ফেসবুক ও কিছু তপ্তবাক্য

যেকোনো কথায়ই কিছু মহান সমালোচকদের দেখা যায়, যারা খুব সুন্দর ভাবে ইঙ্গিতে বলে দ্যান, “ছি! আপনার রুচি এত্ত পঁচা!” আর সেখানে কিছু লোকের সমর্থনসূচক এবং আমার মতবাদে দ্বিমত পোষণকারী ব্যক্তিদের ‘লাইক’ টিপতে দেখা যায়।
ফেইসবুকে কত সমালোচক আছে, তা ত দেখিই! একটা ফাইজলামি মার্কা স্ট্যাটাস দিলাম, লাইক কমেন্টের বন্যা ঝরে গ্যালো। আর সিরিয়াস্লি কিছু লিখলাম (গল্প/কবিতা), কেউ কেউ লাইক মেরে গ্যালো। নো কমেন্টস! বা কম কমেন্টস। অথচ কমেন্টটাই বেশি চাই। লাইক দিয়া কীত্তাম?

যেকোনো কথায়ই কিছু মহান সমালোচকদের দেখা যায়, যারা খুব সুন্দর ভাবে ইঙ্গিতে বলে দ্যান, “ছি! আপনার রুচি এত্ত পঁচা!” আর সেখানে কিছু লোকের সমর্থনসূচক এবং আমার মতবাদে দ্বিমত পোষণকারী ব্যক্তিদের ‘লাইক’ টিপতে দেখা যায়।
ফেইসবুকে কত সমালোচক আছে, তা ত দেখিই! একটা ফাইজলামি মার্কা স্ট্যাটাস দিলাম, লাইক কমেন্টের বন্যা ঝরে গ্যালো। আর সিরিয়াস্লি কিছু লিখলাম (গল্প/কবিতা), কেউ কেউ লাইক মেরে গ্যালো। নো কমেন্টস! বা কম কমেন্টস। অথচ কমেন্টটাই বেশি চাই। লাইক দিয়া কীত্তাম?
সেইদিন একটা ‘গল্পচেষ্টা’ লিখেছিলাম। ফেসবুকে কয়েকজন আহা উঁহু করলো। শেষ। কিন্তু ভালো মন্তব্য নাই। ইশটিসন ব্লগে পোস্ট করেই ভাল কমেন্ট পেলাম। গল্পের ত্রুটি গুলো ঠিক করলাম। গল্পের চরিত্রের নাম আদৃতা থেকে কয়েক জায়গায় আদৃকা হয়ে গেছিলো, সেটা ফেবুতে ৭৭ জন লাইক মেরে গেলেও কারো চোখে পড়েনি!
এখন মহান সমালোচনার প্রসঙ্গে বলি, মহান মতবাদ দিলাম, “সুন্দরী মেয়েরা রিকুয়েস্ট না পাঠিয়ে ফলো করলে বা রিকুয়েস্ট পাঠিয়েও ‘ভাই’ বানিয়ে ফেললে চরম কষ্ট লাগে!” ধরি, স্ট্যাটাসে ৬০টা লাইক পাওয়া গেলো
। আর সেখানে এক জনের কমেন্ট, “আল্লাহ! তোকে মেয়েরা রিকুয়েস্ট ও পাঠায়! 😮 কী বলিস!”
এই কমেন্টে ১৫ জন লাইক দিলো। খোঁচা পূর্ণ কমেন্টে লাইক দেওয়ার জন্য কয়েক জন কে আনফ্রেন্ড করলাম।
বিশিষ্ট মহিলা বুদ্ধিজীবী (যিনি কেক খেয়ে স্ট্যাটাস দিলেও ১০০ লাইক পড়ে) বলেছেন, তোমার মতের সাথে মত মিলেনি, তাই হয়ত লাইক দিয়েছে!
আমাকে এখন কেউ বুঝান, এইখানে মতটা কী ছিলো? পঁচাইছে দেইখ্যা লাইক দিছে! ভাই, এটা কি প্রুভ করে না যে তুমি আমাকে অপমানিত হতে দেখলে মজা পাও?! তাইলে তোমাকে আমি লিস্টে রাখবো ক্যান? যাও কেক খাওয়ার স্ট্যাটাসে লাইক মারো।
আমি সিরিয়াস। :|নো চুদুরভুদুর ইন ফ্রন্ট অফ মি। ভাল না লাগলে থাকবা ক্যান?

৮ thoughts on “ফেসবুক ও কিছু তপ্তবাক্য

  1. ফেসবুকটা আগের মতো নেই। আর
    ফেসবুকটা আগের মতো নেই। আর পাবলিকও এখন আর ভালো জিনিস খেতে চায় না। যেগুলো অখাদ্য সেগুলো’ই পাবলিক বেশী পছন্দ করে ফেসবুকে এখন। এগুলোর প্রতিবাদ করতে গেলেই ট্যাগ খেতে হয়। আপনাকে পেয়ে খুব ভালো লাগছে মুহিদ দা। মনে হচ্ছে আপন কাউকে পেলাম। ইশ্টিশনে নতুন। নিয়মকানুন ঠিকমত জানি না। সাহায্য কইরেন।

  2. বুঝা গেল ব্লগে ফেসবুকার আসছে।
    বুঝা গেল ব্লগে ফেসবুকার আসছে। অবশ্য ব্লগের গুরুগাম্ভীর্যে এক চিলতে জুকারবার্গ মন্দ ন​য়। কিন্তু আরেকটু বর্ননাধর্মী, কাহিনীধর্মী, তথ্যপূর্ন পোস্ট দিলে ভাল হত তাই ন​য় কি?

  3. ব্লগের সাথে ফেসবুকের অনেক
    ব্লগের সাথে ফেসবুকের অনেক পার্থক্য বিদ্যমান ।আর খোঁচাপূর্ণ কমেন্টে ফেসবুকের স্ট্যাটাসগুলো সবসময় পরিপূর্ণ থাকে

  4. ভাই তাদের খোচা পূর্ন স্টাটাস
    ভাই তাদের খোচা পূর্ন স্টাটাস তো মজা করেই তাই নয় কি?

    আর এটা বর্তমান যুগের নিয়ম অন্যকে অপমান হতে দেখিলে এখন মানুষ বেশি খুশি হয় .।

    হ্যা ফেসবুক এ এখন কমেন্ট খুব কম করে ! যদি আমাদের কাছে কমেন্ট টা বেশি কাম্য

  5. এখানেই ব্লগ আর ফেসবুকের
    এখানেই ব্লগ আর ফেসবুকের পার্থক্য। ফেসবুককে আমার কাছে ক্ষনিকের কিছু অসুস্থ্য বিনোদন পাওয়ার জায়গা ছাড়া আর কিছুই মনে হয় না।

  6. ফেইস বুক এবং ব্লগের মধ্যে
    ফেইস বুক এবং ব্লগের মধ্যে গুণগত ও পরিমানগত পার্থক্য বিদ্দমান । ইহা আমাদিগকে বুঝিতে হইবে ।
    আরও তথ্যপূর্ণ এবং গুরুত্বপূর্ণ লেখার আশায় রহিলাম …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *