বৃষ্টি অভিলাষ

বৃষ্টি দেখলেই মাতাল হতে ইচ্ছে করে
বৃষ্টি হলেই মন কেমন করে
বৃষ্টি হলে মনের গোপন দরজা খুলে যায়
বৃষ্টি দেখলেই ছেলে মানুষ হতে ইচ্ছে করে

মেঘলা দিনে উদাস মনে কবিতা লিখি
ছেঁড়া ছেঁড়া মেঘের মত ছেঁড়া ছেঁড়া কবিতা



বৃষ্টি দেখলেই মাতাল হতে ইচ্ছে করে
বৃষ্টি হলেই মন কেমন করে
বৃষ্টি হলে মনের গোপন দরজা খুলে যায়
বৃষ্টি দেখলেই ছেলে মানুষ হতে ইচ্ছে করে

মেঘলা দিনে উদাস মনে কবিতা লিখি
ছেঁড়া ছেঁড়া মেঘের মত ছেঁড়া ছেঁড়া কবিতা
নামহীন আবোল তাবোল কবিতা
কবিতা পড়ি আর ছলছল করে চোখ

বৃষ্টি হলেই আমি অবাধ্য হয়ে উঠি
বৃষ্টি হলে তোকে আবার ভালবাসতে ইচ্ছে করে
হাতে হাত ধরে তোর সাথে ভিজতে চাই
তোর দিকে তাকিয়ে যেতে চাই

অঝোর শ্রাবণে আমায় পাগলামি ভর করে
শান্ত মনটা চঞ্চল হয়ে ওঠে
বাঁধ ভেঙ্গে যায় মনে বন্যা আসে
বৃষ্টি দেখলেই আমি বড় বেসামাল হয়ে পড়ি

১৩ thoughts on “বৃষ্টি অভিলাষ

  1. ও মেয়ে, এই শ্রাবণে যদি দেখা

    ও মেয়ে, এই শ্রাবণে যদি দেখা না হয়, তবে পরের শ্রাবণে তোর জন্য মনিপুরী শাড়ি নিয়ে আসব;
    সাদা ফুল গুলো কি যেন নাম! যাহ, ভুলে গেছি… খোপায় গুজে রাখবি।
    আমার হাত ধরে বৃষ্টির পানিতে পা ভিজিয়ে হাটবি, আর বিমুগ্ধ হয়ে যাবি…
    মেয়ে তোকে বড্ড ভালবাসিরে।
    মেয়ে আমি সত্যি বলছি তোকে বড্ড ভালবাসি রে।—-অমিত লাবণ্য

  2. বৃষ্টি দেখলেই কেমন যেন
    সর্দি

    বৃষ্টি দেখলেই কেমন যেন
    সর্দি জ্বর অনুভব করি,
    বৃষ্টি দেখলেই কাঁচা রাস্তার
    বেহালদশা চিন্তা করি,
    আমি বৃষ্টি ভয় করি!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *