গভীরে যাই


-তোমার কি হয়েছে? কাঁদছ কেন? এই, এদিকে তাকাও, তাকাও বলছি !
ওদিক থেকে কোন উত্তর আসছে না । শুধু একটা করুণ কান্নার শব্দ মানবীর হৃদয়ে লাগছে এসে। মানবী চুপ করে গেল আর তাকিয়ে রইল তার পরম ভালোবাসার মানুষটির দিকে।


-তোমার কি হয়েছে? কাঁদছ কেন? এই, এদিকে তাকাও, তাকাও বলছি !
ওদিক থেকে কোন উত্তর আসছে না । শুধু একটা করুণ কান্নার শব্দ মানবীর হৃদয়ে লাগছে এসে। মানবী চুপ করে গেল আর তাকিয়ে রইল তার পরম ভালোবাসার মানুষটির দিকে।
অনুপম এবার কেঁদে কেঁদে বলল “মানবী প্লিজ, প্লিজ আমাকে ছেড়ে যেও না আই প্রমিস, আমি একটা ভালো বেতনের চাকরি পেয়ে যাবো, জাস্ট আমাকে আর একটা মাস সময় দাও। তোমার বাবাকে একটু বল, প্লিজ।
মানবী কি বলে অনুপমকে সান্ত্বনা দেবে ভেবে পেল না। সে অনুপমের গা ঘেঁসে বসলো আর অনুপমের মাথাটা ওর কাঁধে নিয়ে এলো। অনুপম এখনও কাঁদছে, একটু পর পর ডুকরে উঠছে।
মানবী নিজের মনে ভাবল “আমার জীবন ধন্য যে আমি ওকে পেয়েছি, ওকে যতই দেখি শুধু ভালোই লাগে, ওকে আরো ভালবাসতে ইচ্ছে করছে, ওকে দেখলেই গল্পের শুভ্রকে মনে পড়ে, গল্পের সাথে ওর মিল অমিল খুঁজতে ইচ্ছে করে।” মানবী এবার শব্দ করে বলল “তোমাকে ছেড়ে আমি কোথাও যাবো না, আমি আজকেই বাবাকে বুঝানোর চেষ্টা করব। তুমি কেঁদো না, দয়া করে কেঁদো না। অনুপম এবার কাঁধ থেকে মাথা তুলে চোখটা মুছে নিয়ে বলল “সত্যিই যাবে না তো?”
-না, যাবো না।
অনুপম এবার একটু হেসে বলল “চল ঐ বাদাম ওয়ালার কাছ থেকে বাদাম খেয়ে আসি।
-চল।
-মানবী, তোমাকে আজ এই কালো শাড়ীতে ভালো লাছে না, কিরকম কঠিন কঠিন লাগছে।
মানবী এবার একটু চাপা হেসে ভাবল “ও এতো সরল কেন?”
-মানবী, তুমি কি রাগ করলে আমার কথায়?
-হুম।
-আচ্ছা তাহলে, sorry ।
-না, sorry বলার দরকার নেই, আজকে মা ও আমাকে এই কথাই বলছিলেন সকালে। তুমি তো হলে সত্যবাদী মহাপুরুষ সত্য বলেছ তাই তোমাকে, থ্যাংকস ।
অনুপম বাদামওয়ালার কাছ থেকে অনেক দরাদরি করে ১০টাকার বাদাম নিয়ে এল। কাঠের বেঞ্চটাতে বসলো।
-এই নাও বাদাম। সেই ছোটবেলা থেকে বুঝলে? এই সত্য বলাটা রপ্ত করেছি। সেই যখন ক্লাস টেন এ পড়তাম তখন থেকে।
-ভালো তো। আমিও তো চেষ্টা কম করিনি রপ্ত করার, তোমার সাথেই তো টেন থেকে এই চেষ্টায় লেগে আছি, কই আমি তো পারিনি ?
-পারবে পারবে। আস্তে আস্তে সবই হবে। আচ্ছা তোমার সাথে যার বিয়ের ঠিক হয়েছে সে কি করে?
-এইতো, গত বছর Havard থেকে পদার্থবিদ্যায় Phd শেষ করল।
-হুম, তাহলে তো ছেলে ভালই হওয়ার কথা।
-ঐ দিন দেখে তো ভালই মনে হল, তবে নিজের জ্ঞান সবার কাছে জাহির করতে চায়।
-বুঝলাম। সন্ধ্যা হয়ে যাচ্ছে তোমাকে বাসায় দিয়ে আসা উচিত এখন। চল যাওয়া যাক।
মানবী আস্তে করে বলল “ডুবুক সবি, ডুবুক তরী।”
-কিছু বললে?
-না। চল উঠেপরি।

মানবী ঐ রাতে তার বাবার সাথে কথা বলল নিজের বিয়ের ব্যাপারে, সে এই বিয়েতে রাজি না এই কথা টা বলাই মূল উদেশ্য। সে অনেকক্ষণ কথা বলে তার বাবাকে বুঝাতে চেষ্টা করল এবং তার বাবা উত্তরে বললেন “না, I gave him words, আমি আমার কথা বদলাতে পারব না আর তাছাড়া অনুপম ছেলেটা একটা আস্ত Donkey বুঝলে? যাও ঘরে যাও ঘুমাও। আজ থেকে তোমার বাড়ি থেকে বেরহোয়া বন্ধ। যদি আমার কথার বরখেলাপ হয় তাহলে আমি খুব কষ্ট পাবো। তখন আমার মৃত্যু দেখতেও হতে পারে, ঐ যে বাংলা ছবিতে বলে না, তুই আমার মরা মুখ দেখবি, অনেকটা সেরকমই। যা ঘুমা গিয়ে রাত করিস না।
মানবী কিছু না বলে, চোখের কোণে পানি নিয়ে নিজের ঘরে এসে ভিতর থেকে দরজা লাগিয়ে দিল।

পরদিন সকালে মানবীর ঘরের দরজা ভাঙা হল, বিছানায় হাত পা ছড়িয়ে দিয়ে মানবীর দেহটা পড়ে রয়েছে। বিছানার পাশের ছোট টেবিলটাতে একটা চায়ের কাপ পড়ে আছে। চায়ের কাপ থেকে কিছু চা মাটিতে পড়ে আছে এবং পাশে ঘুমের ট্যাবলেটের একটা আস্ত খালি পাতা। চায়ের কাপটার পাশে একটা ছোট কাগজ সেটাতে লিখা “বাবা এবং মা তোমাদের একটা কষ্টে ফেলেদিলাম, sorry, টা টা ভালো থেকো, ইতি, তোমাদের ‘মানো’।”

মৃত্যুর আগেও সত্য বলা বিষয়টাকে রপ্ত করতে পারল না মানবী, অনেক বড় একটা মিথ্যা বলে চলে গেল।
অনুপমের জন্য কিছু না লিখে গেলেও তার জন্য অনেক ভালোবাসা অলিখিতভাবে স্বাক্ষর করে গিয়েছিল মানবী ।

১১ thoughts on “গভীরে যাই

  1. খুবই গতানুগতিক কাহিনী। কিন্তু
    খুবই গতানুগতিক কাহিনী। কিন্তু শেষের লাইনগুলো ভালো লাগল। ইস্টিশনে আপনাকে স্বাগতম। :ফুল:

      1. অবশ্যই। প্রাণে প্রাণ মেলানোই
        অবশ্যই। প্রাণে প্রাণ মেলানোই তো ইস্টিশনের স্লোগান… :বুখেআয়বাবুল:

    1. ডাঃ আতিক এর সাথে খুবই একমত।
      ডাঃ আতিক এর সাথে খুবই একমত। গতানুগতিক কাহিনী। তবে লেখার মান মুটামুটি ভালোই। বেশ একটা রোমান্টিক ভাব আছে। শেষ লাইনগুলোও সুন্দর। ইস্টিশনে স্বাগতম। ক্যারি অন। :গোলাপ: :গোলাপ:

  2. যা বলার তা উপরে সবাই বলে
    যা বলার তা উপরে সবাই বলে দিয়েছে।

    লিখতে থাকুন। আর প্রচুর পড়ুন।
    :ফুল: :ফুল: :ফুল: :ফুল:

  3. সাবলীল ঢং এ লেখা । কাহিনীতে
    সাবলীল ঢং এ লেখা । কাহিনীতে টুইস্ট আনতে চেষ্টা করুন । তবুও বলার ভঙ্গিমা ভাল লাগল । লিখতে থাকুন । আর ইষ্টিশন এ স্বাগতম । :ফুল:

  4. চিরাচরিত গতানুগতিক…
    লিখতে

    চিরাচরিত গতানুগতিক…
    লিখতে থাকুন!! শেষের দিকটা প্রত্যাশিত ও অনুমেয় ছিল যদিও একটা ধাক্কা দেয়ার চেষ্টা ছিল!! আশা করি আগামীতে আরও ভাল হবে…
    লিখতে থাকুন… ইস্টিশনে স্বাগতম :ফুল: :ফুল: :ফুল: :ফুল:

Leave a Reply to আরেক ফাল্গুন Cancel reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *