বাংলাদেশের দ্বিতীয় ধর্ষন।

বাংলাদেশ দ্বিতীয়বারের মত রেইপড হল​। এবং এইবার রেইপ করল খোদ বাংলাদেশের মানুসের ট্যাক্সের টাকায় ভাত খাওয়া ট্রাইবুনালের বিচারকগন। হ​য়ত কথাগুলো মনে হ​য় আবেগের তাড়নায় বলা হচ্ছে কিন্তু সত্যি কি তাই?

বাংলাদেশ দ্বিতীয়বারের মত রেইপড হল​। এবং এইবার রেইপ করল খোদ বাংলাদেশের মানুসের ট্যাক্সের টাকায় ভাত খাওয়া ট্রাইবুনালের বিচারকগন। হ​য়ত কথাগুলো মনে হ​য় আবেগের তাড়নায় বলা হচ্ছে কিন্তু সত্যি কি তাই?
গোলাম আজমের ব​য়স বিবেচনা করে তাকে ছাড় দেয়া হ​য়েছে। বর্তমান সম​য়ে তার ব​য়স ৯২ বা তার আশেপাশে। এই গোলাম আজম আজ থেকে দুই বছর আগে ২০১১ সালে তার দেয়া এক সাক্ষাতকারে তার উদ্ধতা সরাসরি প্রকাশ করেছিল​। সেই সাক্সাতকারে সে স্বীকার করে যে, যুদ্ধপরবর্তী সম​য়ে সে পাকিস্তানে চলে যায়। সেই সম​য়ে প্রথমে তাকে ফেরারি ঘোষনা করে আত্বসমর্পন করতে বলা হ​য় ও পরবর্তি আদেশে তার বাংওলাদেশের নাগরিকত্ব ও সকল প্রকার সুবিধা বাতিল করা হ​য়। এর বিপরীতে সে পচাত্ত্বর পরবর্তি সম​য়ে পাকিস্তানি পাসপোর্টে দেশে ফেরত আসে এবং মেয়াদ শেষেও এই দেশে থেকে তার ডালপালা ছ​ড়াতে থাকে। ইন্টারভিউতে তার ভাষায়- “আমি এই দেশে এসে সেই পাসপোর্ট ছুড়ে ফেলে দেই”। ৯০ বছর ব​য়সে যেই লোক সজ্ঞানে এইরকম কথা বলতে পারে তার ব​য়স কিভাবে বিবেচনা করা সম্ভব। তার মানে কি এখন থেকে ট্রাইবুনাম এটা প্রবর্তন করল যে ৯০+ সকল বুড়োরা খুন সহ যাই অপরাধ করুক না কেন তার ব​য়স বিবেচনা করা হবে? সাইদীর ফাঁসির রায়ের সম​য়ে ট্রাইবুনাম বলেছিল​-“এখানে বর্তমান “আল্লামা সাইদীর” বিচার হচ্ছে না, হচ্ছে ৪২ বছর আগে পিরোজপুরের দেইল্লা রাজাকারের”। সাইদী ৪২ বছর আগের অপরাধের শাস্তি এখন পেয়েছে, কিন্তু হায় গোলাম আজমকে তার জীবনের বাকি অংশ ভোগ করার সুযোগ দেয়া হল​। গোলাম আজম তো তার জীবনের বেশ কিছু অংশ পালিয়েই বেড়িয়েছে, জেল এ তার বাকি অংশগুলোর কি গুরুত্ব? দেশবিদেশের খবরে দেখা গেছে, ১৩ মহিলাকে ধর্ষনের অপরাধে অপরাধীকে মৃত্যুদন্ডের সাথে ১২০০ বছরের জেল। অথচ গোলাম আজমের উপর তো ২লাখ নারীকে ধর্ষনের দায়। তবে সে কোন হিসেবে ৯০ বছরের জেল সাজা পায়? এর মানে কি দাড়াল​- ব​য়স হলে সাত খুন মাফ। তাহলে সকল অপরাধীরা খুন করে কোন মতে পালিয়ে বেড়িয়ে ৯০ বছর হওয়ার পর এসে আত্বসমর্পন করলে তারা আর শাস্তি পাবে না?গোলাম আজম তার এক সভায় বলেছিল​- “এই দেশে আমার জন্ম, সেই অধিকার কেউ কেড়ে নিতে পারবে না।” এই কুকুরটির জন্য তো মৃত্যুদন্ডও যোগ্য শাস্তি ন​য়। ৯০ বছর বাঁচার পর তার ব​য়স কিভাবে বিবেচনা করা যেতে পারে?সে যা বাঁচার তা তো বেঁচেই গিয়েছে, তবে আমরা কেন আমাদের প্রতিশোধ পাবো না? ট্রাইবুনালের জজ ব​য়সকে কারন দেখিয়ে কার ওপর দ​য়া করে? সেই ব্যাক্তিকে যে ৪ বছরের শিশু, অশীতিপর বৃদ্ধকে হাসতে হাসতে হত্যার নির্দেশ দিয়েছিল​? ত্রিশ লাখ মানুষের রক্ত তো তার মাথার উপর ঝুলছে, তবে সেই রক্ত তার ব​য়্সকে কবে অতিক্রম করে গেল​? নাকি মাননীয় জজ এই ত্রিশলাখ মানুষের রক্তকে কীটের রক্ত হিসেবে দেখেন? যুদ্ধের সম​য়ে রাজাকাররা এদেশের মানুষকে মানুষ বিবেচনা করেনি। গোলাম আজম বলেছিল​-“বাংলাদেশ নামের কিছু হলে আমি আত্বহত্যা করব​”। আজ সে আত্বহত্যা করলে তো মানুষ বেঁচেই যেত। যে ব্যাক্তি তার নিজের মৃত্যু নিয়ে ব্যবসা করে তাকে জীবন দান করা আর সাপকে দুধকলা দিয়ে পোষা সমান। এই লোক তার দেশ ,তার আত্মা,তার বিবেক এমনকি নিজের মৃত্যুকে বিকিয়ে দিয়েছে। এমন কুকুরকে জীবন ভিক্ষা দিয়ে মাননীয় ট্রাইবুনাল পরোক্ষভাবে রাজাকারদেরই সমর্থন করলেন। তাই আজকের পর থেকে পরবর্তি রাজাকেরদের বিচার নিয়ে আর তাদের উপর ভরসা করা যায় না। আমাদের আশা ভরসা আজ এক তুচ্ছ শকুনের কাছে টুকরো টুকরো হ​য়ে গেছে, সেই শকুনটি টুকরোগুলোকে খুবলে খুবলে খাচ্ছে।

২৬ thoughts on “বাংলাদেশের দ্বিতীয় ধর্ষন।

  1. লুলায়িত বিচার| সাঈদির বেলায়
    লুলায়িত বিচার| সাঈদির বেলায় 42 বছর আগের সাঈদি আর গু আজমের বেলায় বর্তমান অবস্থা|

  2. মানুষের সাথে মানবতা চলে
    মানুষের সাথে মানবতা চলে জানোয়ারের সাথে না!
    যে এত গুলো মানুষ মারতে পারে ধর্ষন করতে পারে সে আর যাই হোক মানুষ বলার যগ্য নয়

      1. আমি ভাই ছোট খাট মানুষ আমার
        আমি ভাই ছোট খাট মানুষ আমার কথা উপরের মহল পর্যন্ত যায় না

        কিন্তু কৌতুহলী মন জানতে চায় আমার মত ছোট মস্তিস্কের মানুষের মাথায় এগুলো আসে কিন্তু মহামন্য ব্যক্তিবর্গের মাথায় আসে না!
        তাহলে কি ভেবে নেব যে তাদের মস্তিস্ক ই নেই নাকি ভেবে নেব যে তাদের চিন্তা শক্তি ফুরিয়ে গেছে?
        তাহলে তো তাদের পবনা ছাড়া আর জায়গা নেই

  3. সাইদীর ফাঁসির রায়ের সম​য়ে

    সাইদীর ফাঁসির রায়ের সম​য়ে ট্রাইবুনাম বলেছিল​-“এখানে বর্তমান “আল্লামা সাইদীর” বিচার হচ্ছে না, হচ্ছে ৪২ বছর আগে পিরোজপুরের দেইল্লা রাজাকারের”। সাইদী ৪২ বছর আগের অপরাধের শাস্তি এখন পেয়েছে, কিন্তু হায় গোলাম আজমকে তার জীবনের বাকি অংশ ভোগ করার সুযোগ দেয়া হল​।

    —- এই লেখার এই পয়েন্ট টা খুব গুরুত্বপূর্ণ ।

  4. বাংলাদেশের জন্য এর চেয়ে বড়
    বাংলাদেশের জন্য এর চেয়ে বড় ব্যার্থতা আর কিছুই হতে পারে না! স্বাধীনতার ৪২ বছরে পরেও জাতি কলঙ্কমোচন করতে পারল না, বরং জাতির মাথায় কলঙ্কের বোঝার পরিমান আরো বেড়ে গেল, যুগ যুগ ধরে আমাদের চলতে হবে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে।

    1. আমরা আজব দেশ। যেই দেশে এক
      আমরা আজব দেশ। যেই দেশে এক স্থান থেকে সূর্যোদয় সূর্যাস্ত দেখা যায় সেই দেশে মানুষের আচরনের উথান পতন দেখে আমি অত্যাশ্চর্য হইনা।

    2. স্বাধীনতার ৪২ বছরে পরেও জাতি

      স্বাধীনতার ৪২ বছরে পরেও জাতি কলঙ্কমোচন করতে পারল না, বরং জাতির মাথায় কলঙ্কের বোঝার পরিমান আরো বেড়ে গেল,

      সহমত

  5. সততই দ্বিতীয় বার ধর্ষিত হল
    সততই দ্বিতীয় বার ধর্ষিত হল বঙ্গমাতা. । কিছু বলার নাই । শুধু অনিঃশেষ দীর্ঘশ্বাস । :মনখারাপ: :মনখারাপ:

  6. বিচারের রায় কি হল না হল তা
    বিচারের রায় কি হল না হল তা দিয়া আপসেট বা নট আপসেট হওয়ার তো কিছু দেখি না!!
    ভেবে পাই না বাংলার মানুষ এই সব রাজাকারদের এতটা বছর বাংলার মাটিতে বুক ফুলিয়ে হাটতে দিল কেন???

    1. আইজকা চেলাডার ফাঁসির রায় হইছে
      আইজকা চেলাডার ফাঁসির রায় হইছে বাট রাঘব বোয়ালটা বাঁইচা থাকবো। মানুষজনের কথা শুনে মনে হ​য় এই ডায়ালগটি কার্যোকরি-“ওইলে অক নইলে নক, অট্টই গাছে লট্টই তক।”

  7. হাম্বালীগ কি রায় দিব জানি
    হাম্বালীগ কি রায় দিব জানি না….তবে আমি কই যে মোল্লাদের সাথে আপ্নেগো পীরিতি নষ্ট করার দরকার নাই…… শুধু খান****রে নি:শর্ত মুক্তি দিয়া রাস্তায় ছাইড়া দেন….তারপর দ্যখেন তেঁতুল কেমনে বানাই….

  8. হাম্বালীগ কি রায় দিব জানি
    হাম্বালীগ কি রায় দিব জানি না….তবে আমি কই যে মোল্লাদের সাথে আপ্নেগো পীরিতি নষ্ট করার দরকার নাই…… শুধু খান****রে নি:শর্ত মুক্তি দিয়া রাস্তায় ছাইড়া দেন….তারপর দ্যখেন তেঁতুল কেমনে বানাই….

  9. সহমত ।ধর্ষন দিয়েই আমাদের জন্ম
    সহমত ।ধর্ষন দিয়েই আমাদের জন্ম শুরু সুতরাং আমরা ধর্ষিত হবোই, বার বার হবো ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *