বৃষ্টিবেসে চলে যাওয়া

সেইদিন বৃষ্টি হচ্ছিল।
আমি জানালা দিয়ে বাইরে তাকিয়ে ছিলাম।
তুমি মনের আনন্দে ভিজছিলে।
নূপুর পায়ে তুমি মাটিতে বৃত্ত আঁকছিলে।
জিহ্বা বের করে বৃষ্টি সুধা পান করছিলে চোখ বন্ধ করে।
আমি শুধু চেয়ে চেয়েছিলাম।

সেইদিন বৃষ্টি হচ্ছিল।
আমি জানালা দিয়ে বাইরে তাকিয়ে ছিলাম।
তুমি মনের আনন্দে ভিজছিলে।
নূপুর পায়ে তুমি মাটিতে বৃত্ত আঁকছিলে।
জিহ্বা বের করে বৃষ্টি সুধা পান করছিলে চোখ বন্ধ করে।
আমি শুধু চেয়ে চেয়েছিলাম।

সেইদিন বৃষ্টি হচ্ছিল।
তুমি জানালার পর্দা ফাঁক করে দেখছিলে।
আমি ঘরের চালের পানিতে ভিজছিলাম আপনে।
আকাশের দিকে তাকিয়ে জিহ্বা বের করে দিয়েছিলাম।
পান করেছিলাম অঝোর বৃষ্টিধারা।
তুমি একটু করে হেসে পর্দার আড়ালে চলে গিয়েছিলে।
আমি শুধু চেয়ে চেয়েছিলাম।

সেইদিন বৃষ্টি হচ্ছিল।
তোমার আর আমার জানালার পর্দা উড়ছিল।
আমরা দুইজন বৃষ্টিতে ভিজছিলাম।
তোমার বাম হাত আমার ডান হাতে বাঁধা ছিল।
তুমি নূপুর পায়ে মাটিতে বৃত্ত আঁকছিলে।
পরক্ষনেই আমি তা মুছে দিচ্ছিলাম।
চোখ বড় করে তুমি আমার নাকের ডগায় টান দিয়েছিলে।
অনাগত ভবিষ্যৎ আমাদের দিকে চেয়ে চেয়েছিল।

আজও বৃষ্টি হচ্ছে।
আমাদের কন্যা জানালা দিয়ে বাইরে তাকিয়ে আছে।
পুরো পৃথিবী বৃষ্টির পানিতে ধুয়ে যাচ্ছে।
শুধু অক্ষত আছে তোমার বৃষ্টিস্নাত স্মৃতি।
চোখের বৃষ্টিতে আমার মুখমন্ডল ভিজে যাচ্ছে।
বৃষ্টির পানিতে ধুলো মাখা এপিটাফ উজ্জ্বল হয়ে উঠেছে।
তোমার অবয়ব ভেসে আসছে কুয়াশাচ্ছন্ন বৃষ্টিতে।
বাড়ির পাশেই শুয়ে আছ তুমি, থাকবে।
আমরা শুধু চেয়ে চেয়ে আছি, থাকব।

৬ thoughts on “বৃষ্টিবেসে চলে যাওয়া

    1. আমার কাছে কবিতা ধরনের কিছু
      আমার কাছে কবিতা ধরনের কিছু একটা মনে হয়েছে। আর ট্যাগের ব্যপারটি হচ্ছে আমার মোবাইল থেকে ট্যাগিং অপশান গুলো দেখায় না। তাই সরাসরি প্রকাশ করে দিয়েছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *