গন্তব্য কি তবে আওয়ামীলীগ?

যাই বলি না কেন, আগামী নির্বাচনে আওয়ামীলীগ ছাড়া আর কোন গতি নাই। যদিও এইবার আওয়ামী লীগ আমাদের বহু ক্ষতি করেছে। শেয়ার মার্কেট কেলেংকারি, পদ্মা সেতু দুর্নীতি, ছাত্রলীগের বেপরোয়া আচরণকে দমন না করতে পারা, রাজাকার মার্কা মন্ত্রী এমপিদের প্রশ্রয় দেওয়া, মুক্তমনা লেখক দের বিনা অপরাধে জেলে পাঠানো এবং দ্রব্য মূল্যের দাম নিয়ন্ত্রন করতে না পারা এসবই তাদের অপরাধের মধ্যে পড়ে। তদুপরি রাজাকারের ফাঁসির রায় কার্যকর এবং স্বাধীনতার মূল্যবোধ বজায় রাখা, একমাত্র আওয়ামীলীগের কাছেই আশা করতে পারি। সামনের নির্বাচনে যদি বিএনপি জামাত ক্ষমতায় আসে তাহলে এই যুদ্ধাপরাধীদের বিচার আর কখনই সম্ভব হবে না। উল্টো স্বাধীনতা পক্ষের লোকদের ধরে ধরে জেলে ভরা হবে এবং মুক্তমনাদের করা হবে কতল। দেশে প্রতিষ্ঠা হতে পারে মডিফাইড হেফাজতি শরিয়া আইন। জামাতকে বাদ দিয়েও বিএনপিকে চিন্তা করে লাভ নাই কারণ জামাতি ভোট ব্যাংক ছাড়া বিএনপি কখনই ক্ষমতায় আসতে পারবে না। এরশাদ এর উপর ভরসা করে কোন লাভ নাই। কারণ উনি সকালে এক কথা, বিকালে এক কথা বলেন। দেখা যাবে ক্ষমতায় গিয়ে গোলাম আযম রে দেশের রাষ্ট্রপতি বানিয়ে দিয়েছেন। আর রইল কারা? বাম দল গুলা। এই দল গুলা হচ্ছে বাংলাদেশের সবচেয়ে ফাতরা দল। স্বাধীনতার পর হতে এরা কেবল লেনিন স্তালিন এর বাল ফালান ছাড়া বাংলাদেশের রাজনীতিকে কোনভাবেই প্রভাবিত করতে পারে নাই। নির্বাচনে না ভোট দিয়েও কোন লাভ নাই। আবার নির্বাচন হবে। আবার এরাই আসবে। তৃতীয় কোন শক্তি বাংলাদেশের রাজনীতিতে আশার সম্ভাবনা অদুর ভবিষ্যতে নেই বললেই চলে। কারণ আপনি নতুন কিছু বলতে চাইলেই আপনাকে আগামীকাল পুরান ঢাকার ম্যানহোলে পাওয়া যেতে পারে। অতএব সবকিছু বিবেচনা করে আওয়ামীলীগ কেই ভোট দেওয়া উচিত। যদিও আওয়ামীলীগ ও তাদের সমর্থিত কিছু লোক বর্তমানে প্রজন্ম চত্বরের আন্দোলনকে নোংরা পলিটিক্স এর দিকে নিয়ে যাচ্ছে এবং জামাতের সহায়তায় আগামী নির্বাচনে যাওয়ার আঁতাত করছে, তথাপি এই দুরাবস্থায় আওয়ামীলীগ ছাড়া আর কোন গতি দেখছি না। আওয়ামীলীগ কে এই জিনিসটা বুঝতে হবে, বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন যদি ধ্বংস হয়, তবে তাদেরকে ইতিহাসে সবাই ঘরের শত্রু বিভীষণ হিসেবেই চিহ্নিত করবে, যা খুব একটা সুখদায়ক হবে বলে মনে হয় না।

১০ thoughts on “গন্তব্য কি তবে আওয়ামীলীগ?

  1. “গতি নাই” এটা বুঝতে পেরেছে
    “গতি নাই” এটা বুঝতে পেরেছে বলেই আওয়ামী লীগ বেপরোয়া। কিন্তু আমি আপনি যেভাবে চিন্তা করছি দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষ কিন্তু সেভাবে চিন্তা করে না। তাই আওয়ামী লীগ নিজের ভরাডুবির সাথে সাথে আমাদেরও ভরাডুবির নোংরা খেলায় মত্ত।

  2. কোন গতি নাই আওয়ামীলীগ ছাড়া,
    কোন গতি নাই আওয়ামীলীগ ছাড়া, এটা ভাবার এখনো সময় আসে নাই। এটা আওয়ামী-ছাত্রলীগ পান্ডারা ভাবতেছে। তারা এই কথা ভেবে জামায়াত-শিবির-বিএনপি’র বিরুদ্ধে কথা বলা ছেড়ে অনলাইনে মুক্তমনাদের আক্রমণ করছে। এর ফলাফল ভাল হবেনা। তাদের মধ্যে বামভীতি ঢুকেছে। এসব গালিবাজ বেজন্মদাদের উচিত শিক্ষা দেওয়ার জন্য বিকল্প শক্তির প্রয়োজন। একটি শাহবাগ, একটি গণজাগরণের স্ফুরণ গঠতে কি বেশী সময় লেগেছে? সরকার প্রথম দিকে গণজাগরণকে মৌণ সমর্থন জানালেও পরে গণজাগরণের বিরুদ্ধে কেন অবস্থান নিয়েছে? বিকল্পশক্তির উত্থানভীতি সরকারের ঘুমকে হারাম করে দিয়েছে। তাই, আওয়ামীলীগ ছাড়া বিকল্প নাই, এটা এখনো ভাবার মত পরিস্থিতি হয় নাই।

    বিএনপি ক্ষমতার জন্য যেমন যা ইচ্ছে করতে পারে, তেমনি আওয়ামীলীগও পারে। প্রয়োজনে জামায়াতের সাথে আঁতাতও করবে। তাই এই সিদ্ধান্তে আসা উচিত হবেনা যে বিকল্প একমাত্র আওয়ামীলীগ। হেফাজত কাদের তৈরী? জনগণের কাছে এখন পরিস্কার। রাজনৈতিক চালে মার খেয়েছে আওয়ামীলীগ। হেফাজতকে আওয়ামীলীগ জামায়াতের বিকল্প হিসাবে দাঁড় করাতে যেয়ে বুমেরাং হয়ে গেছে। যে তত্বাবধায়ক ইস্যুতে আওয়ামীলীগ অস্থিরতা তৈরী করে ২০০৭-এ ১/১১-এর জন্ম দিয়েছিল, সেই তত্বাবধায়ক ইস্যুতে আওয়ামীলঘের এত অনীহা কেন? আওয়ামীলীগের জনপ্রিয়তা তলানীতে গিয়ে ঠেকেছে। যেসব অঙ্গীকার জনগণের কাছে দিয়ে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় এসেছিল, সেই সব আঙ্গীকার আগে পূরণ করুক। তারপর মানুষ আওয়ামীলীগের মনোভাব বুঝবে। বর্তমানে আওয়ামী চরিত্র যা দেখা যাচ্ছে, তাতে আওয়ামীলীগই একমাত্র বিকল্প সেটা ভাবা যায় না। আরেকটি গণজাগরণ সময়ের দাবী।

    1. তৃতীয় শক্তির উত্থান সম্ভব না,
      তৃতীয় শক্তির উত্থান সম্ভব না, লীগ তা হতে দিবে না।
      লীগ ক্ষমতায় না আসা মানে হচ্ছে বিএনপি আসা, মানে জামাত আসা। সেটা নিশ্চয়ই কারো কাম্য নয়। (জামাত শিবির বিএনপি সমর্থক বাদে)
      আওয়ামীলীগ যে যে অপকান্ড করেছে তাতে ভোট দেওয়ার ইচ্ছে মরে গিয়েছিলো, কিন্তু লিগকে ভোট না দিলে বিএনপি ক্ষমতায় আসবে সেটা বাংলাদেশের জন্য ধ্বংসই ডেকে আনবে।
      তাই আগামী ভোট আওয়ামীলীগের পক্ষেই।
      কিন্তু সবাই তেমন মনে করে না।

  3. স্বাধীনতার পর হতে এরা কেবল

    স্বাধীনতার পর হতে এরা কেবল লেনিন স্তালিন এর বাল ফালান ছাড়া বাংলাদেশের রাজনীতিকে কোনভাবেই প্রভাবিত করতে পারে নাই

  4. আওয়ামী লীগের আগামীবার আসা
    আওয়ামী লীগের আগামীবার আসা দরকার হলেও, তারা যদি এইবারে সময় থাকতে পিওর না হয়, তাহলে ক্ষমতায় আসতে কিন্তু অনেক কষ্ট হবে। আমরা যেভাবে চিন্তা করছি দেশের অন্য সবাই তো আর একইভাবে চিন্তা করে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *