থাকে,তবুও পাবলিকে তাহা সহজে বিশ্বাস করিবে। তারা বলিবে,এতো সুন্দর একটা ছেলে পকেটমার !!! হইতেই পারে না…”

– “হুমম,বুঝলাম…আর খারাপ চেহারার নমুনা বাতাও দেখি শুনি…”

– “ঠিক যেমনটা সুশ্রীর বেলায় ঘটে,ঠিক তাহার উল্টোখান ভাবিয়া লন…আপনি চুরি করিবেন তবুও আপনাকেই তাহারা মনে মনে দোষী ঠাওরাবে…এক্ষেত্রে অবশ্য পয়সাওয়ালাদের কথা সম্পূর্ণ ভিন্ন…আর তার উপর…”

প্রভু আগ্রহ নিয়ে জিজ্ঞাসিলেন,”তার উপর কি ???”

– নাহ,এই তেমন কিছু না। আপনার চেহারা ভালো না হইলে আপনার দিকে ললনারা ফিরিয়াও চাহিবে না। কিছু কহিতে গেলে আপনি বুঝার আগেই গালের উপর কিঞ্চিত উষ্ণতা অনুভব করিবেন। কিন্তু যদি আপনি যথেষ্ট খরচ করিবার মত অর্থের সামর্থ্য রাখেন তবে তাহা ভিন্ন কথা…”

– চরমাকারে বিস্মিত প্রভু,”আস্তাগফিরুল্লাহ…একি কহিতেছ ? আমার সৃষ্টিতে এরূপ বিস্বেষ চলে ???”

– “জ্বী হুজুর,এমনটাই হয় বাস্তবে…এই যেমন আমার এগজাম্পলই ধরুন।মাস কয়েক যাবৎ একজনৈক সুন্দরীর সহিত প্রেম আদান-প্রদান চলিতেছিলো। কিয়দকাল পূর্বে তাহার সহিত দেখা করিবার বিহনে তাহার নির্দিষ্ট করিয়া দেয়া যায়গায় পৌঁছাইয়া গেলাম। কিন্তু হায় কপাল,তাহার বিগ ভ্রাতাকে নিয়া সে শকটযানে বসিয়া ছিল। তবুও আমি সেই যানের আশেপাশেই ঘুরাঘুরি করিয়া চোখ-বিনিময় করিলাম…বাড়িতে ফেরত পূর্বক আমি তাহাকে পত্র পাঠাইয়া কহিলাম,’আপনাকে আমার বহত পছন্দ হইয়াছে,আমি আপনাকে আমার অন্তরের অন্তস্থল ভালোবাসা প্রেরণ করিলাম’…কিন্তু সে তাহার উত্তরে ঝামটা মারিয়া পত্র লিখিল,’আপনাকে আমার দেখিতে ইচ্ছা করে না,কথা কহিতে আমি বিন্দুমাত্র ইচ্ছুক নই…নিজের রাস্তা মাপুন’।……ইহার পর আমার আর কি বলিবার থাকে আপনিই বলুন প্রভু? আপনি যদি আমাকে আরো একটু ভালো করিয়া গড়িয়া তুলিতেন তবে আর এই পরিণতি হইতো না…”

প্রভু চিন্তামগ্ন হইয়া কিয়ৎক্ষণ পরেই বলিলেন,”একটু দাড়াও,আমি আসিতেছি”

– “কোথায় চলিলেন প্রভু ?”

প্রভুর উত্তর,”আরে বেটা তোকে খারাপ বানাইছি বলিয়া যা কাহিনি দেখিতেছি,তাহা তো আমার সাথে হইতে দিতে পারি না…এক্ষুণি গ্রিন রুমের সরঞ্জামাদি রেডি কর।আমি সুশ্রী হইতে চলিতেছি…”

শিষ্য শকজ, প্রভু রকজ…

৬ thoughts on “জয় প্রভু !!! #১

  1. জটিল………
    এমনি

    জটিল……… :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ:
    এমনি এমনিই তো আর বলেনা, প্রথমে দর্শনদারী, তারপর গুনবিচারি…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *