সাজাপ্রাপ্ত কেউ নির্বাচন করতে পারবে না ।।।।।

একাত্তরের মানবতাবিরোধী আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এ সাজাপ্রাপ্ত কেউ নির্বাচন করতে পারবে না । ভোটাধিকার থাকবে না কোন যুদ্ধাপরাধীর । যুদ্ধাপরাধীর মানে একাত্তরের মানবতাবিরোধী কজে লিপ্ত যারা ধ্বংস করতে চেয়েছিল বাংলাদেশকে , নানা ষড়যন্ত মূলক কাজ করেছিল বাস্তবায়নের জন্য, ৩০ লক্ষ মানুষকে হত্যা আর ২ লক্ষ মা বোনকে র্নিযাতন করে ছিল, স্বাধীন বাংলাদেশের জন্মের বিরোধিতা করেছিল , নির্দ্বিধায় খুন করেছিল সদ্য জন্ম নেয়া শিশু থেকে শুরু করে শতবর্ষী বৃদ্ধ কে পর্যন্ত , যারা পাক হানাদার দের চিনিয়ে দিয়েছিল এদেশের স্বাধীনতাপ্রেমী মানুষের ঠিকানা, মা বোনদের সম্মান নিয়ে খেলেছিল, মানবতাবিরোধী কাজ যারা করেছে তারা কেউ নির্বাচন অংশ নিতে পারবে না । প্রথম আলো এক রিপোর্টে কমিশন সচিবালয় সূত্র জানায়, আইন মন্ত্রণালয়ের পর্যবেক্ষণের আলোকে সংশোধনের খসড়া চূড়ান্ত করা হয়েছে। বর্তমানে গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের ১২ ধারায় জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থীর যোগ্যতা-অযোগ্যতা সম্পর্কে বলা আছে, কেউ জাতীয় বা আন্তর্জাতিক আদালত অথবা ট্রাইব্যুনালে যুদ্ধাপরাধী হিসেবে দণ্ডিত হলে তিনি নির্বাচনে অংশগ্রহণের অযোগ্য হবেন। কিন্তু ‘যুদ্ধাপরাধ’ শব্দটি দ্বারা আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের সব অপরাধকে বোঝানো হয় না বিধায় গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের ১২(ও) ধারা সংশোধনের প্রস্তাব করা হচ্ছে। প্রস্তাবে বলা হয়েছে, কেউ জাতীয় বা আন্তর্জাতিক আদালত অথবা ট্রাইব্যুনালে ‘আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল আইন, ১৯৭৩’-এর আওতাধীন কোনো অপরাধে দণ্ডিত হলে তিনি নির্বাচনে অংশগ্রহণের অযোগ্য হবেন।

৪ thoughts on “সাজাপ্রাপ্ত কেউ নির্বাচন করতে পারবে না ।।।।।

  1. নিঃসন্দেহে ভাল একটি উদ্যেগ
    নিঃসন্দেহে ভাল একটি উদ্যেগ ।কিন্তু আপনার কথায় বুঝা যাচ্ছে আইনি জটিলতার দরুন ইহা বাস্তবায়ন এখন ও অনেক দেরী!

  2. অবিলম্বে প্রয়োজনীয় সংশোধনী সহ
    অবিলম্বে প্রয়োজনীয় সংশোধনী সহ আইন পাস করা হোক ।
    এই কুলাঙ্গার দের কোন অস্তিত্ব এ দেশে থাকতে পারেনা ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *