আল্লামা শফির বক্তব্য এবং আমার ধর্ম বিরোধীতা

নারীদের নিয়ে নোংড়া মন্তব্যে ভরা আল্লামা শফির ওয়াজ নিয়ে চারদিকে নিন্দার ঝড় বয়ে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী পর্যন্ত এটার নিন্দা জানিয়ে বক্তব্য দিয়েছেন। অনেকে মানববন্ধনে করেছেন এটার প্রতিবাদে। কিন্তু দুটি কারনে শফির এই বক্তব্য খুব বেশি গুরুত্ব পায়নি আমার কাছে!যে কারনে মনে হয়েছে এটা শফির লাইমলাইটে আসার কৌশল মাত্র!
কারন এক-

নারীদের নিয়ে নোংড়া মন্তব্যে ভরা আল্লামা শফির ওয়াজ নিয়ে চারদিকে নিন্দার ঝড় বয়ে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী পর্যন্ত এটার নিন্দা জানিয়ে বক্তব্য দিয়েছেন। অনেকে মানববন্ধনে করেছেন এটার প্রতিবাদে। কিন্তু দুটি কারনে শফির এই বক্তব্য খুব বেশি গুরুত্ব পায়নি আমার কাছে!যে কারনে মনে হয়েছে এটা শফির লাইমলাইটে আসার কৌশল মাত্র!
কারন এক-
আল্লামা শফি আজ ওয়াজে যা বলেছে এটা নতুন কিছু নয়। ওয়াজ কালচারে এটা অনেকটা অবশ্যকর্তব্য। হুমায়ুন আজাদ তার ১০০০০ ও আরো একটি ধর্ষন বইয়ে বর্ননা করেছেন কিভাবে রাত বাড়ার সাথে সাথে ওয়াজ করতে থাকা হুজুর নারীদের নিয়ে নোংড়ামীতে মেতে ওঠে। মাঝ রাতে ওয়াজ শুনতে আসা মুমিনদের ইমানদন্ড পরিতৃপ্ত করে নারীদের নিয়ে কটুক্তি করে।
আমার নিজের অভিজ্ঞতাও তাই বলে। নড়াইলের ছোট্ট একটা গ্রাম শলুয়াতে আমি বেড়ে উঠেছি। আমার গ্রামে, পাশের গ্রামে, দুরের গ্রামে দেখেছি ওয়াজ নামের ভন্ডামী। শুনেছি গভীর রাতে কিভাবে তারা মেতে উঠেছে নারী লেহনে। নারীর প্রতি কুরুচিপূর্ন বক্তব্য দিয়ে অর্গাজম সাধন করে ছেড়েছে বক্তা মৌলবি।

কারন দুই-
আল্লামা শফি যে বক্তব্য দিয়েছে তা সে নিজের নীচ মানুষিকতা থেকে দিয়েছে তাও বলবো না। আসল গলদ গোড়াতেই। ইসলাম যেভাবে নারীকে দেখেছে আল্লামা শফিও সেভাবে দেখেছে। শুধু পার্থক্য ভাষার প্রয়োগে। ইসলামে নারীকে নিয়ে কটুক্তি করা হয়েছে শিল্পিত ভাষায় সেখানে শফি বাইঞ্চুত ব্যাবহার করেছে অশ্লীল ভাষা।
ধর্মের ধ্বজাধারীরা বলবে, আল্লামা শফি নারীদের নিয়ে যা বলছে ইসলামে কোথাও এ ধরণের কথা নেই৷ বরং ইসলামে নারীর কর্ম, শিক্ষা এবং সম-অধিকারের কথা বলা হয়েছে। নিচের আয়াতগুলো পড়লে কি কারো মনে হবে শফি ইসলামের বাইরে কিছু বলেছে?

তোমাদের স্ত্রীগণ তোমাদের শস্যক্ষেএ, সুতরাং তোমরা তোমাদের শস্যক্ষেত্রে যে প্রকারে ইচ্ছা অবতীর্ন হও। সূরা-২: বাক্কারাহ, আয়াত:২২৩

—তোমাদের আপন পুরুষ লোকের মধ্য হইতে দুইজন সাক্ষী রাখ, যদি দুইজন পুরুষ না পাওয়া যায়, তাহা হইলে একজন পুরুষ ও দুইজন স্ত্রীলোক –। সূরা-২: বাক্কারাহ, আয়াত:২৮২

তোমাদের মধ্যে যে সকল নারী ব্যাভিচার করিবে, তোমরা তাহাদের বিরুদ্ধে তোমাদের মধ্যেকার চারিজনকে সাক্ষী রাখ, যদি তাহারা সাক্ষ্য দেয়, তবে তোমরা তাহাদিগকে সেই সময় পর্যন্ত গৃহে আবদ্ধ করিয়া রাখিবে যে পর্যন্ত না মৃত্যু তাহাদের সমাপ্তি ঘটায় কিম্বা আল্লাহ তাহাদের জন্য কোন পৃথক পথ বাহির করেন। এবং তোমাদের মধ্যেকার যে কোন দুইজন ব্যাভিচার করিবে, তোমরা সেই দুইজনকে শাস্তি দিও, অত:পর যদি তাহারা তওবা করে এবং সংশোধন করে তবে তাহাদের নিন্দাবাদ হইতে বিরত রাখ, নিশ্চয় আল্লাহ অতিশয় মাশীল দয়ালু। নিশ্চয়ই যারা অজ্ঞতাবশত: দোষের কাজ করিয়া বসে, তৎপর অল্পকাল মধ্যে তওবা করে, তাহাদের তওবা কবুল করা আল্লাহর দায়িত্ব, আল্লাহ তাহাদের প্রতি সু দৃষ্টি করিয়া থাকেন, আল্লাহ মহাজ্ঞানী ও মহাবিজ্ঞানী। সূরা-৪: নিসা, আয়াত:১৫-১৭

পুরুষগণ নারীদিগের উপর কর্তৃত্বশীল, এই কারনে যে, আল্লাহ উহাদের কাহাকেও কাহারও উপর মর্যাদা প্রদান করিয়াছেন, এবং পুরুষেরা স্বীয় মাল হইতে তাহাদের অর্থ ব্যয় করিয়াছে, ফলে পূন্যবান রমনীগন অনুগত থাকে, অজ্ঞাতেও তত্ত্বাবধান করে, আল্লাহর তত্ত্বাবধানের মধ্যে এবং যাহাদের অবাধ্যতার সম্ভাবনা দেখিতে পাও, তাহাদিগকে উপদেশ দাও, এবং তাহাদের সহিত শয্যা বন্ধ কর এবং তাহাদিগকে সংযতভাবে প্রহার কর, তারপর যদি তোমাদের নির্দেশ অনুযায়ী চলিতে থাকে, তাহা হইলে তাহাদের উপর নির্যাতনের পন্থা অবলম্বন করিও না, নিশ্চয়ই আল্লাহ সুউচ্চ মর্যাদাশীল মহান। সূরা-৪:নিসা, আয়াত:৩৪

নিজেদের ইচ্ছা অনুযায়ী দুই-দুই, তিন-তিন ও চার-চার রমনীকে বিবাহ কর, কিন্তু তোমরা যদি আশংকা কর যে, সমতা রা করতে পারিবে না, তদবস্থায় একই স্ত্রী কিংবা তোমাদের অধীনস্ত দাসী; ইহা অবিচার না হওয়ারই অতি নিকটতর। সূরা-৪: নিসা, আয়াত:৩

-তোমরা কখনো ভার্যাগনের মধ্যে সমতা রক্ষা করতে পারবে না যদিও লালায়িত হও, তবে সামগ্রিকভাবে ঝুকিয়া পড়িও না যে অপর স্ত্রীকে ঝুলানবৎ করিয়া রাখিবে এবং যদি সংশোধন কর এবং উভয়ে যদি পৃথক হইয়া যায়, তবে আল্লাহ অতিশয় মাকারী দয়ালু। এবং যদি উভয়ে পৃথক হইয়া যায় তবে আল্লাহ আপন উদারতায় প্রত্যেককে অমুখাপেী করিয়া দিবেন।-সূরা-৪:নিসা, আয়াত:১২৯-১৩০,

আমি দোজখও দেখলাম আর এমন ভয়ংকর দৃশ্য আমি আর দেখি নি। আমি দেখলাম অধিকাংশ দোজখবাসী হলো নারী। লোকেরা জিজ্ঞেস করল, হুজুর, কেন তা ? উত্তরে আল্লাহর হাবিব বললেন- তাদের অকৃতজ্ঞতার জন্য। আবার নবীকে জিজ্ঞেস করা হলো- নারীরা কি আল্লাহর প্রতি অকৃতজ্ঞ কি না। উত্তরে তিনি বললেন- নারীরা হলো তাদের স্বামীর প্রতি অকৃতজ্ঞ। তোমরা তাদের প্রতি সারা জীবন প্রীতিপূর্ন হলেও যদি একবার কোন কাজ কর যা তোমাদের স্ত্রীদের আশানুরূপ নয়, তাহলে তারা বলবে সারা জীবনেও তোমাদের কাছ থেকে ভাল কিছু পায়নি।- বুখারী শরীফ, ভলুম -২, বই-১৮, হাদিস নং-১৬১”

উপরের বানী যে বা যারা জীবন বিধান মনে করবেন নারীদের প্রতি তাদের ধারনা আল্লাম শফির চেয়ে ভালো কি হতে পারে? আর যদি হয় সেটা কোরানকে না মানার ফল। তাই শফি কোন ছার! নারীর প্রতি অবমাননার বিরুদ্ধে যদি সবাই আন্তরিক ভাবে দাড়াতে চাই তাহলে গোড়াতেই হাত দিতে হবে। নারীর প্রতি অবমাননাকর সকল শিকল ভাংতে হবে। টান দিতে হবে শিকড় ধরে।

৮৭ thoughts on “আল্লামা শফির বক্তব্য এবং আমার ধর্ম বিরোধীতা

  1. প্রত্যেক ধর্মই নারীকে নিচু
    প্রত্যেক ধর্মই নারীকে নিচু করে দেখেছে। মৌলোবাদীরা তো আরও দশ হাত এগিয়ে দেখেছে। সুতরাং এটা আশাতীত কিছু নয়।
    ভাল লাগল

  2. একেই বলে ঝি-কে মেরে বউ না
    একেই বলে ঝি-কে মেরে বউ না মা-কে শিখানো…
    আর আপনার অনুবাদের বেশ কিছু শব্দাংশ বাদ পরেছে!
    পাঠকের বুঝতে কষ্ট হবে; ঠিক করে দিন!!
    যেমন-
    ১) ২য় অনুবাদে- ‘দুইজন সাী রাখ’, স্থলে ‘দুইজন সাক্ষী রাখ’ হবে!
    ২) ৫ম ও ৬ষ্ঠ অনুবাদে – ‘সমতা রা করতে’ স্থলে ‘সমতা রক্ষা করতে’ হবে!!

    এমন আরও কয়েকটি আছে একটু এডিট করে দিন!
    থিম আর কনটেন্ট নিয়ে কোন কথা হবে না… :salute: :salute: :salute:

  3. আপু এমন রাখ ঢাক না রেখে
    আপু এমন রাখ ঢাক না রেখে সমালোচনা করার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। :bow: :bow: :bow:
    ইসলাম নারীকে সর্বোচ্চ মর্যাদা দিয়েছে!!!!!!!! ইহাকে মর্যাদা বলিলে মর্যাদাকে কি বলিব আর অপমানকে কি বলিব।
    এই আয়াত গুলো অনেকবার অনেক জায়গায় লিখা হয়েছে, বলা হয়েছে, কিন্তু ধর্ম বলতে বেহুঁশ যারা, তারা মানতে তো চায়ই না উল্টো চাপাতি নিয়ে তেড়ে আসে! অথবা সুশীলরা বলে বেড়ান উস্কানি মূলক লিখা! :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি:

    1. …এরকম মন্তব্য পেয়ে
      …এরকম মন্তব্য পেয়ে ভেবেছিলাম এটা নিয়ে আর কোন আলোচনায় যাব না। কিন্তু বাঙ্গালী নিরবতাকে দুর্বলতা ভাবে! তাই এই প্রতি পোস্টটি দিতে বাধ্য হচ্ছি…

      http://istishon.blog/node/3424

  4. নারীর প্রতি অবমাননার বিরুদ্ধে

    নারীর প্রতি অবমাননার বিরুদ্ধে যদি সবাই আন্তরিক ভাবে দাড়াতে চাই তাহলে গোড়াতেই হাত দিতে হবে।

    সহমত। :-bd

  5. জানি এখানে মন্তব্য করার সাথে
    জানি এখানে মন্তব্য করার সাথে সাথে সব্বাই আমার দিকে ভ্রু কুচকে তাকাবে! তবুও না বলে পারছি না…

    এক ব্যক্তি “শফি”র সমালোচনার মাঝে ধর্ম টেনে না আনলে কি চলতো না?
    এতো চমতকার একটা লেখা অথচ শুধু শেষের দিকে কিছু কট্টরতার জন্য পুরোপুরি একমত হতে পারলাম না!

    আপনি অনেক চালাক তাই সমালোচনার কণ্ঠ আগেই রোধ করে দিয়েছেন…!
    কোরআনের অর্থ না বুঝে মাঝখান থেকে কিছু লাইন তুলে দিলেই সেটা “রেফারেন্স” হয়ে যায় না!
    আপনার জন্য একটা কথাই বলব: ” আমি কোরআন নাজিল করেছি জ্ঞানীদের জন্য।” “তাদের জন্য নিদর্শন যারা এটা নিয়ে গবেষনা করে…”
    এই 2টা লাইনের একটু ব্যাখ্যা দেন প্লীজ…

    1. আপনার গবেষনা কদ্দুর? তাতো
      আপনার গবেষনা কদ্দুর? তাতো দেখতে পাইতেছি। তা আপনার ক্যান মনে হলো গবেষনা না করে মাঝখান থেকে কিছু আয়াত তুলে দিয়েছি। যাউজ্ঞা তাও হয় দিলাম। এখন আপনাকে একটা কথা বলি দোন্ট মাইন্দ- সফিক এহসান একটা আস্ত মাদার***। সে গল্প ভালো লেখে।
      আপনি নিশ্বয় ভাববেন আমি আপনার প্রসংসা করেছি? কি বলেন?

      1. আপনার মানসিকতার পরিচয়
        আপনার মানসিকতার পরিচয় চমতকারভাবে তুলে ধরার জন্য ধন্যবাদ…
        আমি ভেবেছিলাম অন্তত ইস্টিশন এমন একটা ব্লগ যেখানে সবাই শালীনতার সাথে যুক্তি নির্ভর তর্ক করে!
        যাক, একজন অন্তত তার “সুশীলতার” পরিচয় দিল…

        একটা চ্যালেঞ্জ দেয়ার ইচ্ছা ছিল, রুচি হচ্ছে না…
        ভালো থাকবেন! 🙂

        1. আগেই বলেছিলুম দোন্ট মাইন্দ,
          আগেই বলেছিলুম দোন্ট মাইন্দ, একটা উপমা দিলাম। তাছাড়া আমার মানসিকতায় কিছুই আসে যায় না। আপনাকে যেভাবে বলেছি আমি, ইসলামও সেভাবেই দেখেছে নারীদের। আপনার যেমন লেগেছে, আমারও এভাবেই লাগে।
          আর আপনি চ্যালেঞ্জ কি দিবেন ভাই, আপনার গলাখাকারি শুইন্নায় বুঝছি গন্ধটা কিসের। ভালো থাকবেন 😀

    2. আপনার মন্তব্য টি হচ্ছে আরও
      আপনার মন্তব্য টি হচ্ছে আরও লক্ষ লক্ষ কুশলী বুদ্ধিমান মুসলমান দের একটা ক্লাসিক উদাহরন । ধর্ম কে তো টেনে আনা হয়নি, ধর্ম এই ঘটনা টির গায়ে লেগে আছে কারন পুরো ঘটনা টি ধর্মের ই product.

      ‘আপনি অনেক চালাক তাই সমালোচনার কণ্ঠ আগেই রোধ করে দিয়েছেন…!’

      এটা কি প্রশংসা ?

      ‘কোরআনের অর্থ না বুঝে মাঝখান থেকে কিছু লাইন তুলে দিলেই সেটা “রেফারেন্স” হয়ে যায় না!’

      কিভাবে আপনি বুঝলেন যে লেখক কিম্বা লেখকের মতো আরও অনেকে কুরআনের অর্থ বুঝেন না ? এই রকমের একটি conclusive লাইন লেখার আগে আপনার কি উচিত নয় একটা দীর্ঘ লেখা লিখে প্রমান – ব্যাখ্যা করা কেন এই লেখক কুরআন কে বুঝতে ব্যর্থ হয়েছেন ? আপনি সেটি না করেই …… conclusion করেছেন । আপনার জন্যে একটা ছোট্ট প্রশ্ন আমার – বলুন তো কুরআন কেন আরবি ভাষায় নাজেল হয়েছিল ? কেন বাংলায় নয় ? একটা ক্লু দেই – কুরানেই এটার উত্তর অন্তত দুই টি আয়াতে দেয়া আছে … আপনি জ্ঞানী মানুষ, আপনি নিশ্চয় জানেন কোন কোন আয়াতে তা আছে … এবং কি তার আসল মর্মার্থ … একটু ব্যক্ষা করবেন ?

      শেষ কথা – এই লেখকের লেখায় যে উদ্ধৃতি গুলো কুরআন ও হাদিস থেকে তুলে দেয়া হয়েছে, তার প্রকৃত অর্থ গুলো কি ব্যাখ্যা করার সময় হবে আপনার ? তাহলে আমার মতো পাঠকেরা উপকৃত হতাম কুরআনের আসল অর্থ জেনে । প্লিজ same উদ্ধৃতি গুলি ব্যবহার করবেন।

      ভালো থাকবেন । আল্লাহ আপনাকে আপনাকে আরও কাজ করবার তৌফিক দান করুন।

      1. সারয়ার ভাই!! আপনারা পারেনও
        সারয়ার ভাই!! আপনারা পারেনও বটে… :দেখুমনা: :দেখুমনা: :দেখুমনা: :দেখুমনা:
        উনি কীভাবে ব্যাখ্যা করবেন? :আমারকুনোদোষনাই: :আমারকুনোদোষনাই: :আমারকুনোদোষনাই: :আমারকুনোদোষনাই: :আমারকুনোদোষনাই: :আমারকুনোদোষনাই:
        এইটাতো যুক্তির কথা না উনি যা বলেছেন তাও উনার এবং উনাদের বিশ্বাসের অংশ!
        হঠাৎ করে উনারা এক পর্যায়ে এইটা বলবেন এইটা নিশ্চিত ধরে রাখতে পারেন!!

        1. ইস্টিশন-এ কারো কাছ থেকে এরকম
          ইস্টিশন-এ কারো কাছ থেকে এরকম অশালীন মন্তব্য পেয়ে ভেবেছিলাম এটা নিয়ে আর কোন আলোচনায় যাব না। কিন্তু বাঙ্গালী নিরবতাকে দুর্বলতা ভাবে! অন্তত, তারিক লিংকন ও গোলাম সারোয়ার-এর মন্তব্যে তেমনই মনে হলো! তাই এই প্রতি পোস্টটি দিতে বাধ্য হচ্ছি…

          http://istishon.blog/node/3424

  6. ধুর! হুজুরের সমস্যাটা আপনি
    ধুর! হুজুরের সমস্যাটা আপনি খামাখাই ধর্মে নিয়ে আসলেন। কাজটা ভাল লাগল না। হুজুররা কিছু করলেই অনেকে ধর্ম নিয়ে এই রকম stereotyped মন্তব্য করে যেটা ঠিক না।
    সমস্যাটা কি ধর্মে নাকি মানুষের চিন্তায়? ধর্মে তো ভাল কাজও করতে বলে। কেউ যদি ভালটা না নিয়ে খারাপটা দেখে তাহলে সেটা তার পারসোনাল ব্যাপার। সেইক্ষেত্রে হুজুররে মারেন, ধরেন, যা ইচ্ছা তাই করেন। কোন সমস্যা নাই। ধর্ম নিয়ে খোঁচা দেয়ার তো দরকার নাই।
    কয়দিন পর দেখা rape বন্ধ করার জন্য “ওইটা” কাটার প্রস্তাব দেয়া হবে। “ওইটা” নাই, rape ও নাই।
    হায়রে হায়! লুল!! :মাথানষ্ট:
    আপুমনি, এমন দিন যদি এসেই পড়ে আমাকে একটু রক্ষা করবেন। বোন বলে ডেকেছিলুম! :ভালুবাশি:

    1. এই রকম stereotyped মন্তব্য
      এই রকম stereotyped মন্তব্য করে যেটা ঠিক না রায়ান… এইটা আপনাদের চিরায়ত ধারার মন্তব্য।। তবে একটা ব্যপার খুব ভাল লাগছেঃ
      “ধর্মে তো ভাল কাজও করতে বলে। কেউ যদি ভালটা না নিয়ে খারাপটা দেখে তাহলে সেটা তার পারসোনাল ব্যাপার।”–
      এই লাইনতাই স্পষ্ট ফুটে উঠেছে যে ধর্ম বেশীরভাগ সময় খারাপ কাজ করতে বলে তবে মাঝে মাঝে ভাল কাজও করতে বলে…” ধন্যবাদ আপনাকে! এমন সরল স্বীকারোক্তির জন্যে… 😉

      1. ধর্ম বেশীরভাগ সময় খারাপ কাজ

        ধর্ম বেশীরভাগ সময় খারাপ কাজ করতে বলে

        :খাইছে:

        আমি তো তাইলে :ফেরেশতা:

    2. নাভিদ কায়সার রায়ান ভাই,
      নাভিদ কায়সার রায়ান ভাই, আপনি বহু কাইকুই করে, জ্ঞান গরিমা ফলানোর অপচেষ্টা করে একখান বয়ান রাখলেন। আমি প্রীত হলাম। তয় আপনি কিন্তু উপ্রে বর্নীত আয়াতগুলোর ব্যাখ্যা দেননি। বা নারীদের সম্পর্কে উপরে উল্লিখিত যে বাজে কথাগুলো লেখা আছে কোরান ও হাদিসে তা নিয়ে কোনো মন্তব্য করেন নি! নাকি এন্টিনা খাটো?
      আরেকটা কথা, কখনো যদি এমন দিন চলে আসে যে, রেপ বন্ধ করতে ‘ওইটা’ কাটতে হচ্ছে। নিশ্চিত আমি আপনারে রক্ষা করুম। আপনারটা কর্তন করার আগে কয়েক ডোজ প্যাথেড্রিন মারার সুপারিশ করুম। ইহা আমার জাতির কাছে ওয়াদা। আফটার অল আপনি আমাকে বোন ডেকেছেন 😀

      1. আয়াতগুলোর ব্যাখ্যা ??? আমি
        আয়াতগুলোর ব্যাখ্যা ??? আমি ??? :মাথানষ্ট:

        আপনারটা কর্তন করার আগে কয়েক ডোজ প্যাথেড্রিন মারার সুপারিশ করুম।

        :কানতেছি:

      2. ইস্টিশন-এ কারো কাছ থেকে এরকম
        ইস্টিশন-এ কারো কাছ থেকে এরকম অশালীন মন্তব্য পেয়ে ভেবেছিলাম এটা নিয়ে আর কোন আলোচনায় যাব না। কিন্তু বাঙ্গালী নিরবতাকে দুর্বলতা ভাবে! অন্তত, তারিক লিংকন ও গোলাম সারোয়ার-এর মন্তব্যে তেমনই মনে হলো! তাই এই প্রতি পোস্টটি দিতে বাধ্য হচ্ছি…

        http://istishon.blog/node/3424

    3. ইস্টিশন-এ কারো কাছ থেকে এরকম
      ইস্টিশন-এ কারো কাছ থেকে এরকম অশালীন মন্তব্য পেয়ে ভেবেছিলাম এটা নিয়ে আর কোন আলোচনায় যাব না। কিন্তু বাঙ্গালী নিরবতাকে দুর্বলতা ভাবে! অন্তত, তারিক লিংকন ও গোলাম সারোয়ার-এর মন্তব্যে তেমনই মনে হলো! তাই এই প্রতি পোস্টটি দিতে বাধ্য হচ্ছি…

      http://istishon.blog/node/3424

      1. কথাটা খুব উদ্ধত আর দাম্ভিক
        কথাটা খুব উদ্ধত আর দাম্ভিক হল, কিন্তু পোস্টটা হল মধ্যযুগীয় নারীবিদ্বেষী বর্বরতা পূর্ণ আর চরম পুরুষতান্ত্রিক…
        :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :আমারকুনোদোষনাই: :আমারকুনোদোষনাই: :আমারকুনোদোষনাই: :আমারকুনোদোষনাই:

        1. আপনি পোস্টের ২৫% পড়েই যদি সব
          আপনি পোস্টের ২৫% পড়েই যদি সব বুঝে ফেলেন তাহলে এমনই মনে হবে।

          আমি কিছু যুক্তি দিয়েছি। যুক্তির বিপরীতে যুক্তি দিতে হয়। আপনি দিলেন সিদ্ধান্ত!
          এটাই হচ্ছে আপনার প্রবলেম।

          1. সফিক ভাই আপনি যদি আশা করেন
            সফিক ভাই আপনি যদি আশা করেন আমি শফির বক্তব্য বিশ্লেষণ করার জন্যে পুরাটা শুনব তবে আমার কাছে তা বাতুলতা মনে হবে…
            % এ ঠিক বলতে পারব না তবে জোকারের নালায়েকীয় যুক্তি “There are no God!” ও শস্যক্ষেত্র প্রসঙ্গের পর পড়ার রুচি পাই নি!!
            এই চিরায়ত যুক্তি এতবার শুনেছি যে আমার আর সিদ্ধান্ত নিতে শেষঅব্দি পড়তে হয়নি… ‘মা’রা যেমন বলে ভাতের উনুনে একটা ভাত টিপলেই সবকইটির খবর পাওয়া যায় ব্যাপারটি তেমন আরকি…
            আমার সিদ্ধান্ত ভুল কি ঠিক তা বিচারক হিসেবে ভবিষ্যৎই সবচে ভাল রায় দিবে… তবে অদৃশ্য তালগাছটা আপনারা কস্মিনকালেও ছারেন নি আগামীতেও ছাড়বেন না তা বুঝতে আমাকে আইনস্টাইন হতে হবে না!!
            আমি আসলে এই প্রসঙ্গে তর্ক করতে চাই না,জরুরী সময় নষ্ট হয় বলে…

          2. বেশ… তবে আপনার মূল্যবান সময়
            বেশ… তবে আপনার মূল্যবান সময় অপচয় না হোক- এই কামনাই রইলো।

            শুধু একটা কথাই বলব- কাউকে “ওভার এস্টিমেট” করাটা হয়তো দোষের না কিন্তু “আন্ডার এস্টিমেট” করাটা খুব অন্যায়…
            তাই আগ বাড়িয়ে কিছু না ভাবাই ভালো, নইলে অবমূল্যায়িত হবার আশঙ্কা থেকে যায়…

  7. আমার কিছু অন্ধ বিশ্বাসী
    আমার কিছু অন্ধ বিশ্বাসী বন্ধুরা ঢাক-ঢোল পেটায় যে ইসলামেই নারীদের অধিকারের কথা সুন্দর করে বলা আছে।তারা আমাকে কিছু বড় বড় কথাও বলেছে।ঈশ্বরে বিশ্বাসী নই বলে এই যে আমার সব কথা ইসলামের বিরুদ্ধে,কুরুচিপূর্ণ এবং যুক্তিহীন।।
    এখন তো বুঝতাছি,”মহিলা হইলো গিয়া তেতুলের মতন,মহিলা দেখলেই গিয়া দিলের মধ্য দিয়া লালা বাইর হয়”

    1. ইস্টিশন-এ কারো কাছ থেকে এরকম
      ইস্টিশন-এ কারো কাছ থেকে এরকম অশালীন মন্তব্য পেয়ে ভেবেছিলাম এটা নিয়ে আর কোন আলোচনায় যাব না। কিন্তু বাঙ্গালী নিরবতাকে দুর্বলতা ভাবে! অন্তত, তারিক লিংকন ও গোলাম সারোয়ার-এর মন্তব্যে তেমনই মনে হলো! তাই এই প্রতি পোস্টটি দিতে বাধ্য হচ্ছি…

      http://istishon.blog/node/3424

      1. কথাটা খুব উদ্ধত আর দাম্ভিক
        কথাটা খুব উদ্ধত আর দাম্ভিক হল, কিন্তু পোস্টটা হল মধ্যযুগীয় নারীবিদ্বেষী বর্বরতা পূর্ণ আর চরম পুরুষতান্ত্রিক…
        :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :আমারকুনোদোষনাই: :আমারকুনোদোষনাই: :আমারকুনোদোষনাই: :আমারকুনোদোষনাই: :আমারকুনোদোষনাই: :আমারকুনোদোষনাই: :আমারকুনোদোষনাই: :আমারকুনোদোষনাই:

  8. ভেবেছিলাম এটা নিয়ে আর কোন
    ভেবেছিলাম এটা নিয়ে আর কোন আলোচনায় যাব না। কিন্তু বাঙ্গালী নিরবতাকে দুর্বলতা ভাবে! তাই এই প্রতি পোস্টটি দিতে বাধ্য হচ্ছি…

    http://istishon.blog/node/3424

    :এখানেআয়:

    [বিঃদ্রঃ উক্ত পোস্টের কমেন্টে আমাকে যা খুশি ট্যাগ দেওয়া, অশালীন ভাষায় যা খুশি তাই বলে গালাগাল দেয়া এমনকি ইস্টিশনবিধি লংঘন করে “দলবদ্ধ আক্রমণ, অশিষ্টাচার মন্তব্য” পর্যন্ত করা যাবে… আমি কথা দিচ্ছি- কারো নামে কোন অভিযোগ করবো না!
    কারণ, যাদের সাথে ওঠা বসা করছি তাদের “আচরন”এর সাথে পরিচিত হওয়াটা খুব জরুরি বোধ করছি… :অপেক্ষায়আছি: ]

    1. আমি ১৪ বছর ধইরা মেডিক্যাল
      আমি ১৪ বছর ধইরা মেডিক্যাল সায়েন্স বেইচ্চা খাইতেছি (খুব বেশী দিন না …… আবার বাংলাদেশ ইউরোপ মিলায়া খুব কম দিন ও না … জেই খানে মোট চাকুরির বয়স ২৫ থেকে ৩০ বছর… ১৪ বছর তো মাঝামাঝি) … যদি মেডিক্যাল স্কুল এ থার্ড ইয়ার থাইক্কা ধরি তাহইলে ১৭ বছর … আইজকাও শুনতে – পড়তে হইলো যে “menstrual cycle” হইলো অশুচি … অপবিত্র… তা ও আবার এই নামে যে মেডিক্যাল সায়েন্স ও নাকি এই টারে সমর্থন করে … ! আহা normal physiology র সাথে পাক – পবিত্র – সুচি – অসুচি র দুরত্ত যে কয়েক কোটি মাইল… কে এই পাগল গুলি রে বুঝাইবে ? একমাত্র আল্লাহই পারে এগোরে হেদায়েত করতে !

      এক কালে কায়েস আহমেদ, ইলিয়াস, হাসান আজিজুল হুক, মামুন হুসাইন, শাহাদুজ্জামান রা গল্প লিখতেন … এখন মনে হয় সবাই ই গল্প লিখেন… !

      আহা অন্ধকারের কোনও সীমা পরিসিমা নেই আমার দেশে !

      1. আমি “অশুচি শব্দটা মেডিক্যাল
        আমি “অশুচি শব্দটা মেডিক্যাল সায়েন্স সমর্থন করে” এমন দাবী করিনি। বরং মেডিক্যাল সায়েন্স “menstrual cycle” এর সময় যৌন মিলন (ইনফেকশনের সম্ভাবনা সহ বিভিন্ন জটিলতা সৃষ্টির সম্ভাবনা থাকায়) না করতে উৎসাহী করে এমন ঈঙ্গিত করেছিলাম!

        একটা জিনিস বুঝলাম না! আমি না হয় “আ*াল” ছাগু… আপনারা তো জ্ঞানী লোক! এই সামান্য ঈঙ্গিতটা সোজা ভাবে না নিয়ে ভুল ধরায় ব্যস্ত হয়ে পড়লেন… কঠোর মৌলবাদীদের সাথে আপনার তফাৎটা রইলো কোথায় আর?
        আমি তো জানতাম- মুক্তমনারা সত্যিকার অর্থেই অনেক বড় মনের মানুষ হয়। তাদের চোখে তো অন্যের ক্ষুদ্রতা চোখে পড়ার কথা না! অথচ আপনাকে দেখছি বরাবরই আমাকে “আন্ডার এস্টিমেট” করায় ব্যস্ত! হিসাবটা ঠিক মিলল না…
        :চিন্তায়আছি:

  9. আরে বাপরে, উদ্ধৃতিগুলো দেখে
    আরে বাপরে, উদ্ধৃতিগুলো দেখে তো মনে হচ্ছে ইসলাম নারীদের দমনেই সৃষ্টি হইছে। এখন একটা জিনিস বুঝতে পারছি না, ইসলাম যদি নারীদের ব্যপারে ভুল করে থাকে তবে তার সমাধান কে দিবে! নারীদের জন্য সমাজ কি কি করবে, কোন কোন ক্ষেত্রে তার পরিবর্তন করতে হবে সেটা কে নির্ধারন করে দিবে! অনেক ভেবে দেখলাম, দুইভাবেই নির্ধারন করা যায়।

    পদ্ধতি ১. একজন নিনিষ স্কেলে ৮-১০ পাওয়া বুদ্ধিমান মুক্তমনা নাস্তিক এটা নির্ধারন করবে। ধরলাম শামীমা মিতুই সেই বহু কাংখিত নির্ধারক। কিন্তু শামীমা মিতুই যদি এটা নির্ধারন করে দেন তবে তিনি আবার সেই ধর্মীয় ষ্টাইলে নবী হয়ে গেলেন না! অর্থাৎ তিনি একটা পথ বাতলে দিলেন আর সব মুক্তমনারা তাকে অনুসরন করা শুরু করল। দেখা গেল অন্য একজন মুক্তমনা শামীমা মিতুর সাথে একমত না হয়েও তার দেয়া ফতোয়া মেনে নিতে বাধ্য হলেন। অর্থাৎ শামীমা মিতু তখন একজন মৌলবাদি নাস্তিক। যিনি অন্য আরেকজন নাস্তিকের ওপর ফতোয়া দিয়ে তার স্বিদ্ধান্ত চাপিয়ে দেন। এখন ইসলামের ১৪ গুষ্ঠি উদ্ধার কইরা যদি আবার কতগুলা মৌলবাদি ফতোয়াবাজ নাস্তিক সমাজে ফিরে আসে তাহলে আর লাভটা হল কি! এই পদ্ধতিতে ধর্মের মতই আবার বিভিন্ন নীতি নির্ধারনের জন্য নবী, পুরোহিত, কাঠমোল্লারা ফিরে আসবে, তবে পার্থক্য হল আগে তাদের ধর্ম ছিল ইসলাম, হিন্দু, বৌদ্ধ কিংবা খ্রীষ্টান। এখন ধর্ম হবে নাস্তিকতা। তাইলে এই পুরান মদ নতুন বোতলে খাইয়া লাভ কি!

    পদ্ধতি ২. দ্বিতীয় পদ্ধতি হল সমাজের সবাই যার যার নিজের বিবেক বুদ্ধি অনুযায়ী চলবে। নবী পদ্ধতি আনা যাবে না। সমাজে নারী পুরুষ সবাই স্বাধীন। একজন গায়ের জোড়ে নারীকে ধর্ষন করতে থাকবে, কিংবা একজন সমকামী তার থেকে দুর্বল একটু মেয়েলী চেহারার এক ছেলেকে ধরে ধর্ষন করবে। এখন আপনি যদি তাকে গিয়ে বলেন কাজটা ঠিক না তখন সে বলবে কাজটা ঠিক। এখন আপনি তার কথার প্রতিবাদ করতে চাইলে কিভাবে বুঝাবেন যে ধর্ষন একটা অপরাধ। ধার্মিকরা ধর্মগ্রন্থ টাইনা আইনা সেখান থেকে লেখা বাইর কইরা বলতে পারে যে সেইখানে লেখা আছে এইটা অপরাধ, কিন্তু যার ধর্মগ্রন্থ নেই সে কিসের ভিত্তিতে বিচার করবেন যে ধর্ষন কিংবা চুরি একটা খারাপ কাজ। ও আচ্ছা, আপনি বিবেককে প্রশ্ন করতে বলবেন! কিন্তু ধর্ষক যদি বলে সেও তার নিজের বিবেকরে প্রশ্ন করে বুঝতে পারছে ধর্ষন একটা ভালো কাজ। তাইলে আপনি কি বলবেন! কে সঠিক আর কে ভুল এটা নির্ধারন করে দিবে কে!!! রাষ্ট্র দিবে! তাইলে তখন আপনে রাষ্ট্রধর্মের আওতায় পরে গেলেন। রাষ্ট্রের নিয়ম কানুন গুলা যারা নির্ধারন করবে তারা তখন আবার নবি হয়ে গেল। সোজা কথায় আপনি ধর্ম দিয়ে বের হইতে পারতেছেন না। বের হওয়ার কোন পথ থাকলে বলেন।

    ফাইনাল্লি বুঝলাম, ইসলাম নারীদের খুবই অবহেলিত করে রেখেছিল। আপনি যেহেতু খুব বুদ্ধিমতি তাই আপনি সেইটা বুঝতে পারছেন। কিন্তু আপনার এত বুদ্ধির মধ্যেও এইটা বুদ্ধি কইরা বাইর করতে পারছেন না যে ইসলামের থেকে ভালভাবে কিভাবে নারীকে অধিকার দেয়া যায়। তাই আপনার সব বুদ্ধি ইসলামকে দোষ দেয়া পর্যন্ত থেমে থাকছে। সেটা থেকে বের হয়ে ভাল কিছু বের করতে পারছে না। তাইলে বুঝলাম, ইসলাম খুবই নারীবিদ্দেসী একটা ধর্ম যা অন্ততপক্ষ নারী ও পুরুষদের চলাফেরা নিয়ে কিছু খারাপ নিয়মকানুন দিছে। কিন্তু আপনারা যেহেতু সেই খারাপ নিয়ম কানুন গুলার চেয়ে ভাল কোন পথ বের করতে পারেন নাই তাই বর্তমানে বাজারে এইটাই সেরা। যদি অসংলগ্নভাবে এইরকম ধর্মের সমালোচনা না কইরা পরিপূর্নভাবে ধর্মীয় পদ্ধতির বাইরে গিয়ে কোন সমাধান দিতে পারেন তাইলে বড় কথা বইলেন। সমাধান দিতে না পারলে ভুল ধইরা লাভটা কি। যত্তসব বালছাল পোষ্ট। ইসলাম ভালনা এইটা বইলাই খালাস, তাইলে ভাল কোনটা সেইটা তো দেখাইয়া দিবেন। আবার যদি দেখাইয়া দেন তাইলে কিন্তু আপনে নবি হইয়া যাইবেন, কারন আপনে তখন একটা নতুন পথের ঠিকানা দিছেন। ধর্ম দিয়া বের হইতে পারলেন না। যদি আমার নিজের বুদ্ধিতে চলতে বলেন, তাইলে কিন্তু আমি ধর্ষন করা শুরু করমু, তখন যদি বলেন কাজটা ভাল না তাইলে আমি জানতে চামু কাজটা ভাল না খারাপ তা নির্ধারনটা করবে কে। সবাই তো নিজের বিবেক অনুযায়ী চলবে। আমিও একজন মুক্তমনা, আমার মন বলছে ধর্ষন একটা মহৎ কাজ। আপনে কিভাবে প্রমান করবেন ধর্ষন একটা খারাপ কাজ। আপনে বিশ্বাস করেন ধর্ষন খারাপ, তাই বলে সেটা তো খারাপ নাও হতে পারে। আপনার কাছে একজন বিচার দিছে তার ওপরে কেউ হামলা করে যৌন নির্যাতন করছে, আবার আমি বলতেছি তাকে দেখে আমার এমন মনে হইছিল যে আমি নির্যাতন না করে থাকতে পারিনি, তাই আমার সামনে আসাটাই তার ভুল হইছে। এখন দুইজনের মধ্যে কার কথার মূল্য আপনি দিবেন!!! ওয়েল কোনটার মূল্য দিবেন সেটা নির্ধারনের জন্য আপনে একটা বই লিখবেন যেখানে সব প্রশ্নের উত্তর থাকবে। সেইটা কি তাইলে আবার ধর্মগ্রন্থের মত হয়ে গেল না! কোনভাবেই তো ধর্মের বাইরের কিছু আপনারা দিতে পারছেন না। তাইলে ধর্মের সমালোচনা কইরা এইসব বালছাল লেখার মানে কি!

    আমার আউল ফাউল কথা শুইনা জামাতী, ছাগু, বিম্পি, লীগ, বাম যে ট্যগ মন চায় দেন। আপনার ট্যগের চিন্তা কইরা আমি চলিনা। তবে আমার নিম্নমানের প্রশ্নগুলার উচ্চমানের কিছু উত্তর দিয়া আমার মুখটা বন্ধ কইরা দিবেন বলে আশা করছি।

  10. আপনার মন্তব্য পড়ে হাসি পেলো
    আপনার মন্তব্য পড়ে হাসি পেলো সাথে রাগ হলো এই ভেবে যে, এতো কিছু লিখতে হয়েছে আপনাকে একটা ছোট কথা বলার জন্য। তা হলো ইসলাম নারীকে করেছে মহান।
    তাই যদি হতো নারীদের ভোটাধিকারের জন্য সংগ্রাম করতে হতো না। বৈষম্যের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করতে হয়েছে। এবং এখনো ইসলামিক রাষ্ট্রগুলোতে নারীদের ঘরের বাইরে বের হওয়ার জন্য আন্দোলন করতে হচ্ছে। এবং এই দেশেও নারীর অধিকারের প্রশ্ন আসলেই তা ধর্মের সাথে সংঘাত লেগেছে। মোল্লারা পাকি ড্রেস পড়ে রাস্তায় নেমেছে। নারী নীতিই তার উদাহরন।
    যাউজ্ঞা আপনার উপরে উল্লেখিত গোবর মস্তিস্কপ্রসুত বানীগুলোর উত্তর দেয়া হবে আরো হাস্যকর। কারন কেউ ও গুলো পড়লেই বুঝতে পারবে কি লেদিয়েছেন। শালা সবখানেই এরকম কিছু কাপড় নষ্ট করা পাব্লিক থাকেই :মাথাঠুকি:

    1. আপু- এক নিমিষেই এই সব ছাগুদের
      আপু- এক নিমিষেই এই সব ছাগুদের কোমড় ভেঙ্গে দেয়া সম্ভব। আপনি শুধু এদের হাত থেকে কোরআন-এর মত একটা মধ্যযুগীয় বাজে পুস্তকের বদলে আধুনিক আলোকিত জ্ঞানের “দিক নির্দেশিকা” তুলে দেন… দেখবেন ম্যাজিকের মত কাজ হচ্ছে!
      তা কবে দিচ্ছেন সেই “দিক নির্দেশিকা”???

      1. এক বইয়ে সমাধান খোজেন বলেই তো
        এক বইয়ে সমাধান খোজেন বলেই তো এই হাল। খুব প্রাথমিক লেভেলের আলোর দিশার খোজ দিলাম। তলস্তয়, ম্যাক্সিক গোর্কি, মার্ক টোয়েন, আখতারুজ্জামান ইলিয়াস, সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ, হুমায়ুন আজাদসহ আরো অনেক গ্রেট লেখকের বই পড়েন। গন্ধ দূর হবে।

        1. বিশ্বাস এমনিই … খালি বই
          বিশ্বাস এমনিই … খালি বই খুঁজে আর পুজার মণ্ডপ খুঁজে!!
          এত আগ্রহ ভরে যদি মানুষ আর মানবিকতা খুঁজত…
          সফিক ভাই… কয়েকটা বই এর হদিস দেই দয়া করে পড়ে নিবেন!!
          ১) রূশোর ‘সোশ্যাল কন্ট্রাক্ট’,
          ২) প্লেটোর ‘রিপাবলিক’,
          ৩) রাসেলের ‘Why I’m not a Christian’ আরও কিছু প্রবন্ধ…
          ৪) মার্ক্সের ‘ডাস ক্যাপিটাল’
          ৫) ডারউইনের ‘ওরিজিন অফ স্পিচিস’… আর পারলে কষ্ট করে পাশ্চাত্য দর্শনের ইতিহাসটাও পড়ে নিয়েন!!
          আর এত কিছু না চাইলে একটা উপন্যাস আর একটা ডিকশনারি পড়ে নিয়েন…
          সরদার ফজলুল করিমের ‘দর্শন কোষ’ আর ইয়াস্তিন গার্ডারের ‘সোফির জগত’…
          আর মন থেকে একটা জিনিস দূর করুণ যে নারীকে আপনার কাছে কেউ আমানত হিসেবে রেখেছে আর আপনার দায়িত্ব তার হেফাজত করা। মনে রাখবেন এই দুনিয়াতে আমি-আপনি যতটুকু অধিকার নিয়ে এসেছি মিতু আপা-তসলিমা নাসরিনরাও একই অধিকার নিয়ে এসেছে! সবাই জন্মানোর সময় মানব সন্তান হিসেবে জন্মাই নারী-পুরুষ হিসেবে না!

          ভাল থাকবেন… সুস্থ থাকবেন…

        2. আপু, আপনাদের একটা সমস্যা কি
          আপু, আপনাদের একটা সমস্যা কি জানেন? আপনারা সবাইকে আপনার সমান সুবিধা ভোগী মনে করেন। বাস্তবতা হচ্ছে- সমাজের আপনি যে অবস্থানে আছেন সেই অবস্থানে কিন্তু বেশির ভাগ মানুষই নেই!
          আপনি একজন শহুরে পরিবেশে বেড়ে ওঠা আধুনিক মনষ্ক মানুষকে সহজেই ” তলস্তয়, ম্যাক্সিক গোর্কি, মার্ক টোয়েন, আখতারুজ্জামান ইলিয়াস, সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ, হুমায়ুন আজাদ” রেফারেন্স করতে পারেন। (হয়তো পড়াতেও পারবেন)
          কিন্তু যে দেশের ৮০% লোক এখনও গ্রামে বাস করে তাদের কথা চিন্তা করুন। চিন্তা করুন সেই সব খেটে খাওয়া রাস্তার মানুষগুলোর কথা- যারা জীবনের কষাঘাতে প্রাইমারীর গন্ডী পেরুতে পারেনি…
          তাদের কাছে কি আপনার “তলস্তয়, ম্যাক্সিক গোর্কি, মার্ক টোয়েন, আখতারুজ্জামান ইলিয়াস, সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ, হুমায়ুন আজাদ” পৌছাতে পেরেছে? পারেনি। পারেনি বলেই তারা বেছে নিয়েছে কোরআন। কারণ কোরআন তার দরিদ্র ঘরের ভাঙ্গা বেড়ার তোয়াক্কা না করে ঢুকে পড়েছে…
          এখনো প্রতি বছর প্রতি মাসে প্রতি দিন হাজার হাজার মুসুল্লি “তাবলীগ”-এর মাধ্যমে কোরআনের (হয়তো আপনার দৃষ্টিতে বিতর্কিত!) শিক্ষা পৌছে দিচ্ছে।
          যে ব্যক্তি নিজের নাম লিখতে পারে না তাকেও অনেক ধৈর্যে মুখে বলে বুঝিয়ে দেয় জীবন দর্শন। কিছু না পাবার চেয়ে ঐটুকুই ছিল তাদের জন্য অকুল সাগরের খড়-কুটা!
          আর এজন্যই আল্লামা শফির ওয়াজে লাখ লোকের ঢল নামে। কিন্তু আপনি যখন আলো দেখাতে চান- আপনার সাথে তাদের কেউ থাকে না! কারণ আপনার মার্ক টোয়েন নিয়ে আপনি কি কোন দিন গিয়েছেন তাদের কাছে? তাদেরকে শুনিয়েছেন কোনদিন- কোরআন ছাড়াও এমন অনেক কিতাব আছে যা পড়লে মুক্তবুদ্ধি বিকাশ হয়?
          শোনাননি। আপনারা তাদেরকে সারাজীবন মুর্খ-ক্ষ্যাত-ছাগু-আ*াল ট্যাগ দিয়ে দূরে সরিয়ে রেখেছেন…
          কিভাবে আশা করেন- আপনার কথা “জন সাধারণ” এতো সহজে মেনে নেবে?
          তাদের অশিক্ষিত মস্তিষ্কে “হুজুর”রা ঠিকই একটা মেসেজ পৌছে দিতে সক্ষম হয়েছে…
          কিন্তু আপনারা সেই অশিক্ষিত মস্তিষ্কের খোঁজ কোনদিন নেননি… তসলিমা থেকে শুরু করে আপনারা সবাই কেবল তাদেরকে গালাগাল দিয়ে গেছেন।

          আপু, আপনার প্রতি আবারও যথাযথা সম্মান রেখেই বলছি- শফিদের গালি দেবার আগে একবার নিজের দিকে তাকান। ওনারা তো তবুও লাখ খানেক লোক জড় করে কোন একটা শিক্ষা (কিংবা কুশিক্ষা!) দেবার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু যেখানে এই পৃথিবীর বেশীর ভাগ মানুষই অশিক্ষিত ও দারিদ্রপীড়িত, সেখানে তাদের জন্য আপনাদের অবদান কতটুকু? নিজেদের অক্ষমতার দায়টুকু কার কাধে দিবেন?

          [এব্যাপারে আরো বিস্তারিত আলোচনা করার ইচ্ছা আছে, আপনি অভয় দিলে অন্য কোন সময় করার ইচ্ছা রাখি…]
          ভালো থাকবেন। :গোলাপ: :গোলাপ:

          1. আমি অযাচিতভাবেই
            আমি অযাচিতভাবেই বলছিঃ
            সত্য-ন্যায় যদি ১ জন বলে আমি ২য় জন হতে রাজি আছি। তবুও ৯৮ জনের সাথে এক হয়ে মিথ্যা-অন্যায়ের আশ্রয় নিতে রাজি নাই!! পাপী শফিরা লাখ-লাখ মানুষ জড়ো করছে বলে কি আমার মাথা-বিবেক কিনে ফেলেছে? আপনি এখন জনগণের দোহায় দিয়ে নিজের বিবেকের সাথে এডজাস্ট করতে চাচ্ছেন বা জাস্টিফাই করতে চাচ্ছেন? করেন!!
            রবীন্দ্রনাথের শেষের কবিতা থেকে একটা লাইন দিয়ে শেষ করব! ‘বিধাতার রাজ্যে ভালো জিনিস অল্প হয় বলেই তা ভালো;না হলে সকল ভালোর ভিরের ঠেলাই তা হয়ে যাবে মাঝারি….’

          2. যে প্রেস্ক্রিপশন ডাক্তার ছাড়া
            যে প্রেস্ক্রিপশন ডাক্তার ছাড়া আর কেউ বোঝে না,
            যে আবিষ্কার বিজ্ঞানী ছাড়া আর কারো কাজে লাগে না,
            যে জ্ঞান জ্ঞানী ছাড়া আর কেউ অর্জন করে না,
            যে দর্শন দার্শনিক ছাড়া জন সাধারণের কাছে পৌছায় না…

            তার আদৌ কোন মূল্য নেই। সমাজ যদি মূর্খ হয়ে থাকে তো সেই দোষ যতটা না সমাজের তারচেয়ে অনেক বেশী সেই সব গুটি কয়েক জ্ঞানীর যারা সুযোগ থাকা সত্যেও আলস্য ও দাম্ভিকতার কারণে বাকিদের সেই জ্ঞান বিলিয়ে দেয়নি…
            জ্ঞান ও অগ্নিশিখা যত বিলানো যায় তত বাড়ে। আর নিজের ভেতর চেপে রাখলে এক সময় দপ করে নিভে যায়…

        3. আপা, আপনে তাইলে তলস্তয়,
          আপা, আপনে তাইলে তলস্তয়, ম্যাক্সিক গোর্কি, মার্ক টোয়েন, আখতারুজ্জামান ইলিয়াস, সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ, হুমায়ুন আজাদ এদেরকে দেখানো পথে চলেন। আপনার কাছে তারা নবী, যেভাবে মুসলমানের কাছে ইসা, মুসা, ইব্রাহীম এরা নবী।
          তাইলে তো আপনিও একটা ধর্ম পালন করেন। ধর্ম দিয়ে বের হইলেন কই!!!
          তাইলে আপনে ধর্মের বিলুপ্তি চান না, ধর্মের সংস্কার কিংবা পরিবর্তন অথবা নতুন কোন ধর্ম চান। অথচ লেখার সময় তো সবসময় ভাব দেখান ধর্ম দিয়ে বের হতে চান আপনি। ধর্ম দিয়ে বের করার স্বপ্ন নামের মূলা ঝুলাইয়া আপনে আরেকটা ধর্মের মূলা ধরাইয়া দিবেন এইটা কেমন কথা!!!

          1. ওহ মাই গড মুভিটির কথা মনে
            ওহ মাই গড মুভিটির কথা মনে পরল! অবশেষে বেচারাকে তারা নবীই বানায় ফেলল!! নবী কাকে বলে একটু খুলে বলবেন দয়া করে @ জলকপোত!!
            তলস্তয়, ম্যাক্সিক গোর্কি, মার্ক টোয়েন, আখতারুজ্জামান ইলিয়াস, সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ, হুমায়ুন আজাদ, অথবা রুশো, মার্ক্স, এঙ্গেলস, ডারউইন, ফ্রয়ড, রাসেল কাউকেই কেউ অন্ধবিশ্বাসের মত পুজা করে না! সবার থেকে ভাল দিক বা ভাল কাজগুলো নিয়ে একটা সমাজ ব্যবস্থার কথা ভাবে…
            আপনার সদয় জ্ঞাতার্থে বিনয়ের সাথে বলছি জ্ঞান-বিজ্ঞান-দর্শন কখনও থেমে থাকে না এইটা একটা চলমান প্রক্রিয়া যা সভ্যতার অগ্রগতির সাথে সাথে পরিপক্বতা লাভ করে। তাই আদর্শবাদ বা বস্তুবাদ অথবা দান্দিক বস্তুবাদ কোন ধর্ম না আর এর পিছনের দার্শনিকেরাও কোন নবী না…
            ধর্মের মূল উপজীব্য হচ্ছে সৃষ্টিকর্তায় বিশ্বাস ও তার প্রার্থনা এবং তার প্রেরিত গ্রন্থের উপর পূর্ণ আস্থা! পার্থক্য বুঝতে পারছেন আশা করি…

            আর আরেকটা কথা আপনার এই কথা যদি যুক্তি হয় তবে ১০০ টি কিতাব ও ৩ টি আসমানি কিতাবের পর কেন চতুর্থটির প্রয়োজন পরল? কারণ আপনি উপরের মন্তব্যে বলতে চাচ্ছেন ধর্মের বিকল্প যদি ধর্মই হয় তবে কেন এই পরিবর্তন!

            স্ববিরোধীতাটা বুঝার চেষ্টা করে, একটু মাথা ঠাণ্ডা করে উত্তর দিয়েন…

          2. এটাই হয়তো সমাজে ধর্মগ্রন্থ
            এটাই হয়তো সমাজে ধর্মগ্রন্থ গুলোর এতো এতো গ্রহণ যোগ্যতার কারণ যে- “জ্ঞান-বিজ্ঞান-দর্শন কখনও থেমে থাকে না এইটা একটা চলমান প্রক্রিয়া যা সভ্যতার অগ্রগতির সাথে সাথে পরিপক্বতা লাভ করে।”
            কিন্তু সমাজের দারিদ্রপীড়িত ও নিরক্ষর মানুষগুলো এই চলমান পক্রিয়ার সাথে তাল মেলাতে পারে না।
            সেতুলনায় ধর্ম গ্রন্থে সে পেয়ে যায় একটা সহজ ও অপরিবর্তনীয় “নীতিশাস্ত্র ও জীবন দর্শনের প্যাকেজ”! সেটা দিয়েই সে যখন তার “দিন আনি দিন খাই” জীবনটা দিব্বি চলে যায় তখন অতো উন্নত মানসিকতার আধুনিক দর্শন পড়ার সময় কোথায় তার?

            ম্যাসেজটা বুঝতে পেরেছেন নিশ্চয়ই। আজকে আমাকে একজন একটা লিঙ্ক দিল… লিঙ্কটা দেখে আমার অন্তত তা-ই মনে হলো! দেখুন তো- আপনার কি মনে হয়?
            http://en.wikipedia.org/wiki/Importance_of_religion_by_country

          3. এইটা আমি দেখেছি… কোনটা আগে
            এইটা আমি দেখেছি… কোনটা আগে আর কোনটা পরে এইটাইতো আপনার প্রশ্ন? দেখুন এইটা যুগপৎ এসেছে। কোনটা আগে কোনটা পরে না… সমাজের পরিবর্তন এইভাবেই হয়!
            জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রন করতে হলে যেমনি আমাদের সরকারকে সচেতনতা ও শিক্ষার পাশাপাশি আইন ও তার প্রয়োগ করতে হবে তেমনি আমাদের সমাজ থেকেও ধর্মীয় মৌলবাদী ও জঙ্গিপনা বন্ধ করতে আইন ও তার প্রয়োগের পাশাপাশি মানুষকে শিক্ষা ও জ্ঞানের মাধ্যমে সচেতন করতে হবে…
            আপনি বলতে চাচ্ছেন আমরা বা আমাদের জাতি শিক্ষিত হলে তারপর এইসব অন্ধ বিশ্বাস থেকে মুক্তি পাবে, আর আমি বলছি এইসব অন্ধ বিশ্বাসের প্রতি সমাজিক আন্দোলন ও সমাজিক প্রতিরোধ আর সুশিক্ষা ও উন্নয়নের যুগপৎ প্রচেস্টায় সমাজ এইসব অন্ধকার থেকে আলোতে আসবে… পার্থক্য কোথায় খেয়াল করে দেখুন!!
            আপনার দেয়া লিঙ্কটা আমি গতকালই দেখেছি…

          4. হুদা কামে যে এই আলোচনা চলছে
            হুদা কামে যে এই আলোচনা চলছে তাতে কোনো সন্দেহ নাই। তা সফিক এহসান আপনার জ্ঞাতার্থে জানাই আমিও গ্রামে বড় হয়েছি। আমার জীবনের ১৯ ২০ বছর গ্রামেই কেটেছে। যে সময়টাকে বলে জীবনের ভীত রচনার সময়। এমন একজন স্কুলে না যাওয়া মানুষ ছিল, আরজ আলী মাতব্বর। নাম কি না জানিনা। আর অশিক্ষিত গ্রামের মানুষের দোহায় দিয়েন না, পড়াশোনা জাইন্না আপনার কি হাল হইছে সে তোঁ দেখতেই পারছি।
            আগেই কইছিলাম এতো কথা খরচ করে ত্যানা প্যাচাইয়েন না। দেশে ছাগলের সংখ্যা বেশি হইলেও জাতীয় প্রানী কিন্তু রয়েল বেঙ্গল টাইগার!

          5. দেশে ছাগলের সংখ্যা বেশি হইলেও

            দেশে ছাগলের সংখ্যা বেশি হইলেও জাতীয় প্রানী কিন্তু রয়েল বেঙ্গল টাইগার!

            :bow: :bow: :bow: :bow: :bow: :bow: :bow: :bow: :bow: :bow: :bow: :bow:
            অসাধারণ বলেছেন…

          6. মিতু আপু শেষ করেন। অবুঝদের
            মিতু আপু শেষ করেন। অবুঝদের সাথে কি নিয়ে তর্ক করছেন????!!!! এরা কোরআন ছাড়া কিছু বুঝে?
            পরে থাকতে দেন এদের কোরআন নিয়ে। তাতে কারো কিছু যায় আসে না। এর জন্য তো মহাজগত থেমে থাকবে না। মহাজগত মহজতের নিয়মেই চলবে। কারো অলৌকিক বিশ্বাস দিয়ে নয়।

          7. দেখেন উন্নত বিশ্বে গড়ে ৫৫-৭৫%
            দেখেন উন্নত বিশ্বে গড়ে ৫৫-৭৫% মানুষই মনে করে ধর্ম একটি অগুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এমনটা মনে করে বলেই তারা উন্নত বা উন্নত হয়েছে আমি বলছি না তবে দুইটাই যুগপৎ ঘটবে! তবে এইটাও ঠিক ধর্মীয় মৌলবাদে আক্রান্ত মানসিক অসুস্থতা যত কমবে ততই দেশের ও মানুষের উন্নতি ঘটবে…
            অক্সফোর্ড শিক্ষক ক্যথেরিন টেলরের সিদ্ধান্ত এইক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ!!

  11. যে কারনে মনে হয়েছে এটা শফির

    যে কারনে মনে হয়েছে এটা শফির লাইমলাইটে আসার কৌশল মাত্র! আপা আপনিও একই কৌশল এ লাইমলাইটে আশার চেষ্টা করছেন , অন্যর পোস্ট কপি/পেস্ট কইরা । আপা ধর্ম একটা সেনসিটিভ ইস্যু নিজের জ্ঞান এ যদি না লিখতে পারেন তবে দয়া কইরা কপি/পেস্ট করবেন না। লিখা টা যে হেতু কুরআন বিষয়ক তাই আপনার জন্য একটা আয়াত কপি/পেস্ট কইরা দিলাম ” অপরাধীদের পরিচয় পাওয়া যাবে তাদের চেহারা থেকে; অতঃপর তাদের কপালের চুল ও পা ধরে টেনে নেয়া হবে। [সুরা আর-রহমান: ৫৬]”

    1. পলাশির প্রান্তর, আপনারা ছাড়া
      পলাশির প্রান্তর, আপনারা ছাড়া এই কথা কে বোলতে পারে বলেন!! আর কোরান হাদিস থেকে কপি পেষ্ট না করলে পাব্লিকরে জানাইতাম কেমনে, এতো গলদ রয়েছে এই মহা গ্রন্থে। আপনার কপি পেষ্ট করা আয়াতেই দেখেন সি সোন্দর দেখা যাইতেছে সভ্যাতার বাশ দেয়ার সব ব্যাবস্থা করা হইছে। আপনারা চুল ও পা ধরে টেনে নেয়ার স্বপ্নে মসজিদেও বোমা মারেন, আর মার্কিন সাম্রাবাদিরা আইসা আপনাদের পুটুমারা দেয়।

      1. (No subject)
        :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে:
        😀 😀 😀 😀 😀 😀 😀 😀 😀 😀 😀 😀 😀 😀
        :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট:
        :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি:
        :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি:

      2. আপা আমি কোরান হাদিস থেকে কপি
        আপা আমি কোরান হাদিস থেকে কপি পেষ্ট করছেন বলি নাই , আমি কইছি আপনি অন্যের ব্লগ থাকে কপি পেষ্ট করছেন।

        1. রোজা রেখেছেন তাই আর মুখ খারাপ
          রোজা রেখেছেন তাই আর মুখ খারাপ করলেন না!!!! উপরের মন্তব্য যদি মুখ খারাপ না হয় তয় মুখ খারাপ কারে কয়য়???????????????? :খাইছে: :খাইছে: :খাইছে: :খাইছে: :খাইছে: :খাইছে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে:

        2. তা যদি লিঙ্কু টিঙ্কু দিতেন
          তা যদি লিঙ্কু টিঙ্কু দিতেন কোন লেখা থেকে কপি পেষ্ট করছি দেখতাম। আর যদি না দেখাইতে পারেন, তাইলে কিন্তু রানীক্ষেত হওয়া মুরগির বিষ্টায় চুবাই রাখুম আপনারে।

      3. আমি কোন খানকির পোলা যে আমি
        আমি কোন খানকির পোলা যে আমি আপনার চুল ও পা ধরে টেনে নেয়ার স্বপ্নে মসজিদেও বোমা মারব , আর আর মার্কিন সাম্রাবাদিরা আইসা আপনাদেরও একদিন ছুদে দিবে সে দিন … রোজা আছি তাই আর মুখ খারাপ করলাম না । রাতে বাকি তা লিখে দিব ,

        1. পলাশ ভাই আপনার মতো মানুষের
          পলাশ ভাই আপনার মতো মানুষের জন্য ধর্ম কম কুলশিত হয় না । ধর্মের কোথাও কি গালি দেয়ার কথা আছে ?
          গালিও দিলেন আবার রোজার দোহাইও দিলেন । তাকেও ঘৃণা করি তার লেখার জন্য আপনাকেও করি । নষ্ট মন্তব্য লেখার জন্য ধর্মকে জড়িয়ে ।

          1. তুহিন ভাই আমি আমার ভাষার জন্য
            তুহিন ভাই আমি আমার ভাষার জন্য দুঃখিত , উনি আমারে ধর্মীয় উগ্রপন্থী বলছে যা আমি না, আর কেউ যদি আমারে পুটুমারার কথা কই, তার জবাব এর চাইতে ভাল ভাষাই দেয়া আমার পক্ষে সম্ভব না , যেমন কুকুর তেমন মুগুর আর কি।

  12. পলাশ ভাইজান মাপ চাই সাথে
    পলাশ ভাইজান মাপ চাই সাথে দোয়া। ভাই আমি তো ডরাইছি!!! আপনি রোজা আছেন মুখ খারাপ করেন নি। যদি আল্লার কথায় রোজা না থাকতেন তাইলে মুখ দিয়ে কি বাইরাইতো ভাবতেছি :ভাবতেছি: :ভাবতেছি:।
    তা দাত তাত মাজেন তো? যেমনে গন্ধ ছড়ালেন। এখন আমি কারে কই একটু স্প্রে ছিডাইতে!

    1. মুক্ত মনার এই লেখার সাথে আমার
      মুক্ত মনার এই লেখার সাথে আমার লেখার কি মিল পাইলেন বুঝলাম না। এই আয়াতগুলো আমি তো জানতাম কোরানের। আপনি কি বোলতে চান মুক্তম্না ব্লগের আয়াত। তয় আপনার মতো ধাড়ি ছাগলের দ্বারা সবই সম্ভব। কোনদিন আবার আল্লাআ শফির বক্তব্যরে আবার কোরানের বাণী বানাই দিয়েন না। খুব কিয়াল কইরা :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে:

        1. রানীক্ষেত হওয়া মুরগির

          রানীক্ষেত হওয়া মুরগির বিষ্টায় চুবাই রাখুম

          এমনে কইরা কেউ কাউরে কয় :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে:
          :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: পলাশের মতো ছাগু ইস্টিশনে কি করে! খোয়াড়ে কি জায়গা হচ্ছে না ভাই?

          1. (No subject)
            :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে:
            :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি:

  13. মিরর দিনা আপনারে ধন্যবাদ,
    মিরর দিনা আপনারে ধন্যবাদ, এতদিন পরে বুঝতে পারলাম আমার দাম কম পক্ষে ৪০০০ টাকা , আমি আর কোন কমেন্ট করবো না , কারন আমার কারনে এই ফালতু পোস্ট টা তে হিট বাইরা জাইতেছে, লাস্ট একটা কথা কইয়া যাই ,কপি আপা আমারে রানীক্ষেত হওয়া মুরগির বিষ্টায় চুবাই রাখতে চাইছিল লিঙ্ক দিবার না পারলে আমি মুক্তমনার যে লিঙ্ক টা দিয়াছি কষ্ট কইরা পইড়া দেকেন কোরান ও হাদিস এর রেফেরেন্স গুলু সিরিয়ালে কেমন মিলে যাই 🙂 আপনাকে অ্যান্ড আপনার কপি শামিমা (শামিমা মিতু)রে আবারও সালাম। আপা ছাগু অ্যান্ড খাসি কিন্তু একই মাল , অবশ্য মাইয়ারে খাসি কওয়া যাবে কি না এই বাপারে আমার কোন আইডিয়া নাই। আইজু ঠিকই কইছিল,,এইদেশে কোনো চুতিয়া জন্মায় না এই দেশটাই একটা চুতিয়া ৷ আর আপনাদের কারনে এই দেশটা চুতিয়া দেশ হয়ে গিয়াছে, কথাই কথাই আপনারা মানুষরে ছাগু কইয়া দেন, ১৪ কোটি মুসলিম এর সবাই কিন্তু জামাতি না ।

    1. এইবার বুঝছি আপনি কোন মাল। সেই
      এইবার বুঝছি আপনি কোন মাল। সেই ধ্বজাধারীদের অনুসারি আপনি, যারা ধর্ম নামক শব্দটাকে পবিত্র মনে করে ধর্মের নামে সব ধরনের গোয়া মারামারিতে থাকেন। আপনারা যে কিসের জন্ম এইটা নিয়েই মাঝে মাঝে ধন্দে পড়ে যায়। কারন আপনাদের পিতার আসনে কোনো পারপেয়েকে বসালে তাদেরও অপমান হবে।
      ধর্ম নিয়ে কথা বললে আপনাদের এতো চুলকাই যে কোনো খাওজানির ঔষুধও কামে আসে না। আর আপনারা ধর্মরে ব্যাবহার করেন সবচেয়ে সস্তাভাবে। মুসলিমের ক্যাটাগরি যদি হয় আপনার মতো তাইলে তাইলে সিউর থাকেন আমি আপনাদের মুখে ছাগল দিয়া মুতামু

      1. (No subject)
        :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে:
        :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি:

    1. কোন ঠ্যাং? ওদের আবার ৩য় পাই
      কোন ঠ্যাং? ওদের আবার ৩য় পাই বেশী শক্ত…
      :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে:
      :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি: :হাসি:

  14. শামীমা আপুর পুরা পোষ্ট এবং
    শামীমা আপুর পুরা পোষ্ট এবং পোষ্টের সব মন্তব্য গুলো মনোযোগ দিয়ে পড়লাম। উচ্চ চিন্তা ধারার মানুষের সমাগম এখানে ঘটেছে, তাই ভাল লাগল। নতুন কিছু শিখলামও। আমি এখানে এসেছি শেখার জন্য। সত্য স্বীকারে আমি আপোসহীন। অহেতুক সংস্কার আর ফালতু নিয়মনীতির ধার ধারতে আমি পছন্দ করি না। I am confirm about that আমি এখানকার সবার অনেক অনেক জুনিয়র। তারপরেও একটা মন্তব্য আমি আমার জায়গা থেকে করার প্রয়োজনবোধ করছি।

    তারেক লিকংন ভাইয়া, সফিক এহসান ভাইয়া, গোলাম সরোয়ার ভাইয়া, জলকপোতসহ আরও অনেকের মন্তব্য এবং শামীমা/মিতা আপুর প্রতিমন্তব্য পড়ার পরে যেটা বলতে চাচ্ছি- আপনারা সবাই বেশ ভাল মন্তব্য করেছেন। কিন্তু শামীমা/মিতা আপুর অধিকাংশ প্রতিমন্তব্যই কটুক্তির+প্রবল বিরক্তির সাথে-Not like that. Not like that.. যেন মনে হল আপনার কাছে ওদের কোন ভ্যালুই নেই। what is this??? মানুষকে এইভাবে মুল্যয়ন করলে আপনার কাছ থেকে আমি কি শিখব????? আপাতত জলকপোতের প্রথম মন্তব্যের প্রতিমন্তব্যটি(শামীমা আপুর) আমি আশা করেছিলাম বেশ যুক্তিনির্ভর & তথ্যপূর্ণ হবে। বাট…..?
    সফিক এহসান ভাইয়া & জলকপোত যেসব কথা বলেছেন, সে তো এদেশের সিংহভাগ হৃদয়ের কথা। আপনি এদেরকে বাদ দিয়ে কোন সমাজ পরিবর্তিনের কথা ভাবছেন? রবিন্দ্রনাথের একটা বাণী মনে পড়ে গেল, May be এইরকম “আপনি যাকে পেছনে ফেলে এগিয়ে যাচ্ছেন, সে আপনাকে পিছুন থেকে টানছে”। তাই এদেরকে বাদ দিয়ে তেমন কিছু আপনি করতে পারবেন। আপনার যদি সত্যই রাইট ওয়েতে থেকেই থাকেন & এগুতে যদি চান, তাহলে এদেরকে নিয়েই এগুতে হবে। সুতরাং প্রতিমন্তব্যে বিরক্তির সাথে দুইলাইন ঝেড়ে দিলেই আপনার কাজ শেষ হয়ে গেল না। চাই পরিপুর্ণ ব্যাখ্যা। চাই আমার মত সীমীত জ্ঞান নিয়ে, কৌতুহলী মন নিয়ে, জানার পিপাসা নিয়ে এখানে যারা আসে- তারা যেন আসলেই সঠিকটিকে বেছে নিতে পারে। আপনি হয়ত লজিক নিয়ে চলেন, অনেকে লজিকের বাইরে চলেন আবার অনেকে তার অন্ধ বিশ্বাস নিয়েই মানুসিক শান্তি অনুভব করেন। তাই বলে ব্যাপারটা কোনভাবেই এই রকম হতে পারে না যে, সবসময় এদের মধ্যে অপ্রিয় কথা চালাচালি হবে & মারামারি হবে। এটা আমি মানতে পারি না।

    সফিক এহসান ভাইয়া, গোলাম সরোয়ার ভাইয়া এবং তারেক লিংকন ভাইয়া শান্তভাবে একজন আরেকজনকে বেশ ভাল বলেছেন। শামীমা আপুর কথা তো এতক্ষণ বললামই। নাভিদ কয়সার রায়ান ভাইয়া সত্যিই জ্ঞান গরিমা ফলানোর অপচেষ্টা করেছেন। আর বাকিরা জ্ঞানের থলিটা ভুল করে বাড়িতে রেখে এখানে এসেছিলেন। তার মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য “অবাস্তব স্বপ্নচারী”। উনাকে ভাইয়া বলব না আপু বলব কিছু তো বুঝতে পারছি না। তবে উনি মাঝ মধ্য এসে “মামুর জয়” বলেছেন। তার ভান্ডার সম্পর্কে আমি অজ্ঞাত।
    সবাইকে ভাল থাকার শুভকামনা রইল। I am here.

  15. শামীমা আপুর পুরা পোষ্ট এবং
    শামীমা আপুর পুরা পোষ্ট এবং পোষ্টের সব মন্তব্য গুলো মনোযোগ দিয়ে পড়লাম। উচ্চ চিন্তা ধারার মানুষের সমাগম এখানে ঘটেছে, তাই ভাল লাগল। নতুন কিছু শিখলামও। আমি এখানে এসেছি শেখার জন্য। সত্য স্বীকারে আমি আপোসহীন। অহেতুক সংস্কার আর ফালতু নিয়মনীতির ধার ধারতে আমি পছন্দ করি না। I am confirm about that আমি এখানকার সবার অনেক অনেক জুনিয়র। তারপরেও একটা মন্তব্য আমি আমার জায়গা থেকে করার প্রয়োজনবোধ করছি।

    তারেক লিকংন ভাইয়া, সফিক এহসান ভাইয়া, গোলাম সরোয়ার ভাইয়া, জলকপোতসহ আরও অনেকের মন্তব্য এবং শামীমা/মিতা আপুর প্রতিমন্তব্য পড়ার পরে যেটা বলতে চাচ্ছি- আপনারা সবাই বেশ ভাল মন্তব্য করেছেন। কিন্তু শামীমা/মিতা আপুর অধিকাংশ প্রতিমন্তব্যই কটুক্তির+প্রবল বিরক্তির সাথে-Not like that. Not like that.. যেন মনে হল আপনার কাছে ওদের কোন ভ্যালুই নেই। what is this??? মানুষকে এইভাবে মুল্যয়ন করলে আপনার কাছ থেকে আমি কি শিখব????? আপাতত জলকপোতের প্রথম মন্তব্যের প্রতিমন্তব্যটি(শামীমা আপুর) আমি আশা করেছিলাম বেশ যুক্তিনির্ভর & তথ্যপূর্ণ হবে। বাট…..?
    সফিক এহসান ভাইয়া & জলকপোত যেসব কথা বলেছেন, সে তো এদেশের সিংহভাগ হৃদয়ের কথা। আপনি এদেরকে বাদ দিয়ে কোন সমাজ পরিবর্তিনের কথা ভাবছেন? রবিন্দ্রনাথের একটা বাণী মনে পড়ে গেল, May be এইরকম “আপনি যাকে পেছনে ফেলে এগিয়ে যাচ্ছেন, সে আপনাকে পিছুন থেকে টানছে”। তাই এদেরকে বাদ দিয়ে তেমন কিছু আপনি করতে পারবেন। আপনার যদি সত্যই রাইট ওয়েতে থেকেই থাকেন & এগুতে যদি চান, তাহলে এদেরকে নিয়েই এগুতে হবে। সুতরাং প্রতিমন্তব্যে বিরক্তির সাথে দুইলাইন ঝেড়ে দিলেই আপনার কাজ শেষ হয়ে গেল না। চাই পরিপুর্ণ ব্যাখ্যা। চাই আমার মত সীমীত জ্ঞান নিয়ে, কৌতুহলী মন নিয়ে, জানার পিপাসা নিয়ে এখানে যারা আসে- তারা যেন আসলেই সঠিকটিকে বেছে নিতে পারে। আপনি হয়ত লজিক নিয়ে চলেন, অনেকে লজিকের বাইরে চলেন আবার অনেকে তার অন্ধ বিশ্বাস নিয়েই মানুসিক শান্তি অনুভব করেন। তাই বলে ব্যাপারটা কোনভাবেই এই রকম হতে পারে না যে, সবসময় এদের মধ্যে অপ্রিয় কথা চালাচালি হবে & মারামারি হবে। এটা আমি মানতে পারি না।

    সফিক এহসান ভাইয়া, গোলাম সরোয়ার ভাইয়া এবং তারেক লিংকন ভাইয়া শান্তভাবে একজন আরেকজনকে বেশ ভাল বলেছেন। শামীমা আপুর কথা তো এতক্ষণ বললামই। নাভিদ কয়সার রায়ান ভাইয়া সত্যিই জ্ঞান গরিমা ফলানোর অপচেষ্টা করেছেন। আর বাকিরা জ্ঞানের থলিটা ভুল করে বাড়িতে রেখে এখানে এসেছিলেন। তার মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য “অবাস্তব স্বপ্নচারী”। উনাকে ভাইয়া বলব না আপু বলব কিছু তো বুঝতে পারছি না। তবে উনি মাঝ মধ্য এসে “মামুর জয়” বলেছেন। তার ভান্ডার সম্পর্কে আমি অজ্ঞাত।
    সবাইকে ভাল থাকার শুভকামনা রইল। I am here.

  16. শামীমা আপুর পুরা পোষ্ট এবং
    শামীমা আপুর পুরা পোষ্ট এবং পোষ্টের সব মন্তব্য গুলো মনোযোগ দিয়ে পড়লাম। উচ্চ চিন্তা ধারার মানুষের সমাগম এখানে ঘটেছে, তাই ভাল লাগল। নতুন কিছু শিখলামও। আমি এখানে এসেছি শেখার জন্য। সত্য স্বীকারে আমি আপোসহীন। অহেতুক সংস্কার আর ফালতু নিয়মনীতির ধার ধারতে আমি পছন্দ করি না। I am confirm about that আমি এখানকার সবার অনেক অনেক জুনিয়র। তারপরেও একটা মন্তব্য আমি আমার জায়গা থেকে করার প্রয়োজনবোধ করছি।

    তারেক লিকংন ভাইয়া, সফিক এহসান ভাইয়া, গোলাম সরোয়ার ভাইয়া, জলকপোতসহ আরও অনেকের মন্তব্য এবং শামীমা/মিতা আপুর প্রতিমন্তব্য পড়ার পরে যেটা বলতে চাচ্ছি- আপনারা সবাই বেশ ভাল মন্তব্য করেছেন। কিন্তু শামীমা/মিতা আপুর অধিকাংশ প্রতিমন্তব্যই কটুক্তির+প্রবল বিরক্তির সাথে-Not like that. Not like that.. যেন মনে হল আপনার কাছে ওদের কোন ভ্যালুই নেই। what is this??? মানুষকে এইভাবে মুল্যয়ন করলে আপনার কাছ থেকে আমি কি শিখব????? আপাতত জলকপোতের প্রথম মন্তব্যের প্রতিমন্তব্যটি(শামীমা আপুর) আমি আশা করেছিলাম বেশ যুক্তিনির্ভর & তথ্যপূর্ণ হবে। বাট…..?
    সফিক এহসান ভাইয়া & জলকপোত যেসব কথা বলেছেন, সে তো এদেশের সিংহভাগ হৃদয়ের কথা। আপনি এদেরকে বাদ দিয়ে কোন সমাজ পরিবর্তিনের কথা ভাবছেন? রবিন্দ্রনাথের একটা বাণী মনে পড়ে গেল, May be এইরকম “আপনি যাকে পেছনে ফেলে এগিয়ে যাচ্ছেন, সে আপনাকে পিছুন থেকে টানছে”। তাই এদেরকে বাদ দিয়ে তেমন কিছু আপনি করতে পারবেন না। আপনি যদি সত্যিই রাইট ওয়েতে থেকেই থাকেন & এগিয়ে যেতে যদি চান, তাহলে এদেরকে নিয়েই এগিয়ে যেতে হবে। সুতরাং প্রতিমন্তব্যে বিরক্তির সাথে দুইলাইন ঝেড়ে দিলেই আপনার কাজ শেষ হয়ে গেল না। চাই পরিপুর্ণ ব্যাখ্যা। চাই আমার মত সীমীত জ্ঞান নিয়ে, কৌতুহলী মন নিয়ে, জানার পিপাসা নিয়ে এখানে যারা আসে- তারা যেন আসলেই সঠিকটিকে বেছে নিতে পারে। আপনি হয়ত লজিক নিয়ে চলেন, অনেকে লজিকের বাইরে চলেন আবার অনেকে তার অন্ধ বিশ্বাস নিয়েই মানুসিক শান্তি অনুভব করেন। তাই বলে ব্যাপারটা কোনভাবেই এই রকম হতে পারে না যে, সবসময় এদের মধ্যে অপ্রিয় কথা চালাচালি হবে & মারামারি হবে। এটা আমি মানতে পারি না।

    সফিক এহসান ভাইয়া, গোলাম সরোয়ার ভাইয়া এবং তারেক লিংকন ভাইয়া শান্তভাবে একজন আরেকজনকে বেশ ভাল বলেছেন। শামীমা আপুর কথা তো এতক্ষণ বললামই। নাভিদ কয়সার রায়ান ভাইয়া সত্যিই জ্ঞান গরিমা ফলানোর অপচেষ্টা করেছেন। আর বাকিরা জ্ঞানের থলিটা ভুল করে বাড়িতে রেখে এখানে এসেছিলেন। তার মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য “অবাস্তব স্বপ্নচারী”। উনাকে ভাইয়া বলব না আপু বলব কিছু তো বুঝতে পারছি না। তবে উনি মাঝ মধ্য এসে “মামুর জয়” বলেছেন। তার ভান্ডার সম্পর্কে আমি অজ্ঞাত।
    সবাইকে ভাল থাকার শুভকামনা রইল। I am here.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *