শাহবাগ এবং ইমরান গং

অমি রহমান পিয়াল এর কথা শুনে মনে হল, মঞ্চ বুঝি তারাই তৈরি করেছে। লাখো জনতার প্রানের দাবী মেটানোর দায়িত্ব বুঝি তাদের কাধেই চেপেছে। আরে ভাই, দলনেতা যদি খারাপ হয়, তবে দলের বাকি সদস্যের অবস্থাও খারাপ হয়। ইমরান এইচ সরকার বা তার সাঙ্গ পাঙ্গরা কি চিন্তা ভাবনা করছেন, তা আমরা জানি না। জানতে চাই ও না। একটাই দাবী, দেশের সকল রাজাকারের ফাঁসি এবং জামাত সহ ধর্মভিত্তিক সকল রাজনৈতিক দল নিষিদ্ধ করতে হবে। এই কাজ করতে যদি আমাদের খরগোশ এবং কচ্ছপের গল্প শোনা লাগে, তাইলে তো এই জন্মে দাবী আদায় করা সম্ভব না। গণজাগরণ মঞ্চ বিভিন্ন জেলায় কর্মী সম্মেলন চালাচ্ছে। কিন্তু কেন? যখন আন্দোলন শুরু হয়েছিল, সারা বাংলাদেশের মানুষ তখন জেগে উঠেছিল। প্রতিটি জেলায় গণজাগরণ মঞ্চের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করে কমিটি গঠিত হয়েছিল। জেলা ভিত্তিক আন্দোলন ওই জেলার লোকদেরকেই করতে দিন না। আপনাদের কি প্রয়োজন জেলায় জেলায় কর্মী সম্মেলন করার? আপনারা ঢাকায় থেকে আন্দোলন বেগবান করার প্রয়াস নিন। গোলাম আযমের বিচার শেষ হয়েছে প্রায় ২ মাস আগে। এখনও তার রায় ঘোষণা হয় নাই। আওয়ামীলীগ ক্ষমতা শেষ হয়ে যাচ্ছে। এটা ঠিক, পরের বার আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় না আসলে এদের বিচার সম্ভব আর হবে না। তাই আওয়ামীলীগ এর অবশ্যই প্রয়োজন আছে। কিন্তু আওয়ামীলীগ যদি জামাতের সাথে আতাত করে পরেরবার ক্ষমতায় আসতে চায় এবং সময়মত এই বেজন্মাগুলার বিচার না করে তাইলে নিজের পায়েই কুড়াল মারবে। কারণ বাঙালি নিজে বড় বেঈমান, তাই অপর বেঈমান কে সহ্য করবে না। ইমরান গং এর লোকদেরকে বলছি, আপনারা যদি সত্যিই জনগণকে সাথে নিয়ে গণজাগরণ মঞ্চের দাবী মেটাতে চান, তাহলে জনগণের কাতারে নেমে আসুন। ছাত্রলীগ নামক তামিল মুভির বি গ্রেডের ভিলেনদের সাথে আতাত করবেন না, যদিও তাদের প্রশ্রয় পেয়েই বামপন্থী দলগুলাকে দূরে সরায় দিয়েছেন। আন্দোলন বেগবান করুন। জেলায় জেলায় কর্মী সম্মেলনের নামে ছাত্রলীগকে সাথে নিয়ে আওয়ামীলীগের প্রচারণা বন্ধ করুন। নইলে পাবলিকের মাইর একটাও মাটিতে পরবে না। সো খুব খিয়াল কইরা……

১৪ thoughts on “শাহবাগ এবং ইমরান গং

  1. ব্লগকে ব্লগের মতই থাকতে দিন,
    ব্লগকে ব্লগের মতই থাকতে দিন, ফেসবুকের মত স্ট্যাটাস আপডেট দেয়া বন্ধ করুন।

    1. ব্লগ জিনিসটা কি, সেইটা
      ব্লগ জিনিসটা কি, সেইটা সম্পর্কে আপনার আইডিয়া আছে, আংকেল?? :চিন্তায়আছি: :চিন্তায়আছি: :চিন্তায়আছি:

    2. আপনারে তো চিনলাম না
      আপনারে তো চিনলাম না মশায়।

      আপনি বলোগিং করেন, ভালো কথা, আগে ব্লগের সংজ্ঞা শিইখা আহেন।

      ব্লগিং কারো তাবেদারী, হুকুমদারীতে চলে না, সেটা জানেন?

  2. একদল আছে সব সময় অতি
    একদল আছে সব সময় অতি আদর্শব্যান আর তথাকথিত নিরপেক্ষ হতে গিয়ে আমাদের মূল উদ্দেশ্যটাকাই ভুলে বসে থাকে… যদি লক্ষ্য হয় দেশ রক্ষা তবীইসব ছাইপাঁশ কন্ট্রভারসি তৈরির বদলে একতাবদ্ধ থাকুন!! আমাদের এই যুদ্ধে জিততেই হবে! না হয় শুধু আওয়ামীলীগের নয় গোটা বাংলার কপালে দুঃখ আছে…
    হেফাজত-জামাত-বিএনপি গং-রা ৬৩ জেলা না আগামীতে ৫০৭-টা উপজেলায় বোমা হামালার মহড়া করবে!! তাই বলছি সাধু সাবধান… :ক্ষেপছি: :ক্ষেপছি: :ক্ষেপছি: :ক্ষেপছি: :ক্ষেপছি: :ক্ষেপছি:

  3. ভাঙন নয়, একতা চাই। যারা চায়
    ভাঙন নয়, একতা চাই। যারা চায় না, তাদের উদ্দেশ্য ভালো না। আওয়ামী অনলাইন যোদ্ধাদের নোংরা অনলাইন পলিটিক্স আন্দোলনের ক্ষতি করছে বলেই মনে করি। তাদের কাছে এখন রাজাকারের বিচারের চেয়ে দল মুখ্য হয়ে গেছে।

  4. এখানে স্পষ্টই বোঝা যায়
    এখানে স্পষ্টই বোঝা যায় গনজাগরন মন্চে সরকার হস্তক্ষেপ করছে । কর্মীদের কর্মসূচি না দেয়ার জন্য চাপ দিচ্ছে । নির্বাচনকে সামনে রেখে সরকার বাড়তি কোন চাপ নিতে চাচ্ছে না । এমনকি সরকারের একাধিক উদ্দেশ্য ও আছে সরকারের । যা আপনি কিছুটা ইঙ্গিত করেছেন । চার সিটি কর্পোরশনের সরকার পক্ষের ভরাডুবিকে মূলত গনজাগরন মন্চকেই দায়ী করা হচ্ছে । সোজা কথা মন্চের কর্মীরা সরাসরি সরকার দারা প্রভাবিত হচ্ছে । পিয়াল ভাই কি ট্রোজান হর্স বাল ছালের কথা বলছে, এসব হুদাই । তবে আশার বানি হচ্ছে, সবাই আজকের বৈঠকে একটি মতানৈক্যে পৌছেছে ।

    1. সরকারের বিরুদ্ধে কিছু কইলেই
      সরকারের বিরুদ্ধে কিছু কইলেই পিয়াল ভাই ট্রোজান হর্স দেখতে পান। :আমিকিন্তুচুপচাপ:

  5. নেতা টাইপ কয়েকটা চতুর শিয়াল
    নেতা টাইপ কয়েকটা চতুর শিয়াল এর জন্য আজ এউই অবস্থা !!!! চেতনার মূল্য এরা রাজনীতির দামে কিনতে চায়

  6. এই সমস্ত ধান্দাবাজ লোক
    এই সমস্ত ধান্দাবাজ লোক মানুষকে ঠকায় এই বলে যে এরা মুক্তিযুদ্ধের আসল চেতনা বহন করে, কিন্তু ভেতরে এরা একটা ভণ্ডের শিরোমণি। গণজাগরণ মঞ্চের আসল উদ্দেশ্য ভুলে কে কীভাবে নেতা হতে পারে সেই দিকে এখন সকল মনোযোগ। এমন একখান ভাব যে এরাই গণজাগরণ এরাই সব, এদের ছাড়া কিছু সম্ভব না। শাহবাগকে তো এরা এখন বাপ দাদার সম্পত্তি মনে করে।
    কীভাবে অন্যের পিছে লেগে থাকবে এটাই এদের মুখ্য বিষয় এখন। গোলাম আযমের রায়ের কথা যদি মনে রাখতো তবে কুকুরের মত নেতা নেতা করতো না, গালিবাজি করতো না। এরা বুঝে শুধু ছাত্রলীগ, যা গণজাগরণ মঞ্চকে ধ্বংস করছে।
    আর ইমরান ভাই আগে তো ঠিক পথেই চলতো, এখন যে সে কি চিন্তা করে, বড় রহস্য করে রেখেছে।

  7. ইস্টিশন ব্লগের নতুন ব্লগার
    ইস্টিশন ব্লগের নতুন ব্লগার ‘জামান পায়েল’ এর অমি পিয়ালের একটি স্ট্যাটাসে কমেন্ট নিচে,
    “””#ইষ্টিশনের কয়লার গাড়ী’র নাকি আর ভালো লাগছে না ওরাল।
    খবিশ রায়হান ও নাকি আর সামলাতে পারছেনা। মাঝে মাঝে “মহামান্য কহেন” কে দিয়া কাজ চালাইতো। আরো কিছু ছিল। কিন্তু ওরালের জন্য বেস্ট ছিল খাসী আসিফ। আসলে ইষ্টিশনের মালগাড়ীরা যাদের ওরালে আসক্ত হয়, তাকে ছাড়া অন্য কিছু কল্পনা ও করতে পারে না। তাই নাকি এমন অবস্থা।
    এই বিষয়ে খবিশ রায়হান বলেন, “জ্বী, আমি আর সামলাতে পারছি না। আসিফ না থাকায়, সব লোড স্বামী হিসেবে আমার উপর।”
    অন্য এক প্রশ্নের জবাবে খবিশ বলেন, “না, না, না … ওরাল ই আমার সম্বল। তবে পাট শাকের ক্ষেত ভেদ কইরা ওরাল? অসম্ভব”
    মহামান্য কহেন কে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, “ওহ! নাইস এ্যন্ড কিউট। আমি তাকে মান্য করি। যা বলে তাই করি। হুম, আমি ওরাল ও করতাম। কিন্তু আমি নাকি আসিফের চেয়ে ছোট মানের খাসী”
    এ ব্যাপারে মুঠোফোনে শামীমা পুটু ওরফে ওরাল সম্রাজ্ঞী বলেন, আমি এবার খাসী বিরোধী কাউকে দিয়ে স্যাটিসফাইড হতে চাই। সে হতে পারে দাদী বা নাতী। বাকোন র্যাপিষ্ট। আমার এখন দরকার শুধুই সুখ। তবে, খাসী আসিফ আমার ফার্স চয়েস …
    এক প্রশ্নের উত্তরে তেলেরব্যারেল ওরফে শামীমা পুটুবলেন, “পাট ক্ষেত হোক আর ঝাড়ুর মুতা হোক, খবিশ কে ডাকলে সে সব বাঁধা অতিক্রম করে আমাকে … … … “#”””

    এই গালিবাজ লোকটা যে ইস্টিশনে একটা বিশেষ উদ্দেশ্য নিয়াই আসছে এটা নিশ্চিত। চিনে রাখুন।

  8. আওয়ামীলীগের উপর থেকে বিশ্বাস
    আওয়ামীলীগের উপর থেকে বিশ্বাস উঠে যাচ্ছে আস্তে আস্তে। যেদিন সব রাজাকারের ফাসি দিতে পারবে আওয়ামীলীগ সেদিন আবার বিশ্বাস পুনর্বহাল হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *