সকাশ- পর্ব ১

সকাশ- পর্ব ১

যখন আমি দোতলার বারান্দায় বসে একজনের কথা ভাবছি, তখন বিকেলের শুরু। শীতকাল, তাই আলোক রেখাগুলো যখন আমার গায়ে এসে লাগছিল তখন এক ধরনের উষ্ণ কোমলতা অনুভব করলাম। ভাবছি, আমাকে তার কেমন লাগে ? ভাল ? নাকি খারাপ ?
আমার কেন জানি মনে হচ্ছে আমাকে সে ভালবাসে। আমি তাকে খুব ভালবাসি তাই হয়তো বার বার মনে হচ্ছে এই ধনাত্মক কথা গুলো। আমি মনে মনেই হেসে উঠলাম। প্রেম জাতীয় কথায় “ধনাত্মক” ! হা হা হা। শব্দটা মানায় না।

সকাশ- পর্ব ১

যখন আমি দোতলার বারান্দায় বসে একজনের কথা ভাবছি, তখন বিকেলের শুরু। শীতকাল, তাই আলোক রেখাগুলো যখন আমার গায়ে এসে লাগছিল তখন এক ধরনের উষ্ণ কোমলতা অনুভব করলাম। ভাবছি, আমাকে তার কেমন লাগে ? ভাল ? নাকি খারাপ ?
আমার কেন জানি মনে হচ্ছে আমাকে সে ভালবাসে। আমি তাকে খুব ভালবাসি তাই হয়তো বার বার মনে হচ্ছে এই ধনাত্মক কথা গুলো। আমি মনে মনেই হেসে উঠলাম। প্রেম জাতীয় কথায় “ধনাত্মক” ! হা হা হা। শব্দটা মানায় না।
যখন এইরূপ কথাগুলো ভাবছি আর মনে মনে হাসছি তখন অনুভব করলাম উষ্ণ কোমলতাটা আর নেই। চোখ গেল আকাশের দিকে। চেয়ে দেখলাম ধূসর মেঘ গুলো ঢেকে দিয়েছে উজ্জ্বল সূর্যকে। এইরকম অবস্থায় ধূসর মেঘের মত নিজের ভেতরটাও হঠাৎ ধূসর হয়ে গেল।
কেন এমন হল ? এ প্রশ্নের উত্তরটা হয়তো আমার কাছেই আছে। হয়তো এ তাকে হারানোর ইঙ্গিত স্বরূপ বলে ভেবে নিয়েছি।
অনেকক্ষণ ধরে এই কথা গুলো ভাবতে ভাবতে একসময় দেখলাম আবার সূর্য তার সতস্ফূর্ত আলো ছড়িয়ে দিতে শুরু করেছে কারন ঐ ধূসর মেঘ সরে গিয়েছে। এই দেখে আমার মুখে একটু হাসির রেখা দেখা দিল।
এইসব ভাবনা চিন্তায় বিকেল গড়িয়ে গেল। পাখি সহ সাধারণ নগরবাসি তাদের নিজ আবাস স্থলে ফিরে যাচ্ছে। আমি পাখিদের ঝাঁক গুলোকে উড়ে যেতে দেখছি। কিছু বাড়িতে আলো জ্বলতে দেখা যাচ্ছে। আশেপাশের বাড়িঘর থেকে উলু আর শঙ্খের শব্দ ভেসে আসছে।
এই সন্ধ্যার একটা নিস্তব্ধ অনুভূতির মধ্যে হঠাৎ মায়ের গলার আওয়াজ শুনতে পেলাম। “অনি, বাবা অনি, কোথায় তুই ? শুনে যা।”
মায়ের ডাক শুনতে পেয়ে আমি একটু জোরে, চেঁচানোর মত করে বললাম “আসছি মা” ।
এই বলে দৌড়ে মায়ের কাছে গেলাম। মা আমায় বললেন বাবা, হাত-মুখ ধুবি না ? উত্তরে আমি বললাম “যাচ্ছি ,মা।”
হাত-মুখ ধুয়ে যখন আমার শোবার ঘরে আসলাম তখন দেখলাম আমার টেবিল এর কোনায় একটা বই পড়ে আছে। দেখে নতুন বই মনে হল। দেখলাম উপরে লেখা ‘আমি তপু’ । বইটা দেখে ভীষণ খুশি হয়ে আমি ছুটে মায়ের কাছে গেলাম। মাকে গিয়ে জিজ্ঞেস করতে যাচ্ছিলাম যে, “বইটা কে রেখে গেছে, ঠিক তার আগেই মা বললেন, একটা মেয়ে এসেছিল আজ বিকেলে। আগে কখনো আসে নাই আমাদের বাসায়। “অনি”, মেয়েটা তোকে একটা বই দিতে বলেছে। তোর টেবিলের উপর রেখেছি। আমি উদ্বিগ্ন হয়ে বললাম বইটা পেয়েছি কিন্তু, কে এসেছিল মা ? নাম বলে নি ? আমাকে বললে না কেন ? আমি তো ঘরেই ছিলাম। মা আমার এত প্রশ্ন শুনে বিরক্ত হয়ে বললেন, আরে বাবারে আমি তো বলেছিলাম, ঘরে আসার কথা, সে বলল, “না না আজ থাক, আরেক দিন আসব, আর এই বইটা অনিরুদ্ধকে দিয়ে দিবেন।” বললাম অনি তো ঘরেই আছে ওকে ডাকি ? উত্তরে সে “না না আমি তাহলে আজকে আসছি” বলে দ্রুত পায়ে হেটে চলে গেল।
মায়ের কথা শুনে একটু কৌতূহলী হলাম। মনে মনে বললাম, “কে এসেছিল, কে?”

২৭ thoughts on “সকাশ- পর্ব ১

  1. হুম। সাবলীল ভঙ্গিমা । ভাল
    হুম। সাবলীল ভঙ্গিমা । ভাল লাগল । লিখতে থাকুন । শুভেচ্ছা রইল । পরের পর্বের অপেক্ষা । :অপেক্ষায়আছি:

  2. আমার কাছে গড়পড়তা লেগেছে!! আরও
    আমার কাছে গড়পড়তা লেগেছে!! আরও ভাল কিছুও আপনি লিখতে পারবেন…
    অপেক্ষায় থাকলাম!!

  3. খুব একটা ভালো লাগেনি কারনটা
    খুব একটা ভালো লাগেনি কারনটা পরিষ্কার পরিপূর্ণতা পেলাম না অপেক্ষার পাল্লাটা বাড়িয়ে দিলেন ……… :অপেক্ষায়আছি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *