হিমু — ২

-ভাই! একটু কথা বলতে পারি? বলেই লোকটা হাত কচলাতে শুরু করল। এটা তার স্বভাবে ঢুকে গেছে।লোকটার বয়স চল্লিশের কাছাকাছি হবে।

-জ্বি বলুন!
-আমি আপনার অলৌকিকতার বিরাট এক ভক্ত!!!
-আমার মাঝে অলৌকিক কিছু নাই! আমি বাকিদের মতই । সকালে উঠে একটা সিগারেট আর এক কাপ চা না খেলে আমার পায়খানা ক্লিয়ার হয় না।

লোকটা বিরাট এক হাসি দিল। পান খেয়ে দাতের অবস্থা যদি বারোটা না হত তাহলে ভুবন ভুলানো হাসি বলে চালিয়ে দেয়া যায়।



-ভাই! একটু কথা বলতে পারি? বলেই লোকটা হাত কচলাতে শুরু করল। এটা তার স্বভাবে ঢুকে গেছে।লোকটার বয়স চল্লিশের কাছাকাছি হবে।

-জ্বি বলুন!
-আমি আপনার অলৌকিকতার বিরাট এক ভক্ত!!!
-আমার মাঝে অলৌকিক কিছু নাই! আমি বাকিদের মতই । সকালে উঠে একটা সিগারেট আর এক কাপ চা না খেলে আমার পায়খানা ক্লিয়ার হয় না।

লোকটা বিরাট এক হাসি দিল। পান খেয়ে দাতের অবস্থা যদি বারোটা না হত তাহলে ভুবন ভুলানো হাসি বলে চালিয়ে দেয়া যায়।

-ভাইজান, আপনে আমারে চিনেন নাই! তাই না?
-জ্বি ঠিক ধরেছেন। হিমু এবার আকাশের দিকে তাকাল। সকাল থেকে মেঘ করে আছে।

-ভাই আমি মতি মিয়া! ঐ যে জগলু ভাই মানে আঙুল কাটা জগলু ভাইয়ের এসিস্টেন্ট। মনে নাই আপনাকে চৌবাচ্চায় চুবাইসিলাম?
-জ্বি মনে পড়েছে। হাম্মাম খানার কথা ভুলি নাই।
-ভাই ক্ষমা করবেন, বিরাট বড় ভুল কইরা ফেলসি!

হিমু মতি মিয়ার দিকে তাকাল। নাহ, মতি মিয়া অনেক বদলে গেছে। মাথায় আগের সেই টাক নেই। পরচুলা খুব সুন্দরভাবে সেটাকে ঢেকে রেখেছে। চোখ দুটো পিটপিট করছে।

হিমু খেয়াল করল পার্কের কপোত কপোতীরা তাকে আড় চোখে খেয়াল করছে। হিমু উঠে দাড়াল ঠিক করল এক জোড়া পাখিকে ভড়কে দেবে। একটা পাখি উড়ে গেলে আস্তে আস্তে সব উড়ে যাবে।

হিমু একজোড়ার সামনে দিয়ে যাবার সময় চব্বিশ পাটি দাত বের করে হেসে দিল! তারপর বলল-

-ভাই! সিগারেট আছে?

এরপর কিছুক্ষন ‘ও মাই গড’ বলে চাপা ভীত আর্তনাদ শোনা গেল। পাচ মিনিটেই সম্পূর্ন পার্ক ফাকা। হিমু এখনো চব্বিশ পাটি দাত বের করে আছে। তার সামনে মতি মিয়া আঠাশ পাটি দাত বের করে হাসছে!

হিমু মতি মিয়ার সাথে লেকের পাড়ে গিয়ে দাড়াল।

-মতি, সিগারেট আছে?
-জ্বি, ওস্তাদ। কিন্তু আকিজ বিড়ি। আপ্নে বল্লে পালমাল নিয়ে আসব!
-লাগবে না দাও!

হিমু সিগারেট ধরাল। দুই টান দেয়ার পর ঝুম বৃষ্টি শুরু হল। বৃষ্টিতে সিগারেট নিভে গেছে। হিমু তাও সিগারেটে টান দিচ্ছে আর ফু দিয়ে ধোয়া ওড়ানোর চেস্টা করছে। মাথায় একটাই চিন্তা, বৃষ্টি যদি চলিতেই থাকে তাহলে জোছনা আর দেখা হবে না। অনেক দিন জোছনা দেখা হয় না। ভাবতে ভাবতেই হিমু আরেকবার নিভে যাওয়া সিগারেটে টান দিয়ে ধোয়া ছাড়ার চেস্টা করল।

মতি মিয়া অবাক হয়ে হিমুকে দেখছে। সাধারন মানুষ যা পারে না , হিমু ওস্তাদ সেটা পারে। কি অলৌকিক!

৩৭ thoughts on “হিমু — ২

  1. হিমু নিয়ে যে লিখছেন, হুমায়ূন
    হিমু নিয়ে যে লিখছেন, হুমায়ূন আহমেদের স্ত্রী থেকে অনুমতি নিয়েছেন?
    ইদানীং মানুষ খুব উঠে পড়ে লেগেছে কার লেখা কপি পেস্ট করে, কার লেখা কে অনুকরণ করে!!! ব্লা ব্লা ব্লা…।
    ইস্টিশন কয়েকদিন তো ঘুমাতে পারে নাই এই যন্ত্রণায়।

    1. আরে সবাই ফান করতেছে। আপনি
      আরে সবাই ফান করতেছে। আপনি আপনার মত লিখতে থাকেন। একজন লেখক কি লিখবে, এটা একান্তই লেখকের ব্যক্তিগত বিষয়। সমালোচকরা সমালোচনা করবেই। যেটা নিজের জন্য উপকারী, সেটা গ্রহন করবেন।

      আপনার লেখার স্টাইল কিন্তু চমৎকার। নিয়মিত চর্চা করলে অনেক ভাল লেখা আপনার থেকে আমরা পাব।

    2. ভাইজান ভুল করবেন কেন । !!
      ভাইজান ভুল করবেন কেন । !! লিখতে থাকুন । লেখা টা ভাই নিজের জন্য । আত্মপরিশুদ্ধি / নিজের অনুভুতির প্রকাশ এর নাম-ই… তো লেখা !!! লিখবেন নিজের জন্য । ভাল হোক /খারাপ হোক / লিখে যাবেন । একটা জিনিস খেয়াল করে দেখবেন – অপরকে যারা পোস্ট গেলাতে যায় – তারাই নিচে নেমে যায় ধীরে ধীরে । আপনি লিখবেন । আমারা গঠন মুলক সমালোচনা করব । আপনি তবুও লিখবেন । কলম ভাই থামানো ঠিক নাহ ।/ আর কখনো অনুতাপ করবেন নাহ যে কেন এইটা লিখলেন !! লেখা খারাপ হইছে – এসব ভাবার অবকাশ নেই । বাই দা ওয়ে হিমু – ২ ভাল লাগছে । বাট আমার মনে হয় – হিমু -১ ভাল ছিল বেশি । 🙂

    1. ক্যান ভাই? আপনারা কি মনে
      ক্যান ভাই? আপনারা কি মনে করছেন যে, এইটা সেকেন্ড হিমু? না না, এইটা আমার লেখা হিমুকে নিয়ে দ্বিতীয় লেখা!

  2. মনের আনন্দে লিখুন। পাঠকের
    মনের আনন্দে লিখুন। পাঠকের সন্তুষ্টির দিকে তাকালে লেখা কষা হয়ে যাবে। 😀

  3. আরোপিত নয় সাবলীল ভাবে লিখুন!!
    আরোপিত নয় সাবলীল ভাবে লিখুন!! অনেক ভাল কিছু হবে…
    অনেক তো ট্রাইইয়াল হল এইবার নিজের একটা চরিত্র বানায় ফেলুন!!
    অনেক ভাল কিছুও হতে পারে… :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি:

  4. অনুকরণের সঙ্গা নাই, অনুকরণ
    অনুকরণের সঙ্গা নাই, অনুকরণ মানে নকল নয়। ভালোই লিখেছো। আর ওস্তাদ আতিক ভাইয়ের কথাটা খেয়াল রাখবা। ওহ বৈশাখী টিভিতে গলপ নিচ্ছে, চেষ্টা করে দেখো।

  5. এরপর কিছুক্ষন ‘ও মাই গড’ বলে

    এরপর কিছুক্ষন ‘ও মাই গড’ বলে চাপা ভীত আর্তনাদ শোনা গেল। পাচ মিনিটেই সম্পূর্ন পার্ক ফাকা। হিমু এখনো চব্বিশ পাটি দাত বের করে আছে। তার সামনে মতি মিয়া আঠাশ পাটি দাত বের করে হাসছে!

    এই জায়গাটা বুঝতে পারলাম না কিন্তু ভালোয় লাগলো ……… আর একটা কথা সমালোচনা না হলে লেখার মান বৃদ্ধি পায়না সুতরাং আমরা আমাদের কাজ করে যায় আপনি আপনার কাজ চালিয়ে যান ……

  6. ভালই তো হইসে। ভুল করার কি আছে
    ভালই তো হইসে। ভুল করার কি আছে রে ভাই ? লিখে যেই আনন্দ টা পাইসেন, ওইটার কাছে এই সমালোচনা কিন্তু কিছু না, এইটা তো মানবেন ? আমিও হিমু নিয়ে লিখছি। আপনে তো আমার প্রতিদ্বন্দ্বী :p

    1. লেট আস ফাইট! হিমু হিমু হিমু
      লেট আস ফাইট! হিমু হিমু হিমু আমি লিখেছি আপনিও লিখেছেন। হু ইস দা বেস্ট?

      উত্তরঃ হুমায়ূন আদমেদ :bow:

  7. ভালই তো লিখতেসেন। উপন্যাস
    ভালই তো লিখতেসেন। উপন্যাস লিখ্যা ফালান। এইটা খালি আমরা ইস্টিশনের সহযাত্রীরা জানবো। উইকেড উইচ শাওন টিকিটাও জানতে পারবে না।

  8. তবে আমার প্র্শ্ন আছে। মানুষের
    তবে আমার প্র্শ্ন আছে। মানুষের দাঁত চব্বিশ পাটিও না আঠাশ পাটিও না। দুই পাটি। সেই দুই পাটিতে আক্কেল দাঁট সহ ৩২টা, ছাড়া আঠাশটা। তাইলে ক্যামনে কি হইল​?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *