“স্বপ্ন” – (কবিতা দিয়ে শুরু হলো উপন্যাস দিয়ে শেষ হবে)

কখনও ভেবেছি সকাল হয়ে,
তোমার ঘুম ভাঙাব।
তোমার সকালে আমি হবো,
সকাল বেলার পাখি।
কখনও বা সূর্য হয়ে-
কনকনে শীতে দিতে চেয়েছি একটু উত্তাপ,
কখনও বা ফুল হয়ে,
রঙিন হতে চেয়েছি তোমার ঐ দুটি চোখে।



কখনও ভেবেছি সকাল হয়ে,
তোমার ঘুম ভাঙাব।
তোমার সকালে আমি হবো,
সকাল বেলার পাখি।
কখনও বা সূর্য হয়ে-
কনকনে শীতে দিতে চেয়েছি একটু উত্তাপ,
কখনও বা ফুল হয়ে,
রঙিন হতে চেয়েছি তোমার ঐ দুটি চোখে।
কখনও বা সুর হয়ে ছুয়ে যেতে চেয়েছি
তোমার হৃদয়।
কখনও কবি-গায়ক হয়ে,
ছন্দ ও সুর দিয়ে কখনও বা-
সাদা কাগজে রঙিন আচড়ে
তোমার প্রতিচ্ছবি এঁকে
হতে চেয়েছি কবি গায়ক অথবা
শ্রেষ্ঠ কোন চিত্রশিল্পী।
কখনও বা দখিনা বাতাস হয়ে
গ্রীষ্মের অসহ্য গরমে-
শীতল করতে চেয়েছি তোমাকে।
কখনও বা রুমাল হয়ে
ঘামের মতো মুছে দিতে চেয়েছি তোমার কষ্টগুলো।
কখনও বা-
চাঁদের আলোর মত-
পৃথিবীতে ছড়িয়ে দিতে চেয়েছি তোমার হাসিগুলো।
কখনও মেঘ হয়ে, তোমাকে ছায়া দিতে
কখনও বৃষ্টি হয়ে তোমাকে স্নান করাতে,
কখনও কাজল হয়ে চেয়েছি,
তোমার চোখদু’টোকে স্বপ্নময় করতে।
কখনও প্রেমিক হয়ে কাছে এসেছি,
তোমার মনকে রাঙাতে।
কখনও বা চেয়েছি পুতুল হয়ে
তোমার খেলার সাথী হতে।
কখনও বা-
ঘুম পাড়ানির মাসী হয়ে, তোমাকে ঘুম পাড়াতে,
কখনও শত অপবাদ গায়ে মেখেছি,
শুধু তোমায় হাসাতে।
কখনও তোমার পায়ে আলতা দিয়েছি,
হৃদয় নিংড়ানো রক্ততে।
কখনও বা রিনিঝিনি নূপুর হয়ে তোমার পায়ে ঠাই নিয়েছি,
কখনও বা- কাকন হয়ে তোমার ঐ দু’টি হাতে।
কখনও হতে চেয়েছি চাঁদ-
জোৎস্না রাতে তারা গুণতে তুমি বাইরে আসবে বলে।
কখনও কাঁদামাখা পথ, তুমি নগ্নপদে হেটে যাবে বলে।
কিন্তু, কখনও ভাবিনি ….
আমি তোমাকে যতোটা………….
তুমি কি ততোটা আমাকে…………? ?? ???

২৪ thoughts on ““স্বপ্ন” – (কবিতা দিয়ে শুরু হলো উপন্যাস দিয়ে শেষ হবে)

  1. শুরুটা চমকপ্রদ… অনেক ভাল!!
    শুরুটা চমকপ্রদ… অনেক ভাল!! :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ:
    লিখতে থাকেন! কবিতা লিখতে সাহস লাগে আর আপনি শুরুতেই বাজিমাত… :bow: :bow: :bow:

    ঘামের মতো মুছে দিতে চেয়েছি তোমার কষ্টগুলো।
    কখনও বা-
    চাঁদের আলোর মত-
    পৃথিবীতে ছড়িয়ে দিতে চেয়েছি তোমার হাসিগুলো।

    —দারুণ কাব্যিক…

    1. ভাই ধন্যবাদ। এটা আমার ১৯৯৮-৯৯
      ভাই ধন্যবাদ। এটা আমার ১৯৯৮-৯৯ সালের দিকে লিখা কতগুলো কবিতার মধ্যে একটা। পুরোনো দিয়েই শুরু করলাম। একটা উপন্যাসও লিখেছিলাম তৎকালে। সেটাও দেয়ার আশা রাখি। শুধু আপনাদের সম্মতি পেলে।

      1. লিখক সম্মতিতে লিখে
        লিখক সম্মতিতে লিখে নাকি?
        আপনার ভাল লাগ্লেই পোস্ট দিবেন! পড়ব আমরা…
        সমালোচনার দায়িত্ব আমাদের!! ভাল লাগবে আশা করি!!

    1. যখন সাধুভাষায় পোস্ট পরিতে
      যখন সাধুভাষায় পোস্ট পরিতে থাকিবে, তখন দয়া করিয়া পড়িয়া মতামত ব্যক্ত করিবেন আশা রাখি। এক্ষণে ব্লগে শৈশবকাল চলিতেছে। কৈশোরেই সাধুভাষার ব্যাপক প্রচলন শুরু করিয়া দিব। আধুনিক পদ্যখানি পড়িবার নিমিত্তে আপনাকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করিলাম।

  2. উপমাগুলো ভালো হয়েছে। যারা
    উপমাগুলো ভালো হয়েছে। যারা লিখতে ইচ্ছুক আমার মনে হয় নিজের ভালো লাগা থেকেই লিখা উচিৎ। প্রশংসা আসবে, সমালোচনা আসবে এটাই স্বাভাবিক। অনেকেই সমালোচনা হজম করতে পারেন না। কিন্তু গঠনমূলক সমালোচনা একজন লেখককে পরিপক্ক হতে সাহায্য করে।

  3. চিত্রকল্প গুলো ভালো লেগেছে ।
    চিত্রকল্প গুলো ভালো লেগেছে । তবে কবিতার ধাঁচ টার ভেতরে একটা পুরনো পুরনো ব্যাপার আছে । যেমন রবীন্দ্রনাথের কালে তিরিশের আধুনিক কবিরা রবীন্দ্র কাব্যে সেকেলেভাব খুঁজে পেতেন ।
    আপনার কবিতা পড়ে মনে হয়েছে আপনার ভেতরে উপমা, চিত্রকল্প ভাবনা আছে কিন্তু আধুনিকতার বড্ড অভাব । কিছুটা ছেলেমানুষি ও আবেগ ও আছে মনে হল । তবে কাব্য মন যেহেতু আছে অন্যগুলো কাটিয়ে ওঠা কঠিন হবেনা বলে মনে করি ।

    1. ভাইয়া আমি আগেই বলেছি এটা
      ভাইয়া আমি আগেই বলেছি এটা ৯৮-৯৯ এর দিকের আমার প্রথম জীবনের কিছু আবেগ নিয়ে লেখা | কিছু পুরোনো ভাব থাকবেই | দোয়া করবেন যেন ভালো করতে পারি

  4. উপমার ব্যবহারগুলোই কবিতাটাকে
    উপমার ব্যবহারগুলোই কবিতাটাকে অনবদ্য করেছে। সবাই এরকম উপমা ব্যবহার করতে পারেনা। ভাল লাগল। চালিয়ে যান।

    স্বাগতম ইস্টিশনে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *