কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে হলে আগে জানতে হবে

বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের যদি জিজ্ঞেস করা হয় -তোমরা বড় হয়ে কি হতে চাও? তারা উত্তর দিবে- ডাক্তার বা ইঞ্জিনিয়ার হতে চাই। ইঞ্জিনিয়ারিং নিয়ে একটু কথা বলি।


বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের যদি জিজ্ঞেস করা হয় -তোমরা বড় হয়ে কি হতে চাও? তারা উত্তর দিবে- ডাক্তার বা ইঞ্জিনিয়ার হতে চাই। ইঞ্জিনিয়ারিং নিয়ে একটু কথা বলি।

বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি যে ইঞ্জিনিয়ারিং নিয়ে ছাত্র-ছাত্রীরা পড়তে আগ্রহ প্রকাশ করে বা পড়াশোনা করে তা হল-CSE(Computer Science & Engineering). এই বিষয়টি একটি চমৎকার বিষয়। নাম শুনেই অনেকে এই সাব্জেক্ট পড়ার জন্য ঝাপিয়ে পড়ে। অনেকের এই সাব্জেক্ট নিয়ে অনেক ফ্যান্টাসি থাকে। বিভিন্ন মুভিতে হ্যাকারদের দেখে অনুপ্রেরনা পায়, কিন্তু বাস্তব জীবনে CSE যে কত কঠিন এবং মননশীল একটি বিষয় তা কিছুদিন ক্লাস করার পর বুঝা যায়।

যারা এইবার H.S.C পরীক্ষা দিয়েছো এবং যারা এইচএসসি লেভেলের নিচে আছো তাদের উদ্দেশ্যে বলি- CSE পড়তে হলে তোমাদের সবচেয়ে যে বিষয়টি গুরুত্ত দিতে হবে তা হল-

*গনিতে দক্ষতা

*লজিকাল অপারেশন

*ইলেক্ট্রনিক্স

*পরিশ্রম

*ধৈর্য

কেউ যদি মনে করে যে গনিত বাদ দিয়ে ইঞ্জিনিয়ার হয়ে যাবে তাহলে সে বোকার রাজ্যে বাস করছে। তাই তোমাদের চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখাতে গনিতের কিছু কোর্সের নাম নিচে দিলাম-

*Calculus

*Matrix

*Discrete Mathematics

*Number Theory

*Geometry & Vector analysis

*Laplace Transform

উপরের কোর্সগুলো একেকটা সাগরসম। তাই কেউ যদি মনে করে যে ভর্তি হলাম আর ইঞ্জিনিয়ার হয়ে গেলাম তাহলে সে ৪ বছরের কোর্স শেষে কম্পিউটারের ইঞ্জিন পরিস্কার করবে(:P) । এই কোর্সগুলো ছাড়াও আরো প্রায় ১৫-২০ টার মত মেজর কোর্স কমপ্লিট করা লাগবে। এবং সত্যিকার অর্থে যদি কেউ কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার হতে চায় তাহলে এই মনমানসিকতা তার মাঝে থাকতে হবে যে আমি ইঞ্জিনিয়ার হবই। এবং সাথে থাকতে হবে প্রচুর ধৈর্য এবং পরিশ্রম।

তাই, ছোট ভাই বোনদের কাছে অনুরোধ শুধু শখের বসে CSE ইঞ্জিনিয়ার হইতে যেয়োনা। যখন কোর্সগুলো ভার্সিটিতে করানো হবে তখন সত্যি বুঝতে পারবা নাকের জল আর চোখের জল এক কিভাবে হয়।

বাংলাদেশে অনেক অনেক ভাল কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার প্রয়োজন। তাই, আমরা চাই মেধাবীরা এই বিষয়টি বেছে নিয়ে দেশের তথ্য-প্রযুক্তিকে অনেক সমৃদ্ধ করবে। আমাদের দেশের ছেলেমেয়েরা এখন গুগল,ইয়াহু,মাইক্রোসফট,ইএ গেমস সহ অনেক বড় বড় প্রতিষ্ঠান এ কাজ করে। এমন একটা দিন আসবে যখন আমাদের এমন প্রতিষ্ঠান থাকবে। তাই ভালবেসে এবং নিবেদন থেকে এই প্রফেশন বেছে নাও। শখের বসে কিংবা ফ্যান্টাসি থেকে নয়।

সবার জন্য রইলো শুভকামনা।

৭ thoughts on “কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে হলে আগে জানতে হবে

  1. কিসের রিভিউ বুঝলাম না! বিভাগ
    কিসের রিভিউ বুঝলাম না! বিভাগ হওয়া উচিৎ সমসাময়িক.. :মনখারাপ: :কনফিউজড:
    শিক্ষা বা উদ্যোগ, এমন কিছু! অমিত তোমার লিখা পড়ে তো নতুন প্রজন্ম ঘাবড়ায় যাবে!!
    সম্ভাবনার কথাও লিখ আর মজার ব্যাপার-স্যাপারগুলোও বাদ দেয়া ঠিক না।। :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি:
    লিখার বিষয় চমৎকার, আমাদের সবাইকে এমন উদ্যোগ নেয়া উচিৎ… :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ:
    ভাবছি লিখে ফেলব, আমিও তেমন কিছু!!!

    1. এইটা ঠিক একটু ঘাবড়ানি খেয়ে
      এইটা ঠিক একটু ঘাবড়ানি খেয়ে যাবে। শুধু তারাই থাকবে যারা একদম ডিটারমাইন্ড 🙂 বিভাগ এডিট করে দিতেসি … ধন্যবাদ

  2. ভালই লিখেছেন তবে…
    কোথায় পড়া

    ভালই লিখেছেন তবে…

    কোথায় পড়া যাবে? খরচ কেমন? যোগ্যতা? ইত্যাদি বিষয় সংযুক্ত থাকলে আরো ভাল হত ।

    1. ধন্যবাদ মন্তব্যের জন্য। ঠিকই
      ধন্যবাদ মন্তব্যের জন্য। ঠিকই বলেছেন, এসব সংযুক্ত করে দিলে ভালো হতো। পরের বার আশা করি দেব 🙂

  3. আমার তো নড়েচড়ে বসা উচিত। যদিও
    আমার তো নড়েচড়ে বসা উচিত। যদিও কখনো এই বিষয়ে পড়ার ইচ্ছা ছিল না। তারপরও ‘ইঞ্জিনিয়ারিং’ নিয়েই সাবধান হতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *