“হায়! থাকতো যদি একটা লম্বা পাঞ্জাবি, আমিও খ্যতি পেতাম মহাপন্ডিতের”

বাঙালি জাতী কতবড় অভাগা তা শুধুমাত্র শফি সাহেবের ১০ মিনিটের একটা বক্তব্য শুনলে বুঝা যায়। শুধুমাত্র একজন ব্যক্তির জন্য কেন বললাম, তার কারন হল সাম্প্রতিক সময়ে তার নেতৃত্বে আমরা দেখলাম লাখ লাখ মানুষ সমাবেত হয়েছে। তার কোথায় অনেকে আগুনে পানিতে ঝাপ দিতে প্রস্তুত এমনকি জীবন দিতেও পারবে। যখন এতো মানুষ তার জন্য পাগল তখন প্রশ্ন জাগে ঐ ব্যাক্তির আচার-আচরন-রুচি-সংস্কৃতি-ইচ্ছা-অনিচ্ছা-পছন্দ-অপছন্দ কেমন? আমরা অনেকেই শফির সম্বন্ধে অজ্ঞ ছিলাম সাম্প্রতিক সময়ের দাঙ্গা হাঙ্গামার চিত্র দেখে কিছুটা আঁচ করা গিয়েছিলো, কিন্তু তার কোন ওয়াজ শুনা হয়নি। এখন তার ১০ মিনিটের একটা ভিডিও প্রচার হচ্ছে, তার কিছু কথা শুনলে শফি সাহেবের সম্পর্কে অনেক ধারনা নেওয়া যাবে। সবচেয়ে গুরুত্বপুর্ন হল তার “তেঁতুল তত্ত্ব” সে বলছে নারীদের দেখলেই নাকি সকল পুরুষের বুকে লালা জমা হয়। চিন্তা করুন একবার তার মানসিকতা কত নিছে,কত বড় ভণ্ড-কুরুচির মানুষ হলে এই কথা বলতে পারে। সমাজে নারী-পুরুষের মাঝে আভেগ-অনুভূতি-প্রেম-ভালিবাসা তো থাকবেই এটা স্বাভাবিক, তার জন্যে যাকে দেখবে তাকেই……! নারী কে সে তো আমাদের মা-বোন-সহকর্মী-প্রিয়জন।
আরেকটা কথা বলেছেন যে, গার্মেন্টসের মেয়েরা নাকি কাজ বাদ দিয়ে পরপুরুষের সাথে মেলামেশা করে টাকা রোজগার করে তাঁরা যদি কাজ না করতো এই দেশ তো অচল হয়ে থাকতো,টুপি পাঞ্জাবি বাজারে পাওয়া যাইত না। একটা হিসাব দেই,বাংলাদেশের রপ্তানি আয়ের প্রধান উৎস তৈরি পোশাক শিল্প এ খাত থেকে ২০১২-১৩ অর্থবছরে মোট রপ্তানি আয়ের প্রায় ২১ বিলিয়ন ডলার (১লক্ষ ৬৮ হাজার কোটি টাকা) এই গার্মেন্টস শ্রমিকদের মধ্যে ৮০ ভাগই নারী শ্রমিক । অর্থাৎ রপ্তানি আয়ের ১৭ বিলিয়ন ডলার উৎপাদিত হচ্ছে এই নারীদের হাত ধরে।শুধু গার্মেন্টস শিল্পে নয় বাংলাদেশের এখন প্রত্যেকটা বিভাগে নারীদের অংশগ্রহণ রয়েছে, আইনজীবী, প্রকৌশলী, ডাক্তার, আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীতেও নারীদের অংশগ্রহণ আছে, ক্রিকেট খেলা থেকে শুরু করে এভারেস্ট পর্যন্ত জয় করেছে বাংলাদেশের নারী। তাই নারীদের অবদান সমাজের প্রত্যেকের উপর পরে। শফি সাহেবরা নারীদের শিক্ষিত করতে চায় না নারীদের ঘরে আটকে রাখতে চায়, তাঁরা মনে করে নারী শুধু ভোগের পণ্য, সন্তান উৎপাদনের যন্ত্র।
শফি সাহেব বাংলাদেশ কাওমি মাদ্রাসা বোর্ডের চেয়ারম্যান ভাবতে অবাক লাগে এইরকম ভণ্ড লোকের যদি এতো জনপ্রিয় হয়, তাহলে সমাজের জ্ঞানী-গুনি-বুদ্ধিজিবীরা কি করে? হুমায়ুন আজাদ স্যার বলেছেন “হায়! থাকতো যদি একটা লম্বা পাঞ্জাবি, আমিও খ্যতি পেতাম মহাপন্ডিতের”
শুধুমাত্র শফির কথা বললে হবে না ভাবতে হবে শফিরা কোন আদর্শে-জ্ঞানে-ইতিহাস-দর্শনে দীক্ষিত?তাঁরা এক বইয়ের পাঠক। এই সংকট যদি কেটে না উঠাতে পারি তাহলে তৈরি হবে লাখ লাখ-কোটি কোটি শফি বাহিনী,তখন আর বাঁচানো যাবেনা এই সমাজ কে, মৌলবাদের আঘাতে এই সমাজ ধ্বংস হয়ে যাবে।
তাই সবার জায়গা থেকে চেষ্টা করুন এই ভণ্ডদের মুখোশ উন্মোচন করুন, সবাই কে সতর্ক করুণ।

১৭ thoughts on ““হায়! থাকতো যদি একটা লম্বা পাঞ্জাবি, আমিও খ্যতি পেতাম মহাপন্ডিতের”

  1. যার চিন্তাধারার দৌড় যে
    যার চিন্তাধারার দৌড় যে পর্যন্ত, সে তো তার চেয়ে বেশী চিন্তা করতে পারবে না। শফি সাহেবেরও ঠিক একই অবস্থা। দুঃখজনক

  2. সবচেয়ে নিকৃষ্ট গালি যেটা সেটা
    সবচেয়ে নিকৃষ্ট গালি যেটা সেটা ওই শফির জন্য প্রযোজ্য।

    শফি সাহেব বাংলাদেশ কাওমি মাদ্রাসা বোর্ডের চেয়ারম্যান ভাবতে অবাক লাগে

    অবাক হওয়ার কি আছে? মাদ্রাসা শিক্ষা ব্যবস্থা যেমন তার প্রধানও তেমনি হবে।

  3. মোল্লার দৌড় মসজিদ বাড়ি…
    মোল্লার দৌড় মসজিদ বাড়ি… :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে:
    আসলেই হু আজাদ স্যারের কথায় সত্য “হায়! থাকতো যদি একটা লম্বা পাঞ্জাবি, আমিও খ্যতি পেতাম মহাপন্ডিতের”!! :ভাবতেছি: :ভাবতেছি: :ভাবতেছি:
    চমৎকার পর্যবেক্ষণ!! লিখতে থাকুন… :থাম্বসআপ:

  4. ধর্ম নিয়ে ব্যবসা এই উপমহাদেশে
    ধর্ম নিয়ে ব্যবসা এই উপমহাদেশে খুবই জনপ্রিয়। বলিউডের Oh my God মুভিটা দেখলে পরিষ্কার একটা ধারণা পাওয়া যায়।

  5. ইস যদি বুড়ারে একটা এইডস
    ইস যদি বুড়ারে একটা এইডস ইঞ্জেকশন দিয়া দিবার পারতাম ভুলভাল বুঝায়ে……কোথাকার লালা কোথায় গ​ড়ায় হাড়ে হাড়ে টের পাইতো।

    1. পাপী শফির
      :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে:
      😀 😀 😀 😀 😀 😀 😀 😀
      পাপী শফির :টাইমশ্যাষ: :টাইমশ্যাষ: :টাইমশ্যাষ: :টাইমশ্যাষ: :টাইমশ্যাষ:

  6. কিছু পরিসংখান সহ লিখেছেন ।
    কিছু পরিসংখান সহ লিখেছেন । ভালো লেখা ।
    ভিডিও টি ১০ মিনিটের না । ২৫মিনিট ৩২ সেকেন্ডের ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *