কোটা ও কৌটা ধেত্তেরি মেধা আআআ

মুক্তি যোদ্ধারা জাতীর শ্রেষ্ঠ প্রাপ্তি এ বিষয়ে কোন সন্দেহ থাকলে তার অবশ্যই দেশ ত্যাগ করা উত্তম।
আমার দেওয়া অক্সিজেন নিবি আবার আমাকেই উপড়ে দিবি এমন প্রবনতা শুধু নিজেরই অকল্যান বয়ে আনবে।
মুক্তিযুদ্ধ সংঘটিত হয়েছিল আজ থেকে চার যুগ আগে তখনকার একজন শিশু মুক্তি যোদ্ধার বয়স যদি দশ ধরি তার বর্তমান বয়স বায়ান্ন ছাড়িয়েছে।নিশ্চয় তার সন্তানের বয়স আটাশ হয়ে গেছে।

আর কয় দিন পর বিলুপ্ত হয়ে যাবে তাদের সকল সুযোগ সুবিধা।
মুক্তিযোদ্ধারা অনেকেই ভবলীলা সাঙ্গ করেছেন অনেকেই যায় যাব করছেন।
এখানেই সমাপ্তি হবে
মুক্তিযোদ্ধাদের বিশেষ সুবিধাবলী।

মুক্তি যোদ্ধারা জাতীর শ্রেষ্ঠ প্রাপ্তি এ বিষয়ে কোন সন্দেহ থাকলে তার অবশ্যই দেশ ত্যাগ করা উত্তম।
আমার দেওয়া অক্সিজেন নিবি আবার আমাকেই উপড়ে দিবি এমন প্রবনতা শুধু নিজেরই অকল্যান বয়ে আনবে।
মুক্তিযুদ্ধ সংঘটিত হয়েছিল আজ থেকে চার যুগ আগে তখনকার একজন শিশু মুক্তি যোদ্ধার বয়স যদি দশ ধরি তার বর্তমান বয়স বায়ান্ন ছাড়িয়েছে।নিশ্চয় তার সন্তানের বয়স আটাশ হয়ে গেছে।

আর কয় দিন পর বিলুপ্ত হয়ে যাবে তাদের সকল সুযোগ সুবিধা।
মুক্তিযোদ্ধারা অনেকেই ভবলীলা সাঙ্গ করেছেন অনেকেই যায় যাব করছেন।
এখানেই সমাপ্তি হবে
মুক্তিযোদ্ধাদের বিশেষ সুবিধাবলী।
প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম যেমন মুক্তিযুদ্ধের ফল ভোগ করবে তেমনি যোদ্ধাদের সন্তানরা ও।
এখানে বলে রাখা দরকার গোবরে পদ্ম ফোঁটা স্বাভাবিক নয়।কিন্তু পদ্মে গোবর নানা কারনে চলে আসতে পারে।
বাবা মুক্তিযুদ্ধ করেছে সন্তান সে জন্যে কৌটা পাবে এটা অস্বাভাবিক নয়।
কিন্তু দেখতে হবে সে কতটা যোগ্য।তার চেয়ে যোগ্য কেউ আছে কিনা।হতে পারে যে লোকটা কৌটা ভুক্ত হয়নি সে ভবিষ্যত কোন যুদ্ধ জয়ের নেতৃত্ব দিবে।
আমাদের অবশ্যই মেধার মূল্যায়ন করতে হবে।যদি পিতার ফল পুত্র ভোগ করে তবে পুত্রের ফল পিতা কেন ভোগ করবে না।এখানে ও কোটা করা উচিত।কেন সে মানবেতর জীবন যাপন করবে,কেন সে বৃদ্ধ বয়সে রিক্সা চালাবে।তার দায়িত্ব অবশ্যই সরকার কে নিতে হবে।
যদি না পার তবে পিতার যুদ্ধের ফল পুত্র ভোগ করবে কেন?
দেশ কে বিভক্ত করার এই কূট চাল অবশ্যই দমন করা উচিত।
ওর বাবা মুক্তি যোদ্ধা তাই সে কোটা পাবে আর আমি পাব না।
এভাবে মানুষের মাঝে ভেদাভেদ তৈরি করা উচিত নয়।
ওর বাবা যুদ্ধ করেছে দেশের জন্য আমার জন্য,আমাদের জন্য।
বিশেষ কোটা প্রাপ্তির জন্যে নয়,এটা এক রকম অপমান জনক পদ্ধতিও বটে।
অনেক মুক্তিযোদ্ধা আছে রিক্সা,ভ্যান চালায় তাদের কোন খোঁজ নেই।
কোটা পাবে সন্তানরা।
আমি জানি এটা তার কাছে অনেক গর্বের যে এই দেশটার জন্মের সাথে তার বাবা যুক্ত ছিল।যেই দেশে সে জন্মেছে কিন্তু তাই বলে দেশটা তার খেদমতে নিয়োজিত হবে কেন।
বরং বাবার মতো সে ও দেশের খেদমতে নিয়োজিত হবে।
কোটা টা অবশ্যই তাদের প্রাপ্য তবে সেটা এত বিশাল করে নয় এবং তার মেধা ও থাকা উচিত।

পূর্ববর্তী যোদ্ধাদের মূল্যায়ন না করলে ভবিষ্যত যোদ্ধারা নিশ্চয় যুদ্ধ জয়ের সপ্ন দেখবে না।
আমাদের ভবিষ্যত নিয়ে ভাবতে হবে।মেধা ছাড়া দেশের উন্নয়ন সম্ভব নয়।
সকল স্বাধীনতার যোদ্ধাদের অজস্র ভালবাসা দিয়ে বলছি
মেধার যথার্থ মূল্যায়ন হোক।

৫ thoughts on “কোটা ও কৌটা ধেত্তেরি মেধা আআআ

  1. স্ববিরোধীতা পূর্ণ লেখা ।
    স্ববিরোধীতা পূর্ণ লেখা । প্রথম দিকে মনে হচ্ছিল আপনি বোধহয় মুক্তিযোদ্ধা কোটা পদ্ধতির পক্ষে বলছেন । শেষে এসে বুঝলাম বিষয়টা অন্যরকম । হাঁ, মেধার মূল্যায়ন অবশ্যই করতে হবে । কোটা বিষয়ে আমার ও একটা পোস্ট দেওয়া হয়েছে , ওখানে বিস্তারিত আলোচনা আছে । ইচ্ছে হলে পড়ে দেখতে পারেন ।

  2. কোটা বহাল থাকুক তবে সেটা একজন
    কোটা বহাল থাকুক তবে সেটা একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান পর্যন্ত।নাতি পুতি পর্যন্ত গেলে রাজাকারের সন্তান ও কোটাভুক্ত হতে পারে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *