তিন ঘণ্টার ট্রলার জার্নিতে যা যা ঘটছে;-

মহিলা কেবিনে বসে আছেন এক হিন্দু মহিলা,এখন চানাচুর তো তখন আচার,তখন সন পাপড়ি তো এখন পান খেয়ে চলছেন একের পর এক!সামনে বসা দশজন মুসলমান মহিলা। রোজা। তারা বিরক্ত হয়ে তাকিয়ে আছেন। একজন জিজ্ঞেস করলেন,সিন্দুর কিতাদি বানায়?হুনছি শুওরের রক্ত হুকাইয়া বানায়?
উভয় পক্ষ চুপচাপ!উভয়েই আহত।

এক কোনে তিনজন যাত্রী এক সাথে ঘুমাচ্ছেন,
বৃষ্টি ছাঁট এসে লাগতেই বন্ধ জানালা!
জুনিয়র বৃত্তি গাইড পড়ছিলো এক ছাত্রী যাত্রী।

দশটাকায় যে পত্রিকাটা কিনেছি তার নাম ‘সমকাল’ এ হাত ঘুরে ও হাত,ও হাত ঘুরে এ হাত এভাবে বেচারা কাহিল!আমি পড়তে পারছিনা। একটু আগে একজন মন্তব্য করলেন,ফত্রিকা এখটা আওয়ামিলীগের দালাল!

মহিলা কেবিনে বসে আছেন এক হিন্দু মহিলা,এখন চানাচুর তো তখন আচার,তখন সন পাপড়ি তো এখন পান খেয়ে চলছেন একের পর এক!সামনে বসা দশজন মুসলমান মহিলা। রোজা। তারা বিরক্ত হয়ে তাকিয়ে আছেন। একজন জিজ্ঞেস করলেন,সিন্দুর কিতাদি বানায়?হুনছি শুওরের রক্ত হুকাইয়া বানায়?
উভয় পক্ষ চুপচাপ!উভয়েই আহত।

এক কোনে তিনজন যাত্রী এক সাথে ঘুমাচ্ছেন,
বৃষ্টি ছাঁট এসে লাগতেই বন্ধ জানালা!
জুনিয়র বৃত্তি গাইড পড়ছিলো এক ছাত্রী যাত্রী।

দশটাকায় যে পত্রিকাটা কিনেছি তার নাম ‘সমকাল’ এ হাত ঘুরে ও হাত,ও হাত ঘুরে এ হাত এভাবে বেচারা কাহিল!আমি পড়তে পারছিনা। একটু আগে একজন মন্তব্য করলেন,ফত্রিকা এখটা আওয়ামিলীগের দালাল!
আরেকজন রেগেমেগে বললেন,দালাল মানে?যে ইতা কয় তার হাবি গুষ্টি দালাল।
উভয় পক্ষ চুপচাপ!উভয়েই আহত!

ইঞ্জিনের শব্দ!

আমি শুধু বসে আছি,দেখছি শুনছি!এই কাত হচ্ছি তো সেই উপুত হচ্ছি!
যখন কাত হচ্ছি তখন মনে হচ্ছে আমি জীবিত,উপুত হলেই মনে হচ্ছে আমি নিহত!
আমি ছাড়া যারা আছে!এই ট্রলার,ট্রলারের প্যাসেঞ্জার এরা সকলেই আহত।

১২ thoughts on “তিন ঘণ্টার ট্রলার জার্নিতে যা যা ঘটছে;-

  1. কেমন জানি! গল্পও না কবিতাও
    কেমন জানি! গল্পও না কবিতাও না…
    তবে কি জানি একটা বিষয় আছে যা শেষ দেখার জন্যে টানে!! মনে হয় রাহাত ভাইয়ের বলা সেই প্রতিশ্রুতি… লিখতে থাকুন… ভাল কিছুর আশায় থাকলাম!!

  2. একটি মজার কবিতা লিখেছেন
    একটি মজার কবিতা লিখেছেন ।বিশেষ করে সিলেটি ভাষার প্রয়োগটা দারুন হইছে ।যেমন, ‘কিতাদি’, ‘হাবি গোষ্টি’ ।

    ভাল লাগল ।

  3. ভালো লিখেছেন। আমরা সবাই এখন
    ভালো লিখেছেন। আমরা সবাই এখন পক্ষ-বিপক্ষে বিভক্ত, একে অন্যকে আহত করার মাঝেই বিজয়ের উল্লাস।

  4. আপনি যা বুঝাতে চেয়েছেন
    আপনি যা বুঝাতে চেয়েছেন বুঝলাম
    সকল জায়গায় একের বিপরিতে অন্যের উপস্থিতি! রাজনীতি ধর্ম মত বাদ!

    আর লিখা হিসেবে এটা কবিতাও লাগে নি আবার গল্প কিংবা অনুগল্পও লাগে নি!

  5. বিষয়টা নিয়ে কবিতা না লিখে
    বিষয়টা নিয়ে কবিতা না লিখে গদ্যে উপস্হাপন করলে আরো উপযোগীতা পেত। বাস্তবতার নিরিখে জাতির বিভক্তি কবিতায় প্রকাশ পেলেও ম্যাসেজটা যুতসই হয়নি। যা অপনি গদ্যে বিশদ ভাবে দিতে পারতেন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *