স্বপ্নের সহচর


যেসব প্রতিবাদী হাত আকাশ ছুয়েঁছিলো
যেসব বিক্ষুব্ধ প্রাণ উঁচিয়ে ধরেছিলো তাদের স্পর্ধিত গ্রীবা,
তীব্র হলুদ রোদে সেইসব দাবী আদায়ের মিছিল শব্দের ঝংকার তুলে
এফোড়-ওফোড় করেছিলো সবুজ জমিন;
সেইসব দাবী আদায়ের মিছিলে আমিও ছিলাম ।

সেই দিন তোমরা বলেছিলে সমাজ বদলের কথা
সেই দিন শুনিয়েছিলে পুরাণের ফিনিক্স পাখির গল্প,
সেই দিন তোমরা গেয়েছিলে এক মহান প্রার্থনা সঙ্গীত-
যে সঙ্গীতের রচয়িতা ছিলো কোন এক সুমহান সন্ত;
খানিক বুঝে খানিক না বুঝে বেসুরো গলায়
সেই কোরাস সঙ্গীতে আমিও মিলিয়েছিলাম গলা ।

কোন এক অভিমানী তরুণীকে জারুলের ছায়ায় প্রতীক্ষায় রেখে


যেসব প্রতিবাদী হাত আকাশ ছুয়েঁছিলো
যেসব বিক্ষুব্ধ প্রাণ উঁচিয়ে ধরেছিলো তাদের স্পর্ধিত গ্রীবা,
তীব্র হলুদ রোদে সেইসব দাবী আদায়ের মিছিল শব্দের ঝংকার তুলে
এফোড়-ওফোড় করেছিলো সবুজ জমিন;
সেইসব দাবী আদায়ের মিছিলে আমিও ছিলাম ।

সেই দিন তোমরা বলেছিলে সমাজ বদলের কথা
সেই দিন শুনিয়েছিলে পুরাণের ফিনিক্স পাখির গল্প,
সেই দিন তোমরা গেয়েছিলে এক মহান প্রার্থনা সঙ্গীত-
যে সঙ্গীতের রচয়িতা ছিলো কোন এক সুমহান সন্ত;
খানিক বুঝে খানিক না বুঝে বেসুরো গলায়
সেই কোরাস সঙ্গীতে আমিও মিলিয়েছিলাম গলা ।

কোন এক অভিমানী তরুণীকে জারুলের ছায়ায় প্রতীক্ষায় রেখে
কোন এক মধ্যবিত্ত বাবার স্বপ্নকে ভুলে থেকে,
কোন এক স্নেহময়ীর অতল ভালবাসার আলিঙ্গণ ছেড়ে
অনেক অনেক ব্যক্তিগত লাভ-ক্ষতির খেরোখাতা ছিঁড়ে
তোমরা হাতে হাত রেখেছিলে পরম বিশ্বাসে;
সেইসব স্বাপ্নিক পথচলা আর দৃপ্ত শপথে আমিও ছিলাম ।

ছেঁড়া-মলিন বইটি বদলে পড়তে পড়তে
তোমরা তর্কে মাততে- চেতনার রং নীল নাকি গাঢ় লাল,
গণসঙ্গীতের সেই উদ্দাম ট্রেনে গোধূলী যখন আলগোছে চুমু খেত
জাহাঙ্গীরের ঝুপড়ির ডালপুরী আর চা তখন ক্লান্ত;
অবিরাম সিগারেটে তোমরা বুঝতে চাইতে উদ্বৃত্ত মূল্যের একাল-সেকাল,
সবুজ স্বপ্নগুলো তখনো বিবর্ন হয়নি মোটেও;
তোমাদের সেই অভিলাষী পথচলায়
আমিও ছিলাম হয়ে অভিঘাত ।

তোমরা যখন রাঙ্গিয়ে তুলতে সাদা দেয়াল শব্দাবলী আর কবিতায়,
তোমাদের অক্ষরগুলো হাসত স্বপ্ন হয়ে;
সেইসব নীরব রাতে তোমাদের সাথী হতো জোনাকী আর চাঁদ ।
বিশাল আকাশের নিচে নি:সঙ্গ রেললাইন ধরে
তোমাদের সাথে সেদিন আমিও হেঁটেছিলাম ।।

১২ thoughts on “স্বপ্নের সহচর

  1. ” আমাকে না আমার আপোষ কিনছো
    ” আমাকে না আমার আপোষ কিনছো তুমি … ” । সুমনের এই গানের কথা কেন মনে পড়ে গেলো বুঝতে পারলাম না । একি হৃদয় থেকে বলা নাকি বলার জন্য বলা তাও জানিনা । হয়তো জানি কিন্তু জীর্ণ পাণ্ডুলিপি ঝেড়ে কঠিন সত্যের মুখোমুখি হতে আজ মনে হয় মন বিচলিত বোধ করে ।

    কবিতার সৌন্দর্য নিয়ে কিছু বলবনা । এমন সুন্দর কবিতা নরম বালিশে হেলান দিয়ে দামী সিগারেট এ ধোঁয়া ছেঁড়ে লেখা হল কিনা সেই তত্ত্ব তালাশ ও করবনা । শুধু বলবো … ‘ হাল ছেড়না বন্ধু বরং কণ্ঠ ছাড় জোরে … এবং বন্ধু তোমার স্বপ্ন বেচনা …

    1. কেন কবিতা পড়ে কি আপোষকামী মনে
      কেন কবিতা পড়ে কি আপোষকামী মনে হচ্ছে?

      ধন্যবাদ…..কবিতা ভাল লাগার জন্য।সিগারেট খেতে খেতেই লেখা…. :থাম্বসআপ: :নৃত্য: :ফুল: :হাসি:

  2. ভাল লাগল। এর বেশি আরো অনেক
    ভাল লাগল। এর বেশি আরো অনেক কিছু বলতে ইচ্ছে করছে। থাক! সব বলতে হবে এমন কোন কথা আছে? চালিয়ে যান। থামাথামির কোন কারণ নাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *