মেশিনম্যান-১ VS মেশিনম্যান-২ (বানীসমগ্র)।

মেশিনম্যানদের দৃষ্টিতে নারী
মেশিনম্যান-১ (দ্যা রাজাকার):

“কলা ভালো খাবার না মন্দ খাবার? কলাটা আল্লাহ প্যাকেট করে দিয়েছেন না? আনারসটা প্যাকেট করে দিয়েছেন না? লিচুটা প্যাকেট করেছেন না…। সবরি কলা, ল্যাংড়া আম, কাঁঠাল সব ছিলাইয়া যদি বায়তুল মোকারমের সামনে নিয়া বসে, কেউ কিনবে? কেনবো তা নাই, এর উপর পড়বে মাছি।”

মেশিনম্যান-২ (দ্যা পাগলা মোল্লা):

মেশিনম্যানদের দৃষ্টিতে নারী
মেশিনম্যান-১ (দ্যা রাজাকার):

“কলা ভালো খাবার না মন্দ খাবার? কলাটা আল্লাহ প্যাকেট করে দিয়েছেন না? আনারসটা প্যাকেট করে দিয়েছেন না? লিচুটা প্যাকেট করেছেন না…। সবরি কলা, ল্যাংড়া আম, কাঁঠাল সব ছিলাইয়া যদি বায়তুল মোকারমের সামনে নিয়া বসে, কেউ কিনবে? কেনবো তা নাই, এর উপর পড়বে মাছি।”

মেশিনম্যান-২ (দ্যা পাগলা মোল্লা):

“মেয়েরা হইলো তেতুলের মত। দেখলেই দীলের মইধ্যে লালা বাইর হয়। তেতুল গাছের নিছে দিয়া গেলে জিফরায় লালা আসে। এই মহিলাদের সঙ্গে লেখাপড়া কইরতেছেন দিল ঠিক রাখতে পাইরবেন না। যতই বুজুর্গ হউন মহিলাকে দেখলে, তাদের সঙ্গে হ্যান্ডশেক করলে তোমার দিলের মইধ্যেও কূভাব আইসা যাবে, খারাপ খেয়াল এইটা মনের জ্বেনা, দিলের জ্বেনা, দিলের জ্বেনা, হইতে হইতে এইটা আসল জ্বেনায় পরিনত হবে। কেউ যদি বলে,আমি বূড়া মানুষ, হুজুর মহিলাকে দেখলে আমার দিল খারাপ হয় না, কূ খেয়াল দিলের মইধ্যে আসে না, তা হলে আমি বইলবো’ এই ভাই, তোমার ধ্বজভঙ্গ বিমার আছে, তোমার পুরুষত্ব নস্ট হইয়্যা গ্যাছে। সেই জন্য মহিলা দেখলে তোমার কূভাব আসে না।”

মেশিনম্যানদের দৃষ্টিতে কৰ্মজীবি নারী
মেশিনম্যান-১ (দ্যা রাজাকার):

“…একদিন এক মহিলা পুলিশের সঙ্গে এয়ারপোর্টে দেখা হলো। বললাম, মা তুমি পুলিশ হলা কেন? সে বলল, জাতীয় সম্পদ হেফাজত করতে গভর্মেন্ট আমাদেরকে পুলিশ বানাইছে। আমি বললাম, মা, আল্লাহ তোমাকে যে সম্পদ দিয়েছে সেটা হেফাজত করতে ১০টা পুলিশ হিমশিম খায় আর তুমি করবা জাতীয় সম্পদ হেফাজত!”

মেশিনম্যান-২ (দ্যা পাগলা মোল্লা):

“আপনার মেয়েকে কেন গার্মেন্টসে দিছেন? ফজরে ৭-৮ টায় চলে যায়, রাত ৮-১০ টা ,বারটায়ও আসে না, কোন পুরুষের সঙ্গে ঘুরাফিরা করতেছে, তুমিতো যান না, কত জ্বেনার মধ্যে মুকতালা হচ্ছে। তোমার মেয়ে আর জ্বেনা কইরা কইরা টাকা রোজগার করতেছে, কি বরকত হইবে ? “

মেশিনম্যানেরা পূৰ্বেও ছিল, এখনও আছে এবং আগামীতেও থাকবে।
এতএব, মেশিন চলবে…… ===>{} মোল্লাতন্ত্র জিন্দাবাদ

১০ thoughts on “মেশিনম্যান-১ VS মেশিনম্যান-২ (বানীসমগ্র)।

  1. মেশিন ছাড়া দুনিয়া চলে
    মেশিন ছাড়া দুনিয়া চলে না,
    সর্বত্র মেশিন,জগতই মেশিনের খেলা!

    ক্ষুধার রাজ্যে মেশিন ব্লগময়,
    বেগানা নারী যেন শফির কাছে গাছপাকা তেঁতুল :হাহাপগে:

  2. এত কর্মক্ষম মেশিনের দরকার নাই
    এত কর্মক্ষম মেশিনের দরকার নাই জাতির। এর চেয়ে সবগুলা কাইটা ক্লোনিং স্টার্ট করলে ভাল হ​য়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *