গোলামের রায় ও আমার কিছু কথা

১. গোলাম আজম’র প্রহসণমূলক রায় নিয়ে সরকার পক্ষ (শুধু আ’লীগ, কারণ শরিকেরা তাদের হতাশা জানিয়েছে) ছাড়া এখন পর্যন্ত কেউ ‘সন্তুষ্ট’ হতে পারেনি। যার যার অবস্থান থেকে প্রায় সবাই এই রায়ে ক্ষুদ্ধ, হতাশ! জামাত-শিবিরও এই রায়ে হতাশ ও ক্ষুদ্ধ হওয়ার প্রানপন চেষ্টা করছে, তবে তাদের আমি এই লেখায় বিবেচনা করছিনা। কেন করছিনা সেটা আশাকরি ব্যাখ্যা করার প্রয়োজন নেই।


১. গোলাম আজম’র প্রহসণমূলক রায় নিয়ে সরকার পক্ষ (শুধু আ’লীগ, কারণ শরিকেরা তাদের হতাশা জানিয়েছে) ছাড়া এখন পর্যন্ত কেউ ‘সন্তুষ্ট’ হতে পারেনি। যার যার অবস্থান থেকে প্রায় সবাই এই রায়ে ক্ষুদ্ধ, হতাশ! জামাত-শিবিরও এই রায়ে হতাশ ও ক্ষুদ্ধ হওয়ার প্রানপন চেষ্টা করছে, তবে তাদের আমি এই লেখায় বিবেচনা করছিনা। কেন করছিনা সেটা আশাকরি ব্যাখ্যা করার প্রয়োজন নেই।

‘সর্বোচ্চ সাজা’ পাওয়ার যোগ্য হলেও বয়স বিবেচনায় গোলাম আজমকে বিভিন্ন অভিযোগে দেওয়া হলো সর্বমোট ৯০ বছরের কারাদণ্ড, প্রহসণ আর কাকে বলে! ১৯৭১ সালে মুক্তিযোদ্ধাদের হত্যা করার সময় কি তাদের বয়স বিবেচনা করত এই হায়েনার দল? নারীদের ধর্ষণ করার সময় কি তাদের বয়স বিবেচনা করত? ১৯৭১ সালে যখন অপরাধ সংঘটিত হয়েছিল তখন তার বয়স কত ছিল? খুব অপ্রাসঙ্গীক হলেও, বঙ্গবন্ধুর খুনিদের যখন ফাঁসি দেওয়া হয়েছিল, তখন তারা ‘নার্ভাস নাইনটিজ’ এ না থাকলেও কাছাকাছি বয়সের ছিল। তাদের ফাঁসি দিতে কোন সমস্যা না হলে এই শুয়োরের কেন ফাঁসি দেওয়া যাবে না? শহীদদের দ্বিতীয়বার মারা হল, ধর্ষীতাদের দ্বিতীয়বার ধর্ষণ করা হলো, জীবিত মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে রসকসহীন কৌতুক করা হলো আর ‘জামাত-শিবির’ বিরোধী তরুনদের বুকে জ্বলে থাকা আগুনে পানি ঢেলে দেওয়া হলো এই রায়ের মাধ্যমে।

২. রায়ে ক্ষুদ্ধ হয়ে প্রথমে প্রগতিশীল ছাত্রজোট ও পরে গণজাগরণ মঞ্চ হরতাল আহ্বান করেছে আজ। জামাত-শিবিরও আজ হরতাল আহ্বান করেছে রায়ের বিরোধীতা করে। নজিরবিহীনভাবে সরকারের পক্ষ থেকে ‘অঘোষিত’ ভিন্ন দুইদিন হরতালের উদাহরণ বাংলাদেশে গত বছর দেখলাম আমরা! এখন দেখছি ভিন্ন দাবিতে ‘অভিন্ন’ কর্মসূচি পালন করছে দুই বিপরীত মেরুর দুই পক্ষ। আজকের হরতালে যারা সমর্থন দিবে তারা কোনটাকে সমর্থন দিবে আর কোনটার বিরোধীতা করবে? গতকাল তো হরতাল বিরোধী বিক্ষোভ মিছিল করা হল, আজ আমরা নিজেরাই হরতাল আহ্বান করে নিজেরাই তাদের সহযোগীতা করছি না কি? ‘জামাত-শিবির’র জ্বালাও, পোড়াও, ককটেল, ভাংচুর এর দায় কি প্রগতিশীল ছাত্রজোট ও গণজাগরণ মঞ্চ এর উপর বর্তাবে না? সন্ধ্যায় কিভাবে দাবি করা হবে, ‘জনগন আমাদের হরতালে সমর্থন দিয়ে সফল করেছে, আর শিবিরের হরতালের বিরোধীতা করেছে, প্রত্যাখ্যান করেছে’? খুব বালখিল্য দাবি হয়ে যাবে না সেটা? ‘রোজার সময় হরতাল’ ডেকে শিবির যে ভুল করেছিল (অন্তত আগের দিন তাই দাবি করেছি আমরা) আমরাও কি সেই একই কাজ করলাম না? নাকি, ‘আগে শিবির করেছে, তাই সব দোষ তাদের’ এই যুক্তিতে নিজেদের দায়মুক্তি দেওয়া হবে?

৩. যারা দাবি করছেন যে, ‘ট্রাইব্যুনাল ও বিচার বিভাগ স্বাধীন, তাদের উপর সরকারের কোন হস্তক্ষেপ নেই। সুতরাং এই রায়ের জন্য সরকারকে দোষারোপ করার কোন যৌক্তিকতা নেই।’ তাদের শুধু দুইটা কথা বলতে চাই, সামনের নির্বাচনে তবে বিএনপি-জামাত জোট ক্ষমতায় আসলেও বিচার ও ট্রাইব্যুনাল তার নিজস্ব গতিতেই চলার কথা। ট্রাইব্যুনাল ও বিচার বিভাগ যদি স্বাধীণ হয় তবে তো আমাদের উচিৎ না সামনের নির্বাচনে কারা ক্ষমতায় আসছে সেটা নিয়ে চিন্তিত হওয়ার! ‘আ’লীগ ছাড়া অন্য কোন গোষ্ঠি ক্ষমতায় এলে বিচার হবে না’ এই যুক্তি দেখিয়ে ‘আ’লীগ’র জন্য ভোট প্রার্থনা করাটাও তবে কোন যুক্তিতে টিকে না।

৪. ‘স্বাধীণতার স্বপক্ষের শক্তি’ ব্যাপারটা কি শুধূ গলার জোরে ও গায়ের জোরে প্রতিষ্ঠা করার ব্যাপার নাকি কথায় ও কাজে তার প্রমাণ রাখতে হয়?

এই রায়ে যারা ক্ষুদ্ধ ও আ’লীগের সমালোচনা করছে তাদের উপর কেউ কেউ দেখলাম চরম ক্ষেপেছেন, নানান ভঙ্গীমায় বলতে চেষ্টা করছেন যে, ‘এতে স্বাধীণতা বিরোধীরা সুযোগ নিবে, শক্তিশালী হবে’, ‘সরকারের সমালোচনা করে প্রকারান্তরে স্বাধীণতা বিরোধীদের পক্ষেই কাজ করছে’! তাদের অনুরোধ করতে চাই, আপু ও ভাইয়ারা, আয়নায় নিজেদের মুখটা দেখবেন দয়া করে? এই অভিযোগ এখন আপনাদের এবং আপনাদের দলের উপর, বল এখন আপনাদের কোর্টে। এই অভিযোগ কিভাবে খন্ডাবেন আর বল কিভাবে খেলবেন সেটা আপনাদের উপর নির্ভর করছে। নিজেদের দোষ ঢাকতে ‘যত দোষ নন্দ ঘোষ’ টাইপের কথা বলে নিজেদেরই ‘ক্লাউন’ প্রমান করছেন আপনারা!

শুভ কামনা রইল আপনাদের জন্য!

১০ thoughts on “গোলামের রায় ও আমার কিছু কথা

  1. বুকের আগুনে জল ঢেলে দিলেও সে
    বুকের আগুনে জল ঢেলে দিলেও সে আগুন এখন দাউ দাউ করে জ্বলছে ।
    শিবির হরতাল ডেকেছে তাই মঞ্চের হরতাল ডাকা যাবেনা এই মতের আমি বিরুদ্ধে । কারণ, যার যার অবস্থান সুনির্দিষ্ট । তাই, জনগণের বিভ্রান্ত হবার কোন অবকাশ নেই ।

  2. এই কুত্তা আমাদের মাইরা এখন
    এই কুত্তা আমাদের মাইরা এখন আমাদের টাকায় ভাত খাবে, জেল এ আরাম করবে, অসুস্থ হলে ফ্রি চিকিৎসা পাবে, এর চেয়ে একে ছাড়া রাখাই তো ভাল ছিল​! কমপক্ষে কেউ যায় খুন করে আসতে পারত​, এখন তো সে জেল এ সেফ!!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *